মুন্সীগঞ্জে ডেইরি ফার্মগুলোর মুখ থুবড়ে পড়ার সম্ভাবনা

গো-খাদ্যের সংকট, দাম বৃদ্ধি ও রোগ-ব্যাধির প্রাদুর্ভাব
মাহাবুব আলম লিটন, মুন্সিগঞ্জ: গো-খাদ্যের তীব্র সংকট, দাম বৃদ্ধি ও নানা রোগ-ব্যাধির কারণে গরু-ছাগল পালনে আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন মুন্সীগঞ্জের খামার মালিকরা। এতে মুন্সীগঞ্জে ডেইরি ফার্মসহ গরুর সংখ্যা দিনদিন কমে যাচ্ছে। জেলার ৬টি উপজেলার পশু হাসপাতালে চিকিৎসক ও লোকবলের অভাব রয়েছে। প্রয়োজনে চিকিৎসক ও ওষুধ-পথ্য সঠিকভাবে পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ করছেন খামার মালিকরা। জেলা পশু হাসপাতালে ডায়াগনস্টিক ল্যাবরেটরি রয়েছে। কিন্তু টেকনিশিয়ান ও ডাক্তারের অভাবে তা খামার মালিকদের কোন উপকারে আসছে না। সব মিলিয়ে জেলার ডেইরি ফার্মগুলোর চরম দুর্দিন চলছে। অপরদিকে গো-খাদ্যের দাম এবার গত বছরের তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ। ঘাসের অভাবও প্রকট। গত বছর এক বস্তা চালের কুঁড়ার দাম ছিল সাড়ে ৩০০ টাকা, যার বর্তমান বাজার মূল্য ৫৪০ টাকা। গমের ভুষির মণ গত বছর ছিল ৪৬০ টাকা থেকে ৪৭০ টাকা, যার বর্তমান বাজার মূল্য ১ হাজার ২০০ থেকে ১ হাজার ৭০০ টাকা। চালের খুদ গত বছর ছিল ১ হাজার টাকা বস্তা, যার বর্তমান বাজার মূল্য ১ হাজার ৭০০ থেকে ১ হাজার ৮০০ টাকা।

ফার্মগুলোতে যখন কোন অসুখ-বিসুখ দেখা যায় তখন সঠিক সময় ডাক্তার পাওয়া যায় না বলে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগীরা। ২-১ জন ডাক্তার থাকলেও তারা শহরেই থাকেন। তুলনামূলকভাবে শহরের চেয়ে গ্রামেই গরুর সংখ্যা বেশি। কিন্তু গ্রামের খামারিরা ডাক্তার তো দূরের কথা একজন মাঠকর্মীও পান না বলে অনেক অভিযোগ রয়েছে। জেলা সদরে সরকারিভাবে পশু হাসপাতাল থাকলেও গ্রামগুলোর খামারিরা এর কোন সুযোগ-সুবিধা ভোগ করতে পারেছেন না। দক্ষ চিকিৎসকের অভাবে প্রতি বছর এ জেলায় শত শত গরু বিনা চিকিৎসায় মারা যায়।

খামারিরা জানান, জেলার খামারগুলোতে শঙ্কর, সাইয়ান, ফ্রিজিয়ান, সিন্ধি ইত্যাদি নামক উন্নত জাতের গরু রয়েছে।

সরকারিভাবে জেলায় ১ হাজার ৫২টি গরুর খামার রয়েছে বলে জানা যায়। প্রসঙ্গত, এটি দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম দুগ্ধ উৎপাদনকারী অঞ্চল। জেলায় গরুর সংখ্যা প্রায় ২ লাখ ২৫ হাজার। প্রতিদিন অন্তত ২ লাখ ৬৫ হাজার লিটার দুধ আসে জেলার খামারগুলো থেকে। মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার প্রফেসর আলী মর্তুজা বলেন, দিন দিন গরুর খাবারের মূল্যবৃদ্ধির কারণে দিশেহারা হয়ে পড়েছি। জেলা পশু চিকিৎসক জানান, ৬টি উপজেলায় ৬ জন পশু চিকিৎসক রয়েছেন। মাঠকর্মী রয়েছে ৪ জন। তবে এ সংখ্যা গরুর তুলনায় অতি নগণ্য। প্রতি উপজেলায় একজন ডাক্তার অথবা প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত মাঠকর্মী দরকার, তা না হলে মুন্সীগঞ্জের ডেইরি ফার্মগুলো মুখ থুবড়ে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

সংবাদ

Leave a Reply