সুযোগ বুঝে অর্ধশতাধিক বাড়িতে লুটপাট

মুন্সীগঞ্জের চরাঞ্চলে খুনের পর পুরুষশূন্য :
মাহাবুব আলম লিটন, মুন্সীগঞ্জ: সদর উপজেলার চরাঞ্চলে শুক্রবার খুনের ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাত থেকেই বকুলতলা ও সোলারচরে অর্ধশতাধিক বাড়িতে অস্ত্রের মুখে চলছে ব্যাপক লুটপাট। ২ দিনে ৭০টি গরু, ২০ বকরি, ২শ’ ভরি স্বর্ণালঙ্কার, ৪০টি ফ্রিজ, ৫০টি টিভি লুট হয়েছে বলে জানা গেছে। তবে পুলিশ মোতায়েন থাকলেও লুটেরাদের সহযোগিতা করেছে বলেও তারা জানিয়েছে।

বকুলতলা গ্রামের সত্তরোর্ধ্ব কামারন বেগম জানান, লুটকারীরা আমাদের এলাকার গরুর ঘর থেকে ৫টি গরু নিয়ে পালিয়ে যায় এবং আমার পেটে লাথি মেরে অস্ত্র ঠেকিয়ে আমার গলার একটি চেইন, কানের দুল ও নগদ টাকা লুটে নেয়। খুশিয়া বেগম জানান, আমার মাথায় শাবল ধরে আমার মোবাইল নিয়ে গেছে। নাহিদা সুলতানা বলেন, মাথায় অস্ত্র ধরে আমাদের গরুর ঘর থেকে ২টি গরু ২টি টেলিভিশন নিয়ে গেছে। খালেদা বেগম বলেন, রামদা ধরে আমার ঘর থেকে টাকা ও স্বর্ণালঙ্কার নিয়ে গেছে। রাজিয়া বেগম বলেন, গর্ভবতী একটি গাভীসহ ৪টি গাভী অস্ত্র ঠেকিয়ে নিয়ে গেছে। এ সময় পুলিশ থাকলেও নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করেছে। সেলিনা বেগমের ১টি গরু ২টি মোবাইল, আফছিরুন নেছার ২টি লাইট, ২টি মোবাইল এবং ২০ হাজার টাকা ছেলের বৌয়ের গলার চেইনসহ দোকান লুটপাট করে।

বকুলতলা গ্রামের মহিলা অভিযোগ করেন সুরুজ মেম্বারের লোকজন খালেদ, আলেক, বাবুল, দিদারসহ ২৫/৩০ জনের একটি দল গভীর রাতে গ্রামে ঢুকে লুটপাট চালিয়েছে। তারা এদের স্বচক্ষে দেখেছেন বলে দাবি করেন। অন্যদিকে অধিকাংশ লুটেরা মুখোশ পরে আসায় তাদের তারা চিনতে পারেনি বলে জানায়। এদিকে সুরুজ মেম্বার খলিল ভুইয়ার ছেলে সার ও আলু ব্যবসায়ী শাহিনকে ডেকে পুলিশের হাতে ধরিয়ে দেয়ারও অভিযোগ রয়েছে।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, বকুলতলা ও সোলারচরের ৫০টি বাড়িতে অস্ত্রের মুখে লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। এখানে কোন গোয়াল ঘরে গরু দেখতে পাওয়া যায়নি। বিভিন্ন ঘরে ঢুকে ভাঙচুর করেছে তার আলামত পাওয়া গেছে।

বকুলতলা গ্রামের মহিলারা আরও জানান, সাইজুদ্দিন সরকার পিস্তল ধরে ১০ ভরি স্বর্ণ, সিডি, ৫০ হাজার টাকা লুটে নেয়। মিনু বেগম বলেন, ঘর খুলে না দিলে তারা তাদের সন্তানদের মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে সকল কিছু লুটে নিয়ে গেছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বকুলতলা গ্রামে ৩ যুবক লুট করার উদ্দেশ্যে বকুলতলা গ্রামে প্রবেশ করলে হাতেনাতে পুলিশে সোপর্দ করে। গ্রেফতারকৃতরা হলো সুরুজ মেম্বারের ছেলে ডালিম, মঙ্গল কাজীর ছেলে জহির, মতিন দেওয়ানের ছেলে সবুজ।

লুটপাট ভাঙচুরের বিষয় মুন্সীগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার শফিকুল ইসলাম জানান, তার কাছে বকুলতলা ও সোলারচর গ্রামে লুটপাট বা ভাঙচুরের তথ্য নেই। তদন্ত করে সত্যতা পাওয়া গেলে দোষীদের গ্রেফতার করা হবে।

সংবাদ

Leave a Reply