টঙ্গীবাড়ীতে ধর্ষনের পর জোর করে বিয়ের ঘটনায় পাল্টাপাল্টি মামলা

মোজাফফর হোসেনঃ টঙ্গীবাড়ীতে শিশু নিপা আক্তার (১০) কে ধর্ষনের পর জোর করে বিয়ের ঘটনায় আদালতে পাল্টাপাল্টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এতে এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোন মূহুর্তে বড় ধরনের সঘর্ষের অশংঙ্কা রয়েছে। জানা গেছে, উপজেলার পাঁচগাঁও গ্রামের দেলোয়ার হোসেন এর মেয়ে পাঁচগাওঁ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণীর ছাত্রী নিপা আক্তার কে পাশের দশত্তর গ্রামের মৃত সাইজউদ্দিন হাওলার এর ছেলে আনিস গত ২৩ শে মে রাতে ধর্ষন করে। পরে গ্রাম্য শালিশীর মাধ্যমে তাদের বিয়ে দেওয়া হয়। বিয়ের সময় আনিসের বড় ভাই শহিদ আপত্তি করলে তাকে মেরে গুরুতর আহত করে বিয়ের ব্যাপারে রাজী করানো হয় ।

মারধরের এ ঘটানায় আনিসের মা লুৎফা বেগম বাদী হয়ে গত ৭ ই জুলাই মুন্সীগঞ্জ আদালতে একটি মামলা দায়ের করলে বিপাকে পরে নিপা ও তার পরিবার। এ মামলার জের ধরে নিপার মা আমেনা বেগম আদালতে একটি যৌতুক মামলা দায়ের করেছে। নিপা জানায় ,ঘটনার দিন রাতে আনিস আমাদের ঘরের ভাঙ্গা জানালা দিয়ে ঘরে প্রবেশ করে। এ সময় তিনি হাসাইল ইউনিয়ন কাজী মোহাম্মদ আলীর নিকাহ রেজিষ্টার বইটি এনে আমার জোর করে স্বাক্ষর নিয়ে আমার সাথে মেলামেশা করে। পরে তার সাথে আমার বিয়া হয়। বিয়ের পর সে আমাদের বাড়ীতে ৩ দিন থেকে চলে যায় ।

তারপর থেকে এখন পর্যন্ত সে আমার সাথে আর কোন যোগাযোগ করেনি। তার মোবাইলে ফোন করেও বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। এদিকে গ্রাম্য শালিশের মাধ্যমে বিয়ে পড়ানো পাঁচগাঁও ইউনিয়ন কাজী কাওসার বিয়ে রেজিষ্টারে মেয়ের বয়স ১৯ উল্লেখ করলেও পাঁচগাঁও সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভর্তি রেজিষ্টার বহিতে দেখা যায় নিপার জন্ম তারিখ ৮ই অক্টোম্বর ২০০০ ইং। আনিসের মা বিয়ের কাবিননামার নকল চাইতে গেলে কাজী ২ হাজার টাকা দাবী করে, টাকা দিতে অস্বীকার করলে তার সাথে দুর ব্যবহার করে তারিয়ে দেয়।

সাংবাদিকরা এ ব্যাপারে তথ্য চাইলে বিয়ে পড়ানোর সব টাকা এখোনো পাই নাই , টাকা না পাইলে আমি কোন তথ্য দিবনা বলে কাজী জানায় । এলাকাবাসী জানান, কাজী কাওসার সব সময় অপ্রাপ্ত বয়স্ক মেয়েদের মোটা অংঙ্কের টাকার বিনিময়ে প্রাপ্ত বয়স দেখিয়ে বিয়ে দেন। কাজী কাওসার ও মোহাম্মদ আলী টাকার বিনিময়ে বিয়ের নিকাহ রেজিষ্টার ভাড়া দেয়। তাদের অপকর্মের কারনে এলাকার যুব সমাজ ধ্বংশের মুখে চলে যাচ্ছে এবং অনেক মেয়ে প্রতিনিয়ত প্রতারিত হচ্ছে।

Leave a Reply