ধলেশ্বরী নদীতে বালু উত্তোলনের মহোৎসব

ধলেশ্বরী নদীর মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান ও ঢাকার কেরানীগঞ্জের সীমানায় চলছে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের মহোৎসব। প্রতিদিন নদী থেকে ২০টি ড্রেজার দিয়ে লাখ লাখ টাকার বালু তুলে বিক্রি করছে একটি সিন্ডিকেট। অপরিকল্পিতভাবে বালু উত্তোলনের ফলে নদীগর্ভে বিলিন হচ্ছে শত শত বিঘা কৃষিজমি।

স্থানীয়রা জানায়, ধলেশ্বরী নদীর সিরাজদিখান গোয়ালহাটি মৌজা ও কেরানীগঞ্জের সোনাকান্দা মৌজা বরাবর ধলেশ্বরী নদীতে ২০টি ড্রেজার বসিয়ে গত ১২ দিন ধরে অবৈধভাবে বালি উত্তোলন করছে একটি সিন্ডিকেট। অপরিকল্পিত ও অবৈধভাবে বালি উত্তোলনের ফলে নদী তীরবর্তী বাসিন্দারা আতঙ্কের মধ্যে দিনযাপন করছে। এসব ভূমিদস্যুদের বিরুদ্ধে কেউ প্রতিবাদ করলে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করা হয়। এ কারণে কেউ প্রতিবাদ করে না। বর্তমানে নদী পাড়ের শত শত কৃষক তাদের জমি রক্ষা নিয়ে অনিশ্চয়তার মধ্যে রয়েছে।

ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা জানায়, প্রভাবশালী আওয়ামী লীগ নেতা ও পুলিশ ভূমিদস্যুদের কাছ থেকে নিয়মিত বখরা নেয়। ফলে ভূমিদস্যুরা জেলা প্রশাসক ও ঢাকা জেলা প্রশাসকের রয়্যালিটি ছাড়াই সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে বালু উত্তোলন করছে।

জেলা প্রশাসক মো. আজিজুল আলম জানান, বালু কাটা বন্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সিরাজদিখান নির্বাহি অফিসারকে নির্দেশ দিয়েছি।

ঢাকা জেলা প্রশাসক মো. মহিবুল হক জানান, ধলেশ্বরী নদীতে বালি উত্তোলনের কোনো অনুমতি দেয়া হয়নি। কেরানীগঞ্জ ইউএনও শাহিনা খাতুনকে বালু উত্তোলন বন্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

বিআইডব্লিউটি’র উর্ধ্বতন উপ-পরিচালক শরীফ মো. আফজাল জানান, ২০০৮ সালের পর জেলা পর্যায়ের নদীগুলোর রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব জেলা প্রশাসকের উপর ন্যস্ত হয়েছে। তিনি আরো বলেন, ভূমিদস্যুরা তার স্বাক্ষর ও অবসরপ্রাপ্ত সচিব মনোয়ার হোসেনের স্বাক্ষর জাল করে বালু উত্তোলন করায় সংশ্লিষ্ট থানাকে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে চিঠি দেয়া হয়েছে।

শীর্ষ নিউজ

Leave a Reply