ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ সড়কে বাস চলাচল এখনও বন্ধ

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সীগঞ্জ থেকে: চতুর্থ দিনের মতো ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ সড়কে যাত্রীবাহী বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। এর ফলে মুন্সীগঞ্জের সাথে ঢাকার যোগাযোগ ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়েছে। এ কারণে মুন্সীগঞ্জের কাচাবাজারে বিভিন্ন শাক সবজির দাম বেড়ে গেছে। ঈদের মৌসুমকে সামনে রেখে ব্যবসায়ীরা কোন কেনা কাটা করতে পাড়ছে না। রাস্তার বেহাল দশায় স্থানীয় প্রশাসন রহস্যজনকভাবে নিরব রয়েছেন। স্থানীয় এমপি ও মুন্সীগঞ্জের দায়িত্ব প্রাপ্ত মন্ত্রীও এ রাস্তার বিষয়ে কোন কথা বলছেন না। এর ফলে এখানে সরকারের ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন হবার আশংকা দেখা দিয়েছে।

ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ সড়কের ক্ষতিগ্রস্ত চরমুক্তারপুর-পঞ্চবটি অংশের রাস্তাটি দেখভালের দায়িত্ব বর্তমানে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের। আগে এই রাস্তাটির দেখভালোর দায়িত্ব ছিল সড়ক ও জনপথ বিভাগের। দায়িত্ব প্রাপ্ত সেতু কর্তৃপক্ষ রাস্তাটি সংস্কারের ক্ষেত্রে চরম দায়িত্বহীনতার পরিচয় দিচ্ছে।

সেতু কর্তৃপক্ষের সংশ্লিষ্ট নির্বাহী প্রকৌশলী শফিকুল ইসলাম জানান, এই রাস্তাটিতে কারিগরি ত্রুটির কারণেই এমন লন্ডভন্ড অবস্থা হয়েছে। এই রাস্তায় পানি নিষ্কাশনের কোন ব্যবস্থা নেই। এর রাস্তায় অতিরিক্ত ভারি যানবহন চলাচল করায় রাস্তায় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। তবে রাতের বেলায় ইটের খোয়া ফেলে এই গর্ত ভরাটের কাজ চলছে। অন্যদিকে সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী একেএম হামিদুর রহমান বলেন, কারিগরি ত্রুটির কারণে নয়, সময় মতো যথাযথ সংস্কার এবং পরিকল্পনার অভাবেই ভাল এই রাস্তাটির এই বেহাল দশার সৃষ্ঠি হয়েছে।

দু’টি কর্তৃপক্ষ একে অপরের উপর দোষ চাপিয়ে এ যাত্রা থেকে পার পেতে চেষ্ঠা করছে। নির্বাহী প্রকৌশলী শফিকুল ইসলাম আরও জানান, রাস্তাটিতে এখন এভাবেই চলতে হবে। শুষ্ক মৌসুম অর্থাৎ নবেম্বর থেকে এ রাস্তায় কাজ শুরু করা হবে। আর জানুয়ারিতে এ কাজ শেষ করা যাবে। এ জন্য ৭ থেকে ১০ কোটি টাকার প্রয়োজন হবে। সঙ্গে ড্রেনেজ ব্যবস্থাও রাখা হবে।

এ ছাড়া পরিকল্পনা কমিশনের ব্যর্থতার কারণে এখানে চার লেনের রাস্তার প্রকল্পটি এখনও অনুমোদন হয়নি। এখানে চার লেনের রাস্তার অনুমোদন না পাওয়া গেলে এখানে এই রাস্তার সমস্যার স্থায়ী সমাধান হবে না।

বাস মালিক সমিতির সাধারণ স¤পাদক সানাউল্লাহ ব্যাপারী জানান, রাস্তার সংস্কার না হওয়ায় বাস সার্ভিস চালু করা সম্ভব হচ্ছে না। এতে যাত্রীদের দুর্গতি ছাড়াও বাস শ্রমিকরা নানা কষ্টে দিনাতিপাত করছে।

যেসব বাস শ্রমিকরা অর্থ সংকটে রয়েছে তারা বিচ্ছিন্নভাবে কিছু বাস নিয়ে রাস্তায় নেমেছে। যা অপ্রতুল। দু’দিনের রোদের কারণে রাস্তার গর্তের পানি কমে যাওয়ায় সল্প সংখ্যক বাস রাস্তা নামানো হয়েছে। তবে এ প্রক্রিয়া কোন নোটিশ ছাড়াই আবারো বন্ধ হয়ে যেতে পাড়ে। এ সংকটের সময় এখানে নামে মাত্রে একটি বিআরটির বাস চলাচল করতে দেখা যায়। জরুরীভাবে এই রাস্তার বিষয়ে সরকারের নজর দেয়া প্রয়োজন।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ
————-

ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ সড়কে বাস চলাচল বন্ধ

সড়ক সংস্কারে দাবিতে ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ রুটে বাস চলাচল শনিবারও বন্ধ ছিল। গত বুধবার থেকে এ রুটে কোনো বাস চলছে না।

এই সড়কের নারয়ণগঞ্জের অংশে চরমুক্তাপুর থেকে পঞ্চবটি পর্যন্ত আট কিলোমিটার এলাকায় বিভিন্ন স্থানে বহু ছোটবড় গর্ত। গর্তে পানি জমে চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে।

সড়কটির এই অংশের দায়িত্বে থাকা বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের সংশ্লিষ্ট নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শফিকুর রহমান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, রাতের বেলায় গর্তগুলোতে ইটের খোয়া এবং বালু ফেলে মেরামত করা হচ্ছে।

এদিকে মুন্সীগঞ্জ বাস মালিক সমিতির সভাপতি মঞ্জুর রহমান জানিয়েছেন, যেভাবে মেরামত হচ্ছে তাতে বাস চলাচল উপযোগী নয়। পানি নিস্কাশনের কোনো ব্যবস্থা এখনো করা হয়নি। এতে সামান্য বৃষ্টিতেই আবারো রাস্তায় পুকুর হয়ে যাবে।

সমিতির সচিব সানাউল্লাহ ব্যাপারী দুপুরে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, আজ (শনিবার) এখনো মুন্সীগঞ্জ থেকে এই রুটে ঢাকার উদ্দেশে কোনো বাস ছেড়ে যায়নি। রাস্তা সংস্কার না হলে গাড়ি চালানো সম্ভব নয়।

এদিকে এই সড়ক সংস্কারের দবিতে মুন্সীগঞ্জের মুক্তারপুর সেতু এলাকায় সকালে মানববন্ধন করেছে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)।

কয়েকশ’ নারী-পুরুষ এ মানববন্ধনে অংশ নেয়।

এখানে সিপিবি’র মুন্সীগঞ্জ জেলা সভাপতি স ম কামাল হোসেন, সধারণ সম্পদক হামিদা খাতুনসহ স্থানীয় নেতারা বক্তব্য দেন।

বক্তারা বলেন, আগামী ৪ দিনের মধ্যে রাস্তা চলাচল উপযোগী করা না হলে অবোরধ, বিক্ষোভ মিছিলসহ বিভিন্ন কর্মসূচি দেওয়া হবে।

বক্তারা যোগাযোগ মন্ত্রীর পদত্যাগও দাবি করেন।

বরিশাল প্রতিনিধি জানান, সড়ক ও নৌ-পথে দুর্ঘটনা রোধ এবং ঢাকা-বরিশাল নৌ-রুটের রোটেশন প্রথা বাতিলের দাবিতে সকালে মানবন্ধন করেছে সম্মিলিত সংস্কৃতিক সংগঠন সমন্বয় পরিষদ।

মানববন্ধনে অংশগ্রহণকারীরা যোগাযোগ ও নৌ-পরিবহন মন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করেছেন।

বেলা ১০টায় নগরীর সদর রোডে অশ্বিনী কুমার হলের সামনে এই মানববন্ধন হয়।

মানববন্ধন শেষে সমাবেশে বক্তব্য দেন অ্যাডভেকেট নজরুল ইসলাম চুন্নু, কলেজ শিক্ষক মোহাম্মদ হানিফ, প্রেসক্লাব সভাপতি বনবেন্দ্র বটবেল, শিশু সংগঠক জীবন কৃষ্ণ দে, সাং®কৃতিক ব্যক্তিত্ব সৈয়দ দুলাল প্রমুখ।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর

One Response

Write a Comment»
  1. আশা রাখি সরকার ও প্রশাসন এবার যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নায়ন চট-জলদি করবেন। দেশের সামগ্রিক উন্নায়ন ও কার্যকক্রম নির্ভর করে যোগাযোগ ব্যবস্থার উপরে! আর দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থা নির্ভর করে ক্ষমতায় থাকা সরকারের বাস্তব পদক্ষেপের উপর!!

Leave a Reply