ফিরেছে ওয়াহিদ পরিবার…

টানা এক মাসের আমেরিকা সফর শেষে গতকাল ঢাকায় ফিরেছে ওয়াহিদ পরিবার। গেল ১লা জুলাই তিন সদস্যের ওয়াহিদ পরিবার ঢাকা ছাড়ে আমেরিকার উদ্দেশে। পরিবারের প্রধান দুই সদস্য পপ তারকা-নির্মাতা ফেরদৌস ওয়াহিদ এবং শিল্পী-সংগীত পরিচালক হাবিব ওয়াহিদ। দু’জনেই মূলত আমেরিকা প্রবাসীদের আমন্ত্রণে বেশ কিছু কনসার্টে অংশ নেয়ার জন্য এই লম্বা সফরে গেছেন। ফেরদৗস ওয়াহিদের স্ত্রী তথা হাবিবের মা-ও গিয়েছিলেন এ সফরে, যেমনটা এর আগে দেখা যায়নি। এর আগে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কনসার্টের উদ্দেশে দেশ ছাড়লেও বেশিরভাগ সময় হাবিবের সফরসঙ্গী ছিলেন পিতা ফেরদৌস ওয়াহিদ।

জানা যায়, গতকাল ভোরে ঢাকার মাটিতে পা রাখে ক্লান্ত ওয়াহিদ পরিবার। টানা এক মাসের আমেরিকা সফর প্রসঙ্গে হাবিব বলেন, সঙ্গে আম্মু ছিলেন বলে অনেক রক্ষা পেয়েছি। জীবনেও এত জার্নি করিনি, যতটা এবার করেছি। শুধু শো কেন্দ্র করে এতদিন একটানা বাইরেও থাকা হয়নি আমার। এসব কথা ভেবেই এবার আম্মুকে সঙ্গে নিয়ে গেলাম। এক মাসে ক’টা শো করলেন? ২০/২৫টা? এমন জিজ্ঞাসায় ক্লান্ত হাবিবের চোখ যেন কপালে উঠে গেল। বললেন, এক মাসে মাত্র আটটা শো করেছি। সব শো-ই বেশ বড়মাপের ছিল। এই আটটা শো করেই তো মাথা খারাপ অবস্থা। ২০/২৫টা হলে তো আমি পালিয়ে আসতাম ঢাকায়। হাবিব আরও বলেন, আমি মূলত ঘরমুখো মানুষ। বাইরে এত লম্বা সময় আমার ভাল লাগে না। ঢাকায় নেমেই এয়ারপোর্টে আরাম করে নিঃশ্বাস নিলাম। সতেজ হয়ে গেলাম। মনে পড়লো প্রিয় স্টুডিওর কথা। কতদিন স্টুডিওটাকে দেখি না, প্রাণের চেয়ে প্রিয় যন্ত্রগুলোকে ছুঁয়ে দেখি না। সব মিলিয়ে স্টুডিও থেকে এই বিরতির একটা উপকারও আছে।

মায়াটা বেড়েছে, অনেক সুন্দর সুন্দর ফিলিংস নিয়ে এসেছি স্টুডিওর জন্য, সঙ্গে নতুন কিছু ইনসট্রুমেন্টও। আমেরিকায় স্পেট শো’র পাশাপাশি এক মাসে আর কি কি করলেন। কোন মিউজিক্যাল প্রজেক্ট? কিংবা হেলাল-কায়-শিরীনদের মতো নতুন কোন কণ্ঠ আবিষ্কার করেছেন কি? হাবিব বলেন, না। তেমন কিছু হয়নি। শো করেছি, আম্মুকে নিয়ে বেড়িয়েছি, দাওয়াত খেয়েছি- এটুকুই। আমার আর অন্য কোনদিকে মন ছিল না। এদিকে দেশে ফিরেই আজ থেকে আবারও নিজ স্টুডিওতে আগের রুটিনে ফিরে আসছেন হাবিব। এর মধ্যে জমে গেছে বেশ ক’টি বিজ্ঞাপন জিঙ্গেলের কাজ। তাছাড়া সদ্য প্রকাশিত একক ‘আহ্বানে’র পর হাবিবের এখন একমাত্র টার্গেট প্রজেক্ট ন্যান্সির নতুন একক। এরই মধ্যে অ্যালবামটির কাজও শুরু করে দিয়েছেন। আমেরিকা যাওয়ার আগে দুটি গান তৈরি করে রেখেছেন। বাকি ৬টি গানের পরিকল্পনাও প্রায় শেষ পর্যায়ে। এখন শুরু করবেন রেকর্ডিং। টার্গেট কোরবানির ঈদ। হাবিব বলেন, আমাদের টার্গেট ছিল রোজার ঈদ।

কিন্তু এক মাসের আমেরিকা সফরের কারণে সেটা আর হলো না। এখন মনস্থির করেছি কোরবানির ঈদের জন্য। এদিকে আমেরিকা সফর থেকে ফিরে এসেই ন্যান্সির এককের পাশাপাশি অনেক দিন পর হাবিব আবারও হাত রাখছেন আঞ্চলিক বাংলা গানের ফোক ভাণ্ডারে। কায়ার ‘কৃষ্ণ’, কায়া-হেলালের ‘মায়া’ এবং শিরীনের ‘পাঞ্জাবিওয়ালা’র আকাশচুম্বী রিমেক সফলতার পর গেল প্রায় বছর তিনেক হাবিব ব্যস্ত ছিলেন মূলত চলচ্চিত্রের মৌলিক গান নিয়ে। এবার তিনি চলচ্চিত্র থেকে খানিক ছুটি নিয়ে ন্যান্সির পাশাপাশি আরও কিছু আঞ্চলিক গানের কাজ করার মনস্থির করেছেন।

সেজন্য এবারও তিনি শিল্পী হিসেবে বেছে নিয়েছেন লন্ডন প্রবাসী বন্ধু কায়া এবং হেলালকে। চলচ্চিত্রের গান থেকে সাময়িক বিরতি নিয়ে আবারও রিমেক অ্যালবাম প্রসঙ্গে হাবিব বলেন, সত্যি কথা বলি, যে স্পিরিট আর ভালবাসা নিয়ে ফিল্মের গান শুরু করেছি; আনফরচুনিটলি সেটা নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। কারণ, ফিল্ম প্রডিউসাররা ফিল্ম বানাবেন নাকি অডিও ব্যবসা করবেন সেটাই এখন ভাবনার বিষয়। এভাবে অনেক তিক্ত অভিজ্ঞতা আমার হয়েছে। সে জন্যই আপাতত ছবির গান থেকে একটু দূরে আছি। ন্যান্সি আর কায়া-হেলালের গানগুলো শেষ করে সিনেমার কথা ভাববো। আর বিজ্ঞাপন জিঙ্গেল তো চলছেই। এটা করতে খুব মজা লাগে। খুব সুন্দর ভিডিও সাপোর্ট পাই, একদম ঝকঝকা। ফিল্মের সাধটা বিজ্ঞাপন থেকে আস্বাদন করার চেষ্টা করছি। এদিকে দেশে ফিরে ফেরদৌস ওয়াহিদ আজ থেকে ব্যস্ত সময় পার করবেন তার পরিচালনায় নির্মাণাধীন প্রথম চলচ্চিত্র ‘কুসুমপুরের গল্প’র শুটিং নিয়ে।

মানবজমিন

Leave a Reply