মনগড়া অভিযোগ!

নূহ-উল-আলম লেনিন
গত ১৩ জুলাই চারদলীয় জোট নানা ইস্যুতে দিনব্যাপী অনশন কর্মসূচি পালন করে। তাদের অনশন শুরম্ন হয়েছিল মধ্যাহ্নে তবুও আমার ধারণা_ এই অনশনব্রত পালন করতে গিয়ে বেগম খালেদা জিয়া ভয়ঙ্কর ৰুধাকাতর হয়ে পড়েছিলেন। এমনিতেই ‘অনশন’ শব্দটির সঙ্গে ‘ৰুধা’র সম্পর্কটি খুব নিবিড়। ৰুধার যন্ত্রণায় আত্মপীড়ণকেও প্রতিবাদের একটা ধরন হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন মহাত্মা গান্ধী। শান্তিপূর্ণ-অহিংস- অসহযোগ, অনশন-গণঅনশন, পদযাত্রা, ধর্মঘট, হরতাল, জেলভরো (স্বেচ্ছায় কারাবরণ)প্রভৃতি দুঃখ-কষ্ট বরণের মতো আত্মপীড়ণমূলক গণআন্দোলনের ভেতর দিয়ে সত্য প্রতিষ্ঠার প্রচেষ্টাকেই বলা হতো ‘সত্যাগ্রহ।’ অবিভক্ত ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামে স্বদেশী আন্দোলনে এই সত্যাগ্রহের প্রবর্তন করেন মোহন দাস করমচাঁদ গান্ধী। কাজী নজরম্নল ইসলাম তাঁর কবিতায় এ আন্দোলনের একটি চিত্র এঁকেছেন এভাবে, ‘ওরে হত্যা নয় আজ সত্যাগ্রহ সত্যের উদ্বোধন…।’ সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা এবং ব্রিটিশ পুলিশ-মিলিটারির অত্যাচারের জন্য রক্তৰরণ হলেও সশস্ত্র সংঘাত বা যুদ্ধের পথে নয়, শানত্মিপূর্ণ গণআন্দোলন ও আলাপ-আলোচনার পথেই শেষ পর্যনত্ম ভারত স্বাধীনতা অর্জন করে। মহাত্মা গান্ধী বরিত হন ভারত রাষ্ট্রের জাতির পিতা হিসেবে।

আমার মনে কৌতূহল, চরম হিন্দু ও ভারতবিদ্বেষী ‘বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদী’ এবং তাদের নেত্রী খালেদা জিয়া এ রকম একটা হিন্দু প্রবর্তিত এবং ‘ইসলামবিরোধী’ (আত্মপীড়ণ) অনশন কর্মসূচী কেন গ্রহণ করলেন? তাঁরা যে ‘হরতাল’ কর্মসূচী গ্রহণ করে চলেছেন সেটিও তো হিন্দুসত্মানী, স্বয়ং গান্ধী প্রবর্তিত। হরতাল শব্দটাই তো গান্ধীর মাতৃভাষা গুজরাটি {গুজ. হর (প্রত্যেক)+তাল (তালা)=অর্থাৎ প্রতি দরজায় তালা}। আমার মনে হয় ইতিহাসের প্রতি আগ্রহ না থাকায় খালেদা জিয়া প্রকৃত সত্য সম্পর্কে অবহিত নন। খালেদা জিয়ার পারিষদবর্গের মধ্যে এত রাষ্ট্রবিজ্ঞানী, ইতিহাসবিদ, অর্থনীতিবিদ, ব্যারিস্টার এবং স্বনামধন্য সাংবাদিক কি করলেন? তাঁদের তো উচিত ছিল ‘ম্যাডামকে’ এসব হিন্দুয়ানী ও ভারতীয় আন্দোলনের পথ-পদ্ধতি সম্পর্কে অবহিত করা। তাঁরা কি জানেন না, ম্যাডামের (এবং জাতীয়তাবাদীদের) ভাবাদর্শগত রোল মডেল পাকিসত্মানের স্থপতি ‘কায়দে আযম’ মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ এবং মুসলিম লীগ পাকিসত্মান আন্দোলন করতে গিয়ে কখনই ওসব গান্ধীবাদী অনৈসস্নামিক পথ গ্রহণ করেননি।

সে যাই হোক, প্রতীকী হলেও খালেদা জিয়া অনশনব্রত পালন করেছেন। গান্ধীজী সাধারণত পালন করতেন আমরণ (অবশ্য মরার আগেই অনশন ভঙ্গ করতে হয়েছে) অনশন এবং দিনের পর দিন অনশন পালন করতে গিয়ে তাঁকে শয্যা গ্রহণ করতে হতো। অনশন চলাকালে কোন দীর্ঘ বক্তৃতা বা উত্তেজনাপূর্ণ হুমকি-ধমকিও তিনি দিতেন না। বস্তুত অনশনের কারণে শরীরে সেই শক্তিটুকুও অবশিষ্ট থাকত না।

দিনের পর দিন নয়, একবেলা কয়েক ঘণ্টা না খেয়ে থাকার (অনশন) কারণেই সম্ভবত ম্যাডাম জিয়ার মেজাজ বিগড়ে গিয়েছিল। ৰুধার যন্ত্রণা সাংঘাতিক; তা আবার যদি হয় ৰমতার ৰুধা। ৰমতা হারানোর বেদনা আরও মারাত্মক। ৰমতা হারানো এবং পুনরায় ৰমতা ফিরে পাওয়ার ৰুধা আধাবেলা অনশনের যন্ত্রণা শতগুণ বাড়িয়ে দিয়েছিল। সেই যন্ত্রণারই বহিপর্্রকাশ দেখতে পাই তাঁর বেসামাল জ্বালাময়ী বক্তৃতায়। তিনি সদম্ভে ঘোষণা করেছেন, বিএনপি ৰমতায় গেলে সংবিধানকে ছুড়ে ফেলে দেয়া হবে! তাঁর এই ঘোষণায় আমরা সত্মম্ভিত। সংবিধান ছুড়ে ফেলে দেয়া তো রাষ্ট্রদ্রোহিতার শামিল! শঙ্কিত দেশবাসীর মনে প্রশ্ন : খালেদার এই ঘোষণার মাজেজা কি? আবার অসাংবিধানিক শাসন? ১৯৭৫-এ বঙ্গবন্ধু হত্যাকা-ের পর সংবিধান ছুড়ে ফেলে দিয়েছিল খুনি মোশতাক, খুনি মেজরগণ এবং নেপথ্যের নায়ক জেনারেল জিয়া। ‘৭২-এর সংবিধানে তো সামরিক শাসন জারি, সামরিক ফরমানবলে সংবিধান কর্তন ও দেশপরিচালনার কোন বিধান ছিল না। চতুর্থ সংশোধনীর পরও সংবিধানে অনির্বাচিত সরকার, হঁ্যা/না ভোট এবং স্বয়ংক্রিয়ভাবে রাষ্ট্র বা সরকারপ্রধান হওয়ার কোন বিধান ছিল না। এসব অপকর্মের হোতা জিয়াউর রহমান। বন্দুকের জোরে ৰমতা দখল করে খন্দকার মোশতাকের সার্থক উত্তরসূরি জিয়াউর রহমান জনগণের নির্বাচিত প্রতিনিধিদের দ্বারা প্রণীত এবং সার্বভৌম সংসদে সংশোধিত সংবিধান ছুড়ে ফেলে দিয়েছিলেন।

জিয়ার প্রদর্শিত পথে সংবিধান ছুড়ে ফেলে দিয়েছিলেন আরেক জেনারেল। জিয়ার অনুসৃত পথেই অবৈধ ৰমতা দখল করেছিলেন জেনারেল এরশাদ। আসলে যারা, হত্যা-কু্য সন্ত্রাস এবং সামরিক শাসনে বিশ্বাসী সাংবিধানিক সরকার তাদের ধাতে সয় না। সামরিক শাসনের উদরে জন্মগ্রহণকারী বিএনপি নামক দল এবং সেই দলের নেতা খালেদা জিয়া ও তার পরিবারের সদস্যরা গণতন্ত্র, ভোটাধিকার, আইনের শাসন, মানবাধিকার সর্বোপরি সংসদের সার্বভৌমত্বে বিশ্বাস করে না। যদি গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ, জাতীয় সংসদের সার্বভৌমত্ব এবং সাংবিধানিক শাসনে খালেদা জিয়ার বিন্দুমাত্র আস্থা-বিশ্বাস থাকত তাহলে ‘সংবিধান ছুড়ে ফেলা হবে’ বলে ঔদ্ধত্য প্রকাশ করতেন না। দেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী এবং বিরোধী দলের নেতার মতো গুরম্নত্বপূর্ণ ব্যক্তির এ ধরনের অসংসদীয়, অশালীন দম্ভোক্তি দেশের গণতান্ত্রিক ভবিষ্যতকেই আজ প্রশ্নবিদ্ধ করে তুলেছে। এটা গণতন্ত্রের ভাষা হতে পারে না।

সংবিধানের পঞ্চম, অষ্টম ও চতুর্দশ সংশোধনীর মতো বিষয়ের তীব্র বিরোধিতা ও সমালোচনা করা সত্ত্বেও আওয়ামী লীগ নেতাদের মুখে সংবিধান ছুড়ে ফেলার মতো দম্ভোক্তি শুনিনি। তাঁরা বরং জনগণের রায়ের জন্য অপেৰা করেছেন। ২০০৮ সালের নির্বাচনে জনগণ তাদের পৰে ঐতিহাসিক রায় দিয়েছে।

নিঃসন্দেহে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে সংবিধান সংশোধনের কোন অঙ্গীকার ছিল না। অঙ্গীকার আছে আওয়ামী লীগের ঘোষণাপত্র গঠনতন্ত্রে। সংবিধানে সংশোধানীর বিষয়টি এসেছে পঞ্চম ও অষ্টম সংশোধনী বাতিল করে দেয়া হাইকোর্টের ঐতিহাসিক রায়ের পরিপ্রেৰিতে। স্মর্তব্য, পঞ্চম সংশোধনী বিষয়ক মামলাটিও কিন্তু আওয়ামী লীগ বা কোন রাজনৈতিক দল করেনি। মুন সিনেমা হল সংক্রানত্ম বিরোধ নিষ্পত্তি করতে গিয়ে বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলেই হাইকোর্ট মোশতাক-সায়েম-জিয়ার ৰমতা দখল ও সামরিক শাসন জারিকে অবৈধ ঘোষণা এবং সংবিধানের পঞ্চম সংশোধনী বাতিলের রায় প্রদান করে। বরং খালেদার আইনমন্ত্রী মওদুদ আহমেদ আপীল বিভাগের চেম্বার জজকে গভীর রাতে ঘুম থেকে জাগিয়ে হাইকোর্টের রায়ের ওপর স্থগিতাদেশ দিতে বাধ্য করে। বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে হাইকোর্টের ওই রায়ের বিরম্নদ্ধে সরকার পৰ আপীল শুনানির এবং সুপ্রীমকোর্টে বিষয়টির চূড়ানত্ম নিষ্পত্তির কোন উদ্যোগ গ্রহণ করেনি, সাহসও পায়নি। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দুই বছরও বিষয়টি কোল্ড-স্টোরেজেই ছিল। স্বাভাবিকভাবেই আইনের শাসনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল আওয়ামী লীগ সরকার আইন-আদালতকে তার নিজস্ব গতিতে এগিয়ে যেতে দিয়েছে। আপীল বিভাগে পঞ্চম সংশোধনী মামলার চূড়ানত্ম নিষ্পত্তি হয়েছে। পরবতর্ীকালে অষ্টম সংশোধনীর বিষয়টি উত্থাপিত হলে আদালত তার রায় প্রদান করে। সর্বশেষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার সংক্রানত্ম সংবিধান সংশোধনীটিও হাইকোর্ট সংবিধানের মূলনীতি-কাঠামোর সঙ্গে সাংঘর্ষিক হওয়ায় বাতিল করে। শুধু তাই নয়, হাইকোর্টের রায়ের আলোকে সংবিধানের প্রয়োজনীয় সংশোধনীর ব্যাপারে সার্বভৌম জাতীয় সংসদ তার এখতিয়ার কার্যকর করবে বলে অভিমত ব্যক্ত করে।

উলিস্নখিত রায়গুলোর বিরম্নদ্ধে বিএনপি-জামায়াত জোট হাইকোর্ট-সুপ্রীমকোর্টে ধারাবাহিক আইনী লড়াই পরিচালনা করে। কিন্তু সুপ্রীমকোর্ট হাইকোর্টের রায় বহাল রাখে।

অতঃপর জাতীয় সংসদের কর্তব্য হচ্ছে সুপ্রীমকোর্টের রায় কার্যকর করা। একমাত্র সার্বভৌম সংসদেরই এই এখতিয়ার রয়েছে। ৩৪৫ আসনের জাতীয় সংসদে এককভাবে আওয়ামী লীগেরই রয়েছে দুই-তৃতীয়াংশের সংখ্যাগরিষ্ঠতা। বিএনপি-জামায়াত মাত্র ৩৩টি আসন পাওয়ায় সঙ্গত কারণেই তাদের পৰে সংসদে সরকার পৰের আনা কোন বিল ঠেকানো সম্ভব নয়।

আওয়ামী লীগের কি করার ছিল? সুপ্রীমকোর্টের রায় সত্ত্বেও সংবিধানের প্রশ্নটি অনির্দিষ্টকাল ঝুলিয়ে রাখা? সংবিধান প্রশ্নে আরেকটি নির্বাচন অথবা গণভোট আহ্বান করা? বিরোধী দলের সঙ্গে সমঝোতার মাধ্যমে সংবিধান সংশোধন করা?

সংবিধান ও আইনের দৃষ্টিতে দেখলে এর কোনটারই বাধ্যবাধকতা ছিল না আওয়ামী লীগের। সংবিধানেই তো (যা বিএনপি, জামায়াত জোট বা সুপ্রীমকোর্ট, কেউ বাতিল করেনি) সংবিধান সংশোধনের উপায়, এখতিয়ার এবং পুরো প্রক্রিয়াটির সুস্পষ্ট উলেস্নখ রয়েছে। সেখানে কেবল এই ইসু্যতে নির্বাচন বা গণভোটের কোন বিধান রাখা হয়নি। সংবিধান সংশোধনের এখতিয়ার জনগণের ভোটে নির্বাচিত সার্বভৌম জাতীয় সংসদের। সংসদের দুই-তৃতীয়াংশ সদস্য একমত হয়ে যে কোন সংশোধনী পাস করতে পারেন। আসলে বিষয়টি কেবল আইনী নয়, রাজনৈতিকও বটে।

আওয়ামী লীগ বিষয়টি সে দৃষ্টিকোণ থেকেই বিচার করেছে। আর এ জন্য একটি বিশেষ সংসদীয় কমিটি গঠন করা হয়েছিল। কমিটিতে আওয়ামী লীগ ছাড়াও সংসদে প্রতিনিধিত্বকারী প্রায় সকল দলের প্রতিনিধি রাখা হয়েছিল। প্রধান বিরোধ দল বিএনপিকেও তাদের প্রতিনিধি পাঠানোর উপযর্ুপরি অনুরোধ জানান হয়েছে। বিএনপি প্রথম থেকেই কমিটিতে অংশগ্রহণে অস্বীকৃতি জানিয়েছে। সংসদীয় কমিটি কেবল নিজেদের মধ্যে আলোচনা সীমাবদ্ধ না রেখে সংবিধান সংশোধনীর প্রশ্নে সংসদে প্রতিনিধিত্ব নেই এমনসব প্রগতিশীল রাজনৈতিক দল, সুশীল সমাজ, সাংবাদিক, বিভিন্ন সামাজিক শক্তি এবং বিশেষ করে দেশের বিভিন্ন মতের প্রথিতযশা সংবিধান বিশেষজ্ঞ আইনজীবীদের সঙ্গে খোলামেলা মতবিনিময় করেছে। এর পর প্রায় ১১ মাস পুরো বিষয়টি চুলচেরা বিশেস্নষণ ও জনমত সংগ্রহের পর সংবিধান সংশোধনীটি জাতীয় সংসদে পাস করা হয়। সর্বশেষ সংসদেও বিএনপি আলোচনার সুযোগ নেয়নি। তারা অব্যাহত সংসদ বর্জন করে চলেছে। সংসদের বাইরে তারা মাঠ গরম করার চেষ্টা করেছে। কিন্তু মাঠ গরম তো হয়ইনি বরং গণতন্ত্রের মসৃণ মাঠ কর্দমাক্ত হয়েছে।

আর এখন ৰমতায় গেলে সংবিধান ছুড়ে ফেলে দেয়ার মতো গর্হিত ও ফ্যাসিবাদী হুঙ্কার দিয়ে নিজেদের আসল চেহারাটাই উন্মোচিত করেছে। ভবিষ্যতে ৰমতায় গেলে কাকে কি শাসত্মি দেবেন, কার কি পরিণতি হবে, সেই হুঁশিয়ারিও উচ্চারণ করেছেন খালেদা জিয়া। খালেদার বিএনপি আবার ৰমতায় যাওয়ার ফল কি দাঁড়াতে পারে তা ভেবে শানত্মিপ্রিয় নাগরিকগণ তাই শঙ্কাবোধ করছেন।

খালেদা জিয়া ১৩ জুলাইয়ের গণঅনশন সভায় বর্তমান সরকারকে ‘চোর’ আখ্যা দিয়েই ৰানত্ম হননি; তিনি অপ্রাসঙ্গিকভাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমেরিকা প্রবাসী কম্পিউটার বিশেষজ্ঞ পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়ের বিরম্নদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ উত্থাপন করেছেন।

আসলে, খালেদা জিয়া তাঁর ‘কীর্তিমান’ পুত্রদ্বয়ের অপরাধ আড়াল করার জন্যই সজীব ওয়াজেদ জয়ের বিরম্নদ্ধে ভিত্তিহীন ও নির্জলা মিথ্যা অভিযোগ এনে জনগণকে বিভ্রানত্ম করতে চাইছেন। তাঁর পরিবার ও সনত্মানদের জড়িয়ে ‘ৰমতা প্রদর্শন’, দেশের রাজনীতিতে অনাকাঙ্ৰিত হসত্মৰেপ, আত্মীয়করণ, অবৈধ পন্থায় সম্পদ আহরণ এবং দুর্নীতি প্রভৃতি অভিযোগ যাতে উঠতে না পারে সে জন্য সচেতনভাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পরিবারের সদস্যদের রাজনীতিতে যুক্ত করেননি; তাঁদের স্থায়ীভাবে দেশে ফিরিয়ে আনেননি। পরিবার বলতে শেখ হাসিনা তাঁর নিজের পুত্র-কন্যা এবং শেখ রেহানা ও তাঁর পুত্র-কন্যাদেরই অর্থাৎ যাদের গায়ে বঙ্গবন্ধুর রক্তের ধারা প্রবাহিত তাঁদেরই বোঝান।

বাসত্মবতা হচ্ছে, খালেদা জিয়া দুই কিসত্মিতে দশ বছর উজিরে আজমের দায়িত্ব পালনকালে শেখ হাসিনার বিরম্নদ্ধে দুর্নীতি ও ৰমতা অপব্যবহারের নানা মনগড়া অভিযোগ এনে আদালতে প্রমাণ করতে পারেননি। ফখরম্নদ্দীনের দুই বছরের তত্ত্বাবধায়ক সরকার জরম্নরী অবস্থার সুযোগে সেনাবাহিনীকে লাগিয়েও শেখ হাসিনা ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের দুর্নীতি, অর্থ পাচার বা বিদেশী ব্যাংকে অর্থসম্পদ গচ্ছিত রাখার সামান্যতম প্রমাণ খুঁজে পায়নি।
পৰানত্মরে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলেই খালেদা জিয়ার দুই গুণধর পুত্রের দুর্নীতি ও দুর্বৃত্তপনার অবিশ্বাস্য সব তথ্য উদ্ঘাটিত হতে থাকে। মধ্যপ্রাচ্যের রাজতন্ত্রী দেশগুলোর মতো খালেদা তাঁর জ্যেষ্ঠ পুত্র তারেক রহমানকে ‘ক্রাউন প্রিন্স’ হিসেবে ৰমতার উত্তরাধিকারী মনোনীত করে কেবল দলীয় পদ-পদবি নয়, ‘হাওয়া ভবন’কে কেন্দ্র করে ৰমতার বিকল্প কেন্দ্রের সর্দার বানিয়ে দেন। আর ওই ‘হাওয়া ভবন’কে কেন্দ্র করেই লুটপাট, দুর্নীতি, অবৈধ ৰমতা প্রয়োগ কেবল নয় শেখ হাসিনাসহ আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দকে হত্যার পরিকল্পনা এবং বাসত্মবায়নের উদ্যোগ নেয়া হয়। তারেকের বিরম্নদ্ধে বিদেশে অর্থপাচারসহ দুর্নীতির কয়েকটি মামলা ছাড়াও ২০০৪ সালে গ্রেনেড হামলায় শেখ হাসিনাকে হত্যা প্রচেষ্টা ও আইভি রহমানসহ ২২ জনের হত্যাকা-ের অন্যতম আসামি হিসেবে চার্জশীট দাখিল করা হয়েছে। আনত্মর্জাতিক মাফিয়া ডন দাউদ ইব্রাহিমের সঙ্গে তারেকের সংশিস্নষ্টতার কথাও এখন কারও অজানা নেই। বস্তুত তারেক নিজেই হয়ে উঠেছিল এক অপ্রতিরোধ্য মাফিয়া ডন। খালেদার কনিষ্ঠ পুত্র কোকোর বিরম্নদ্ধে বিদেশে অর্থপাচার সংক্রানত্ম মামলায় ইতোমধ্যেই সে দোষী প্রমাণিত হয়েছে এবং আদালত তাকে যথোপযুক্ত শাসত্মিও দিয়েছে। মুক্তিযোদ্ধা ও রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান এবং দুই দুইবারের নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার পুত্রদের এহেন পরিণতি দুঃখজনক ও লজ্জাকর। তাদের এ ধরনের পরিণতি কারও কাছেই কাম্য হতে পারে না।

কিন্তু উদ্বেগের বিষয় হলো, খালেদা জিয়া এজন্য বিন্দুমাত্র দুঃখিত বা লজ্জিত নন। তিনি পুত্রস্নেহে অন্ধ। তবে এ কথাও তো সত্য তিনি কেবল ‘মা’ নন, দেশের দু’বারের প্রধানমন্ত্রী এবং বিরোধী দলের নেতা হিসেবে ভবিষ্যতের সম্ভাব্য প্রধানমন্ত্রীও বটে। আসলে মা হিসেবে, অভিভাবক হিসেবে তিনি তাঁর দায়িত্ব পালন করেননি; একটি ছেলেকেও উচ্চশিৰা ও সুশিৰা দিতে পারেননি, যোগ্য মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে পারেননি। বরং তাঁর আশ্রয়ে-প্রশ্রয়েই তারেক-কোকো দুনর্ীতি অনিয়মের সকল সীমা ছাড়িয়ে গিয়েছিল। যে মা, যে নেত্রী নিজ সনত্মানদের মানুষ করতে পারেননি সেই মা যখন অন্যদের বিরম্নদ্ধে বানোয়াট দুর্নীতির অভিযোগ উত্থাপন করেন তখন দুঃখ জনকই নয় সেটা হাস্যাকর বটে।

লেখক : রাজনীতিবিদ

জনকন্ঠ

Leave a Reply