ফুলমালা মামলায় ফাইনাল রিপোর্ট দেয়ার চেষ্টা : প্রধান আসামি বহাল তবিয়তে

শ্রীনগরে ওসির বিরুদ্ধে অভিযোগ :
শফিকুল ইসলাম, শ্রীনগর (মুন্সীগঞ্জ): বঞ্চনার শিকার হয়ে লেবানন ফেরত বহুল আলোচিত শ্রীনগরের ফুলমালার মামলাটির ফাইনাল রিপোর্ট দেয়ার চেষ্টা করছে পুলিশ। হাইকোর্টে থেকে জামিন বাতিল হওয়ার পরও ইদ্রিস আদালতে হাজির হয়নি। পুলিশও তাকে গ্রেফতার করছে না। পুলিশ বলছে তাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। এলাকার মানুষ বলছে সে বহালতবিয়তে ঘুরে বেড়াচ্ছে। পুলিশের অসহযোগিতার কারণে ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হওয়ার আশঙ্কায় ফুলমালার পরিবারে নেমে এসেছে চরম হতাশা।

মামলা করার পর থেকে পাচারকারী ইদ্রিস ও তার সহযোগীরা প্রতিনিয়ত তাকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছে। অথচ পুলিশ রহস্যজনক কারণে আসামিদের গ্রেফতারে পদক্ষেপ নিচ্ছে না। এতে দুশ্চিন্তায় দিশেহারা ফুলমালার পরিবার। অসহায় ফুলমালা এ প্রতিবেদকের কাছে জানান, ‘আমার তো সব শেষ, থানার বড় স্যারে কয়, এই মামলায় কি অইব? অহন আমি কই যামু ভাই।’

গতকাল সকাল ১০টায় শ্রীনগর সার্কেল এএসপি সাইফুল ইসলাম তার কার্যালয়ে ডেকে এনে ফুলমালাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। তিনি বলেন, নির্যাতিতাকে অবশ্যই সব ধরনের আইনি সহায়তা দেয়া হবে। ইদ্রিসকে গ্রেফতারের জন্য অভিযান চালানো হচ্ছে। সে আত্মগোপনে রয়েছে।

গত ৭ এপ্রিল দৈনিক আমার দেশ-এ ‘বঞ্চনার শিকার লেবানন ফেরত ফুলমালা’ শীর্ষক একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতিসহ বেশ কয়েকটি সংগঠন ঘটনাটি সরেজমিন তদন্ত করে। জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতির অনুসন্ধান শেষে তাদের সহযোগিতায় শ্রীনগর থানায় ফুলমালা বাদী হয়ে একটি মামলা করেন। যার নম্বর : ৬, তারিখ : ১১.০৪.২০১১। এ মামলার পর মির হোসেন নামে আসামিকে গ্রেফতার করা হলেও আত্মগোপন করে প্রধান আসামি আদম বেপারি ইদ্রিস আলী। আত্মগোপনে থাকা অবস্থায় সে হাইকোর্টের বিচারপতি রেজাউল হাসান ও বিচারপতি শামীম হাসনাইনের বেঞ্চ থেকে জামিন নেয়। রাষ্ট্রপক্ষ গত ৪ মে বিষয়টি আদালতের নজরে আনে। বিচারপতি রেজাউল হাসান ও বিচারপতি শামীম হাসনাইনের বেঞ্চ আসামির জামিন বাতিল করেন। আসামিকে ১০ দিনের মধ্যে নির্ধারিত আদালতে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। একই সঙ্গে মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপারকে আসামি গ্রেফতারের কার্যকর পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে। কিন্তু আসামি ইদ্রিস আদালতে আত্মসমর্পণ করেনি এবং পুলিশও তাকে গ্রেফতার করতে পারেনি। হাইকোর্টের আদেশ মুন্সীগঞ্জ পুলিশ সুপারের কার্যালয় হয়ে শ্রীনগর থানায় আসে। গতকাল মামলাটি অধিক গুরুত্বসহকারে নিয়ে মুন্সীগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার মো. শফিকুল ইসলাম প্রতারিত ফুলমালার সাক্ষ্য গ্রহণ করেন। মামলার আইও পরিবর্তন করে ওসি (তদন্ত) মো. কুদ্দুসুর রহমানের ওপর ন্যস্ত করেন।

এরই মধ্যে অভিযোগ পাওয়া গেছে, নতুন তদন্ত কর্মকর্তা মামলাটি নিয়ে নানা টালবাহানার পর আসামি ও তাদের ঘনিষ্ঠজনদের সঙ্গে তার গোপন সখ্য গড়ে তুলেছে। আসামি ইদ্রিসের ছেলে ও পরিবারের লোকজনের যোগসাজশে ওসি মামলাটির চূড়ান্ত প্রতিবেদন (ফাইনাল রিপোর্ট) দেয়ার প্রক্রিয়া শুরু করেন। বিষয়টি জানাজানি হওয়ায় স্থানীয় বাসিন্দা ও মামলার বাদীদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। এদিকে মামলায় পুলিশের গড়িমসি ও তদন্তের দীর্ঘসূত্রতায় বাদী সহজ সরল ফুলমালা উত্কণ্ঠায় দিন কাটাচ্ছেন।

অভিযোগ অস্বীকার করে মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা শ্রীনগর থানার ওসি (তদন্ত) কুদ্দুসুর রহমান বলেন, আসামিদের খুঁজে পাই না তাই ধরি না। কিন্তু এলাকার মানুষ বলছেন ইদ্রিসকে প্রায়ই এলাকায় ঘুরে বেড়াতে দেখা যায়।

আমার দেশ

Leave a Reply