গজারিয়ায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভাঙচুর, ৩ ডাক্তার লাঞ্ছিত

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার ভবেরচরের স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ডায়াগনোস্টিকে রোগী পাঠানোর অসম্মতিকে কেন্দ্র করে স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্ েব্যাপক ভাঙচুর চালিয়েছে দালাল চক্ররা। এ সময় ৩ ডাক্তারকে লাঞ্ছিত করা হয়। আজ বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। মেডিকেল অফিসার ডা. বিজন কুমার জানান, গজারিয়া উপজেলার ভবেরচর এলাকার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্ সংলগ্ন হালিমা-নুরুল ডায়াগনোস্টিক সেন্টারের নিযুক্ত দালাল মাহমুদ ও জসিম। তারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্রে ডাক্তারদের কাছে হালিমা-নুরুল ডায়াগনোস্টিক সেন্টারে রোগী পাঠানোর দাবি করেন।

এতে আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. বিজন কুমার অস্বীকৃতি জানালে তাকে মারধর শুরু করে ওই ডায়াগনোস্টিকের দালালরা। এতে স্বাস্থ্য কমপ্ল্লেঙ্রে হারবাল বিভাগের সহকারী ইস্রাফিল ও মেডিকেল অফিসার মজিবুল হক তাকে রক্ষা করতে এগিয়ে আসলে তাদেরও মারধরসহ শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করা হয়। পরে স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্রে বিভিন্ন কক্ষে ব্যাপক ভাঙচুর চালায় দালালরা। এ ব্যাপারে মেডিকেল অফিসার ডা. বিজন কুমার গজারিয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। তবে হালিমা-নুরুল ডায়াগনোস্টিক সেন্টারের মালিকপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে কাউকে পাওয়া যায়নি। গজারিয়া থানার ওসি মো. আরজু মিয়া জানান, ঘটনাস্থলে পুলিশ গেলে দালাল চক্রটি পালিয়ে যায়। এ ব্যাপারে পুলিশ ওই ডায়াগনোস্টিক সেন্টারে গিয়ে মালিকপক্ষের কাউকে পাননি বলেও তিনি জানান।

শীর্ষ নিউজ
————————

দালাল চক্রের হামলা
গজারিয়া স্বাস্থ্য কমপেক্সে ভাংচুর ॥ ৩ চিকিৎসক লাঞ্ছিত

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি : গজারিয়া উপজেলার ভবেরচরস্থ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সে দালাল চক্রের হামলায় তিন চিকিৎসক লাঞ্ছিত ও স্বাস্থ্য কমপে¬ক্স ব্যাপক ভাংচুর করেছে। বৃহস্পতিবার দুপুর ডায়াগনোষ্টিক সেন্টারে রোগী না দেয়ায় স্থানীয় হালিমা-নুরুল ডায়াগনোষ্টিক সেন্টারের দালাল চক্রের লোকজন এই হামলা চালায়।

স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সেটির আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. বিজন কুমার জানান, হালিমা-নুরুল ডায়াগনোষ্টিক সেন্টারের নিযুক্ত দালাল মাহমুদ ও জসিম স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সে এসে রোগী পাঠানোর জন্য চাপ দেয়। অস্বীকৃতি জানাতেই আকস্মিক তাকে মারধর শুরু করে। এ সময় হারবাল বিভাগের সহকারী ইস্রাফিল ও মেডিকেল অফিসার মজিবুল হক বাঁচাতে এগিয়ে আসলে তাদের মারধর করে এবং আবাসিক মেডিকেল অফিসারের কক্ষে ব্যাপক ভাংচুর চালায়। আহত তিন চিকিৎসককে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

এ ঘটনায় ডা. বিজন কুমার গজারিয়া থানায় মামলা দায়ের করেছেন। হালিমা-নুরুল ডায়াগনোষ্টিক সেন্টারের মালিকপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে কাউকে পাওয়া যায়নি। গজারিয়া থানার ওসি মো. আরজু মিয়া জানান, ঘটনাস্থলে পুলিশ গেলে দালাল চক্রটি পালিয়ে যায়। পুলিশ ওই ডায়াগনোষ্টিক সেন্টারে গিয়ে মালিকপক্ষের কাউকে পাননি। তবে আসামী গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply