সাহেবগঞ্জের নীলকুঠি

আলম শাইন
পলাশী যুদ্ধ কিংবা ইংরেজ শাসনামল সম্পর্কে নতুন করে যেমনি আর কিছুই লেখার নেই, তেমনি লেখার নেই নীলচাষ সম্পর্কে। অনেক নাটক, সিনেমা ও উপন্যাস রচিত হয়েছে নীলচাষ নিয়ে। নীলচাষের কথায় এলে সর্বপ্রথম চোখের সামনে যা ভেসে ওঠে তা হচ্ছে ‘নীলকুঠি’ এবং লুইবন নামের একজন ফরাসি বণিকের চেহারা। যাঁর বদৌলতে উপমহাদেশে নীলচাষের পতন ঘটে। ১৭৭৭ খ্রিস্টাব্দে লুইবন আমেরিকা থেকে প্রথম উপমহাদেশে নীলবীজ নিয়ে আসেন। অতঃপর ১৭৯৫ খ্রিস্টাব্দে বৃহত্তর যশোর জেলায় বাণিজ্যিকভিত্তিতে নীলচাষ শুরু করেন। তখন উপমহাদেশের সর্বত্র নীলচাষ হতো না। অপেক্ষাকৃত উঁচু এলাকায় নীলচাষ হতো। উঁচু স্থানের মধ্যে ছিল যশোর, খুলনা, বগুড়া, পাবনা, ময়মনসিংহ, বাকেরগঞ্জ, রাজশাহী, পশ্চিমবঙ্গের নদীয়া, ২৪ পরগনা, মালদহ, মুর্শিদাবাদ এবং চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জ উপজেলার সাহেবগঞ্জে। এ স্থানে আজও ব্রিটিশ বেনিয়াদের শাসন-শোষণের সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছে ‘নীলকুঠি’। প্রায় ১ একর ৫২ শতাংশ জমির ওপর এই নীল কুঠিটি স্থাপন করেছিল ব্রিটিশ বেনিয়ারা। কালের গর্ভে এর সব হারিয়ে গেলেও এখনো রয়ে গেছে সুউচ্চ টাওয়ার, যার উচ্চতা প্রায় ১৫০ ফুট। ধ্বংসাবশেষের মধ্যেও সাক্ষী হয়ে আছে ইংরেজদের ঘোড়ার আস্তানা, পিলখানা, টর্চারসেলসহ বেশ কিছু ভবনের ভগ্নাংশ। কুঠিরের তোরণগুলো এখন আর নেই। যেটুকু রয়েছে তা ঘন জঙ্গলে আবৃত। অবশ্য কিছুটা অক্ষত রয়েছে উঁচু টাওয়ারটি। জানা যায়, টাওয়ারের ওপরে দাঁড়িয়ে ইংরেজ পাহারাদাররা পর্তুগিজ সৈন্যদের গতিবিধি লক্ষ করত। টাওয়ারের ওপরে উঠার জন্য ভেতরের দিকে সাপের মতো পেঁচানো ৫০টি সিঁড়ি রয়েছে। যা সত্যিই দেখার মতো। সাহেবগঞ্জের ঐতিহাসিক নীলকুঠিটি কবে কখন স্থাপিত হয়েছে, তার কোনো সঠিক তথ্য অদ্যাবধি পাওয়া যায়নি। তবে ঐতিহাসিক W W Hunter-এর মতে, ১৮১৫-১৮১৬ খ্রিস্টাব্দে এখানে কুঠি স্থাপিত হয়। এ ঐতিহাসিকের মতে, তৎকালীন ভারতবর্ষে ২০ লাখ ৪০০০ বিঘা জমিতে নীলচাষ হতো। তা থেকে নীল উৎপাদন হতো ১২ লাখ ৮৩ হাজার মণ।

উল্লেখ্য, প্রতিবিঘা জমিতে প্রায় দুই কেজি নীল পাওয়া যেত। যার তৎকালীন মূল্য ছিল ১০ টাকা। নীল প্রস্তুত করতে খরচ পড়ত এক থেকে দুই টাকা। যার জন্য ব্রিটিশরা কৃষকদের বিঘাপ্রতি এক টাকা দাদন দিত। এরপরও কৃষকরা উৎকৃষ্ট জমিতে নীলচাষ না করলে তাদের ওপর নির্মম অত্যাচার চালিয়ে যেত। এভাবে ১৮৯০ সাল পর্যন্ত ভারতবর্ষে নীলচাষ করানো হতো। ১৮৯০ সালের শেষ দিকে জার্মানি কৃত্রিম নীল রং প্রস্তুত শুরু করলে ভারতবর্ষে নীলচাষ বন্ধ হয়ে যায়। থেকে যায় শুধু ৬২৮টি নীলকুঠি। যার কিছু কিছু এখনো ধ্বংস হতে হতে দাঁড়িয়ে আছে কালের সাক্ষী হয়ে। তার একটি উৎকৃষ্ট উদাহরণ সাহেবগঞ্জের নীলকুঠি। যা হয়তো অচিরেই বিলীন হয়ে যাবে ভূমিদস্যুদের কবলে পড়ে।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply