অনৈতিক মেলামেশা দেখ ফেলার কারণেই মুন্সীগঞ্জে ৫ম শ্রেনীর ছাত্র আশিক হত্যা করা হয়

স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি
মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সীগঞ্জ থেকে: অনৈতিক মেলামেশার দৃশ্য দেখে ফোলাই কাল হয়েছে কমলমতি শিশু আশিক চৌধুরীর(১০)। সোমবার মুন্সীগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট শাহানা হক সিদ্দিকার আদালতে ১৬৪ ধারা স্বীরোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এই তথ্য দিয়েছে হত্যাকারী বাড়ির গৃহপরিচারিকা জিয়াসমিন আক্তার পুতুলী (১৭) ও তার প্রেমিক মো. শহিদুল(২৫)। জবানবন্দিতে জানায়, হত্যাকান্ডের দিন বৃহস্পতিবার তারা অবৈধ মেলামেশা করছিল। আশিক দেখে ফেললে তাৎক্ষনিক কৌশলে পুতুলীর সহযোগিতায় শহিদুল শিশু আশিককে গলা টিপে শ্বাসরেরাধ করে নিমর্ম ভাবে হত্যা করে লাশ নিচতলার পরিত্যক্ত বাথরুমের মধ্যে রেখে পালিয়ে যায়। এদিকে আশিক হত্যার প্রতিবাদে বিনোদপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে সোমবার প্রতিবাদসভা হয়েছে।

সদর থানার ওসি (তদন্ত) মুজিবুর রহমান জানান, বৃহস্পতিবারের এই ঘটনায় রবিবার প্রেমিক ও প্রেমিকাকে গ্রেফতার করা হয়। প্রেমিক শহিদুলকে মুক্তারপুর এলাকা থেকে এবং প্রেমিকা পুতুলীকে আশিকের মামা রহমতউল্লার বাড়ি থেকে প্রেফতার করা হয়।

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার রাতে সদর উপজেলার ফিরিঙ্গিবাজার গ্রামে বিনোদপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণীর আশিক চৌধুরীকে হত্যা করা হয়। শিশুটির পিতা জীবন চৌধুরী বাদী হয়ে পরে মুন্সীগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করে।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ
————————

মুন্সীগঞ্জে স্কুল ছাত্র হত্যা: প্রেমিক প্রেমিকার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

মুন্সীগঞ্জে স্কুল ছাত্র আশিক চৌধুরী হত্যার ঘটনায় গ্রেফতারকৃত আসামি প্রেমিক শহীদুল ও তার প্রেমিকা গৃহপরিচারিকা পুতুলী বেগম হত্যার কথা স্বীকার করে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। আজ সোমবার দুপুরে তারা সদর চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ১৬৪ ধারায় এ স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। এরআগে রোববার রাতে গ্রেফতারকৃতরা পুলিশের কাছে ১৬১ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়ার পর আজ তাদেরকে আদালতে হাজির করা হয়।

জবানবন্দিতে তারা জানায়, প্রেম করতে দেখে ফেলায় এবং কেউ যাতে বিষয়টি জানতে না পারে এ জন্য কাউকে বলার আগেই তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়। প্রেমিক শহীদুল আশিক চৌধুরীর গলা চেপে ধরে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর বাথরুমে ফেলে রাখে। এ সময় প্রেমিকা গৃহপরিচারিকা পুতুলী বেগম দরজার সামনে দাড়িয়ে পাহারা দেয়।

সদর থানার ওসি (তদন্ত) মজিবুর রহমান জানান, ৪ মাস আগে শহীদুলে সঙ্গে পুতুলী বেগমের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। গত বৃহস্পতিবার রাতে শহীদুল ও পুতুলী বেগম স্কুল ছাত্রের মামা সাবেক চেয়ারম্যান রহমতউল্লাহর দ্বিতীল ভবনের নিচতলার একটি কক্ষে প্রেম করছিল। এ সময় স্কুল ছাত্র আশিক নিজ বাসা থেকে মামার বাসার দ্বিতীয় তলায় ওঠতে গিয়ে তাদের অপ্রীতিকর অবস্থায় দেখে ফেলে। বিষয়টি বাড়ির সকলকে বলে দিতে পারে এ ভয়ে প্রেমিক শহীদুল আশিককে মুখে রুমাল চেপে ধরে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর পালিয়ে যায়। এ সময় প্রেমিকা পুতুলী বেগমকে নিশ্চুপ থাকতে বলা হয়। প্রেমিকা পুতুলী বেগম স্কুল ছাত্রের মামার বাড়িতে গৃহপরিচারিকার কাজ করতো।

প্রসঙ্গত, গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় সদরের ফিরিঙ্গিবাজার এলাকায় ৫ম শ্রেণীর ছাত্র আশিক চৌধুরীকে হত্যা করা হয়। পরে রাতেই পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে। পরদিন শুক্রবার এ ঘটনায় স্কুল ছাত্রের পিতা জীবন চৌধুরী মুন্সীগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এরপর পুলিশ শনিবার রাতে গৃহপরিচারিকা প্রেমিকা পুতুলী বেগমকে এবং রোববার রাতে প্রেমিক শহীদুলকে মুক্তারপুর এলাকা থেকে গ্রেফতার করে।

শীর্ষ নিউজ

Leave a Reply