আর কত ভাসতে হবে চোখের জলে

ইমদাদুল হক মিলন
নীল হাফপ্যান্ট পরা কিশোর ছেলেটির লাশ কাঁধে নিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন বাকরুদ্ধ পিতা। তাঁর মুখের দিকে তাকানো যায় না, চোখের দিকে তাকানো যায় না। শোকে পাথর হয়েছেন তিনি, কাঁদতে ভুলে গেছেন। অসহায় চোখে তাকিয়ে আছেন বাংলাদেশের দিকে।

মানুষের জন্য এই পৃথিবীতে সবচেয়ে ভারী বোঝা কী? পিতার কাঁধে সন্তানের লাশ। সন্তানের লাশ কাঁধে এই পিতার ছবি দেখে যে কেউ দিশেহারা হবেন, মুহূর্তের জন্য ভুলে যাবেন কথা বলতে। মানুষের চোখ ভরে আসবে জলে, মানুষের চোখ ভিজে যাবে জলে।

আমরাও দিশেহারা হচ্ছি, কথা বলতে ভুলে যাচ্ছি। আমাদেরও চোখ ভিজছে চোখের জলে।

কালের কণ্ঠে ছাপা হয়েছে হৃদয়বিদারক কিছু ছবি। এক কিশোরের লাশের সামনে বসে আছেন অসহায় স্বজনরা। একজন ঝুঁকে আছেন কিশোরের মৃত মুখের ওপর। হয়তো তাঁর চোখে ছানি, চোখে ভালো দেখতে পান না। তবু দেখার চেষ্টা করছেন তাঁর প্রিয় কিশোরটি সত্যি সত্যি চলে গেছে, নাকি তখনো শরীরের ভেতর লুকিয়ে আছে তার আত্মা! পাশে ছাপা হয়েছে আরেক মর্মান্তিক ছবি। ডোবায় খোঁজা হচ্ছে কিশোরদের লাশ, আর ডোবার একপাশে জড়ো হয়েছে কিশোরদের জুতা-স্যান্ডেল। লাশ তখনো ভেসে ওঠেনি, জুতা-স্যান্ডেল ভেসে উঠেছে।

এই দৃশ্য কেমন করে সহ্য করে মানুষ, কেমন করে তাকায় এই দৃশ্যের দিকে! আর কত প্রাণ যাবে এভাবে, এ রকম আর কত মৃত্যু দেখতে হবে আমাদের! আর কত ভাসতে হবে চোখের জলে, আর কত কাঁদতে হবে! মীরসরাইয়ের ঘটনায় আজ কাঁদছে বাংলাদেশ। চোখের জলে ভাসছে বাংলাদেশ।

ফুটবল খেলা শেষ করে প্রতিপক্ষকে হারিয়ে বিজয়ের আনন্দে মেতে উঠেছিল ৬০-৬৫ জন কিশোর। তাদের বয়স ১০ থেকে ১৭ বছরের মধ্যে। মিনিট্রাকে করে ফিরছিল তারা। মিরসরাইয়ে, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে বড়তাকিয়া বাজারের এক কিলোমিটার পশ্চিমে বড়তাকিয়া-আবুতোরাব সড়কের দক্ষিণ সৈদালী গ্রামে এসে…
তার পরের বর্ণনা দিতে বুক ফেটে যাচ্ছে। ড্রাইভার ট্রাক চালাচ্ছিলেন না, চালাচ্ছিল হেলপার। খুবই কাঁচাহাতে এলোমেলোভাবে চালাচ্ছিল ট্রাক। আনন্দ-উল্লাসে ফেটে পড়া কিশোররা মাঝে মাঝে ভয় পাচ্ছিল। একসময় এমন দ্রুতগতিতে, বেপরোয়াভাবে ট্রাকটি একটা ব্রিজে উঠল, কিশোররা ছিটকে পড়ল ট্রাকের ভেতর। দেখা গেল চালক নির্বিকার ভঙ্গিতে মোবাইল ফোনে কথা বলছে। ঠিক তখনই উল্টো দিক থেকে আসছিল একটি নছিমন। সেই নছিমনটিকে পাশ কাটাতে গিয়ে ট্রাকটি পড়ে গেল ডোবায়। পড়ল এমনভাবে উল্টে, পানির তলায় কিশোররা একটা খাঁচায় বন্দি হয়ে গেল। তাদের চারদিকে উল্টে যাওয়া ট্রাকের ব্যারিকেড। বেরোনোর কোনো পথ নেই। ১৫-১৬ জন কিশোর ছাড়া বাকি সবাই লাশ হয়ে গেল। দুর্ঘটনার পর থেকে ওই এলাকার বাতাস ভারী হয়ে গেছে মানুষের দীর্ঘশ্বাসে, দশ দিগন্ত কাঁপছে মানুষের আহাজারিতে। মিরসরাইয়ের সঙ্গে আহাজারি করছে সারা দেশ।

