প্রধানমন্ত্রীকন্যার অসাধারণ উদ্যোগ

ইমদাদুল হক মিলন
একজন দর্শক বললেন, ‘আমার জন্ম অমুক বছরের অমুক তারিখে। বলতে হবে সেদিন কী বার ছিল।’মঞ্চে শিক্ষকের পাশে দাঁড়িয়ে আছে কিশোর ছেলেটি। সে অটিস্টিক। প্রশ্ন শোনার সঙ্গে সঙ্গে বারটা বলে দিল। প্রশ্নকারী হতভম্ব! একেবারেই সঠিক হয়েছে। এভাবে বেশ কয়েকজন তাদের জন্মতারিখ ও জন্মের বছর বললেন, ছেলে ঠিক ঠিক উত্তর দিয়ে গেল। দর্শকসারিতে বসে আমি বিস্মিত হয়ে তাকিয়ে আছি তার দিকে।

বছরখানেক আগের কথা। অটিস্টিক শিশু-কিশোরদের নিয়ে অনুষ্ঠান হচ্ছে শিল্পকলা একাডেমীর অডিটরিয়ামে। যে সংস্থাটি এই শিশু-কিশোরদের নিয়ে কাজ করে, স্কুল চালায়, কী যে যত্ন আর মমতায় তাদের নিয়ে অনুষ্ঠান করছিলেন সেই নিবেদিতপ্রাণ মানুষগুলো! ফুলের মতো সুন্দর শিশু-কিশোররা নাচছে, গান করছে, জাদু দেখাচ্ছে কেউ, দর্শকদের আনন্দ-উচ্ছ্বাসে মাতিয়ে রাখছে। কেউ পরি সেজেছে, কেউ প্রজাপতি, কেউ পাখি। আমি তাদের দিক থেকে চোখ সরাতে পারছি না। কিন্তু আমি জানি, বাংলাদেশের মানুষ এখনো অটিজম সম্পর্কে তেমন সচেতন নয়। বহু মা-বাবা জানেন না বা বুঝতেই পারেন না তাঁদের শিশুটির এই সমস্যা আছে, সেভাবে শিশুদের দেখভাল করেন না, তাদের যত্ন নেন না।

অটিস্টিক শিশুদের জন্য কাজ করছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) সেন্টার ফর নিউরোডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড অটিজম ইন চিলড্রেন। প্রতিদিন তারা সেবা দিয়ে যাচ্ছে এ ধরনের শিশুদের। মা-বাবা তাঁদের অটিস্টিক শিশুদের নিয়ে আসছেন এই সেবাকেন্দ্রে।

অটিস্টিক শিশুদের প্রধানত তিন ধরনের সমস্যা হয়। কেউ তার দিকে তাকালে সে তাকায় না, অন্যদিকে তাকিয়ে থাকে। ডাকলে সাড়া দেয় না। কারো হাসির জবাবে হাসিও দেয় না। সামাজিক যোগাযোগের ক্ষেত্রে তারা তেমন পারদর্শীও হয় না। একই কথা হয়তো বারবার বলে। আপনমনে এক খেলাই অনেকক্ষণ ধরে খেলতে থাকে। অটিস্টিক শিশুদের সেবার জন্য প্রথমেই তার মূল সমস্যাটি খুঁজে বের করতে হয়। এই রোগ নির্ণয়ের কাজটিই করছে সেন্টার ফর নিউরোডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড অটিজম ইন চিলড্রেন। অভিভাবকদের বলে দিচ্ছে, শিশুর বিকাশে তাঁদের কী করণীয়।
এ এক অসাধারণ মানবসেবা।

গত ২৬ জুলাই সোমবার বিএসএমএমইউ এবং যুক্তরাষ্ট্রের অটিজম স্পিকস যৌথভাবে আয়োজন করেছিল এ বিষয়ের আন্তর্জাতিক সম্মেলন ‘অটিজম স্পেকট্রাম ডিজ-অর্ডারস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টাল ডিজ-অ্যাবিলিটিস ইন বাংলাদেশ অ্যান্ড সাউথ এশিয়া’। সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন ভারতের কংগ্রেস দলের সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী। তিনি ভারতের ‘অ্যাকশন ফর অটিজম’-এর মূল পৃষ্ঠপোষক। প্রধান অতিথির ভাষণে অটিস্টিক শিশুদের নিয়ে অনেক গুরুত্বপূর্ণ কথা বলেছেন সোনিয়া। অটিস্টিক শিশু যে প্রতিবন্ধী, সেটা চট করে দেখেই বোঝার উপায় নেই। তাই এ বিষয়ে সমাজে সচেতনতার ব্যাপক অভাব রয়েছে। দক্ষিণ এশিয়ার সমাজে অটিজমসহ অন্যান্য প্রতিবন্ধী রোগী কোনো কোনো ক্ষেত্রে মানুষের সামান্যতম সমবেদনাও পায় না, এটা খুবই দুঃখজনক। অটিজমে আক্রান্ত শিশুদের শুধু খাবার, পড়াশোনা ও বাসস্থানের নিশ্চয়তা দিলেই চলবে না, তাদের ব্যক্তি হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া অতি জরুরি। অটিজমে আক্রান্ত শিশুদের মধ্যে অনেকেই অত্যন্ত মেধাবী, সঠিক পরিচর্যা পেলে তারা স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে পারে। সমাজ যদি তাদের বিকাশে সহায়তা করে, তাহলে তারা অনেকেই সমাজকে অনেক কিছু দেওয়ার ক্ষমতা রাখে। তাই অটিস্টিক শিশুদের ব্যাপারে সমাজের ধারণা বদলানো জরুরি।

এই অনুষ্ঠানে আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘পারস্পরিক সহযোগিতার মাধ্যমে আমাদের এমন একটি প্রক্রিয়া শুরু করা উচিত, যা দক্ষিণ এশিয়ার অটিজম সমস্যা মোকাবিলায় বৈজ্ঞানিকভাবে সঠিক ও অর্থনৈতিকভাবে বাস্তবায়নযোগ্য একটি উপায় উদ্ভাবনে সহায়ক হবে।’ প্রধানমন্ত্রী আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, ‘অটিজম স্পিকস, ডাবি্লউএইচ, জাতিসংঘ ও অন্য সবার সহযোগিতায় অটিজম সমস্যা নির্ণয়ে উন্নত পদ্ধতি ও চিকিৎসাব্যবস্থা গড়ে তোলা সম্ভব হবে।’

তবে দেশবাসী মুগ্ধ হয়েছে বাংলাদেশের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দৌহিত্রী, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কন্যা সায়মা ওয়াজেদ পুতুল এ উদ্যোগ নিয়েছেন দেখে। তিনিই এই সম্মেলনের উদ্যোক্তা। পুতুল প্রায় ১৫ বছর ধরে অটিজম নিয়ে কাজ করছেন। উত্তর আমেরিকায় স্কুল সাইকোলজিস্ট হিসেবে কর্মরত পুতুল অটিজম বিষয়ে একজন বিশেষজ্ঞ। মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে সমস্যাগ্রস্তদের ব্যাপারে বিশেষভাবে প্রশিক্ষিত পুতুল শিশু মনোবিজ্ঞান নিয়ে উচ্চতর ডিগ্রি অর্জন করেছেন। দেশের বাইরে এ বিষয় নিয়ে অনেক দিন ধরে কাজ করছিলেন তিনি। এবার কাজ শুরু করলেন নিজ দেশে। পৃথিবীর বড় বড় দেশও অটিজম নিয়ে এত বড় আন্তর্জাতিক সম্মেলনের আয়োজন করতে পারেনি। আমাদের প্রধানমন্ত্রীর কন্যা পেরেছেন। এ এক বিরল কৃতিত্ব। পুতুলের এ ধরনের উদ্যোগ শুধু প্রশংসারই নয়, দেশের মানুষকে অনুপ্রাণিতও করেছে ব্যাপকভাবে।

ভারতের নেহরু পরিবার যেভাবে চার প্রজন্ম ধরে রাষ্ট্র পরিচালনা এবং মানুষের সেবায় নিজেদের নিয়োজিত রেখেছে, বঙ্গবন্ধু পরিবারও অনেকটাই সেভাবে দেশের জন্য কাজ করছে, মানুষের মঙ্গলের জন্য কাজ করছে, কল্যাণের জন্য কাজ করছে। পুতুল প্রমাণ করলেন, তিনিও তাঁর পারিবারিক ঐতিহ্যের পথেই এগোচ্ছেন। মানুষের জন্য তাঁর কল্যাণকর ভূমিকা দেশবাসী মুগ্ধতার সঙ্গে, কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করবে।

এ ধরনের জনকল্যাণকর কাজ যাঁরা করেন, তাঁদের নিয়ে লিখতে গেলেই শক্তি চট্টোপাধ্যায়ের একটি কবিতার লাইন আমার মনে আসে, ‘মানুষ বড়ো কাঁদছে, মানুষ হয়ে তুমি তার পাশে এসে দাঁড়াও’।

পুতুল মানুষের জন্য কাজ করছেন, তাঁর জীবন মানুষের কল্যাণে নিবেদিত হোক_এই কামনা।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply