অভিনব প্রতারণায় যাত্রীরা ॥ অবৈধ লঞ্চের যাত্রীকে ধরিয়ে দেয়া হচ্ছে বৈধ লঞ্চের টিকিট

মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুট
মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সীগঞ্জ থেকে : দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চালের অন্যতম প্রবেশদ্বার বলে খ্যাত মাওয়া-কাওরাকান্দি নৌ রুটে চলছে অভিনব প্রতারণা। আর এ প্রতারনা চলছে যাএীবাহী লঞ্চের টিকিট নিয়ে। অবৈধ লঞ্চের যাত্রীকে বৈধ লঞ্চের টিকিট ধরিয়ে দেয়া হচ্ছে। দুর্ঘটনার কবলে পড়লে অবৈধ লঞ্চের তালিকা হতে পার পেতেই এমনটি করা হচ্ছে বলে জানা যায়। দিনের পর দিন এরকম প্রতারণা হলেও প্রশাসণসহ কারো নজরে আসছেনা বিষয়টি।

মাওয়া-কাওড়াকান্দি ও মাওয়ামাঝিকান্দি নৌ রুটে প্রায় ৮১টি বৈধ অবৈধ লঞ্চ চলাচল করছে। আর মাওয়া-কাওড়াকান্দি ও মাওয়া-মাঝিকান্দি এ নৌরুট দু’টিতে যাত্রী প্রতি মাথাপিছু ভাড়া আদায় করা হয় ২৫ টাকা। নিয়ম অনুযায়ী যাএীরা যে লঞ্চে পারাপার হবে সেই লঞ্চে বসেই টিকিট দিয়ে ভাড়া নেয়ার কথা থাকলেও এখানে হচ্চে তার উল্টোটা। কিছু কিছু লঞ্চমালিক ছাড়া সবাই এ প্রতারণায় অংশ নিচ্ছে হরহামেশাই। শুক্রবার হাওলাদার-২ লঞ্চের যাএী আল আমীন জানান, এ লঞ্চটিতে তিনিসহ তিনজন কাঠাঁলবারি ঘাট থেকে ২৫ টাকা করে মোট ৭৫ টাকা দিয়েছেন, কিন্তু তাদের তিনটি টিকিট দেওয়া হয়েছে শামিম এন্টারপ্রাইজ নামের একটি লঞ্চের। তিনি জানান, এরকম টিকিটের মারপ্যাচে কখনো কখনো যাএীদের থেকে দুইবার ভাড়া আদায় করা হয়।

সরেজমিনে মাওয়া লঞ্চপল্টুনে গিয়ে দেখা যায় লঞ্চঘাটে লঞ্চের কেরানি,সুপারভাইজার,লস্কররা যাত্রীদের টানা হ্যচরা করছে এবং কাওরাকান্দি মাঝিকান্দি বলে শোরগোল দিচ্ছে যাতে করে যাত্রীরা মারাত্মক শব্দ দুষণের শিকার হচ্ছেন এবং বিব্রতবোধ করছেন। সরেজমিনে মাওয়াঘাটের লঞ্চ পল্টুনে গিয়ে দেখা যায় যাত্রীদেরকে হাত দিয়ে আটকে রেখে ২৫ টাকা করে ভাড়া আদায় করছে দুধু মিয়া নামের এক কেরানি। তিনি তার লঞ্চে উঠা যাত্রীদের অন্য লঞ্চের টিকিট ধরিয়ে দিচ্ছেন। আবার নির্ধারিত লঞ্চটি ছাড়ার পর কয়েক যাত্রীর নিকট আবারো ভাড়া চাওয়া হয়। তখন যাত্রীরা পরেন বিপাকে তখন যাত্রীদের অনুনয় বিনয়ের পর রক্ষা মেলে। এসব টিকিট মাওয়া ও কাওরাকান্দি ঘাটের বিভিন্ন দোকানে বিক্রি হয় বলে জানা যায়।

এভাবে দেখা যায় যাত্রী বহনকারী লঞ্চের টিকিটের সাথে ঐ লঞ্চের টিকিটের মিল না থাকার সুযোগে দূর্ঘটনা কবলিত লঞ্চটি আইনের ফাক-ফোকর দিয়ে বেরিয়ে যায়। অপর দিকে বিআইডব্লিউটিএ’র বেধে দেওয়া সময়সূচি অনুযায়ী লঞ্চগুলি না চলে ঐ লঞ্চগুলি চলছে ঘাটের বেধে দেওয়া নিয়ম অনুসারে। এতে করে দুর্ঘটনা কবলিত নৌযানটিকে আইনের আওতায় আনা যাচ্ছেনা বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন মালিক যানান। দিনের পর দিন এরকম অনিয়ম হলেও এবিষয়টির প্রতি কারোরই নজর নেই। এব্যাপারে বিআইডব্লিউটিএ’র মাওয়া নদী বন্দরের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বাবুলাল বৌদ্য বলেন, বিষয়টি আমার নজরে এসেছে আমি দু’একদিনের মধ্যে এ ব্যাপারে চিঠি দিয়ে লঞ্চ মালিকরদরকে সর্তক করবো। তারা যদি এর পরও এরকম করে, তবে আমি আমার কর্তৃপক্ষকে জানাবো। তারা যে ব্যাবস্থা নিতে বলবে সে অনুযায়ী ব্যাবস্থ্যা নেব।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply