মুন্সীগঞ্জ-ঢাকা রুটের বাস সর্ভিস সম্পূর্ণ রূপে বন্ধ

ভাঙ্গা রাস্তা ॥ অঘোষিত ধর্মঘট
মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সীগঞ্জ থেকে : ভাঙ্গা রাস্তার কারণে মুন্সীগঞ্জ-ঢাকা রুটের বাস সর্ভিস সম্পূর্ণ রূপে বন্ধ হয়ে গেছে। ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ-মুন্সীগঞ্জ রুটে বুধবার সকালে বন্ধ থাকার পর মুন্সীগঞ্জ-সিরাজদিখান-ঢাকা রুটে কিছু বাস চলাচল করলেও বুধবার বিকাল থেকে জেলা শহর মুন্সীগঞ্জ থেকে সব রকমের বাস সার্ভিস বন্ধ রয়েছে। এতে জনদুভোর্গ চরম আকার ধারণ করেছে। মুন্সীগঞ্জ থানার ওসি শহিদুল ইসলাম এসব তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, রাস্তার অবস্থা এতটাই নাজুক যে রাস্তা এখন যেন পুকুর-ডোবা, সকালের বৃষ্টির পর রাস্তার অবস্থা আরও খারাপ হলে বাস সর্ভিস বন্ধ হয়ে যায়। রাস্তা মেরামত না হলে বাস সর্ভিস সচল করা সম্ভব হবে না বলে তিনি জানান।

মুন্সীগঞ্জ বাস মালিক সমিতির সাধারন সম্পাদক মো. সানাউল্লাহ ব্যাপারী জানান, বৃষ্টিতে ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ সড়কের নাজুক পরিস্থিতিতে বাস সার্ভিস সচল সম্ভব নয়। বুধবার মালিক সমিতি ও পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলে ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ সড়কে বাস চলাচল বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। রাস্ত যথাযথভাবে সংস্কার না হলে এই রুটে বাসের চাকা ঘুরবে না।


এদিকে এখানকার প্রভাবশালী বাস সার্ভিস দিঘিরপাড় পরিবহনের চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা জগলুল হালদার জানান, এটি কোন ধর্মঘট নয়, তবে রাস্তা মেরামত না হলেও তার পরিবহন এই রুটে আর বাস চালাবে না। কারণ রাস্তার অবস্থা এতটাই খারাপ যে কোনভাবেই বাস সার্ভিস সচল রাখা সম্ভব নয়। তিনি বলেন, রাস্তা মেরামতের সময় লাগবে বলে মনে হচ্ছে, তাই কাল কেন, ঈদের আগে আর তার বাস সার্ভিস চালু হচ্ছে না।

এদিকে মুন্সীগঞ্জ থানার ওসি শহিদুল ইসলাম সন্ধ্যায় জানান, শহরের উপকণ্ঠ মুক্তারপর থেকে নারায়নগঞ্জের পঞ্চবটি পর্যন্ত ৮ কিলোমিটার রাস্তার বিভিন্ন অংশে অসংখ্য গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এসব গর্তে ইটের সুরকি ফেলা শুরু হয়েছে।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ
——————————-

এবার মুন্সীগঞ্জ-ঢাকা সড়কে বাস চলাচল বন্ধ

সড়কের সর্বত্র খানাখন্দকে ভরা ও বড় বড় গর্তের কারণে প্রতিনিয়ত যানবাহন আটকে যানজটের সৃষ্টি হওয়ায় ঢাকা-পঞ্চবটি-মুন্সীগঞ্জ সড়কে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে বাস চলাচল। আজ বুধবার এ সড়কে যাত্রীবাহী বাস চলাচল করেনি। মুন্সীগঞ্জ থেকে ঢাকাগামী যাত্রীবাহী বাসগুলো বিকল্প পথে সিরাজদিখান হয়ে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক দিয়ে চলাচল করেছে। এতে যাত্রীদের ভোগান্তিসহ বাস ভাড়া জনপ্রতি ২০ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে।

অন্যদিকে ফতুল্লার পঞ্চবটি থেকে মুন্সীগঞ্জের মুক্তারপুর পর্যন্ত সড়কের বিভিন্ন জায়গায় ছোট বড় অসংখ্য গর্তের কারণে সৃষ্ট যানজটে বাস চলাচল বন্ধ হলেও অন্যান্য যানবাহন চলছে মারাত্মক ঝুঁকি নিয়ে। যেকোনো সময় ঘটতে পারে মারাত্মক দুর্ঘটনা।

বাস শ্রমিকরা জানায়, সড়কের সর্বত্র খানাখন্দকে ভরা ও বড় বড় গর্তের কারণে প্রতিনিয়ত যানবাহন আটকে পড়ায় প্রতিদিনই ঘণ্টার পর ঘণ্টা যানজটের আটকা পড়ে থাকতে হয়। বেহাল রাস্তার কারণে যান্ত্রিক ত্রুটিও দেখা দিচ্ছে প্রতিনিয়ত। আজ বুধবার সকালেও শাহ সিমেন্ট কোম্পানির একটি ট্রাক গর্তে আটকা পড়ে গেলে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। এর ফলে বিকেল পর্যন্ত কোনো যানবাহন চলাচল করতে পারেনি। তবে সিরাজদিখান হয়ে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক দিয়ে বিকল্প পথে কিছু যানবাহন চলাচল করছে।

এলাকাবাসী জানায়, গত দেড় মাসে এই সড়কে গর্তে গাড়ি আটকে বেশ কয়েকবার যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পঞ্চবটি থেকে শাশ্মনগাঁও মসজিদ পর্যন্ত দুই কিলোমিটার সড়কের বিভিন্ন স্থানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। গর্তে আটকে যাচ্ছে ভারী যানবাহন। এতে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। এই সড়কের চর সৈয়দপুরের এক কিলোমিটার এলাকায় বড় বড় গর্ত ও খানাখন্দকে ভরা। চর সৈয়দপুর থেকে ফকিরবাড়ি পর্যন্ত রয়েছে আরও অংসখ্য গর্ত।

এলাকাবাসী আরো জানায়, নারায়ণগঞ্জ ও মুন্সীগঞ্জের হাজার হাজার মানুষ এই সড়ক দিয়ে চলাচল করে। পঞ্চবটি বিসিক শিল্পনগরী ও আশপাশের ৫ শতাধিক রপ্তানিমুখি পোশাকশিল্পের কারখানা রয়েছে। এসব কারখানায় লক্ষাধিক শ্রমিক কাজ করেন। সড়কের বেহাল অবস্থার কারণে শ্রমিক কর্মচারীদের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। ভাঙা সড়কের কারণে বিদেশি ক্রেতারাও বিসিক শিল্পনগরে আসতে চান না বলে জানা গেছে। মুক্তারপুর শিল্পাঞ্চলে কয়েকটি বড় সিমেন্ট কারখানাসহ ৩ শতাধিক শিল্পকারখানা রয়েছে। সড়কের খারাপ অবস্থার কারণে এসব শিল্পকারখানার শ্রমিকরাও দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন।

দুর্ভোগের শিকার যাত্রীরা জানায়, সড়কের বেহাল অবস্থার কারণে প্রতিদিনই ঘণ্টার পর ঘণ্টা যানজটের কবলে আটকা পড়ায় নির্দিষ্ট সময়ে অফিস আদালত কিংবা নিজ গন্তব্যে যাওয়া যাচ্ছে না। এতে নানাভাবে ক্ষতির শিকার হতে হচ্ছে যাত্রী সাধারণের।

শীর্ষ নিউজ
—————–

ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ মহাসড়ক
‘ভাঙনের দেখছেন কী! সামনে যান’

ওবায়দুর রহমান মাসুম, ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ মহাসড়ক ঘুরে
ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ সড়কের পঞ্চবটি মোড় থেকে একটি রাস্তা চলে গেছে মুন্সীগঞ্জের দিকে। ওই রাস্তা ধরে একটু এগোতেই ভাঙনের শুরু। পুরো রাস্তায় বিশাল বিশাল গর্ত, কোথাও পিচের দেখা নেই। কাদার ফাঁকে ভাঙা ইটের টুকরোগুলো অনেক কষ্টে যেন অস্তিত্ব জানান দিচ্ছে। কথিত এ রাস্তায় ডানে-বাঁয়ে কাত হয়ে চলাচল করছে যানবাহন। রাস্তার পাশে মুক্তামণি আয়রন স্টোরের মালিক মোক্তার হোসেন বলেন, ‘ভাঙনের দেখছেন কী! সামনের দিকে যান, দেখবেন অবস্থা আরো কতটা খারাপ।’

পঞ্চবটি মোড় পেরোলে পৌর ট্রাক টার্মিনাল। গত মঙ্গলবার সকালে সেখানে রাস্তার গর্তে ইট-বালু ফেলছিলেন কয়েকজন ট্রাক শ্রমিক। সেখানে কথা হয় নারায়ণগঞ্জ জেলা ট্রাক মালিক সমিতির যুগ্ম সম্পাদক মোহাম্মদ তুহিনের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘রাস্তার অবস্থা খুবই খারাপ। প্রতিদিনই কোনো না কোনো গাড়ি গর্তে আটকে যাচ্ছে। একবার কোনো গাড়ি ফেঁসে গেলে সেটি ওঠাতে সাত থেকে আট হাজার টাকা খরচ হয়ে যায়। এ ছাড়া ভাঙা রাস্তার কারণে গাড়ির ডিফেন্সার, স্প্রিং ভেঙে যাচ্ছে অহরহ।’ তিনি অভিযোগ করেন, ‘রাস্তার অবস্থা দেখার কেউ নেই। এ জন্য আমরা নিজেরাই ইট-বালু ফেলছি।’

ট্রাক টার্মিনাল ছেড়ে সামনে গেলে ভাঙনের মাত্রা আরো বাড়ে। বিসিক হোসিয়ারি শিল্পনগরীর ফটকের সামনে বড় গর্ত, মাটি সরে গিয়ে কোথাও আবার উঁচু ঢিবি হয়ে আছে। শাসনগাঁও শাহি মসজিদ ও কবরস্থানের সামনের অংশ কাদায় ভর্তি। কবরস্থান পেরিয়ে এনায়েতনগর এলাকায় পেঁৗছাতেই দেখা যায় গর্তে পড়ে একপাশে কাত হয়ে আছে একটি মালবাহী ট্রাক। চালক জামাল বলেন, ‘স্প্রিং পাতি ভাইঙ্গা গেছে। আইজকা তো গাড়ি নষ্ট হইছে কম, বৃষ্টি-বাদলার দিনে আইসেন, দেখবেন কত গাড়ি যে গাতায় পইড়া আছে।’
এনায়েতনগর থেকে ভোলাইল বাজারের আগ পর্যন্ত রাস্তা কিছুটা ভালো। কিন্তু বাজারে যেতেই আবার ভাঙন শুরু। রাস্তার দুই পাশে দোকানপাট, মাঝখানে বড় বড় গর্ত। তাতে কাদা জমে আছে। ফলে ভালোভাবে হেঁটে যাওয়ারও উপায় নেই। স্থানীয় দোকানি রনি বলেন, ‘এখন তো অবস্থা ভালো। বৃষ্টি হইলে এই রাস্তায় কোনো গাড়ি চলতে পারে না। রিকশা পর্যন্ত উল্টাইয়া পড়ে।’ এ রাস্তার দুর্দশা দেখে অভ্যস্ত সবজি বিক্রেতা ইদ্রিসের কটূক্তি, ‘এই হইল ডিজিটাল বাংলাদেশের নমুনা!’

কাশিপুর সম্রাট সিনেমা বাজারের শেষ প্রান্ত পর্যন্ত ভাঙা। হাটখোলা এলাকার অবস্থাও একই রকম। হাটখোলা মোড়ে দাঁড়িয়ে ছিলেন স্থানীয় বাসিন্দা হাফিজুল হক। তিনি বলেন, ‘রাস্তার কারণে আত্মীয়স্বজন বেড়াতে আসবার চায় না। খারাপ রাস্তার কথা বইলা আমাগো লজ্জা দেয়।’

গোগনগর পর্যন্ত রাস্তা মোটামুটি ভালো। তবে এরপর সৈয়দপুর এলাকায় আবার শুরু হয় দুর্দশা। সৈয়দপুর থেকে ফকিরবাড়ী বেইলি সেতু পর্যন্ত আধা কিলোমিটার অংশের এক মিটার জায়গাও ভালো নেই।
এ এলাকায় কথা হয় একটি বাসের কয়েকজন যাত্রীর সঙ্গে। মামলার কাজে মুন্সীগঞ্জে যাচ্ছিলেন রাজধানীর ওয়ারীর বাসিন্দা নূর হোসেন। তিনি বলেন, ‘ভাই, এত ভয়াবহ খারাপ রাস্তা আর দেখিনি। এ রাস্তায় গেলে ভালো মানুষও অসুস্থ হয়ে যাবে।’ বাসের হেলপার বাপ্পী বলেন, ‘এ রাস্তায় গাড়ি চালাইয়া কোনো লাভ নেই। রাস্তায় গাড়ি বইসা যায়। অনেক সময় স্প্রিং ভাইঙ্গা যায়, গ্যাসের সিলিন্ডার খুইল্যা পইড়া যায়। গাড়ির চাক্কাও খুইল্যা যায়।’

মুক্তারপুর সেতুর মুন্সীগঞ্জ প্রান্তে যাত্রীর অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে ছিল কয়েকটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা। চলাচল করে ঢাকার যাত্রাবাড়ী পর্যন্ত। অটোরিকশাগুলো ঢাকা সড়কমুখী থাকলেও যাত্রী ভরে উল্টো দিকে রওনা হচ্ছিল। কারণ জানতে চাইলে একটি অটোরিকশার চালক রিপন বলেন, ‘পঞ্চবটি পর্যন্ত রাস্তা খুবই খারাপ। হের লাইগ্যা সিরাজদিখান-নিমতলী ঘুইরা যামু। আগে দৈনিক চাইর ট্রিপ মারতে পারতাম। এখন দুইটার বেশি ট্রিপ মারতে পারি না।’ চালকরা জানান, রাস্তা খারাপ থাকায় বাড়তি প্রায় ২৫ কিলোমিটার ঘুরে ঢাকায় যেতে হয়। এ জন্য আগে ২৫০ টাকায় যাত্রাবাড়ী গেলেও এখন ৫০০ টাকার কমে কোনো অটোরিকশা যাচ্ছে না।
মুন্সীগঞ্জ কাছারি বাসস্ট্যান্ডে ঢাকা ট্রান্সপোর্ট লাইন লিমিটেডের একটি বাসের মেরামতকাজ তদারক করছিলেন চালক তোফাজ্জল হোসেন। ক্ষোভঝরা কণ্ঠে তিনি বলেন, ‘নিজের এবং ৪০ জন যাত্রীর জান হাতে লইয়া প্রতিবার ঢাকা যাই। অনেক আন্দোলন করছি, গাড়ি বন্ধ রাখছি কিন্তু কর্তৃপক্ষের টনক নড়ে নাই। রাস্তাও ঠিক হয় নাই।’ গাড়ির চারপাশ ঘুরিয়ে দেখিয়ে তিনি বলেন, ‘এর নিচের দিকে কিছুই নাই। গর্তের কারণে প্রতিদিনই কোনো না কোনো পার্টস নষ্ট হচ্ছে।’

মুন্সীগঞ্জ শহরের সঙ্গে ঢাকার যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম এ সড়ক সংস্কার না করায় মুন্সীগঞ্জের মানুষ কতটা ক্ষুব্ধ, তা টের পাওয়া যায় ক্যাবের (কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ) মুন্সীগঞ্জ জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক ও মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বলের কথায়। তিনি বলেন, ‘রাস্তার খারাপ অবস্থার কারণে এ অঞ্চলের অর্থনীতিতে বাজে প্রভাব পড়ছে। সমস্যা সমাধানের ব্যাপারে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের ভূমিকাও জোরালো নয়। সব মিলিয়ে মুন্সীগঞ্জের মানুষ খুবই ক্ষুব্ধ। আমরা আন্দোলনের প্রস্তুতি নিচ্ছি। ঈদের আগে রাস্তা সংস্কার করা না হলে কঠোর আন্দোলনে যাব।’

উন্নয়ন প্রস্তাব ছয় মাস ধরে ফাইলবন্দি : ‘ভাই, রাস্তার অবস্থা দেখলে নিজেরই খুব কষ্ট লাগে’_এমন মন্তব্য করেন ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ সড়কের পঞ্চবটি থেকে মুক্তারপুর সেতু পর্যন্ত রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে থাকা বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের সহকারী প্রকৌশলী (রোড অ্যান্ড ব্রিজ) মো. আকরাম হোসেন। তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘এটা আগে অনেকটা গলিপথ ছিল। সরকারের কোনো পরিকল্পিত সড়ক নয়। রাস্তার পানি নিষ্কাশনের কোনো ব্যবস্থা নেই। তাই বৃষ্টি হলেই পানি জমে যায়। এ সড়ক ভারী যানবাহনের উপযোগী করেও তৈরি করা হয়নি। অথচ মুক্তারপুর এলাকার সিমেন্ট কারখানার ভারী ট্রাক চলাচল করছে। ফলে রাস্তা দ্রুত ভেঙে যাচ্ছে।’ রাস্তার পাশের বাসিন্দারাও পানি অপসারণে কোনো সহযোগিতা করে না বলে অভিযোগ করেন তিনি।

আকরাম হোসেন জানান, রাস্তাটি চার লেন করার জন্য একটি প্রকল্প প্রস্তাব তৈরি করা হয়েছে। এ জন্য ব্যয় ধরা হয়েছে ৩৫০ কোটি টাকা। প্রায় ছয় মাস আগে এ প্রস্তাব পরিকল্পনা কমিশনে পাঠানো হয়েছে। কিন্তু পরে আর কোনো অগ্রগতি হয়নি। তিনি বলেন, ‘ওই প্রকল্প পাস হলেও কাজ শেষ করতে তিন বছর লাগবে। তাই আপাতত রাস্তাটি যানবাহন চলাচলের যোগ্য রাখার জন্য আরেকটি প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। শীতের আগেই এর কাজ শুরু করা হবে।’

বিকল ট্রাকের কারণে চলাচল বন্ধ ১০ ঘণ্টা : নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, সিমেন্টবোঝাই একটি ট্রাক মঙ্গলবার রাত ২টার দিকে ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ সড়কের পঞ্চবটির বিসিক শিল্পাঞ্চলের সামনে গর্তে পড়ে আটকে যায়। সেটি উদ্ধার করতে ঘটনাস্থলে রেকার নিয়ে যায় পুলিশ। কিন্তু ট্রাকের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র না থাকায় পুলিশ ক্রুদ্ধ হয়ে হেলপার শফিককে চর-থাপ্পড় মেরে গাড়ি উদ্ধার না করেই ফিরে যায়।

এরপর গতকাল সকাল ৮টার দিকে ওই সড়কেরই ভোলাইল বাজার এলাকায় গর্তে দেবে যায় শাহ সিমেন্টের আরো একটি গাড়ি। এক লেনের রাস্তায় দুটি যান বিকল হয়ে পড়ায় যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। দুপুর ২টার দিকে পঞ্চবটি মেথরখোলা এলাকায় মুন্সীগঞ্জগামী বিআরটিসির গমবোঝাই আরো একটি ট্রাক গর্তে দেবে গেলে জটিল হয় পরিস্থিতি। তৈরি হয় কয়েক কিলোমিটারজুড়ে যানজট।

জেলা ট্রাফিক পুলিশের রেকার সকাল থেকে চেষ্টা করেও ঘটনাস্থলে যেতে পারেনি। অন্যদিকে বিকল হয়ে পড়া যানগুলোকে স্থানীয়ভাবে টেনে তোলার চেষ্টাও কয়েকবার ব্যর্থ হয়। পরে ট্রাক থেকে মালামাল নামিয়ে সেগুলো রাস্তার পাশে সরানো হয়। দুপুর আড়াইটার দিকে রাস্তায় যানবাহন চলাচল ফের শুরু হয়।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply