আওয়ামী লীগে সমন্বয় নেই, বিএনপিতে চলছে টিকে থাকার লড়াই

রাসেল মাহমুদ, মুন্সীগঞ্জ থেকে: মুন্সীগঞ্জ আওয়ামী লীগে চলছে স্থবিরতা। জেলা নেতাদের বিভক্তির কারণে দল চলছে টালমাটালভাবে। নেই উল্লেখযোগ্য কর্মকাণ্ড। স্থানীয় জনপ্রতিনিধি এবং জেলা নেতাদের মধ্যে নেই সমন্বয়। প্রায় সাত বছর আগে জেলা কমিটির কাউন্সিল হয়েছিল। আর শহর কমিটিও চলছে ছয় বছর ধরে। এর পর এখন পর্যন্ত আর কোন কাউন্সিলের উদ্যোগ নেয়া হয়নি। অবশ্য জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ মহিউদ্দিনের দাবি সাংগঠনিক কাজের দায়িত্ব নির্বাচিত কমিটির ওপর। এখানে সংসদ সদস্যের কোন এখতিয়ার নেই। কিন্তু প্রায়ই স্থানীয় সংসদ সদস্য দলীয় কর্মকাণ্ডে হস্তক্ষেপ করেন। এতে নেতা-কর্মীদের মাঝে তৈরি হচ্ছে নতুন নতুন বিভেদ।

আর এই বিভেদে ব্যক্তির চেয়ে দল বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এদিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের চিফ সিকিউরিটি অফিসার জেলার এক সময়ের দাপুটে নেতা জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মোহাম্মদ মহিউদ্দিনকে দমিয়ে রাখতে একাট্টা জেলার সংসদ সদস্য ও অন্য নেতারা। তাদের সঙ্গে আছেন এ জেলার বাসিন্দা একজন কেন্দ্রীয় নেতা ও উপজেলার চেয়ারম্যান আনিসুজ্জামান আনিস। অন্যদিকে জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মহিউদ্দিনের পারিবারিক বিরোধও কুরে খাচ্ছে স্থানীয় আওয়ামী লীগকে। তার ছোট ভাই মুক্তিযোদ্ধা আনিসুজ্জামান আনিসের সঙ্গে বিরোধের পর থেকেই দ্বন্দ্বে পুড়ছে মুন্সীগঞ্জ আওয়ামী লীগ। জেলায় এখন দলীয় কর্মকাণ্ড চলছে দুই ধারায়। জেলা সভাপতি মহিউদ্দিন সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড পরিচালনা করছেন।

অন্যদিকে জেলার সংসদ সদস্যরা নিজেদের মতো করে এলাকার বিভিন্ন কার্যক্রম নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছেন। সর্বশেষ স্থানীয় সরকার নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী দেয়াকে কেন্দ্র করে তারা দ্বন্দ্বে জড়িয়েছেন। মহিউদ্দিন যেসব ইউনিয়নে দলীয় প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেছেন, সেখানেই এমপি এম ইদ্রিস আলী ও তার অনুসারীরা আরেক প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেছেন। এতে করে কোথাও কোথাও যেমন ব্যাপক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে, তেমনি অনেকে দলীয় প্রার্থী হয়েও পরাজিত হয়েছে। এর আগে একইভাবে মুন্সীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনেও তাদের এই দ্বন্দ্বের খেসারত হিসেবে বিএনপি নেতা এ কে এম ইরাদত মানু মেয়র নির্বাচিত হন। দলের পক্ষে মহিউদ্দিন পুত্র ফয়সাল বিপ্লব প্রার্থী হলে সেখানে স্থানীয় সংসদ সদস্য এম ইদ্রিস আলী ও অন্য একজন কেন্দ্রীয় নেতার হস্তক্ষেপে জাতীয় পার্টির এডভোকেট মুজিবুর রহমানকে মহাজোটের প্রার্থী করা হয়।

এতে নিশ্চিত বিজয় হাতছাড়া হয় আওয়ামী লীগের। বিএনপির দুর্গ বলে খ্যাত এ জেলার তিনটি আসনেই গত নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের এমপি সুকুমার রঞ্জন ঘোষ, মুন্সীগঞ্জ-২ আসনের এমপি হুইপ সাগুফতা ইয়াসমীন এমিলি নিজ নিজ এলাকায় দলীয় ও স্থানীয় বিভিন্ন কর্মকাণ্ড সফলতার মধ্য দিয়ে পরিচালনা করে আসছেন। এদিকে মুন্সীগঞ্জ জেলা বিএনপিতে চলছে এখন টিকে থাকার লড়াই। মুখোমুখি অবস্থানে রয়েছে দুটি গ্রুপ। একটিতে নেতৃত্ব দিচ্ছেন জেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল হাই। অপরটিতে নেতৃত্ব দিচ্ছেন সাবেক মন্ত্রী ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য এম শামসুল ইসলাম। শামসুল ইসলাম তার ছেলেকে জেলার রাজনীতিতে সক্রিয় করতে একাধিক পদক্ষেপ নিলেও আবদুল হাইয়ের কাছে তিনি কোনভাবেই ভিড়তে পারছেন না। শামসুল ইসলাম বর্তমানে কেন্দ্রীয় রাজনীতি নিয়েই ব্যস্ত। নির্বাচনের পর থেকে তাকে মুন্সীগঞ্জে খুব একটা দেখা যাচ্ছে না।

গত নির্বাচনে ঢাকা-৪ আসনে আবদুল হাই পরাজিত হয়ে পুনরায় মুন্সীগঞ্জে ফিরে এসে দলীয় নেতা-কর্মীদের সংগঠিত করে বিএনপির রাজনৈতিক মাঠে শামসুল ইসলাম অনুসারীদের কোণঠাসা করে ফেলেন। জেলা কাউন্সিল নিজ নিয়ন্ত্রণে রেখে পুনরায় জেলা বিএনপির সভাপতি নির্বাচিত হন। তবে দলীয় স্বার্থের বিষয়ে জেলা বিএনপি ঐক্যবদ্ধ বলে অনেক নেতা-কর্মী দাবি করেন। গত নির্বাচনের আগে হঠাৎ করে জেলার চারটি আসন ভেঙে তিনটি আসন করায় বিএনপির রাজনীতির সব হিসাব পাল্টে যায়। সাবেক মন্ত্রী ও দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য এম শামসুল ইসলামকে সদর আসনে দলীয় প্রার্থী দেয়ায় দলের দীর্ঘদিনের পরীক্ষিত প্রার্থী ও চারবারের সংসদ সদস্য জেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল হাইকে মুন্সীগঞ্জ থেকে সরিয়ে ঢাকা-৪ আসনে মনোনয়ন দেয় দলীয় হাইকমান্ড। কেন্দ্রীয় নেতা ও সাবেক মন্ত্রী এম শামসুল ইসলাম সদর আসনে নির্বাচন করলেও স্থানীয় বিএনপি নেতা-কর্মীদের সঙ্গে তেমন একটা মিশতে পারেননি।

তাদের মনমতো প্রার্থী না হওয়ায় অনেক নেতা-কর্মী তাকে মেনে নিতে পারেননি। নির্বাচনে তাকে সহযোগিতার পরিবর্তে অনেক নেতা-কর্মী ঢাকা-৪ আসনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী আবদুল হাইর পক্ষে জনসংযোগে অংশ নেন। ওই সময় থেকেই তাদের বিরোধ প্রকাশ্যে রূপ নেয়। নির্বাচন শেষে আবদুল হাই মুন্সীগঞ্জে এসে মুহূর্তের মধ্যে শামসুল ইসলাম অনুসারীদের কোণঠাসা করে ফেলেন। জেলা বিএনপির মাঠ আবদুল হাই নিজ দখলে নিয়ে নেন। অন্যদিকে দলের আরেক কেন্দ্রীয় নেতা মিজানুর রহমান সিনহার নির্বাচনী এলাকা ছিল লৌহজং ও সিরাজদিখান। আসন ভাগ হওয়ায় তিনি প্রার্থী হন লৌহজং ও টঙ্গীবাড়িতে। এতে তার নির্বাচনে প্রভাব পড়ে। অনেক ভোটের ব্যবধানে আওয়ামী লীগ প্রার্থী সাগুফতা ইয়াসমীন এমিলির কাছে পরাজিত হন।

একই অবস্থা জেলার অন্য আসন শ্রীনগর ও সিরাজদিখান এলাকার। এই আসনে শাহ মোয়াজ্জেম প্রার্থী হলেও স্থানীয় পর্যায়ে তার তেমন কোন গ্রহণযোগ্যতা ছিল না। বহু ভোটের ব্যবধানে তিনি আওয়ামী লীগ প্রার্থী সুকুমার রঞ্জন ঘোষের কাছে পরাজিত হন। শারীরিক অসুস্থতার কারণে শাহ মোয়াজ্জেম এখন মাঠের রাজনীতিতে সক্রিয় নন। স্থানীয় নেতা-কর্মীদের ধারণা, মনোনয়নের অঙ্কে ভুলের জন্যই গত নির্বাচনে মুন্সীগঞ্জে বিএনপির তিনটি আসনই হারাতে হয়েছে। সিরাজদিখান উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবদুল কুদ্দুস ধীরন বলেন, ‘গত নির্বাচনে প্রার্থী মনোনয়নে ভুল সিদ্ধান্ত হওয়ায় নির্বাচনে দলের ভরাডুবি হয়েছে। এর প্রভাব স্থানীয় রাজনীতিতেও পড়েছে। এদিকে জেলা জাতীয় পার্টির মাঠপর্যায়ে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে চরম স্থবিরতা চলছে। মহাজোটের অংশ হলেও মুন্সীগঞ্জের রাজনৈতিক মাঠে তারা কোন প্রভাব খাটাতে পারছে না। ভিতরে ভিতরে জামায়াতে ইসলামীর দলীয় কার্যক্রম চললেও মাঠ পর্যায়ে তাদের কোন কর্মকাণ্ড নেই। শহরের জুবলী রোডে অবস্থিত তাদের জেলা অফিসটিও দীর্ঘদিন যাবৎ বন্ধ রয়েছে। বিকল্প ধারার প্রধান অধ্যাপক এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরীর নিজ জেলা মুন্সীগঞ্জে হলেও গত নির্বাচনে সুকুমার রঞ্জন ঘোষের কাছে লক্ষাধিক ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হয়ে তিনি এলাকা ছেড়েছেন। তাকে এ জেলার কোন কর্মকাণ্ডে এখন আর দেখা যায় না। জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে বিকল্প ধারার কমিটির অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া কঠিন।

মানবজমিন

Leave a Reply