বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে ইন্দিরা গান্ধীর অবদান

মো. জয়নাল আবেদীন
বিলম্বে হলেও আমাদের মুক্তিযুদ্ধে ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ সর্বোচ্চ সম্মাননা ‘বাংলাদেশ স্বাধীনতা সম্মাননা’ প্রদান করা হলো। এ খবরটি জানার পর থেকে একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে খুব আনন্দ অনুভব করছি। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে বিদেশিদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি অবদান ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর। তিনি প্রতিবেশী রাষ্ট্রের নিরীহ জনগণের ওপর বর্বর পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর নির্মম হত্যার খবর পেয়ে এতই মিলিত হন যে, সঙ্গে সঙ্গে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। ভারতীয় লোকসভায় ২৭ মার্চ, ১৯৭১ প্রদত্ত ভাষণে তিনি বাংলাদেশ প্রসঙ্গ তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন। বাংলাদেশ সংক্রান্ত তার আনীত প্রস্তাব ৩১ মার্চ লোকসভায় গৃহীত হয়। প্রস্তাবে বাংলাদেশের মুক্তি সংগ্রামে ভারতের সর্বাত্মক সাহায্য ও সহযোগিতার অঙ্গীকার করা হয়। ভারতের লোকসভায় এ প্রস্তাব গ্রহণের পর থেকেই ভারতের জনগণ ও বিভিন্ন সামাজিক-রাজনৈতিক সংগঠন বাংলাদেশের প্রতি সমর্থন দিতে শুরু করে। ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ সফল করার জন্য ইন্দিরা গান্ধী আহার-নিদ্রা ত্যাগ করে দেশে-বিদেশে যে ভূমিকা রেখেছেন তা বিশ্বে এক বিরল নজির হিসেবে স্থান করে আছে। ২৭ মার্চ থেকে ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশ স্বাধীন করার জন্য ইন্দিরা গান্ধীর কর্মকা- ও ভূমিকা ধারাবাহিকভাবে সংক্ষিপ্ত আকারে তুলে ধরা হলো :

২৭ মার্চ ১৯৭১ : ভারতের লোকসভায় ভাষণ দানকালে বাংলাদেশে পাকিস্তানি বাহিনীর হত্যাযজ্ঞ তুলে ধরে নিজেদের করণীয় সম্পর্কে ধারণা দেন।

৩১ মার্চ : বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে সর্বাত্মক সাহায্য-সহযোগিতার জন্য ভারতীয় লোকসভায় প্রস্তাব উত্থাপন করেন এবং তা সর্বসম্মতিক্রমে গৃহীত হয়।

০৩ এপ্রিল : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তাজউদ্দিন আহম্মদকে সাক্ষাৎকার দেন। তিনি বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে জানতে চান। আলোচনাকালে তাজউদ্দিন আহমদ বাংলাদেশ সরকার গঠন ও নিজেকে সরকারের প্রধানমন্ত্রী ও বঙ্গবন্ধুকে সরকারপ্রধান করার কথা ব্যক্ত করেন এবং ইন্দিরা গান্ধীর সহযোগিতা চান।

০৪ এপ্রিল : নিখিল কংগ্রেস কমিটির অধিবেশনে ভাষণদানকালে বলেন, বাংলাদেশের ব্যাপারে ভারত নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করতে পারে না।

০৭ এপ্রিল : তাজউদ্দিন আহমদের সঙ্গে বৈঠক করেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামীদের জন্য আশ্রয় ও রাজনৈতিক কাজ পরিচালনার সুযোগসহ সার্বিক সাহায্য প্রদানের আশ্বাস পুনঃব্যক্ত করেন।

১০ এপ্রিল : মুজিবনগর সরকার গঠন সম্পর্কে অবহিত হন।

১৩ এপ্রিল : লক্ষ্নৌতে বাংলাদেশের প্রতি সমর্থনের প্রসঙ্গে চীনকে উদ্দেশ করে বলেন, পাকিস্তানের প্রতি চীনের সমর্থন ভারতকে তার অবস্থান থেকে বিচ্যুত করতে পারবে না। কংগ্রেসের প্রতিনিধি সভায়ও তিনি বাংলাদেশের বিষয়টি এখন আর পাকিস্তানের অভ্যন্তরীণ বিষয় নয়_ তা যৌক্তিকভাবে ব্যাখ্যা করেন।

০৬ মে : ভারতে প্রতিদিন যেভাবে বাংলাদেশের শরণার্থীদের আগমন ঘটছে, তাতে ভারতের পক্ষে চুপ করে থাকা সম্ভব নয় বলে দিলি্লতে শ্রীমতী গান্ধী এ কথা বলেন।

০৭ মে : সম্মিলিত বিরোধীদলের সঙ্গে জরুরি বৈঠক করেন। এ বৈঠকে বাংলাদেশের ও মুক্তিযোদ্ধাদের সার্বিক সহায়তার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। ভারতীয় মুসলিম লীগ ও করন সিং এ সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেন। কিন্তু ইন্দিরা গান্ধী তার সিদ্ধান্তে অটল থাকেন। কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার বৈঠকেও তিনি বাংলাদেশ প্রসঙ্গে একই মনোভাব ব্যক্ত করেন।

১৩ মে : বেলগ্রেডের রাজধানী বুদাপেস্টে অনুষ্ঠিত বিশ্বশান্তি কংগ্রেসের সম্মেলনে বাংলাদেশ সরকারের প্রতিনিধির অংশগ্রহণ। ভারতীয় প্রতিনিধিরা সম্মেলনে বাংলাদেশ পরিস্থিতি ব্যাখ্যা করেন এবং বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের প্রতি ভারতের সাহায্য-সহযোগিতা পুনঃব্যক্ত করেন। সম্মেলনে ইন্দিরা গান্ধীর বাণী পাঠ করা হয়। বাণীতে বাংলাদেশের প্রতি সমর্থনে উপস্থিত ৮০টি রাষ্ট্রের প্রতিনিধি করতালির মাধ্যমে সমর্থন জানায়।

১৫, ১৬ মে : পশ্চিম বাংলা, আসাম ও ত্রিপুরায় বিভিন্ন শরণার্থী শিবির পরিদর্শন করেন। শরণার্থীদের দুর্দশা দেখে তিনি ব্যথিত হন এবং বলেন, বাংলাদেশের মানুষ সংগ্রামে সাফল্য লাভ করবে।

১৭ মে : বনগাঁ, হলদিবাড়িসহ বিভিন্ন শরণার্থী শিবির পরিদর্শন করেন। দমদম বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে যথাসময়ে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয়া হবে বলে মন্তব্য করেন।

১৮ মে : ক্রমবর্ধমান উদ্বাস্তু আগমনের মুখে ভারত তার জাতীয় স্বার্থে ব্যবস্থা গ্রহণে বাধ্য হবে বলে মন্তব্য করেন। যেকোন পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে ভারত প্রস্তুত আছে বলে ইন্দিরা গান্ধী বলেন।

২২ মে : কংগ্রেস দলীয় সাধারণ সভায় ভাষণে বলেন, যা ছিল পাকিস্তানের অভ্যন্তরীণ সমস্যা_ তা আজ আমাদের সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। ইতোমধ্যে ভারতের সীমান্ত রাজ্যগুলোতে প্রায় ৩০ লাখ ২০ হাজার শরণার্থী এসেছে। শরণার্থীরা যাতে নিরাপদে নিজের দেশে ফিরতে পারে, সেজন্য পাকিস্তানকে বাধ্য করতে বিশ্বের সব রাষ্ট্রের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

২৩ মে : মিসরের প্রেসিডেন্ট আনোয়ার সাদাত হোসেনের কাছে লিখিত চিঠিতে বাংলাদেশ থেকে আগত বাঙালিদের ভারতে আশ্রয় নেয়ায় দেশের অর্থনৈতিক, সামাজিক ও রাজনৈতিক জীবনে সৃষ্ট গুরুতর প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। তিনি এ ব্যাপারে বৃহৎ শক্তির দেশগুলোর প্রতিক্রিয়া যথেষ্ট নয় বলে জানান। তিনি আরও লিখেন_ শরণার্থী সমস্যা সমাধানে বৃহৎ শক্তিগুলো পাকিস্তানেকে বাধ্য করতে ব্যর্থ হলে ভারত জাতীয় স্বার্থরক্ষায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে বাধ্য হবে।

৫ জুন : রাজভবনে মুখ্যমন্ত্রী ও মন্ত্রিদের সঙ্গে পৃথকভাবে এবং সামরিক ও বেসামরিক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে বাংলাদেশের শরণার্থী সমস্যা নিয়ে আলোচনা করেন। তিনি সেনাবাহিনীর ইস্টার্ন কমান্ডের প্রধান জগজিত সিং অরোরা ও পুলিশপ্রধান প্রসাদ বসুর সঙ্গেও জরুরি বৈঠকে মিলিত হন।

০৭ জুন : শ্রীমতী ইন্দিরা গান্ধী ঘোষণা করেন, বাংলাদেশের সমস্যা ভারতের সমস্যা। পত্রিকার সম্পাদকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি জানান, ভারতে ৬০ লাখ শরণার্থী এসেছে। তাদের নিজ দেশে ফিরে যেতে হবে।

২৯ জুন : ভারতের কংগ্রেস দলের পার্লামেন্টারি সভায় ভাষণদানকালে ইন্দিরা গান্ধী বলেন, বাংলাদেশের ব্যাপারে ভারত কোন হঠকারী নীতি গ্রহণ করবে না। তিনি দলীয় সংসদ সদস্যদের নিজ এলাকায় ফিরে গিয়ে বাংলাদেশ ইস্যুতে জনমত গড়ার নির্দেশ দেন। তিনি লোকসভায়ও ভাষণ দেন। শরণার্থী সমস্যার সার্বক্ষণিক দেখাশুনার জন্য শিক্ষা ও সংস্কৃতিমন্ত্রী সিদ্ধার্থ শংকর রায়কে অতিরিক্ত দায়িত্ব দেয়া হয়। পশ্চিম বঙ্গে রাষ্ট্রপতির শাসন জারি করেন। গভর্নর এসএস ধাওয়ানকে পশ্চিমবঙ্গের সর্বময় কর্তৃত্ব দেয়া হয়।

০১ জুলাই : লন্ডনের টাইমস পত্রিকার সঙ্গে প্রদত্ত সাক্ষাৎকারে বলেন, ক্ষমতা হস্তান্তরের ব্যাপারে ইয়াহিয়া খানের নয়া পরিকল্পনা পূর্ববাংলার অবস্থা আরও ভয়াবহ করে তুলবে।

০৩ জুলাই : লক্ষ্নৌতে ইন্দিরা গান্ধী বলেন, বিশ্বের দেশগুলো বাংলাদেশ বিষয়ে এখনো ততটা গুরুত্ব দিচ্ছে না। তিনি উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, বাংলাদেশ সমস্যা ভিয়েতনাম সমস্যার মতো সারাবিশ্বে সাড়া জাগাবে।

০৫ জুলাই : কংগ্রেসের সংসদীয় সভায় বলেন, তার সরকার বাংলাদেশ সম্পর্কে ত্বরিত কোন সিদ্ধান্ত নেবে না। কারণ তাতে সমস্যা আরও জটিল হতে পারে।

০৭ জুলাই : মার্কিন ফরেন সেক্রেটারি হেনরি কিসিঞ্জারকে বলেন, পাকিস্তানে মার্কিন অস্ত্র সরবরাহে অঞ্চলের শান্তির প্রতি হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে।

২৫ জুলাই : দিলি্লর বুদ্ধিজীবী সম্মেলনে ভাষণ দিতে গিয়ে ইন্দিরা গান্ধী বলেন, অতীতে ভারত অনেক প্রতিকূল পরিস্থিতি মোকাবিলা করেছে। বাংলাদেশ বিষয়েও সাহসের সঙ্গে মোকাবিলা করা হবে এবং সম্মানজনক সমাপ্তি ঘটবে। সম্মেলনে ভারতীয় বুদ্ধিজীবীরা বাংলাদেশকে স্বীকৃতি প্রদানের জোর দাবি জানান।

০৮ আগস্ট : ভারতের প্রধানমন্ত্রী শ্রীমতী ইন্ধিরা গান্ধী বিশ্বের সব রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধানের কাছে ভারত সরকারের পক্ষে প্রেরিত এক বার্তায় শেখ মুজিবের জীবনরক্ষায় ও তার মুক্তির দাবিতে ইয়াহিয়া খানের ওপর চাপ সৃষ্টির আহ্বান জানান। তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করেন, পাকিস্তান সরকার প্রহসনমূলক বিচারের নামে শেখ মুজিবকে হত্যা করলে বাংলাদেশের অবস্থা আরও ভয়াবহ রূপ নেবে।

১১ আগস্ট : বিশ্বের ২০টি রাষ্ট্রের প্রধানদের কাছে মুজিবের প্রাণরক্ষার জন্য প্রভাব খাটানোর আহ্বান জানান।

১২ আগস্ট : জাতিসংঘের সেক্রেটারি জেনারেলকে ইসলামবাদ গিয়ে শেখ মুজিবের বিচার বন্ধ করার আহ্বান জানান। বাংলাদেশ সম্পর্কে অন্যান্য দেশের অনীহার জন্য তিনি দুঃখ প্রকাশ করেন।

