মুন্সীগঞ্জ-ঢাকা সড়ক দু’সপ্তাহ বন্ধ ॥ কর্তৃপক্ষ নির্বিকার

প্রতিদিন ক্ষতি হচ্ছে কোটি টাকা
মীর নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বল, মুন্সীগঞ্জ ॥ মুন্সীগঞ্জ-ঢাকা সড়ক ২ সপ্তাহ ধরে বন্ধপ্রায়। এই সড়কের মুক্তারপুর থেকে পঞ্চবটি পর্যনত্ম ৮ কিলোমিটার সড়কের চরসৈয়দপুর, ভোলাইল ও শাসনগাঁও এলাকায় এক কিলোমিটার রাস্তা এখন ল-ভ-। দেখে মনে হবে না এটি কোন রাস্তা, যেন ধ্বংসসত্মূপ । রাজধানী ঢাকার সঙ্গে জেলা শহর মুন্সীগঞ্জের যোগাযোগের বেহাল অবস্থার কারণে এই অঞ্চলের অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। শিল্পনগরী মুক্তারপুর এবং নারায়ণগঞ্জের বিসিক শিল্পনগরীসহ আশপাশের আড়াই শ’ শিল্প কারখানা মারাত্মক ক্ষতির সম্মুখীন। যোগাযোগ ব্যবস্থার এই নাজুক পরিস্থিতিতেও কতর্ৃপক্ষ নির্বিকার। ৮ কিলোমিটার সরম্ন এই সড়ক চার লেন উন্নীত করতে সাড়ে ৩শ’ কোটি টাকার প্রকল্প পরিকল্পনা কমিশনে জমা দিয়েই যেন দায় শেষ সেতু কর্তৃপক্ষের।

সড়ক ও জনপথের এ সড়কটির নতুন মালিকানা পেয়েছে বাংলাদেশ সেতু কতর্ৃপক্ষ। মুক্তারপুর সেতুর সঙ্গে রিলেটেট দেখিয়ে প্রায় ৮ মাস আগে সড়কটির মালিকানা নেয় সেতু কতর্ৃপক্ষ। কিন্তু গত কয়েক মাস ধরে রাস্তাটির ভয়ঙ্কর অবস্থায় তাদের কোন বিকার নেই। অবস্থা দেখে মনে হয়-এই রাসত্মা দেখার যেন নেই কেউ।

সেতু কতর্ৃপক্ষের সংশিস্নষ্ট নির্বাহী প্রকৌশলী সফিকুল ইসলাম মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জনকণ্ঠকে জানিয়েছেন, শুষ্ক মৌসুম অর্থাৎ অক্টোবরের আগে সড়কটির সংস্কার সম্ভব নয়। তবে ল-ভ- সড়কের ইটের খোয়া ফেলার জন্য অস্থায়ীভাবে ঠিকাদার নিয়োগ করে ইতোমধ্যেই ১০ লাখ টাকা খরচ করা হয়েছে।

বিস্ময়কর বিষয় হচ্ছে-সড়কটির এই ল-ভ- অবস্থার মূলেই পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা না রাখা। বৃষ্টির পানি জমে গিয়ে সড়কটি কয়েকটি অংশ ডুবে যায়। এটি আগেই ভাবনার কথা থাকলেও রহস্যজনক কারণে নীরব ছিল কতর্ৃপক্ষ। আর বৃষ্টির মৌসুম আসতেই বিপর্যয় ঘটে! ডুবনত্ম সড়কে গাড়ি চলাচল করতে গিয়ে পিচ উঠে এই ছোটবড় অসংখ্য গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। অথচ রাসত্মা থেকে পানি সরে যাওয়ার জন্য পাইপ স্থাপনেই সমস্যার সমাধান হতে পারত।

