এনেসথেসিস্ট পোস্টে অন্য ডাক্তার!

সিরাজদিখান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লে­ক্সের বেহালদশা:
সাকিল হাসান, মুন্সীগঞ্জ : মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লে­ক্সে এনেসথেসিস্টের অভাবে সাত মাস যাবৎ সিজারসহ বিভিন্ন ধরনের অপারেশন বন্ধ রয়েছে । ফলে জরুরী প্রসুতি ও বিভিন্ন ধরনের চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সিরাজদিখান ও পার্শ্ববতী উপজেলার বহু রোগী। রাজধানি ঢাকার অতি সন্নিকটে ৫০ বেডের হাসপাতালটিতে ২১টি পদের বিপরীতে ২১জন ডাক্তারই পদাসীন রয়েছেন। কিন্তু সেবার মান একেবারেই অপ্রতুল।

উলে­খ্য, মুন্সীগঞ্জ জেলার ৬ টি উপজেলার মধ্যে মুন্সীগঞ্জ সদর হাসপাতাল ও সিরাজদিখান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে­ক্স ব্যতীত অন্য কোন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে­ক্সে সিজার অপারেশনের ব্যবস্থা নেই। দূর্ভাগ্য হলেও সত্য যে, বর্তমানে ওই হাসপাতালে রহস্য জনক কারণে জুনিয়র কনসালটেন্ট (এনেসথেসিস্ট) ও এনেসথেসিস্ট এই দুইপদে অন্যবিভাগের দুই জন ডাক্তার পোস্টিং নিয়েছেন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বিধি অনুযায়ী ইওসি সেন্টার হাসপাতালগুলোতে গাইনি ও অঞ্জানের ডাক্তার আবশ্যক। সেক্ষেত্রে, সিরাজদিখান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে­ক্স ওই কেটাগরির হয়েও নিয়মনীতির তোয়াক্কা করছেনা কেন সে ব্যাপারে হাসপাতাল কতৃপক্ষ কোন সতুত্তর দিতে পারেনি। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ স্বপন কুমার তপাদার জানান, বিষয়টি উর্ধ্বতন কতৃপক্ষকে জানিয়েছেন। এ ব্যাপারে জেলা সিভিল সার্জন বনদীপ লাল দাশ জানান, বিষয়টি তিনি এখনই দেখছেন। তাছাড়া, বর্তমানে হাসপাতালের অধিকাংশ ডাক্তার নিয়মানুযায়ী এলাকায় অবস্থান করেন না বলে ভুক্তভোগীদের অনেকে অভিযোগ করেন।

সূত্রজানায়, ওই হাসপাতালে বর্তমানে ১৪জন নার্সের মধ্যে মাত্র ৭ জন দায়িত্ব পালন করছেন। ৫ জন ডেপুটেশনে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে দায়িত্ব পালন করছেন, ১ জন ট্রেনিংয়ে রয়েছেন ও ১টি পদ খালি রয়েছে। ফলে অল্প সংখ্যক নার্সের পক্ষে বর্তমানে হাসপাতালের ৩ সিফটে ৪/৫ টি ওয়ার্ডের রোগীদের সেবা প্রদান অত্যন্ত দূরুহ হয়ে পড়ছে। বর্তমানে হাসপাতালটিতে ২জন সুইপার, ১ জন মালি, ১ জন ওয়ার্ডবয়, ১ জন আয়া ও ১জন সিকিউরিটি গার্ডের পদ খালি রয়েছে দীর্ঘদিন যাবৎ।

বিডি রিপোর্ট ২৪

Leave a Reply