মুন্সীগঞ্জ ১ আসনের রাজনীতিতে নতুন হাওয়া

বি.চৌধুরী বিএনপির ঐক্যমত্যের খবরে
মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সীগঞ্জ থেকে : বিকল্প ধারার সভাপতি বি.চৌধুরীর সাথে বিএনপির বরফ গলার খবর তার নির্বাচনী এলাকা শ্রীনগর সিরাজদিখানের রাজনীতির মাঠ এখন আলোচনার কেন্দ্র বিন্দুতে পরিণত হয়েছে। গত তিন দিনে শ্রীনগরে বিএনপি ও বিকল্পধারার নেতাকর্মীদের মাঝে বইছে নতুন হওয়া । আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীরাও শুরু করেছে অন্য হিসাব নিকাশ। এমনিতে বিএনপির ঘাঁটি হিসাবে পরিচিত মুন্সীগঞ্জ-১ আসন থেকে বিএনপির ব্যানারে ৫ বার এমপি নির্বাচিত হয়ে বি চৌধুরী একাধারে বিএনপি সরকারের স্বাস্থ্য মন্ত্রী, শিক্ষা মন্ত্রী, সংসদ উপনেতা, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও সর্বশেষ রাষ্ট্রপতি হয়েছিলেন । বিএনপি থেকে তার পদত্যাগের পর সঠিক নেতৃত্বের অভাবে শ্রীনগরে বিএনপি এখনও ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি । স্থানীয় রাজনীতিতে প্রভাব বিস্তারে বিএনপিতে তৈরি হয়েছে প্রায় হাফ ডজন গ্রুপিং । একাধিক গ্রুপের দ্বন্দ্ব দূর করার জন্য গত নবম জাাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি থেকে মনোনয়ন দেওয়া হয়

জাতীয় পার্টি সরকারের সময় উপ প্রধান মন্ত্রী ও প্রবীন রাজনীতিবিদ শাহ মোয়াজ্জেম হোসেনকে । বিএনপি নেতাদের অনেকে আশায় বুক বাঁধলেও জাতীয় পার্টির সময় শ্রীনগরে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করা অনেকেই শাহ মোয়াজ্জেমের সান্নিধ্যে চলে আসায় বিএনপির ত্যাগী নেতা কর্মীদের অনেকেই নিস্ক্রিয় হয়ে পড়েছেন । সে কারণে বি চৌধুরী যদি বিএনপিতে যোগ দেয় বা চারদলীয় জোটের সাথে জোট বাঁধে তাহলে আবার চাঙ্গা হয়ে উঠতে পাড়ে বিএনপি । অপর দিকে উপজেলা আওয়ামী লীগ গত ৩ বছর ধরে বিএনপিকে দুর্বল প্রতিপক্ষ মনে করলেও বি চৌধুরীর গুঞ্জন তাদেরকে কঠিন প্রতিপক্ষের মুখোমুখি দাঁড় করাতে পাড়ে ।

এমনটা মনে করছেন অনেক আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা কর্মীরা। স্বচ্ছ রাজনীতির কারণে বি চৌধুরীকে তার নির্বাচনী এলাকা মুন্সীগঞ্জ-১ আসনে রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বিরা তাকে ব্যক্তি হিসাবে শ্রদ্ধা করেন। গত সংসদ নির্বাচনে নিজ দল বিকল্প ধারার ব্যানারে নির্বাচন করে মহাজোট প্রার্থীর কাছ থেকে লক্ষাধিক ও চারদলীয় প্রার্থীর কাছ থেকে অর্ধলক্ষ ভোটে পরাজিত হয়ে এলাকার জনগন থেকে দূরে সরে রয়েছেন তিনি। বিএনপি থেকে পদত্যাগ নাকি এলাকার উন্নয়ন কাজে অনিহা তার নির্বাচনী ভরাডুবির কারণ তা এখনও শ্রীনগরে চায়ের দোকান ও রাজনৈতিক আড্ডার আলোচ্য বিষয়।

অনেকের মতে রাজনীতির মাঠে এত দীর্ঘ সময় নেতৃত্ব দিলেও শুধু মাত্র তার স্বদ ইচ্ছার অভাবে মুন্সীগঞ্জ ১ আসনে তেমন উন্নয়ন না করায় তার এ ভরাডুবির কারণ। একটি নির্বাচন থেকে অপর একটি নির্বাচন এভাবে ৫ বার এলাকার লোকজন তাকে ভোট দিয়ে সংসদে পাঠিয়েছেন। কিন্তু স্থানীয়ভাবে কোন সুফল আসেনি। এর চরম বিস্ফোরণ ঘটে ২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে। তিনি মহাজোট প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি সুকুমার রঞ্জন ঘোষের কাছে থেকে লক্ষাধিক ও চারদলীয় জোট বিএনপির প্রার্থী শাহ মোয়াজ্জেম হোসেনের কাছ থেকে অর্ধলক্ষ ভোট কম পান । এ নির্বাচনে এলাকার লোকজন তার কাছ থেকে মুখ ফিরিয়ে নেওয়ায় তিনি মানসিক ভাবে ভেঙ্গে পড়েন এবং এলাকায় যোগাযোগ কমিয়ে দেন। তার পদাঙ্ক অনুসরণ করেন চলমান রাজনীতিতে আসা বি চৌধুরীর ছেলে মাহী বি চৌধুরীও এলাকা ছাড়া ।

বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা মহাসচিব হিসাবে বি চৌধুরী বিএনপির রাজনীতিতে পা রাখেন ।এর পর তিনি জিয়াউর রহমানের অনুরোধে স্বাস্থ্য মন্ত্রী হিসাবে যোগ দেন। এরশাদ সরকারের পতনের পর মুন্সীগঞ্জ ১ আসন থেকে বিএনপির টিকিটে এমপি নির্বাচিত হয়ে শিক্ষা মন্ত্রী হিসাবে দায়িত্ব পান। এ সময় তিনি শ্রীনগর ও সিরাজদিখান উপজেলার কোন একটি বিদ্যালয়কে সরকারী করেননি। এতে স্থানীয়ভাবে ক্ষোভ দানা বাঁধে। ‘৯৬ এর নির্বাচনে একই দলের ব্যানারে নির্বাচন করে বিরোধী দলের উপনেতা হিসাবে সাংসদে গঠন মূলক বক্তব্য রাখলেও তিনি নির্বাচনী এলাকার লোকজনকে উন্নয়নের উপোষে ভুগিয়েছেন। তার বিরুদ্ধে স্থানীয় ক্ষোভ ধীরে ধীরে দানা বাঁধতে থাকে। পরের নির্বাচনে এমপি হয়ে তিনি পররাষ্ট্র মন্ত্রী হন। সেখান থেকে পরে তিনি রাষ্ট্রপতি হিসাবে শপথ নেন। রাষ্ট্রপতি হওয়ার পর এ আসনে ত্যাগী ও সিনিয়র নেতাদের বাদ দিয়ে ক্ষমতার জোরে নতুন মুখ হিসেবে তার ছেলে মাহী বি চৌধুরকে মনোনয়ন দেওয়া হয়। তার ছেলে সেই উপ নির্বাচন করে এমপি হন। মূলত সেখান থেকেই বি চৌধুরীর শুভাকাংখী ও ত্যাগী নেতাদের সাথে তার দূরত্ব বারতে থাকে।

তার সময়ে এলাকার উন্নয়ন হয়নি সত্য । কিন্তু লোকজন শান্তিতে ঘুমাতে পেড়েছে। কোন দাঙ্গা-হাঙ্গামা ছিল না। রাজনৈতিক ভাবে কাউকে হয়রানীর স্বীকার হতে হয়নি। তার দলের কেউ সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করলে তিনি তাদেরকে প্রশ্রয় দিতেন না। টেন্ডার বাজি ছিল না। আর এসব কারনেই তিনি ব্যক্তি হিসাবে এলাকায় জনপ্রিয় ছিলেন। তবে তার ছেলের সময় এখানকার পরিস্থিতি পাল্টে যেতে থাকে। বাবার ধারা থেকে সরে এসে মাহি বি চৌধুরী উল্টোপথে হেটেছেন। তারপরও পরিস্থিতি বর্তমান সময়ের মতো ছিল না। তৃনমুল রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, প্রশাসনের সব জায়গায় এখন রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ। থানা ওঠে বসে সরকার দলীয় লোকদের কথায়। বিরোধীদলের নেতা কর্মীদের মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করা হচ্ছে। খাস জমি ও সরকারী জায়গা দখলের মহৎসব চলছে। অনেক নেতা কর্মী প্রকাশ্যে মাদক ব্যবসা করছে। এসব কারণে বি চৌধুরীর অভাব বোধ করছে স্থানীয় জনগন।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply