মিথ্যা মামলায় ৫০ পরিবার গ্রামছাড়া

গজারিয়া উপজেলার টেংগারচর গ্রামে নির্বাচনী সহিংস ঘটনায় ভুয়া ডাক্তারি সার্টিফিকেট নিয়ে মিথ্যা মামলা করে ৫০ পরিবারকে গ্রামছাড়া করা হয়েছে। গত ৬ই জুন চেয়ারম্যানপ্রার্থী মো. আলমগীর গণসংযোগ করার সময় তার ওপর প্রতিদ্বন্দ্বী ইসহাক আলীর সমর্থক আক্তার, টিটু, মোক্তার ও জাকিরসহ ১০/১৫ জনের একটি গ্রুপ হামলা চালায়। এ সময় আলমগীরের সমর্থক ফখরুল ইসলাম, শামসুল ইসলাম, ইমরান, শামীম, আরিফসহ ১০ জন আহত হয়। এ সময় হামলাকারীরা আরফিনের মুদি দোকান ভাঙচুর ও লুটপাট করে।

এ ঘটনায় ১৯শে জুন দেলোয়ার হোসেন বাদী হয়ে মুন্সীগঞ্জ কোর্টে মামলা করেন, যার মামলা নং ৫৮০। মামলায় ২২ জনসহ আরও অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামি করা হয়। এ ঘটনায় ইসহাক আলীর সমর্থক নূর মোহাম্মদ ১১ই জুলাই প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে মুন্সীগঞ্জ কোর্টে পাল্টা মামলা করেন। মামলায় বিশিষ্ট শিল্পপতি মো. আলমগীরকে প্রধান আসামি করে ২২ জনসহ আরও অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে। ওই মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ইসহাক আলীর সমর্থক আক্তার হোসেন, আলী, নুরুল ইসলাম ও মোক্তারকে প্রতিপক্ষ মারধর করে নগদ টাকা ও মোবাইল সেট ছিনিয়ে নেয়। এদিকে এলাকাবাসী জানায়, প্রকৃত ঘটনা মো. আলমগীরের সমর্থকদের ওপর হামলা করতে গিয়েই ইসহাক আলীর সমর্থকরা আহত হয়।

এবং ইসহাক আলীর সমর্থকরা ভুয়া ডাক্তারি সার্টিফিকেট নিয়ে কাউন্টার মামলা করে। সেদিন সংঘর্ষের ঘটনার পর ইসহাক আলীর সমর্থক আক্তার হোসেন, নুরুল ইসলাম ও মোক্তারকে পার্শ্ববর্তী সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। আক্তার হোসেন ৬ই জুন ভর্তি হলেও ৭ই জুন হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যায়। এখানে ভর্তি রেজিস্ট্রি খাতায় পিতার নাম মৃত আরশাদ আলী লিপিবদ্ধ করা হয়। ভর্তি সময়ে হাসপাতালের রেজিস্ট্রেশন বইয়ে রোগীর হালকা ইনজুরি হয়েছে বলে লেখা হয়। একই দিন অর্থাৎ ৭ই জুন আক্তার হোসেন নারায়ণগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি হন। এখানে পিতার নাম পাল্টিয়ে আশেক আলী মিয়াজী লিপিবদ্ধ করা হয়। এ হাসপাতালে ভর্তির সময়ে রোগীর মাথায় আঘাত পেয়েছে বলে রেজিস্ট্রারে লেখা হয়।

তাছাড়া আক্তার যদিই বা আহত হয়ে থাকে তাহলে প্রথম ভর্তি সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সার্টিফিকেট মামলায় জমা না দিয়ে নারায়ণগঞ্জ হাসপাতালের সার্টিফিকেট জমা দেয়ার কারণ কি। জানা যায়, প্রতিপক্ষকে ফাঁসানোর জন্য পিতার নাম পরিবর্তন করে মোটা অঙ্কের উৎকোচ দিয়ে নারায়ণগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি ও সার্টিফিকেট নেয়া হয়েছে। সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন চিকিৎসক জানান, এখানে ভর্তি রোগীর চিকিৎসার উন্নতি না ঘটলে কর্তৃপক্ষ জেলা সদর নারায়ণগঞ্জ কিংবা ঢাকার যে কোন সরকারি হাসপাতালে রোগীকে প্রেরণ করবে। এখানে আক্তার নামে রোগীটি নিজেই হাসপাতাল থেকে পালিয়েছেন। এদিকে ভুয়া ডাক্তারি সার্টিফিকেট নিয়ে মিথ্যা মামলা করে ৫০টি পরিবারকে দীর্ঘ ২ মাস ধরে বাড়িছাড়া করেছে এ চক্রটি।

মানবজমিন

Leave a Reply