৩০ আগস্ট : বিশ্ব শান্তি পরিষদের মহাসচিব রমেশ চন্দ্রকে সাক্ষাৎকার দেন। তিনি বাংলাদেশ ইস্যুতে ভারতের সার্বিক সহায়তা প্রদানের কথা দৃঢ়তার সঙ্গে ব্যক্ত করেন।

২৮ সেপ্টেম্বর : ক্রেমলিনে সোভিয়েত নেতা ব্রেজনেভ, পোদগর্নি ও কোসিগনের সঙ্গে বাংলাদেশ প্রসঙ্গে ছয় ঘণ্টা আলোচনা করেন। সোভিয়েত প্রধানমন্ত্রী কোসিগিন প্রদত্ত ভোজসভায় ভাষণদানকালে ইন্দিরা গান্ধী বলেন, বাংলাদেশের জনগণ পাকিস্তান সরকারের সঙ্গে এক মরণপণ যুদ্ধে লিপ্ত। এটা ভারত-পাকিস্তান সমস্যা নয়, এটা আন্তর্জাতিক সমস্যা। এ সমস্যা সমাধানে আন্তর্জাতিক সাড়া অত্যন্ত কম। এ পর্যন্ত ৯০ লাখ শরণার্থী ভারতে আশ্রয় নিয়েছে। সোভিয়েত নেতা বাংলাদেশ বিষয়ে ভারতের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করেন।

২৯ সেপ্টেম্বর : সোভিয়েত-ভারত যুক্ত ইশতেহার প্রকাশ। মস্কো বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে প্রদত্ত ভাষণে শ্রীমতী গান্ধী বাংলাদেশ প্রশ্নে ভারতের ভূমিকা তুলে ধরেন।

০৩ অক্টোবর : সোভিয়েত প্রেসিডেন্ট নিকোলাই পদগর্নি দিলি্ল সফর করেন। রাষ্ট্রপতি ভিভি গিরি ও প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর সঙ্গে পৃথক আলোচনা ও বৈঠক করেন। হ্যানয়ের উদ্দেশে যাত্রাকালে পদর্গনি বলেন, সোভিয়েত ইউনিয়ন বাংলাদশর বিষয়ে একটি রাজনৈতিক সমাধানে পেঁৗছানোর জন্য বর্তমান রুশ-ভারত সম্পর্কের মনোভাবের ভিত্তিতে সম্ভাব্য সব রকম সাহায্যের প্রস্তাব দিয়েছে।

০৯ অক্টোবর : শিমলায় সর্বভারতীয় কংগ্রেসের উদ্বোধনী ভাষণে শ্রীমতী ইন্দিরা গান্ধী বলেন, ভারত বাংলাদেশের ন্যায়সংগত সংগ্রামের পাশে রয়েছে এবং ভবিষ্যতে থাকবে।

১০ অক্টোবর : দিলি্লতে এক সাংবাদিক সম্মেলনে শ্রীমতী গান্ধী বলেন, বাংলাদেশ প্রশ্নে পাকিস্তানের সঙ্গে ভারতের আলোচনার কোন সম্ভাবনা নেই।

১৪ অক্টোবর : বেলগাঁওয়ে এক জনসভায় ভাষণে বলেন, বাংলাদেশের সংকট নিরসনকল্পে যেকোন রাজনৈতিক সমাধান আওয়ামী লীগের কাছে অবশ্যই গ্রহণযোগ্য হতে হবে।

১৬ অক্টোবর : দিলি্লতে যুগোসস্নাভিয়ার প্রেসিডেন্ট যোশেফ টিটোর সঙ্গে বৈঠককালে শ্রীমতী গান্ধী বাংলাদেশ পরিস্থিতি ব্যাখ্যা করেন।

১৮ অক্টোবর : দিলি্লতে এক অনুষ্ঠানে শ্রীমতী ইন্দিরা গান্ধী সীমান্ত এলাকায় সশস্ত্র হামলা সম্পর্কে পাকিস্তান সরকারের অভিযোগ খ-ন করে বলেন, ভারতীয় সেনাবাহিনী নয়, বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধারাই সীমান্ত এলাকায় তাদের প্রতিপক্ষ পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর সঙ্গে যুদ্ধে লিপ্ত রয়েছে।

১৯ অক্টোবর : নিউ ইয়র্ক টাইমস পত্রিকার প্রতিনিধির সঙ্গে সাক্ষাৎকারে শ্রীমতি ইন্ধিরা গান্ধী বলেন, ভারত কখনও পাকিস্তানের সঙ্গে যুদ্ধের উস্কানি দেবে না। আমেরিকার সমালোচনা করে তিনি বলেন, আমেরিকা পাকিস্তানকে আধুনিক যুদ্ধাস্ত্র নিয়ে বাঙালিদের হত্যা করতে সাহায্য করছে।

২১ অক্টোবর : ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী ও যুগোসস্নাভিয়ার প্রেসিডেন্ট যোশেফ টিটো এক যুক্ত বিবৃতিতে পাকিস্তানকে সাবধান করে দিয়ে সমস্যার শান্তিপূর্ণ সমাধানের জন্য বেআইনি ঘোষিত আওয়ামী লীগপ্রধান শেখ মুজিবুর রহমানের মুক্তিদান অবশ্য প্রয়োজন বলে জানান।

২৩ অক্টোবর : সব বিরোধীদলের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বিপদের এ দিনে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানান। তিনি জাতীয় সংহতি রক্ষায় সব রকমের গুজব ও সাম্প্রদায়িকতা থেকে মুক্ত থাকতে পরামর্শ দেন। শরণার্থী সমস্যা সম্পর্কে তার সরকার সজাগ আছে বলেও জানান।

২৪ অক্টোবর : বাংলাদেশ পরিস্থিতি ও শরণার্থী সমস্যা সম্পর্কে বিশ্ববাসীকে সর্বশেষ অবস্থা জানানোর উদ্দেশে ১৯ দিনের বিশ্ব সফরে বাহির হন।

২৫ অক্টোবর : ব্রাসেলসে রয়েল ইনস্টিটিউট অফ ইনারন্যাশনাল এফেয়ার্সের ভাষণে ইন্দিরা গান্ধী বলেন, বাংলাদেশের ৯০ লাখের বেশি শরণার্থী পাকিস্তান সামরিক সরকারের অমানবিক নির্যাতনে দেশে টিকতে না পেরে প্রাণ বাঁচাতে ভারতে আশ্রয় নিয়েছে। তিনি বাংলাদেশের জনগণের আত্মনিয়ন্ত্রণ ও গণতন্ত্র রক্ষার সংগামে বিশ্ব বিবেককে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

২৬ অক্টোবর : ব্রাসেলসে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে মিসেস গান্ধী বাংলাদেশ প্রশ্নে ভারতের মনোভাব ব্যক্ত করে বলেন, এ ব্যাপারে পাকিস্তানের সঙ্গে ভারতের সমঝোতার কোন ভিত্তি নেই। সমস্যা সৃষ্টি করেছে পাকিস্তান আর খেসারত দিচ্ছে ভারত। এ সমস্যা সমাধানের জন্য কিছু একটা করতেই হবে। অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় পেঁৗছেন। তিনি প্রেসিডেন্ট ফ্রাঙ্কজোনাস ও চ্যান্সেলর ড. ব্রনেক্রাকির সঙ্গে বাংলাদেশ পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন।

২৮ অক্টোবর : ভিয়েনার অস্ট্রীয়ান কোয়ালিটি আয়োজিত এক সভায় ভাষণ দেন। তিনি বাংলাদেশ পরিস্থিতি ব্যাখ্যা করেন ও ভারতে আশ্রয়প্রাপ্ত শরণার্থীদের জন্য ভারত যা করছে তা তুলে ধরেন।

৩১ অক্টোবর : ব্রিটেন সফর করেন। ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী অ্যাওয়ার্ড হিথের সঙ্গে বাংলাদেশ বিষয়ে দু’ঘণ্টাব্যাপী আলাপ করে পরিস্থিতি সম্পর্কে ধারণা দেন। তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে ব্রিটেনের সহায়তা চান এবং আওয়ামী লীগপ্রধান শেখ মুজিবুর রহমানের মুক্তি বিষয়ে ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান।

০২ নভেম্বর : বিবিসি’র সংবাদদাতা মার্ক টালির সঙ্গে দীর্ঘ সাক্ষাৎকারে বাংলাদেশ প্রশ্নে ভারতের দৃষ্টিভঙ্গি তুলে ধরেন।

০৩ নভেম্বর : আমেরিকার প্রেসিডেন্ট রিচার্ড নিক্সনের সঙ্গে আলোচনার জন্য লন্ডন থেকে ওয়াশিংটন পেঁৗছেন।

০৪ নভেম্বর : প্রেসিডেন্ট রিচার্ড নিক্সনের সঙ্গে বৈঠক করেন।

০৫ নভেম্বর : ১২৫ মিনিট বৈঠক করেন প্রেসিডেন্ট নিক্সনের সঙ্গে। শ্রীমতী ইন্দিরা গান্ধী তাকে বাংলাদেশ প্রশ্নে ভারতের অবস্থান ব্যাখ্যা করেন।

০৬ নভেম্বর : যুক্তরাষ্ট্রের কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ভাষণ দেন। ভাষণে তিনি বাংলাদেশের মুক্তি সংগ্রামের পটভূমি ব্যাখ্যা করেন এবং বলেন, শেখ মুজিবুর রহমান একজন অসাধারণ নেতা। তার সঙ্গে অন্য কারও তুলনা চলে না। তিনি বাঙালির স্বাধীন রাষ্ট্র গঠনে সশস্ত্র সংগ্রামের পটভূমি যৌক্তিকভাবে তুলে ধরেন।

০৭ নভেম্বর : ৪ দিনের সফরে ফ্রান্সের পথে যাত্রা করেন। সাংবাদিকদের জানান, ইয়াহিয়া খানের সঙ্গে তার আলোচনার কিছু নেই। তিনি শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমেই সমস্যার সমাধান হতে পারে বলেও মন্তব্য করেন।

০৮ নভেম্বর : প্যারিসে এক টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে শ্রীমতী ইন্দিরা গান্ধী বলেন, প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খানের সঙ্গে ভারত-পাকিস্তান সমস্যা নিয়ে আলোচনায় বসতে প্রস্তুত। কিন্তু বাংলাদেশ নিয়ে কোন আলোচনা নয়। ফরাসি প্রেসিডেন্টের দেয়া ভোজসভায় শ্রীমতী গান্ধী বাংলাদেশে পাকিস্তানি বাহিনীর গণহত্যার চিত্র তুলে ধরেন।

০৯ নভেম্বর : ফরাসি প্রধানমন্ত্রী দেলমাস ও ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর মধ্যে প্যারিসে বৈঠক হয়। পরে তিনি প্রেসিডেন্ট জর্জ পঁপিপদুরের সঙ্গেও আলোচনা করেন।

১০ নভেম্বর : ৪ দিনের সফরে তিনি প্যারিস থেকে জার্মানির উদ্দেশে যাত্রা করেন। জার্মান পেঁৗছে চ্যান্সেলর উইলি ব্রান্টের সঙ্গে দীর্ঘ আলোচনা করেন।

১১ নভেম্বর : পশ্চিম জার্মানির চ্যান্সেলর উইলি ব্রান্ট শ্রীমতী ইন্দিরা গান্ধীর সফর উপলক্ষে বাংলাদেশ সমস্যার রাজনৈতিক সমাধানের জন্য সহযোগিতার আশ্বাস দেন। তিনি শরণার্থীদের সাহায্যার্থে ১৪০ কোটি ডলার দানের ঘোষণা দেন। মিসেস গান্ধী বলেন, পশ্চিম জার্মান চ্যান্সেলরের সঙ্গে এক বৈঠকে মিলিত হন।

১২ নভেম্বর : এক সংবাদ সম্মেলনে মিসেস গান্ধী বাংলাদেশকে স্বীকৃতিদানের বিষয়টি বিবেচনা করবেন বলে জানান। পশ্চিমবঙ্গের জনমতের চাপে মুক্তি বাহিনীকে সহায়তা প্রদানের বিষয়টিও তিনি জানান।

১৪ নভেম্বর : বিদেশ সফরশেষে দিলি্ল ফিরে শ্রীমতী ইন্দিরা গান্ধী ঘোষণা করেন যে, বাংলাদেশে যদি সামরিক অভিযান অগত্যা চালাতেই হয়, আমরা তা করব। তিনি এ মাসের শেষের দিকে অথবা আগামী মাসের প্রথম দিকে চূড়ান্ত সামরিক অভিযান চালানোর আভাস দেন। ভারতীয় মন্ত্রিসভার রাজনীতিবিষয়ক কমিটির সভায় তিনি ইয়াহিয়া খানকে আন্তর্জাতিক নেতা কর্তৃক রাজনৈতিক সমাধানে সম্মত হওয়ার জন্য এক সপ্তাহ সময় প্রদানের কথা বলেন।

১৫ নভেম্বর : নিউজ উইক পত্রিকাকে শ্রীমতী ইন্দিরা গান্ধী বলেন, আমাকে যদি বাঙালির মতো অবস্থায় উপনীত হতে হতো, তাহলে আমি অবশ্যই যুদ্ধ করতাম। ভারত বিশ্বের সব স্বাধীনতা সংগ্রামকে সমর্থন করে।

১৬ নভেম্বর : মুজিবনগর সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম ও প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমেদকে দিলি্লতে সাক্ষাৎ প্রদানকালে ইউরোপ ও আমেরিকা সফরকালে বাংলাদেশ প্রশ্নে দেশগুলোর মনোভাব ব্যক্ত করেন।

২৭ নভেম্বর : দিলি্লতে শ্রীমতী গান্ধী বলেন, বাংলাদেশ বিষয়ে এখনো একটি রাজনৈতিক সমাধানে পেঁৗছনোর সময় আছে। পাকিস্তান ইচ্ছা করলে শেখ মুজিবকে মুক্তি দিয়ে একটি রাজনৈতিক সমাধানে আসতে পারে। পাকিস্তানের সেনাশাসক ইয়াহিয়া খানকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়ে পাকিস্তানে ভারতের রাষ্ট্রদূত শ্রী অটেলের মাধ্যমে শেখ মুজিবকে মুক্তি দেয়ার পরামর্শ দেন। তিনি বাংলাদেশ প্রশ্নে ইয়াহিয়া খানের আলোচনার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেন এবং বলেন, বাংলাদেশ সম্পর্কে আলোচনার একমাত্র অধিকার শেখ মুজিবুর রহমানের রয়েছে।

২৮ নভেম্বর : রাজস্থানে এক জনসভায় ভাষণদানকালে শ্রীমতী ইন্দিরা গান্ধী বাংলাদেশের জনগণের মানবিক অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামের প্রশ্নে জাতিসংঘ অথবা বৃহৎ শক্তির চাপের মুখে ভারত নতি স্বীকার করবে না। তিনি বলেন, আমরা শান্তি চাই। পাকিস্তানের জনগণের সঙ্গে ভারতের কোন বিরোধ নেই। আমাদের নিরাপত্তা বিঘি্নত হলে আমরা চুপ করে বসে থাকব না।

৩০ নভেম্বর : রাজ্যসভায় ভাষণে বাংলাদেশ থেকে সব পাকিস্তানি সেনা ফিরিয়ে এনে বাঙালিদের হাতে ক্ষমতা ছেড়ে দেবার আহ্বান জানান।

১ ডিসেম্বর : রাজ্যসভায় ভাষণ দিতে গিয়ে তিনি বাংলাদেশ থেকে সৈন্য অপসারণের নির্দেশ দিতে ইয়াহিয়া খানের প্রতি আহ্বান জানান।

২ ডিসেম্বর : দিলি্লতে কংগ্রেস কর্মীদের সভায় বাংলাদেশ থেকে পাকিস্তানি সৈন্যদের চলে যাওয়ার আহ্বান জানান। পাকিস্তান সরকারের আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষক দিয়ে বাংলাদেশের অবস্থা দেখার প্রস্তাব নাকচ করে দেন।

৩ ডিসেম্বর : কলকাতা গড়ের মাঠে অনুষ্ঠিত জনসভায় ভাষণে তিনি ভারত ও পাকিস্তানের রাজনৈতিক ধারার বৈপরীত্য তুলে ধরেন। ভাষণ চলাকালে জানতে পারেন যে, পাকিস্তান ভারত আক্রমণ করেছে। ভাষণ সংক্ষেপ করে তিনি দিলি্ল চলে যান। মন্ত্রিসভার জরুরি বৈঠকে বসেন। প্রতিরক্ষা বাহিনীর কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করেন। রাত ১২টা ২০ মিনিটে ভারতবাসীর উদ্দেশে ভাষণ দেন। ভাষণের মূল বিষয় ছিল বাংলাদেশ প্রসঙ্গ। তিনি পাকিস্তানি সেনাবাহিনীকে সর্বশক্তি দিয়ে মোকাবিলা করার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন এবং বলেন, ‘জয় আমাদের সুনিশ্চিত।’

৪ ডিসেম্বর : ভারতীয় লোকসভায় বিবৃতি দেন। বিবৃতিতে তিনি মুক্তিযুদ্ধের পটভূমি তুলে ধরেন।

৬ ডিসেম্বর : লোকসভায় ভাষণ দিতে গিয়ে বাংলাদেশকে ভারত কর্তৃক স্বীকৃতি প্রদানের কথা ঘোষণা করেন।

১০ ডিসেম্বর : দিলি্ল বিশ্ববিদ্যালয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভাষণ দেন। তিনি পাকিস্তানের সঙ্গে যুদ্ধের প্রসঙ্গে বলেন ভারত তখনই বিজয়ী হবে যখন বাংলাদেশ ও শেখ মুজিব মুক্ত হবে। তিনি ভারতীয় সেনাবাহিনীর সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধাদের বীরত্বের কথাও বলেন। তিনি বলেন, ১২ বছরের স্কুলে পাঠরত বালকও মাত্র কয়েক দিনের প্রশিক্ষণ নিয়ে পাকিস্তানি বাহিনীর সঙ্গে সম্মুখযুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছে।

