চলছে ব্যক্তি-বন্দনা

মুন্সীগঞ্জ : আওয়ামী লীগ
সোনিয়া হাবিব লাবনী, মুন্সীগঞ্জ: কোন্দলে বিপর্যস্ত মুন্সীগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ। তাই দিন দিন দুর্বল হয়ে পড়ছে দলের ভিত। বর্তমানে জেলা আওয়ামী লীগ চার ভাগে বিভক্ত। দল নয়, চলছে ব্যক্তির রাজনীতি এমন অভিযোগ দলের অনেক নেতা-কর্মীর। আর নিয়মিত কাউন্সিল না হওয়া এবং জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. মহিউদ্দিন ও তাঁর সহোদর মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার চেয়ারম্যান আনিসুজ্জামানের মধ্যকার দ্বন্দ্বকে দায়ী করছেন দলের নেতা-কর্মীরা। মনে করা হচ্ছে, এই বিভক্তির কারণে গত পৌর নির্বাচনে নিজেদের প্রার্থী নির্বাচন সঠিক না হওয়ায় পরাজিত হতে হয়েছে আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে।

২০০৩ সালে জেলা আওয়ামী লীগের সর্বশেষ কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হলেও নানা জটিলতা ও গ্রুপিংয়ের কারণে তা অনুমোদন পায় ২০০৬ সালে। তিন বছর মেয়াদি ওই কমিটির মেয়াদ শেষ হয় ২০০৯ সালে। কিন্তু এর পর দেড় বছর পার হয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত কাউন্সিল না হওয়ায় এ ব্যাপারে উদ্বিগ্ন নেতা-কর্মীরা। মুন্সীগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. মহিউদ্দিন একই পদে ২০ বছর ধরে আছেন। এখন পর্যন্ত দলীয় কার্যালয় করতে পারেননি। রাজনৈতিক জীবনে তাঁর এলাকায় তিনি আলোচিত-সমালোচিত হয়েছেন বহুবার। রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ তাঁরই সহোদর একই দলের নেতা এবং বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান। তাঁদের মধ্যকার দ্বন্দ্বে তাঁদেরই আরেক ভাইয়ের ছেলে খুন হয়। সেই খুনের মামলায় তিনি আসামি হন এবং জেলে যান।

আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর টেন্ডারবাজি-চাঁদাবাজি এবং বালুমহাল থেকে বালু বিক্রি করে অনেকে শূন্য থেকে লাখপতি হয়ে গেছে। শহর যুবলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ফরহাদ হোসেন আবীর বলেন, ‘বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পরপরই ছাত্রলীগ-যুবলীগের কয়েকজন নেতা জেলা পরিষদ, এলজিইডি, পৌরসভাসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কাজের টেন্ডার নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেয়। কাজ করার যোগ্যতা না থাকায় অনেকেই নিজের কাজ বিএনপি নেতাসহ অন্য ঠিকাদারদের কাছে বিক্রি করে দেয়। পট পরিবর্তনের পরপরই মহিউদ্দিনের ছেলে ফয়সাল বিপ্লব রাতারাতি মুক্তারপুর সেতুর টোল আদায় নিজের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেন। এ ছাড়া বালুমহালের টাকার একটি অংশ ঘরে বসেই পেয়ে যান ফয়সাল বিপ্লব। টেন্ডারসহ বিভিন্ন অপকর্মের কারণে গত ১২ জুন দল থেকে পদত্যাগ করি।’ এদিকে, শহর ছাত্রলীগের সভাপতি মারেকুন মাকসুদ বিপুল বলেন, ‘হয়তো অদৃশ্য কোনো চাঁদাবাজি হতে পারে। আমার দেখা ও জানামতে, দল ক্ষমতায় আসার পর থেকে যুবলীগ নেতা ফয়সাল বিপ্লব প্রায় ২০০ লোককে কর্মসংস্থানের সুযোগ করে দিয়েছেন।’ তিনি আরো বলেন, ‘আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে ছাত্রলীগ নামধারী কর্মীরা বাস কাউন্টারে চাঁদাবাজি শুরু করলে ডিটিএল বাস সার্ভিস বন্ধ করে দেওয়া হয়। পরে আমরা আবার তা চালু করি। মুন্সীগঞ্জে পাঁচটি বালুমহাল রয়েছে, যার মধ্যে উপজেলা চেয়ারম্যান আনিসুজ্জামান আনিস একটি, আর মহিউদ্দিনের অনুসারীরা চারটি নিয়ন্ত্রণ করেন।’

১/১১-এর সময় শীর্ষ ৫০ দুর্নীতিবাজ প্রভাবশালীর তালিকায় ছিল মো. মহিউদ্দিনের নাম। সেই সময় তিনি গা-ঢাকা দেন। তখন তাঁর ছোট ভাই বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান আনিসুজ্জামান আনিস দলের হাল ধরেন। ২০০৯ সালের জাতীয় নির্বাচনে মনোনয়ন আশা করেও সফল হননি, যদিও তৃণমূলের ভোটে তিনি প্রথম হয়েছিলেন। কিন্তু এমন একজনকে মনোনয়ন দেওয়া হলো, যার কথা কেউ ভাবেনি। চাকরি জীবন শেষে সরাসরি মুন্সীগঞ্জ-৩ আসন থেকে সংসদ নির্বাচন করে জয়ী হয়ে রাজনীতিতে আসেন এম ইদ্রিস আলী। কিন্তু সংসদ সদস্য হয়েও দলে তাঁর অবস্থান গড়ে নিতে পারেননি তিনি। তবে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির সঙ্গে বনিবনা না হলেও আনিসুজ্জামানের সঙ্গে তাঁকে মাঝেমধ্যে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে দেখা যায়। দুই ভাইয়ের এই কোন্দলের সুযোগে দলে অবস্থান সুসংহত করতে চান আরেক কেন্দ্রীয় নেতা মৃণাল কান্তি দাস। দলের কেন্দ্রীয় কমিটির উপদপ্তর সম্পাদক হওয়ার পর থেকে তিনি মুন্সীগঞ্জে সময় দিতে শুরু করেন এবং মহিউদ্দিন ও তাঁর ছেলে ফয়সাল বিপ্লবকে তিনি তাঁর জেলায় রাজনীতিতে হুমকি মনে করেন। এলাকায় তাঁর অবস্থান ঠিক রাখতে সঙ্গে নেন আনিসুজ্জামান আনিসকে। সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে না পারা মহিউদ্দিন দলে অবস্থান ঠিক রাখতে উপজেলা নির্বাচনে তাঁর ছেলে ফয়সাল বিপ্লবকে প্রার্থী নির্বাচিত করেন। কিন্তু তা মেনে না নিয়ে তাঁর সহোদর আনিসুজ্জামান ওই নির্বাচনে অংশ নেন এবং বিপুল ভোটে নির্বাচিত হন।

