আ.লীগের দু’গ্রুপে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ১ : গুলিবিদ্ধ ১০

মুন্সীগঞ্জের চরাঞ্চলের সোলারচর গ্রামে শুক্রবার বিকেলে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধে এক কর্মী নিহত ও ১০ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছে। শুক্রবার বিকেল ৫ টা থেকে আধারা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সুরুজ মেম্বার ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা আলী হোসেনের দু’গ্রুপের মধ্যে ওই বন্দুকযুদ্ধ হয়।

সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে রুবেল মিয়া (২২) নামের এক আওয়ামী লীগ কর্মী নিহত হয়েছে। সে সোলারচর গ্রামের ঈমাম আলীর ছেলে।

সদর থানার ওসি শহীদুল ইসলাম বাংলানিউজকে জানান, সরকার দলীয় দু’টি পক্ষের ক্যাডাররা চরাঞ্চলের আধারা ইউনিয়নের সোলারচর গ্রামের দক্ষিণ প্রান্তে ও বকুলতলা গ্রামের মাথায় অবস্থান নিয়ে বন্দুকযুদ্ধে লিপ্ত হয়। এ ঘটনায় সোলারচর ও বকুলতলা গ্রামে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়। সেখানে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে উভয় পক্ষের নেতাকর্মীরা পালিয়ে গেছে।

এদিকে বিকেল পৌনে ৬ টার দিকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় আওয়ামী লীগ কর্মী রুবেলকে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে আনা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. এহসানুল করীম বাংলানিউজকে জানান, নিহত আওয়ামী লীগ কর্মীর বুকের মধ্যে গুলিবিদ্ধ হয়েছে। সে ঘটনাস্থলেই মারা গেছে।

এলাকার আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দীর্ঘ দিন ধরে ওই দুই গ্রুপের মধ্যে বিরোধ চলে আসছে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
——————————-

মুন্সীগঞ্জে আ.লীগের ২ গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ২০

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলায় আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে রুবেল মিয়া নামে এ আওয়ামী লীগ কর্মী নিহত ও গুলিবিদ্ধসহ ২০ জন আহত হয়েছে। আজ শুক্রবার বিকেলে আধারা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সুরুজ মেম্বার ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা আলী হোসেনের গ্রুপের মধ্যে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দীর্ঘ দিন ধরে বিরোধের জের ধরে স্থানীয় আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের লোকজন আধারা ইউনিয়নের সোলারচর গ্রামের দক্ষিণ প্রান্তে ও বকুলতলা গ্রামে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এ সময় মুহুর্মুহু গুলি ও ককটেল বিস্ফোরণে রুবেলসহ বেশ কয়েকজন গুলিবিদ্ধ হয়। গুলিবিদ্ধ অবস্থায় রুবেলকে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত. ঘোষণা করে। অপর গুলিবিদ্ধসহ আহতরা আটক এড়াতে অন্যত্র গোপনে চিকিৎসা নিচ্ছে। তাদের পরিচয় জানা যায়নি। এতে শাহীন নামে একজনকে আটক করা হয়েছে।

সদর থানার ওসি শহীদুল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় সোলারচর ও বকুলতলা গ্রামে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে উভয় পক্ষের নেতাকর্মীরা পালিয়ে গেছে।

মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. এহসানুল করিম জানান, নিহত আওয়ামী লীগ কর্মীর বুকে গুলিবিদ্ধ হয়েছে। সে ঘটনাস্থলেই মারা গেছে।
নিহত রুবেল মিয়া (২৭) সোলারচর গ্রামের ঈমাম আলীর ছেলে। সে আওয়ামী লীগ নেতা সুরুজ মেম্বারের সমর্থক বলে জানা গেছে।