এই রাসত্মা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় কোটি কোটি টাকা ক্ষতি হচ্ছে। মুক্তারপুরের ক্রাউন সিমেন্টের (এমআই সিমেন্টে ফ্যাক্টরি) পরিচালক আলমগীর কবির জানান, এই রাসত্মাটুকুর কারণে প্রতিদিন ২ থেকে ৩ কোটি টাকা ক্ষতি হচ্ছে। মুক্তারপুরের শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে প্রতি বছর ৭শ’ কোটি টাকা সরকারের রাজস্ব আয় হচ্ছে। অথচ সরকার সড়কটি সচল রাখতে কার্যকর কোন ভূমিকা নিচ্ছে না। তাই বছরের পর বছর শুধু এই রাসত্মার কারণে চরম ক্ষতি হচ্ছে। তিনি জানান, অর্ডার অনুযায়ী শুধু ক্রাউন সিমেন্ট রফতানি না হওয়ায় লাখ লাখ ডলার বিদেশী মুদ্রা থেকে দেশ বঞ্চিত হচ্ছে। গত জুন মাসে ২ লাখ ব্যাগ সিমেন্ট রফতানির অর্ডার থাকলে সেখানে রফতানি হয়েছে অর্ধেক, এক লাখ ব্যাগ। তিনি আশঙ্কা করেন- সময়মতো এঙ্পোর্ট না করার কারণে হয়ত বাজার হারাতে হবে। অন্য শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলোর একই অবস্থা। এই অবস্থা চলমান থাকলে কয়েক হাজার শ্রমিক তাদের চাকরি হারাবে। রাসত্মার করম্নণ দশার কারণে এ পথের পরিবর্তে বর্তমানে অন্য পথ দিয়ে মুন্সীগঞ্জের মানুষ চলাচল করতে গিয়ে সময় ও অর্থ দু’টিরই বিরাট অপচয় গুনছে। আর নানা রকমের ঝুঁকি আর লাঞ্ছনা তো রয়েছেই। গত ১৫ দিন ধরেই সড়কটি বন্ধ প্রায়। মাঝে মধ্যে খোয়া ফেলে চলাচল শুরম্ন হলেও আবার বন্ধ হয়ে যায় গর্তে গাড়ি আটকে গিয়ে।

সেতু কতর্ৃপক্ষের নির্বাহী প্রকৌশলী সফিকুল ইসলাম জানান, এই ৮ কিলোমিটার রাসত্মাটির চার লেনে উন্নীত করার একটি প্রকল্প তৈরি করে চার মাস আগে পরিকল্পনা কমিশনে জমা দেয়া হয়েছে। তবে এখনও গ্রীন মার্কই লিস্টেই আসেনি। সাড়ে ৩শ’ কোটি টাকার এই প্রকল্প অনুমোদন হলে বাসত্মবায়নে সময় লাগবে চার বছর। পুরনো রাসত্মা কাজে লাগানো হবে সাড়ে তিন কিলোমিটার। আর পাশ দিয়ে নতুন রাসত্মা করতে হবে চার কিলোমিটার। অাঁকাবাঁকা কমে যাওয়ায় দূরত্ব আধা কিলোমিটার কমে সড়কটি হবে সাড়ে ৭ কিলোমিটার। তবে এই সময়ে রাসত্মাটি সচলের জন্য সাড়ে ৩ কোটি টাকার একটি প্রকল্প গ্রহণের প্রক্রিয়া চলছে বলে তিনি জনকণ্ঠকে জানান।

এদিকে সড়ক ও জনপথ বিভাগের একটি সূত্র জানিয়েছে, বিগত বিএনপি সরকারের সময় ২০০৩ সালেই মুক্তারপুর সেতু প্রকল্প বাসত্মবায়নের সাথেই সেতুর সঠিক ব্যবহারের জন্য মুক্তারপুর থেকে শীতলক্ষ্যার পাশ ঘেঁষে নিতাইগঞ্জ হয়ে চাষাঢ়া পর্যনত্ম ৬ কিলোমিটার রাসত্মার প্রকল্প গ্রহণ করা হয়। এতে ব্যয় ধরা হয় ৩০ কোটি টাকা। চীন সরকারের অনুদানে সেতুর মতো রাসত্মাটি বাসত্মবায়ন করার ইচ্ছা প্রকাশ করে সেতু ব্যবহার উপযোগিতার স্বার্থে। কিন্তু সড়ক ও জনপথের কতিপয় কর্তা ব্যক্তি নিজেদের উদ্যোগেই করার সিদ্ধানত্ম নেয়। কিন্তু তৎকালীন যোগাযোগমন্ত্রীর অবহেলায় তা বাসত্মবায়িত হয়নি। যার দরম্নন মুক্তারপুর সেতু বাসত্মবায়িত হলেও এর সুফল পাচ্ছে না এই অঞ্চলের মানুষ।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, সড়কটির চরসৈয়দপুর হতে ফকিরবাড়ি আধা কিলোমিটার পর্যনত্ম সড়কে রয়েছে কয়েক শ’ গর্ত। এ পথের অনুরূপ চিত্র ভোলাইল ও শাসনগাঁও নারায়ণগঞ্জের বিসিক শিল্প নগরী পর্যনত্ম। এই অংশেও ছোট বড় অসংখ্য গর্ত । এ গর্তে আবার পানি জমে থাকার কারণে যাতায়াতে পরিস্থিতি আরও নাজুক করে তুলেছে। সরম্ন রাসত্মার কারণে এ বড় গর্তের মধ্যে কোন ভারি যানবাহন পড়ে গেলে সেদিন আর এ পথ দিয়ে অন্য কোন যানবাহন চলাচল করতে পারে না। স্কুলছাত্রী রম্নমানা আক্তার জানান, এ পথ দিয়ে ঢাকা গিয়ে মনে হয়েছে নাগরদোলায় চেপে ঢাকায় যাচ্ছি। আর এ পথে কোন রোগী গেলে তো তার অবস্থা হয় আরও করম্নণ।

