রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস ও ২১ আগস্ট

নূহ-উল-আলম লেনিন
বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সর্বোচ্চ মহলের সবচেয়ে শক্তিধর অংশ যে এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত এতে বিন্দুমাত্র সন্দেহ নেই। সরকার বা রাষ্ট্রের মদদ ছাড়া এবং দেশ বা বিদেশের কোনো না কোনো ক্যান্টনমেন্টের উৎস ছাড়া এত বিপুল সংখ্যক আরজিএস গ্রেনেড অসামরিক জনসমাবেশে নিক্ষিপ্ত হতে পারে না। এটা কোনো সাধারণ সন্ত্রাসীর কাজ হতে পারে না। অথচ এতবড় মানবিক ট্র্যাজেডির পর পরই বিএনপি-জামায়াত নেতৃত্ব গ্রেনেড হামলার জন্য আওয়ামী লীগকেই দায়ী করে প্রচারণার ধূম্রজাল সৃষ্টি করেছিল। ‘অফেন্স ইজ দি বেস্ট ডিফেন্স’_ এই নীতি অনুসরণ করে জোট সরকার নিজেদের ব্যর্থতা, অপরাধ ও সংশ্লিষ্টতাকে আড়াল করতে উঠেপড়ে লেগে যায়।

রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস কেবল ব্যক্তি মানুষকে হত্যা করে ক্ষান্ত থাকে না। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট, ৩ নভেম্বর অথবা ২০০৪ সালের ২১ আগস্টের হত্যাকা- এবং হত্যা প্রচেষ্টার লক্ষ্য কেবল ক্ষমতা দখল, গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব এবং সম্ভাব্য প্রতিদ্বন্দ্বীদের রাজনৈতিক উত্থান প্রতিহত করা নয়।

রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের একটা সুনির্দিষ্ট রাজনৈতিক লক্ষ্য এবং নীলনকশা থাকে। যে ক্ষমতাধরগণ রাষ্ট্রকে সন্ত্রাসী রাষ্ট্রে পরিণত করে, তারা যে সব সময় অবৈধ পন্থায়ই ক্ষমতা দখল করে এমনটিও নয়। তারা নির্বাচিত হয়ে এলেও রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস পরিচালনা করতে পারে। গণতন্ত্র ও মানবাধিকার হরণ করতে পারে। অ্যাডলফ হিটলারের নাৎসি পার্টি জার্মানিতে নির্বাচনের মাধ্যমেই ক্ষমতাসীন হয়েছিল। কিন্তু তারপর তারা কী করেছে সে ইতিহাস আমাদের জানা।

১৯৭৫-এর ক্ষমতাসীন সামরিক-বেসামরিক এলিটচক্র (১) বাংলাদেশকে মুক্তিযুদ্ধের আদর্শগত অবস্থান ও লক্ষ্য থেকে সরিয়ে এনে একটি ধর্ম-সামপ্রদায়িক রাষ্ট্রের পরিণত করে; (২) রাষ্ট্রের ওপর জনগণের মালিকানা বেদখল করে এবং সংবিধানের কর্তৃত্ব ধ্বংস করে; (৩) হত্যা, সন্ত্রাস, জোর-জবরদস্তি (পরবর্তী সময়ে মুক্তিযুদ্ধের সেক্টর কমান্ডার খালেদ মোশাররফ ও কর্নেল তাহেরের হত্যাকা-, বিচার প্রহসনের নামে সশস্ত্র বাহিনীর শত শত মুক্তিযোদ্ধা অফিসার ও জোয়ানকে হত্যা এবং রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ বিবেচনায় আওয়ামী লীগের হাজার হাজার নেতা-কর্মীকে হত্যা, গ্রেপ্তার, নির্যাতন ইত্যাদি এর নজির) হয়ে ওঠে রাষ্ট্র পরিচালনার নীতি; (৪) উগ্র সামপ্রদায়িক জঙ্গিবাদকে (অর্থাৎ ‘৭১-এর সশস্ত্র আলবদর, আল শামস, রাজাকারদের রাজনৈতিক সংগঠন জামায়াতে ইসলামীকে) রাষ্ট্রীয়ভাবে পুনর্বাসিত করে; (৫) গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে (ভোটাধিকার, নির্বাচন ব্যবস্থা, নির্বাচন কমিশন, জাতীয় সংসদ প্রভৃতি) ধ্বংস ও অকার্যকর করে তোলে; সামরিক ছাউনিতে রাজনৈতিক দল গঠন করে রাজনীতিতে দুর্বৃত্তায়নের ধারাকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপদান করে; (৬) ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের দ্বিতীয় শ্রেণীর নাগরিকের পর্যায়ে নামিয়ে আনে এবং ধর্মীয় ও জাতিগত সংখ্যালঘুদের ওপর রাষ্ট্রীয় নির্যাতন ও বৈষম্য (শক্র সম্পত্তি আইন, পার্বত্য চট্টগ্রামে যুদ্ধাবস্থা চাপিয়ে দেয়া) চাপিয়ে দিয়ে এথনিক ক্লিনজিংয়ের নীতি গ্রহণ করে; (৭) বাংলাদেশকে অবাধ লুণ্ঠনের মৃগয়া ক্ষেত্রে পরিণত করে। রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় (যেমনটি পাকিস্তানি শাসনামলে ২২ পরিবার গড়ে উঠেছিল) কল্পনাতীত কম সময়ের মধ্যে বাংলাদেশে একটি লুটেরা ধনিক শ্রেণী গড়ে তোলা হয়। সামরিক ও অসামরিক ব্যক্তিদের সমন্বয়ে গঠিত এই এলিটচক্রটিই ১৯৯১ সালে প্রত্যক্ষ সামরিক শাসনের স্থলাভিষিক্ত হয়। বলা বাহুল্য দুর্বৃত্তায়িত অর্থনীতির আসল বেনিফিশিয়ারি এই লুটেরা এলিট শ্রেণীর প্রতিনিধিত্বকারী রাজনৈতিক দল হচ্ছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল_ বিএনপি এবং লুটেরা বাহিনীর প্রকৃত সর্দারনী হচ্ছেন ‘বেগম জেনারেল’ খালেদা জিয়া এবং (৮) দীর্ঘ স্বৈরশাসন বিশেষত প্রতিশোধকামী বিএনপি-জামায়াত গোষ্ঠী বাংলাদেশের সমাজে একটা ‘অসহিষ্ণু’ এবং হিংসাশ্রয়ী সামাজিক মনস্তত্ত্বের জন্ম দেয়। যার ফলে তাদের শাসনামলে রাজনৈতিক সন্ত্রাসের পাশাপাশি সামাজিক সন্ত্রাস সর্বগ্রাসী হয়ে ওঠে।

বাংলাদেশ রাষ্ট্রের এই ক্রমো পাকিস্তানিকরণ ও দুর্বৃত্তায়ন কখনোই বাধাহীন ছিল না। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে এ দেশের অসামপ্রদায়িক গণতান্ত্রিক শক্তিগুলো গত তিন দশক জুড়ে প্রতিরোধ গড়ে তোলার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। তবে ‘৭৫-এ সৃষ্ট নেতৃত্বের শূন্যতার জন্য গণআন্দোলন-গণপ্রতিরোধকে অপ্রতিরোধ্য করে তোলা ছিল দুরূহ। ১৯৮১ সালে বঙ্গবন্ধু-কন্যা শেখ হাসিনা দীর্ঘ ছয় বছর নির্বাসন শেষে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করে কেবল আওয়ামী লীগের নয়_ অসামপ্রদায়িক গণতান্ত্রিক শক্তির নেতৃত্বের হাল ধরেন। শেখ হাসিনা নেতৃত্বে ব্রত হওয়ায় কেবল রাজনৈতিক কর্মীদের মধ্যেই নয় দেশবাসীর মধ্যেও একটা আত্মবিশ্বাস ফিরে আসে। গত সিকি শতাব্দীর পথ পরিক্রমায় শেখ হাসিনা তার কর্মকা- দিয়ে, অকৃত্রিম দেশপ্রেম ও মানুষের প্রতি অসীম দরদ সর্বোপরি প্রতি মুহূর্তে মৃত্যুর ঝুঁকি মোকাবিলা করে নিরন্তর জনগণের পাশে থেকে লড়াই সংগ্রামের মধ্য দিয়ে তার যোগ্যতার প্রমাণ রেখেছেন।

ইতিহাসের প্রকৃত নির্মাতা জনগণ। কিন্তু বিশেষ ঐতিহাসিক কালপর্বে ব্যক্তির ভূমিকা হয়ে ওঠে নিয়ামক। যেমন নিয়ামক ছিল বাঙালির স্বাধিকার আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধে বঙ্গবন্ধুর ভূমিকা। পঁচাত্তর পরবর্তী বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক সংগ্রামে এবং বর্তমানের ঘোর তমসাচ্ছন্ন দুঃসময়ে জাতীয় ঐক্যের প্রতীক হিসেবে শেখ হাসিনার ভূমিকাও তেমনি নিয়ামক হয়ে উঠেছে।

এই উপলব্ধি কেবল গণতান্ত্রিক শক্তির নয়। জনগণের তথা স্বাধীনতার প্রতিপক্ষ দেশি-বিদেশি অপশক্তি, প্রতিবিপ্লবী, ধর্মব্যবসায়ী এবং সামরিকতন্ত্র সৃষ্ট এলিট দুর্বৃত্ত শ্রেণীও এটা উপলদ্ধি করে। তারা প্রথম থেকেই বুঝতে পেরেছে শেখ হাসিনা একজন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বমাত্র নন। তাকে ঘিরে বাংলাদেশের অসমাপ্ত মুক্তিযুদ্ধের হৃতমান শক্তিগুলো পুনঃসংগঠিত হবে এবং বাংলাদেশকে অপশক্তির হাত থেকে পুনরুদ্ধার করবে। শেখ হাসিনা ও তার সহকর্মীরা এটা করতে সক্ষম হলে প্রতিবিপ্লবী শক্তির অস্তিত্ব বিপন্ন হয়ে পড়বে। আর সে কারণেই একবার বা দুবার নয়, গত পঁচিশ বছরে অন্তত ২০-২১ বার জননেত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার চেষ্টা এবং হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছে।

