শ্রীনগরে ছাত্রী ধর্ষণের ঘটনায় উত্তেজনা

শ্রীনগরে স্কুলছাত্রীকে গণধর্ষণের ঘটনা সালিশের মাধ্যমে ধামাচাপা দেয়ায় এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। ধর্ষকদের বিচারের দাবিতে স্থানীয় জনগণ শ্রীনগর সহকারী পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলামের কাছে গণস্বাক্ষর সংবলিত লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে। স্থানীয় এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত ১৩ই জুলাই রাত ৩টায় উপজেলার পশ্চিম হাসারা গ্রামের ৮ম শ্রেণীর এক ছাত্রী প্রেমের টানে প্রেমিকের পূর্ব নির্দেশ মতো পিত্রালয় থেকে বের হয়ে হাসারা বাসস্ট্যান্ডে এসে প্রেমিকের জন্য অপেক্ষা করতে থাকে। এসময় হাসারা স্কুলগেট মার্কেটের পাহারাদার জামাল (৩৮) মেয়েটিকে আটক করে তার অনুসারী বখাটে মমতাজউদ্দিন, মামুন ও আনোয়ারকে মোবাইল ফোনে খবর দেয়। তারপর চারজন মিলে মেয়েটিকে বাসস্ট্যান্ডে রাখা নসিমন গাড়িতে উঠিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে তার কাছ থেকে আড়াই ভরি স্বর্ণালঙ্কার ও ৩০ হাজার টাকা নিয়ে অচেতন অবস্থায় ফেলে রেখে চলে যায়।

ঘটনাটি জানাজানি হলে মেয়ের আত্মীয়স্বজন এসে মেয়েকে চিকিৎসার জন্য ঢাকা নিয়ে যায় এবং স্থানীয় ব্যক্তিবর্গের নিকট বিচার দাবি করলে বিচারের নামে শুরু হয় নতুন ঘটনা। একাধিক সূত্র থেকে জানা যায়, ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালী স্থানীয় নেতা মন্টু মিয়া ও তার অনুসারী মন্‌জু দেওয়ান, রফিক, বাতেন ও কাঞ্চন সহ কতিপয় ব্যক্তি ওই ৪ ধর্ষকের কাছ থেকে ৪ লাখ টাকা উৎকোচ গ্রহণ করে ১৫ই জুলাই হাসারা ২ নং বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন আজিজ মিয়ার বাড়িতে বিচারের জন্য বসে। এসময় এলাকার যুবকরা ধর্ষকদের মারধর করতে উদ্যত হলে মন্টু কৌশলে ধর্ষকদের পালিয়ে যেতে সহায়তা করে। ধর্ষকদের বিচার না হওয়ায় এলাকার লোকজন ২৪ শে জুলাই গণস্বাক্ষরসহ শ্রীনগর সার্কেলের এএসপি’র কাছে একটি আবেদন দাখিল করে। এ ব্যাপারে এএসপি শফিকুল ইসলাম বলেন, মেয়ের বাবা, সালিশদার ও অভিযোগকারীদের নোটিশ করা হয়েছে। আগামী শুক্রবার ঘটনার তদন্ত করা হবে।

মানবজমিন

Leave a Reply