এসব কারণে এ পথ পরিহার করে যাত্রীবাহী বাসগুলো ঢাকা-মাওয়া সড়কের সিরাজদিখান বা শ্রীনগর অংশ দিয়ে যাতায়াত করছে। এতে এ পথে যাত্রীদের সময় বেশি লাগছে। যেখানে নারায়ণগঞ্জ হয়ে ঢাকায় ২৭ কিলোমিটার রাসত্মার ভাড়া ৪০ টাকা। সেখানে এখন শ্রীনগর বা সিরাজদিখান ঘুরে প্রায় ৬৫ কিলোমিটার রাসত্মার জন্য যাত্রীদের ভাড়া গুনতে হচ্ছে ৫০ টাকা। গত বিএনপি সরকারের সময় এ রাসত্মার বেহাল দশার কারণে মুন্সীগঞ্জ সওজ বিভাগের উর্ধতন কর্মকর্তারা এ পথে না এসে অধিক অর্থ ব্যয় করে নারায়ণগঞ্জের পাগলা থেকে স্পিডবোটে মুন্সীগঞ্জে যাতায়াত করতেন। বর্তমান কর্মকর্তারা এই নাজুক পথে যাতায়াত করেন না। বর্তমান সরকারের মন্ত্রী ও উর্ধতন কর্তা ব্যক্তিরাও অনেক দিন ধরে এ পথে আসেন না। যার কারণে এ পথের সঠিক চিত্র সম্পর্কে তাঁদের ধারণা নেই।

দিঘীরপাড় পরিবহনের চেয়ারম্যান জগলুল হালদার বলেন, এই ভাঙ্গা রাসত্মায় গাড়ি চালাতে গিয়ে অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে গেছে তাঁর কোম্পানির ৪০টি নতুন গাড়ির। তাই গাড়ি বন্ধ রাখছে বা অন্য পথে চলাচল করছে। একই বক্তব্য পিটিএল বাস কোম্পানির চেয়ারম্যান মোঃ কিরনের। তিনি জানান, রাস্তার এত খারাপ অবস্থা বাংলাদেশের কোথাও নেই।

এদিকে মুন্সীগঞ্জ শহর থেকে বের হওয়ার মুখে মুক্তারপুর পূর্ণিমা পাম্পের কাছে রাসত্মায় বিরাট কয়েকটি গর্ত। বৃষ্টি হলে এ গর্তে পানি জমে যায়। এর ফলে ভারি যানবাহন এ গর্তে পড়ে গেলে এ রাসত্মা দিয়ে আর কোন যানবাহন চলাচল করতে পারে না। অথচ এ গর্তের মধ্যে ইটের খোয়া দিলে প্রাথমিক এ রাসত্মাটি ব্যবহারের উপযোগী হয়ে ওঠে। এ অবস্থা দুর্গাবাড়ীতেও বিরাজ করছে। এই অংশের মালিক সড়ক ও জনপথ বিভাগ। কিন্তু তাদের ঘুম ভাঙ্গে না।

মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোঃ আজিজুল আলম জানান, রাসত্মার এই পরিস্থিতির কথা সরকারের সংশিস্নষ্ট কর্তৃপক্ষকে অবগত করা হয়েছে। সড়কটি মেরামতের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

Leave a Reply