ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ সড়কে মালবাহী ট্রাক বিকল ৮ ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ

মালবাহী একটি ট্রাক বিকল হওয়ায় রোববার সকাল ৯টা হতে বিকাল ৫টা পর্যন্ত ৮ ঘণ্টা ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ-মুন্সীগঞ্জ সড়কে যান চলাচল বন্ধ ছিল। এতে ব্যস্ততম এ সড়কটিতে শত শত যানবাহন আটকা পড়ে চরম দুর্ভোগের শিকার হয় হাজার হাজার যাত্রী। বিকাল ৫টায় ট্রাকটি রাস্তা থেকে সরিয়ে নেয়া হলেও যানজট ছিল তীব্র।

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লা থানার কাশীপুর এলাকার শাহাদাত হোসেন জানান, সকাল ৯টায় কাশিপুর খিলমার্কেট এলাকায় ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ-মুন্সীগঞ্জ সড়কে ১০ চাকা বিশিষ্ট একটি ভারী ট্রাক গর্তের মধ্যে আটকে পড়ে। বিদেশ থেকে আমদানিকৃত প্রায় ৫০ টন ওজনের গাছের গুঁড়ি নিয়ে ট্রাকটি চট্টগ্রাম থেকে মুন্সীগঞ্জ যাচ্ছিল।
ট্রাকটি গর্তে আটকা পড়ে বিকল হওয়ার কারণে ব্যস্ততম এ সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এ সময় দু’পাশে শত শত যানবাহন আটকা পড়ে। সময় বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে যানজটও তীব্র হতে থাকে। ফলে হাজার হাজার মানুষ চরম দুর্ভোগের শিকার হয়।

ফতুল্লা থানার ওসি আবদুল মতিন জানান, দুপুর দুটার পর পুলিশ বিকল্প ব্যবস্থায় প্রাইভেট কারের মতো ছোট যান চলাচলের ব্যবস্থা করলেও যানজট তেমন নিরসন হয়নি। বড় যানবাহন না চলায় যানজটেই আটকে থাকতে হয় ছোট যানগুলোকে। ফলে ঢাকা থেকে ক্রেন আনার উদ্যোগ নেয়া হয়। ক্রেন আনার পর বিকাল ৫ টায় ক্রেনের সাহায্যে ট্রাকটি তোলা সম্ভব হয়।

তিনি আরো জানান, সম্প্রতি সড়কের এমন ভয়াবহ অবস্থা যে বারবার যানবাহন গর্তে আটকে যাচ্ছে। আর বন্ধ হয়ে যাচ্ছে যান চলাচল। রেকার দিয়ে আমরা পড়ে যাওয়া যানবাহনকে টেনে তুলছি। দফায় দফায় এরকম ঘটনা ঘটছে। তাই সার্বক্ষণিকভাবেই সেখানে রেকার রাখা হয়েছে। এভাবে সড়ক চালু রাখা আমাদের পক্ষে কঠিন হয়ে পড়ছে।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ-মুন্সীগঞ্জ সড়কের ফতুল্লা থানার পঞ্চবটি থেকে শাসনগাঁও মসজিদ পর্যন্ত দুই কিলোমিটার সড়কের বিভিন্ন স্থানে ভেঙে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। কয়েকদিনের লাগাতার বর্ষণে বড় বড় গর্তগুলো পানিতে ডুবে যাওয়ায় ভারী যানবাহনের চাকা গর্তে আটকে যাচ্ছে। ফলে প্রায় সময়ে যান চলাচল বন্ধ থাকায় সৃষ্টি হচ্ছে তীব্র যানজট।

মুন্সীগঞ্জ জেলার বিভিন্ন যানবাহন এ সড়ক দিয়ে চলাচল করে। নারায়ণগঞ্জ ও মুন্সীগঞ্জ জেলার হাজার হাজার মানুষ চলাচল করে এ সড়ক দিয়ে। তাছাড়া পঞ্চবটি বিসিক শিল্প নগরী ও আশপাশের ৫ শতাধিক রপ্তানিমুখী পোশাক শিল্প-কারখানা রয়েছে।

যায় যায় দিন

Leave a Reply