১২ ডিসেম্বর : দিলি্লতে এক জনসভায় ভাষণ দেন। ভাষণে বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ী না হওয়া পর্যন্ত জাতীয় ঐক্য সুদৃঢ় করার ঘোষণা দেন।

১৩ ডিসেম্বর : জাতিসংঘের মহাসচিব উথান্টের কাছে পত্র লেখেন। পত্রে তিনি বলেন পাকিস্তানি বাহিনীর সঙ্গে বাংলাদেশের নিজস্ব সেনাবাহিনী মাতৃভূমিকে দখলদার মুক্ত করতে যুদ্ধ করছে। তিনি বাংলাদেশের বক্তব্য শোনার জন্য জাতিসংঘের প্রতি আহ্বান জানান।

১৫ ডিসেম্বর : আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নিক্সনের কাছে অতিজরুরি বার্তা পাঠান। বার্তায় তিনি ২৫ মার্চ থেকে বাংলাদেশে পাকিস্তানি বাহিনীর হত্যাযজ্ঞ ও অত্যাচারের বর্ণনা দেন। শরণার্থীদের দুদর্শাসহ বাংলাদেশের বাস্তবতা তুলে ধরেন। তিনি মার্কিন প্রেসিডেন্টকে স্মরণ করিয়ে দেন যে, তার প্রস্তাব মতে, শেখ মুজিবকে মুক্তি দিয়ে পাকিস্তান যদি আলোচনার মাধ্যমে রাজনৈতিক সমাধান করত তাহলে যুদ্ধ এড়ানো যেত। কিন্তু যেহেতু পাকিস্তানিরা কোন কথাই শোনেনি, তাই যুদ্ধের মাধ্যমেই সমস্যার সমাধান হবে।

১৬ ডিসেম্বর : শ্রীমতী ইন্দিরা গান্ধী বিকেল সাড়ে পাঁচটায় ভারতীয় লোক ও রাজ্যসভার যৌথ অধিবেশনে ঢাকায় পাকিস্তানি বাহিনীর আত্মসমর্পণের কথা ঘোষণা করেন। তিনি বলেন ঢাকা এখন একটি স্বাধীন দেশের রাজধানী। ভারতের জনগণ ও বাংলাদেশের জনগণকে তিনি শুভেচ্ছা জানান।

১৬ ডিসেম্বর পাকিস্তানি পূর্ব অঞ্চলের সেনাপতি লে জে নিয়াজীর আত্মসমর্পণের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ পাকিস্তানি বাহিনীর দখলমুক্ত হয় এবং স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ বিশ্ব মানচিত্রে স্থান লাভ করে। এর পরে মিসেস গান্ধী পাকিস্তানি কারাগারে আটক থাকা বাঙালিদের প্রাণপ্রিয় নেতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মুক্তির জন্য কূটনেতিক তৎপরতা জোরদার করেন। যার দরুন পাকিস্তান সরকার বাধ্য হয় ৮ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুকে মুক্তি দিতে। বঙ্গবন্ধু মুক্ত হয়ে স্বাধীন দেশে ফিরে দেশ পরিচালনার দায়িত্ব নেন। বিধ্বস্ত বাংলাদেশকে গড়ে তোলেন। স্বাধীনতার মাত্র তিন মাসের মাথায় বঙ্গবন্ধুর কথায় ভারত নেত্রী ইন্দিরা গান্ধী বাংলাদেশ থেকে ভারতের সৈন্য প্রত্যাহার করে নেন। বিশ্বে এ-ও এক নজিরবিহীন ঘটনা, যা সম্ভব হয়েছে বঙ্গবন্ধুর মহান ব্যক্তিত্বের কারণে। আজ ইন্দিরা গান্ধী ও বঙ্গবন্ধু দু’জনেই পরপারে। কিন্তু বাংলাদেশ ও বাংলাদেশের জনগণ আছে_ থাকবে চিরদিন। বাংলাদেশের জনগণ দেশের স্বাধীনতার জন্য এ দুই মহান নেতার প্রতি চিরদিন কৃতজ্ঞ থাকবে।

(তথ্য সূত্র : বাংলাদেশ ডকুমেন্টস, ভলিউম ১ ও ২, দি ইউনিভার্সিটি প্রেস লি.; ঢাকা ও বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে ইন্দিরা গান্ধীর ভূমিকা, তপন কুমার দে, কাকলী প্রকাশনী, ঢাকা)।

[লেখক : মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক গবেষক, উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক, বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক, প্রধান কার্যালয়, ঢাকা]

সংবাদ

Leave a Reply