টঙ্গীবাড়ীতে পদ্মার পাড়ে পানি বন্দি অবস্থায় দিন কাটাচ্ছে ১০০টি পরিবার

গত কয়েকদিনের টানা বর্ষনে অধিকাংশ রাস্তা পানিতে তলিয়ে গেছে
মোজাফফর হোসেন, টঙ্গীবাড়ী থেকেঃ মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ী উপজেলার পদ্মার তিরবর্তী এলাকায় পানি বন্দি হয়ে মানবেতর দিন কাটাচ্ছেন প্রায় ১০০টি পরিবার। এ ছাড়া গত কয়েকদিনের টানা বর্ষনে উপজেলার অধিকাংশ রাস্তা পানিতে তলিয়ে গেছে। এতে দুর্ভোগের স্বিকার হাজার হাজার জনগন। সরেজমিনে দেখাগেছে, উপজেলার নদীর তিরবর্তী এলাকা পাচগাঁও ও হাসাইল-বানারী ইউনিয়নের প্রায় ১০০টি পরিবার পানি বন্দি অবস্থায় মানবেতর জীবন জাপন করছে। এ ছাড়া গত কয়েক দিনের টানা বর্ষন ও উজান থেকে নেমে আসা পানির ঢলে টঙ্গীবাড়ী উপজেলার অনেক রাস্তা ঘাট তলিয়ে গেছে ও অনেক মাছের ঘের ভেষে গেছে ।

উপজেলার চাঠাতি পাড়া গ্রামের প্রায় ১০ হাজার লোকের যাতায়তের একমাত্র রাস্তাটিতে এখন বুক পানি। পানি বন্দি হয়ে শত শত পরিবার অসহায় জীবন যাপন করছে। উপজেলার আউটশাহী ইউনিয়নের ভোরন্ডা গ্রামের যতায়াতের একমাত্র রাস্তাটিতে এখন হাটু পানি যার ফলে এ এলাকার মানুষ পানি বন্দি অবস্থায় দিন কাটাচ্ছে। বিশেষ করে নদী ভাঙ্গন কবলিত উপজেলার গারুরগাও , পাচঁগাও ও হাসাইল এলাকার প্রায় ১ শতটি পরিবার তাদের বাড়ী ঘর নদীতে ভেঙ্গে যাওয়ার পর নদীর পাশে বালি জমে উঠা উচু জমিতে আশ্রয় নিয়েছিলো। বিগত কয়েক বছর বন্যা না হওয়াতে এখানে তারা বসতি গড়ে তুলে। কিন্তু এ বছর হঠাৎ করে আকষ্মিক পানি বৃদ্বিতে তাদের বাড়ী ঘরে পানি উঠে যাওয়ায় গরুবাছুর সহ ছোট শিশু বাচ্চাদের নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে। এখানে বসবাসকারী শিউলী বেগম জানান,ছোট দুটি বাচ্চা নিয়ে খুব অসহায় ভাবে দিন পার করছি। রাতে ঘুমাই না কারন বাচ্চা গুলো খালি পানিতে জাইতে চায় পাটাতন ঘরের দরজায় দেহেন কাঠ মাইরা রাখছি যদি কোন ভাবে ঘর হইতে পইড়া যায় তাইলে মরন ছাড়া ওগো আর কোন উপায় থাকবোনা। মোতালেব শেখ জানান, ৩ বছর আগে নদীতে বাড়ী ভাইঙ্গা যাওয়ার পর এখানে একটু আশ্রয় নিয়েছিলাম কিন্তু পানি যেভাবে বাড়ছে মনে হয় আর থাকতে পারবনা।

গারুরগাঁও ওয়ার্ডের মেম্বার ইদ্রিস বেপারী জানান, নদী ভাঙ্গনের আগে আমার ওয়ার্ডে ১৭শত ভোটার ছিলো কিন্তু বর্তমানে ৪ শত ভোটার নদীর পাড় সহ পার্শ্ববর্তী এলাকায় রয়েছে। বিত্তবানরা ঢাকা সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে চলে গেলেও অসহায় মানুষ গুলো কোন ভাবে নদীতে মাছ ধরে, কৃষি কাজ করে অধাহারে, অনাহারে বেঁেচ আছে । কিন্তু হঠাৎ করে অতিরিক্ত পানি বৃদ্বিতে তরা অসহায় হয়ে পরেছে। তাছাড়া এখানকার টিউবওয়েল গুলো পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় বিশুদ্ধ পানির অভাব দেখা দিয়েছে। ক্ষতিগ্রস্থরা জানান প্রায় ১ কিলোমিটার দুর হতে তাদের পানি এনে খেতে হচ্ছে। অনেক পরিবার নদীর পানি পান করছে। এ ছাড়া স্যানিটেশন টয়লেট গুলো ও পানিতে ভেষে যাওয়ায় তারা যেখানে সেখানে মলত্যাগ করতে বাধ্য হচ্ছে। এর ফলে এ এলাকয় বসবাস কারী জনগন স্বাস্থ গত দিক থেকে ঝুকির মোখে পরেছে। এ এলাকায় বসবাস কারী জনগনের দাবী সরকার জেন তাদের পূনর্বাসনের ব্যাবস্থা করে।


টঙ্গীবাড়ী হাসাইল পদ্মার পার থেকে তোলা ছবি।

Leave a Reply