ছাপ্পান্ন হাজার বর্গমাইল নষ্টদের অধিকারে!

মিল্টন ঘোষ
আমি জানি সবকিছু নষ্টদের অধিকারে যাবে/নষ্টদের দানব মুঠোতে ধরা পড়বে মানবিক/সব সংঘ পরিষদ; চলে যাবে অত্যন্ত উল্লাসে/চলে যাবে এই সমাজ সভ্যতা- সমস্ত দলিল-/ নষ্টদের অধিকারে ধুয়েমুছে, যে রকম রাষ্ট্র/ আর রাষ্ট্রযন্ত্র দিকে দিকে চলে গেছে নষ্টদের/ অধিকারে। চলে যাবে শহর বন্দর গ্রাম ধানক্ষেত/ কালো মেঘ লাল শাড়ি শাদা চাঁদ পাখির পালক/মন্দির মসজিদ গির্জা সিনেগগ নির্জন প্যাগোডা/অস্ত্র আর গণতন্ত্র চলে গেছে, জনতাও যাবে।

এই অনবদ্য কবিতা যিনি লিখেছেন তিনি অন্য কেউ নন, তিনি আমাদের অতি আপনজন প্রিয় কবি, বহুমাত্রিক লেখক, ঔপন্যাসিক, ভাষা বিজ্ঞানী, সমালোচক, অনুবাদক ও প্রথাবিরোধী হুমায়ুন আজাদ। ১৯৪৭ সালের ২৮ এপ্রিল বিক্রমপুরের রাড়িখালে এই মনিষী জন্মেছিলেন ।

উপরোক্ত লেখায় আমি একটি শব্দ চয়ন করেছি সেটি হলো ‘অতি আপনজন’। হুমায়ুুন আজাদের বেলায় অবশ্য এই শব্দটি আপামর জনসাধারণের জন্য প্রযোজ্য নয়। কেবল মাত্র যারা মুক্তচিন্তা, ধর্মনিরপেক্ষ ভাবনায় নিমগ্ন, স্বাধিকার আন্দোলনের পক্ষের ভাবনার প্রতিফলন ঘটায় কেবল মাত্র তাদের বেলায় ।

হুমায়ন আজাদ কোনো তথাকথিত লেখক ছিলেন না। তার চিন্তা-চেতনা এক বিস্তর বহুমুখিতার ছাপ পাওয়া যায়। তিনি প্রথাগত বিশ্বাসের বিরুদ্ধে কথা বলতেন এবং মনে করতেন প্রথাগত বিশ্বাসের বিরুদ্ধে কথা বলাই লেখকের ধর্ম। তার বিশ্বাসের মতোই ছিল তার জীবন দর্শন। হুমায়ুন আজাদ কখনোই তথাকথিত জীবন দর্শনেও বিশ্বাসী ছিলেন না। তিনি বলতেন, জীবন মানে হচ্ছে জীবন, তার অন্য কোন অর্থ নেই বলেই তা এত সুন্দর। এজন্য জীবন দর্শন নিয়ে তাকে বিপাকে পড়তে হয়নি কখনো। তিনি একটি লেখায় বলেছেন-‘বেঁচে থাকার দার্শনিক অর্থ, শুনতে খুব গুরুগম্ভীর মহৎ ব্যাপার বলে মনে হয়; কিন্তু এটা এক ধরনের স্বৈরাচার, মানুষকে শেকলে জড়িয়ে ফেলার সুভাষণ হচ্ছে জীবনের দার্শনিক অর্থ।

তিনি স্বকীয়তা বজায় রেখে এই সমাজের ধর্মান্ধতা, নারী, স্বাধিকার আন্দোলনসহ একাত্তর পরবর্তী অবস্থা নিয়ে এক অসাধারণ রচনা শৈলী আমাদের উপহার দিয়েছেন তার অন্য সৃষ্টির মধ্যে সবকিছু নষ্টদের অধিকারে যাবে, ছাপ্পান্নো হাজার বর্গমাইল, সব কিছু ভেঙে পড়ে, মানুষ হিসেবে আমার অপরাধগুলো, ফালি ফালি করে কাটা চাঁদ এবং অনুবাদ গ্রন্থ দ্বিতীয় লিঙ্গ ইত্যাদি।

বিমানবিকতার পর অনেক বেশি মানবিক কবি হুমায়ন আজাদ। কারণ তিনি জানতেন শ্রেষ্ঠ হতে গেলে স্বাতন্ত্র্য বোধ থাকতে হয়, যা তার মধ্যে শত ভাগ বিরাজমান। তার এই স্বতন্ত্র বোধ বজায় রাখতে গিয়ে ঘুণেধরা সমাজের সাথে খাপ খাওয়াতে পারতেন না অনেক সময়। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন, ‘হুমায়ুন আজাদ, হতাশ ব্যর্থ শান্ত, অন্ধকারমুখী;/উৎফুল্ল হয় না কিছুতে- প্রেমে, পুষ্পে, সঙ্গমেও সুখী/ হয় না কখনো; আপন রক্তের গন্ধে অসুস্থ,/ তন্দ্রায় ধ্বংসের চলচ্চিত্র দেখে, ঘ্রাণ শুঁকে সময় কাটায়;/ ওকে বাদ দেয়া হোক, বদমাশ হতাশা সংবাদী; /-এ অাঁধার উন্মাদ ও অন্ধরাই শুধু আশাবাদী।

তার এই স্বগোক্তি দিয়েই বোঝা যায় তিনি ছিলেন বাকস্বাধীন ও মুক্তচিন্তার এক নাগরিক কবি। তিনি সাধারণ বাঙালি বুদ্ধিজীবীদের মতো কাল্পনিক ভাবাবেগের মধ্যে বাস করতেন না। ধর্মীয় গোঁড়ামিতাকে স্পর্শ করেনি। মুক্ত চিন্তায় তিনি ছিলেন আপসহীন। যার ফসল পাক সার জামিন সাদ বাদ। যা তাকে বিপজ্জনকভাবে বেঁচে থাকার মতো এক অবস্থায় নিয়ে গিয়েছিল। ২০০৪ সালে ২৭ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় বাংলা একাডেমির বইমেলা থেকে বেরোনোর সময় চাপাতি দিয়ে আক্রমণ করে মৌলবাদীরা তাকে গুরুতরভাবে আহত করে, কয়েকদিন মৃত্যুর সাথে বসবাস করে আবার জীবনে ফিরে আসেন, তার জন্য সারাদেশ এমন ভাবে উদ্বেলিত হয়েছিল যা আর কখনো হয়নি। ২০০৪ সালের ৭ আগস্ট পেন-এর আমন্ত্রণে কবি হাইনরিশ হাইনের ওপর গবেষণা বৃত্তি নিয়ে জার্মানি যান। এর মাত্র পাঁচ দিনপর ১২ আগস্ট ২০০৪ মিউনিখের নিজ কক্ষে তাকে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়। কেন কি কারণে মারা গেছেন তা আজো সঠিকভাবে জানা যায়নি। আমরা তার ৫ম মৃত্যুবার্ষিকীতে সশ্রদ্ধচিত্তে স্মরণ করছি।

যায় যায় দিন

Leave a Reply