পদ্মার ভাঙনে বিলীন হচ্ছে শ্রীনগরের বিস্তীর্ণ এলাকা

সুজন হায়দার জনি, মুন্সীগঞ্জ থেকে: প্রমত্তা পদ্মার পাঁচ বছরের অব্যাহত ভাঙনে ইতোমধ্যেই বিলীন হয়ে গেছে মুন্সীগঞ্জ শ্রীনগরের বিস্তীর্ণ এলাকা। মানচিত্র থেকে মুছে যাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী শ্রীনগর উপজেলার নাম ও নানা গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা। হুমকির মুখে রয়েছে মাওয়া ঘাট থেকে কবুতরখোলা হয়ে ভাগ্যকুল বাজার পর্যন্ত প্রায় ৫ কিমি দীর্ঘ পাকা সড়কসহ ঐতিহ্যবাহী ভাগ্যকুল ও বাঘরা বাজারের অবশিষ্ট অংশ। ৩২৬ কোটি টাকার ৭ কিমি দীর্ঘ একটি বাঁধ নির্মাণ প্রকল্পের প্রস্তাব দুবছর আগে মন্ত্রণালয়ে প্রেরল করা হলেও কাজের নেই কোনো অগ্রগতি।

প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে প্রমত্তা পদ্মা রাক্ষসী রূপ ধারণ করে। বিগত ৫ বছরের একটানা ভাঙনে পদ্মার গর্ভে ইতোমধ্যেই বিলীন হয়েছে ফসলি জমি, বসতবাড়ি, মস্জিদ, মন্দির, হাটবাজার ও জনপদ। অগণিত মানুষ বেঁচে থাকার শেষ সম্বল হারিয়ে এখন দিশেহারা। এ বছর টানা বর্ষণে পানি বেড়ে উত্তাল পদ্মা আঘাত হেনেছে শ্রীনগরের কামরগাঁও থেকে বাঘড়াবাজার পর্যন্ত এলাকায়। প্রতিদিনই নদীগর্ভে বিলীন হচ্ছে বিস্তীর্ণ এলাকা।
স্থানীয় জনগণের অংশগ্রহণে বাঁশের খুটি, টিন ও ঘাস দিয়ে প্রাথমিক অবস্থায় বাঁধ নির্মাণ করে ভাঙন ঠেকানোর চেষ্টা করা হলেও ঠেকানো যায়নি ভাঙন। প্রবল ঢেউয়ের কারণে মাটি সরে গিয়ে নদীতে ধসে পড়েছে ভাগ্যকুল ও বাঘরা বাজারের দুশতাধিক দোকান ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। বিলীন হয়ে গেছে ৭ কিমি এলাকার প্রায় পাঁচ শতাধিক কাঁচা পাকা বসত বাড়িসহ নানা স্থাপনা।

এ বিষয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য সুকুমার রঞ্জন ঘোষ জানান, পদ্মার ভাঙ্গন ঠেকাতে সরকার স্থায়ী ব্যবস্থা গ্রহণের কথা ভাবছেন। ইতোমধ্যেই ৩২৬ কোটি টাকার ৭ কিমি দীর্ঘ একটি বাঁধ নির্মাণ প্রকল্পের প্রস্তাব মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হয়েছে। ত্বরিত গতিতে এ কাজ শুরু করার আশ্বাস দেন তিনি।
পদ্মার ভাঙন ঠেকাতে এখনই কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করা না হলে আন্দোলনের ঘোষণা দিয়েছে এলাকাবাসী।

ভোরের কাগজ

Leave a Reply