শীর্ষ নিউজ
——————————-

মুন্সীগঞ্জে বন্দুক যুদ্ধে নিহত ১ ॥ আহত ২২

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সীগঞ্জ থেকে : শুক্রবার বিকালে সদর উপজেলার সোলারচর গ্রামে দ’গ্রুপের বন্দুক যুদ্ধে এক জন নিহত ও অপর ২২ জন আহত হয়েছে। আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নিহতের নাম মো. রুবেল (২৭)। বুকে গুলি বিদ্ধ অবস্থায় মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করে। লাশ মুন্সীগঞ্জ হাসপতালে রাখা হয়েছে। সোলারচর গ্রামের ইমান আলীর পুত্র রুবেল আওয়ামী লীগের কর্মী ছিল বলে আধারা ইউপির আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সুরুজ মেম্বার জানিয়েছেন। সংঘর্ষের সময় বৃষ্টির মত গুলি ও বোমা বিস্ফোরনে এলাকা প্রকম্পিত হয়ে উঠে। সংঘর্ষের পর ২০ এলাকায় ২০টি গরুসহ লুটপাটের ঘটনাও ঘটে। ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

সদর থানার মো. শহিদুল ইসলাম জানান, সুরুজ মেম্বার ও আলী হোসেন সরকারের মধ্যে এলাকার প্রভাব বিস্তার নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরে বিবাদ চলছিল। এই বিবাদ চলছিল, তা সমাধানে শুক্রবার বিকালে সোলারচর ঈদগাঁ ময়দানে বৈঠকে বসে। কিন্তু সমঝোতা বেঠকেই কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে বন্দুক যুদ্ধ শুরু হয়।

ইউপি আওয়ামী লীগ নেতা আলী হোসেন সরকার এই ঘটনার জন্য সুরুজ মেম্বারকে দায়ী করেছেন এবং সুরুজ মেম্বারের লোকজন মোল্লাকান্দির লোকজন নিয়ে লুটপাট চালায় বলে অভিযোগ করেন। সুরুজ মেম্বার এই অভিযোগ অস্বীকার করে ঘটনার জন্য পাল্টা আলী হোসেন সরকারকে অভিযুক্ত করেছেন। বর্তমানে ফের সংঘর্ষের আশঙ্কায় লোকজন আতঙ্কে দিনাতিপাত করছে।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ
——————————-

মুন্সীগঞ্জে আ. লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষে নিহত ১

এলাকায় প্রভাব বিস্তারের চেষ্টায় মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে একজন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে অন্তত ২৫ জন।

নিহতের নাম মো. রুবেল মিয়া (২৭)। তিনি মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার আধারা ইউনিয়নের সোলারচর গ্রামের ইমান আলীর ছেলে।

স্থানীয় আওয়ামী লীগ কর্মী রুবেল শুক্রবার বিকালে সংঘর্ষের সময় বুকে গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান বলে জানিয়েছে পুলিশ।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ওসি মো. শহিদুল ইসলাম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, এলাকায় প্রভাব বিস্তার নিয়ে সোলারচর গ্রামে আধারা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সুরুজ মেম্বার ও দলটির স্থানীয় নেতা আলী হোসেন সরকারের মধ্যে আগে থেকেই বিরোধ চলছিল। এই বিরোধ মীমাংসায় শুক্রবার বিকালে সোলারচর ঈদগাঁ ময়দানে বৈঠক বসে উভয় পক্ষ।

বৈঠক চলাকালে দুই পক্ষের কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে দুই নেতার অনুসারীরা। সংঘর্ষে সময় মুহুর্মূহু গুলি ও বোমা নিক্ষেপ করা হয় বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান।

ওসি বলেন, “এ সময় বুকে গুলিবিদ্ধ হন রুবেল। আহত অবস্থায় মুন্সীগঞ্জ সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।”

বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে জানিয়ে ওসি বলেন, ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। ময়না তদন্তের জন্য রুবেলের লাশ মুন্সীগঞ্জ হাসপতালের মর্গে রাখা হয়েছে।

আধারা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সুরুজ মেম্বারের দাবি, নিহত রুবেল তার রাজনৈতিক অনুসারী ছিলেন।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
——————————-

Leave a Reply