এ রকম দুর্ঘটনা কি ঘটে পৃথিবীর অন্য কোনো দেশে! এভাবে কি জীবন দিতে হয় কাউকে! সড়ক দুর্ঘটনায় বছরে কত মানুষ মারা যাচ্ছে বাংলাদেশে, কত মানুষ পঙ্গু হয়ে বেঁচে আছে মৃতের মতো! কত পরিবার নিঃস্ব হয়ে যাচ্ছে, কত পরিবারের স্বপ্ন ধূলিসাৎ হয়ে যাচ্ছে মুহূর্তে! এই যে এতজন কিশোর মারা গেল, যে পরিবারের ছেলেটি চলে গেল তার পরিবার কোন প্রাণে সইবে এই বেদনা? মা-বাবা কেমন করে সইবেন তাঁদের পুত্র হারানোর বেদনা, বোন কেমন করে ভাববেন তাঁর ভাইটি নেই, ভাই কেমন করে ভাববেন তাঁর ভাই নেই! কিশোর ছেলেগুলোর বেঁচে যাওয়া বন্ধুরা কেমন করে বয়ে বেড়াবে এই দুঃসহ স্মৃতির বোঝা!
লাশ কাঁধে দরিদ্র অসহায় পিতাটির নিশ্চয় স্বপ্ন ছিল, এই ছেলে লেখাপড়া শিখে বড় হবে, বদলে দেবে পরিবারের চেহারা, বদলে দেবে দেশের চেহারা। তার আলোয় আলোকিত হবে পরিবার এবং দেশ।
সব আলো নিভে গেল।

আমাদের আলোগুলো এভাবে নিভিয়ে দিচ্ছে কারা? দিচ্ছে একশ্রেণীর দায়িত্বজ্ঞানহীন মানুষ। তারা একবারও ভাবে না, তাদের কারণে যে পিতা তাঁর পুত্রের লাশ কাঁধে দাঁড়িয়ে আছেন, এভাবে তাকেও একদিন দাঁড়াতে হতে পারে। আর প্রশাসন? প্রশাসন কেন কঠোর হচ্ছে না দায়িত্বজ্ঞানহীন এই চালকদের ব্যাপারে। গাড়ি চালানোর সময় মোবাইল ফোন ব্যবহার করা নিষিদ্ধ হওয়ার পরও চালকরা মোবাইল ফোন ব্যবহার করেই যাচ্ছেন, আইনের তোয়াক্কাই করছেন না। ভুয়া লাইসেন্স নিয়ে গাড়ি চালাচ্ছে একশ্রেণীর ভুয়া ড্রাইভার। মানুষের জীবন নিয়ে তারা ছিনিমিনি খেলছে।

এ অবস্থা বদলাতেই হবে। বেপরোয়া গাড়ির চাকায় আমরা আমাদের আর একজন মানুষকেও পিষ্ট হতে দেখতে চাই না। আমাদের একটি সন্তানকেও আমরা মিরসরাই ট্র্যাজেডির মতো করে হারাতে চাই না।

মিরসরাইয়ের ঘটনায় যেসব বাবা-মা তাঁদের সন্তান হারিয়েছেন, যে ভাইবোন হারিয়েছেন তাঁদের ভাইটিকে, যে কিশোর হারিয়েছে তার বন্ধু, আমি প্রার্থনা করি পরম করুণাময় যেন তাঁর করুণাধারা এসব মানুষের ওপর বর্ষণ করেন। এই শোক সামলানোর ক্ষমতা যেন তাঁদেরকে দেন। দেশের মানুষ যেন এই শোককে শক্তিতে রূপান্তরিত করে ব্যাপকভাবে প্রতিরোধ করতে পারে এ ধরনের দুর্ঘটনা।

Leave a Reply