গত পৌর নির্বাচনে দলীয় কোন্দল থাকায় মহিউদ্দিনের ছেলে বিপ্লব মেয়রপ্রার্থী হলে এর বিরোধিতা করে চাচা আনিসুজ্জামান, এম ইদ্রিস আলী এবং মৃণাল কান্তি দাস একজোট হয়ে মহাজোটের প্রার্থী জাতীয় পার্টির অ্যাডভোকেট মুজিবুর রহমানের পক্ষে নির্বাচন করেন। কিন্তু নির্বাচনে জয়ী হন বিএনপির প্রার্থী ইরাদত মানু। তবে দলের তিন প্রভাবশালী নেতা একসঙ্গে নির্বাচন করেন অ্যাডভোকেট মুজিবুর রহমানের পক্ষে এবং মহিউদ্দিন একা নির্বাচন করেন তাঁর ছেলে ফয়সাল বিপ্লবের পক্ষে। বিএনপির প্রার্থীর সঙ্গে অল্প ব্যবধানে পরাজিত হন বিপ্লব। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ছাত্রলীগ নেতা বলেন, ‘শেখ হাসিনার দুঃসময়ে যাঁরা তাঁর সঙ্গে ছিলেন, নেত্রী তাঁদের মূল্যায়ন করেছেন। কিন্তু আমরা যাঁরা মুন্সীগঞ্জে গত বিএনপির সময় নির্যাতিত হয়েছি, দল ক্ষমতায় আসার পর তাঁদের কোনো মূল্যায়ন করেননি স্থানীয় নেতারা। তাঁরা শুধু আখের গোছানো নিয়ে ব্যস্ত।’ জেলা কমিটির পাশাপাশি শ্রীনগর এবং সিরাজদিখান উপজেলায়ও একক নেতৃত্বে দল চালানোর কারণে মধ্যম সারির নেতারা বিমুখ হয়ে পড়েছেন। পাশাপাশি দলীয় কোন্দলও দিন দিন বাড়ছে।

মুন্সীগঞ্জ-১ নির্বাচনী এলাকা জেলার শ্রীনগর-সিরাজদিখান উপজেলা নিয়ে গঠিত। এই দুই উপজেলায় ২০০৪ সালে সর্বশেষ আওয়ামী লীগের সম্মেলন হয়। একই বছর শ্রীনগর উপজেলা যুবলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের সম্মেলন সম্পন্ন হয়। এরপর পার হয়ে যায় সাতটি বছর। দল ক্ষমতায় আসার পর দলীয় কোন্দলে নেতা-কর্মীরা দ্বিধাবিভক্ত হয়ে পড়েন। স্থানীয় সংসদ সদস্য সুকুমার রঞ্জন ঘোষ শ্রীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি; দীর্ঘ প্রায় দুই যুগ ধরে একই দায়িত্বে রয়েছেন। স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের অভিযোগ, সুকুমার রঞ্জন ঘোষের অশুভ তৎপরতায় নতুন নেতৃত্ব সৃষ্টি হচ্ছে না। এতে ত্যাগী নেতা-কর্মীদের বড় একটি অংশ সংগঠনবিমুখ হয়ে পড়েছেন। আড়িয়াল বিলে বিমানবন্দর নির্মাণ ইস্যুতে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের একটি অংশ সুকুমার রঞ্জন ঘোষের বিপক্ষে অবস্থান নেয়।

বিক্ষুব্ধ নেতা-কর্মীরা জানান, সুকুমার রঞ্জন ঘোষ দলের ইমেজে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। অথচ নিজস্ব বলয় সৃষ্টি করে দলের ভাবমূর্তি নষ্ট করছেন। অন্য দলের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে তাঁদের সুযোগ সুবিধা দিচ্ছেন। অথচ দলীয় কর্মীদের খোঁজ-খবর নিচ্ছেন না। এর প্রভাব পড়ে সম্প্রতি শেষ হওয়া ইউপি নির্বাচনে। শ্রীনগর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নের মাত্র পাঁচটিতে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীরা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা এটাকে দলের বিপর্যয় মনে করছেন। এ অবস্থায় শ্রীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী সংগঠনগুলো ঢেলে সাজাতে না পারলে আগামী সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিপর্যয় নেমে আসবে।

সিরাজদিখান উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন ২০০৪ সালে সম্পন্ন হয়। উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হন মহিউদ্দিন আহম্মেদ। ১৯৯২ সালের আগে তিনি ন্যাপ মোজাফফরের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। আওয়ামী লীগে যোগদানের পরই উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন। এরপর থেকে একই দায়িত্বে আছেন দীর্ঘদিন। ২০০৮ সালে কেন্দ্রীয় যুবলীগ এক আদেশে সিরাজদিখান উপজেলা যুবলীগের কমিটির কার্যক্রম স্থগিত করে। দল ক্ষমতায় আসার পর আর যুবলীগের কমিটি গঠন করা হয়নি। উপজেলা নির্বাচনে মহিউদ্দিন আহম্মেদ উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। সেই থেকে দলের সঙ্গে তাঁর দূরত্ব বাড়ছে বলে নেতা-কর্মীদের অভিযোগ।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি হাবিবুল্লাহ বাহার এবং যুবলীগের সাবেক সভাপতি সোহরাব হোসেন কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা অরুণ চৌধুরীসহ আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতা-কর্মীরা মহিউদ্দিন আহম্মেদের কার্যক্রমে ক্ষুব্ধ। তাঁরা জানান, মহিউদ্দিনের নানামুখী ষড়যন্ত্রের শিকার এখন আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরাই। আসন্ন ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীর বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীদের জয়ী করার ক্ষেত্রে প্রশাসনকে প্রভাবিত করেছেন তিনি। অন্যদিকে, সিরাজদিখান উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল আলম খান দল ক্ষমতায় আসার পর ধলেশ্বরী-শীতলক্ষ্যা নদীতে অবৈধ বালু উত্তোলন সিন্ডিকেটের সঙ্গে যুক্ত হয়ে পড়েন। এতে দলের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়। বর্তমানে বালু উত্তোলন বন্ধ হলেও দলের ইমেজ সংকট কাটেনি।

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. মহিউদ্দিন কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আনিসুজ্জামান আনিস দলের কেউ নয়। দল ক্ষমতায় থাকলে সে বিএনপি নেতাদের সহযোগিতা করে এবং আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের বঞ্চিত করে। বিগত কমিটিতে আনিসুজ্জামান জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ছিল। তাকে আমিই বানিয়েছিলাম, আবার বর্তমান কমিটি থেকে আমিই তাকে বাদ দিয়েছি।’ এক প্রশ্নের জবাবে মো. মহিউদ্দিন বলেন, ‘গত পৌর নির্বাচনে তিন নেতা মিলে আমার ছেলের বিরুদ্ধে সুবিধাবাদী চরিত্রের অ্যাডভোকেট মুজিবুর রহমানের পক্ষে নির্বাচন করে মূলত আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে পরাজিত করে।’ ইউপি নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী মনোনয়ন সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘পৌর নির্বাচনে ভরাডুবির পর নেত্রী সবাইকে ডেকে নির্দেশ দিয়েছেন, ইউপি নির্বাচনে এমপি-মন্ত্রীরা নন, কাজ করবেন দলের স্থানীয় নেতারা। আর সেই লক্ষ্যে উপজেলা পর্যায়ে দলীয় সভা করে মনোনয়ন দিয়েছি। কিন্তু এম ইদ্রিস আলী নেত্রীর সেই নির্দেশ অমান্য করে বিভিন্ন ইউনিয়নে মনোনয়ন দিয়েছেন। এ জন্য আমাদের অনেক প্রার্থীর পরাজয় হয়েছে।’ জেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয় না থাকা প্রসঙ্গে তিনি জানান, ‘কার্যালয় করার জন্য পুরনো কাছারিতে খাসজমি অকশনে কিনলে তৎকালীন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার চেয়ারম্যান আনিসুজ্জামান আনিস তা মামলা করে বন্ধ করে রাখে। বর্তমানে আদালতের রায় পাওয়ার পরও জেলা প্রশাসকের অসহযোগিতায় কার্যালয়টি করা সম্ভব হয়ে উঠছে না। কেন্দ্রের নির্দেশ না পাওয়ায় নতুন কমিটি গঠন করা সম্ভব হচ্ছে না।

উপজেলা চেয়ারম্যান মো. মহিউদ্দিনের ছোট ভাই আনিসুজ্জামান আনিস দেশের বাইরে (আমেরিকা) থাকায় তাঁর বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি। মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য এবং শ্রীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুকুমার রঞ্জন ঘোষের মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাঁকে পাওয়া যায়নি।

Leave a Reply