ওদের আশঙ্কা যে সত্য তা প্রমাণিত হয়েছিল ১৯৯৬ সালে। জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অবাধ নিরপেক্ষ সুষ্ঠু নির্বাচনে দীর্ঘ একুশ বছর পর জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ পাঁচ বছর রাষ্ট্র পরিচালনা করতে গিয়ে (১) নিরঙ্কুশভাবে না হলেও বাংলাদেশকে স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী পাকিস্তানপন্থীদের দখলমুক্ত করেন; (২) প্রজাতন্ত্রের মালিকানায় জনগণকে ফিরিয়ে আনেন এবং সংবিধানের কর্তৃত্ব পুনঃপ্রতিষ্ঠিত করেন (৩) সংবিধান সংশোধন করার মতো দুইতৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা না থাকায় জিয়া-এরশাদ-খালেদারা সংবিধানে যেসব মৌলিক পরিবর্তন করেছিল তা রদ করা সম্ভব না হলেও রাষ্ট্র পরিচালনায় অসামপ্রদায়িক ধ্যান ধারণা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা পুনঃপ্রতিষ্ঠিত করেন; (৪) ইনডেমনিটি অর্ডিন্যান্স প্রত্যাহার করে জাতিকে কলঙ্কমুক্ত করেন এবং বঙ্গবন্ধু হত্যাকা-, জেল হত্যার বিচার প্রক্রিয়া শুরু করেন; (৫) সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে শক্তিশালী ও সংহত করার পদক্ষেপ নেন; (৬) দারিদ্র্য বিমোচনে নানা উদ্ভাবনী কর্মসূচি গ্রহণ করে দারিদ্র্য হ্রাসের হার বিএনপি আমলের চেয়ে তিনগুণ উন্নীত করেন; (৭) দেশকে খাদ্যে আত্মনির্ভরশীল করেন; (৮) গঙ্গাচুক্তি সম্পাদন করে পানির ন্যায্য হিস্যা আদায় করেন; (৯) পার্বত্য চট্টগ্রামে যুদ্ধাবস্থার অবসান ও এথনিক সমস্যার শান্তিপূর্ণ রাজনৈতিক সমাধান করেন; (১০) সাক্ষরতার হার ৪৪% থেকে ৬৫ শতাংশে উন্নীত করেন; (১১) মুদ্রাস্ফীতি ১.৪৯ শতাংশে নামিয়ে এনে প্রবৃদ্ধির সর্বোচ্চ হার ৬.৪ শতাংশ অর্জন করেন; (১২) ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের মর্যাদা অর্জন করে; (১৩) সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ (ঋউও) সর্বোচ্চ পর্যায়ে পেঁৗছে; (১৪) অবকাঠামো উন্নয়নের (বিদ্যুৎ, টেলিযোগাযোগ, রাস্তাঘাট ইত্যাদি) ফলে বাংলাদেশে বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি হয়। দুর্নীতির ক্যান্সার উপশম না হলেও অর্থনীতি ও রাজনীতিতে দুর্বৃত্তায়নের দাপট কিছুটা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয়। বাংলাদেশ যে একটি টেকসই বা ভায়াবল রাষ্ট্র হতে পারে এবং এ দেশের জনসংখ্যার সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশ ধর্মপ্রাণ মুসলামান হওয়া সত্ত্বেও বাঙালি জাতির হাজার বছরের ঐতিহ্যের ধারায় এ দেশটি যে একটি ধর্মসহিষ্ণু অসামপ্রদায়িক উদার গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র হতে পারে শেখ হাসিনার শাসনামলে তা স্পষ্ট হয়ে ওঠে। প্রকৃতপক্ষে যে আদর্শ ও লক্ষ্যসমূহ সামনে রেখে স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয় হয়েছিল আওয়ামী লীগ ও শেখ হাসিনা তা পুনঃপ্রতিষ্ঠিত করে বাংলাদেশকে তার মুক্তিযুদ্ধের হৃত গৌরব ফিরিয়ে দেন।

স্বভাবতই এইসব ইতিবাচক পরিবর্তন এবং মুক্তিযুদ্ধের ধারায় বাংলাদেশের ফিরে আসাকে বিএনপি, জামায়াতে ইসলামী ও অন্যান্য সামপ্রদায়িক শক্তি মেনে নিতে পারেনি। নানা পোশাকে, নানা নামে একুশ বছর তো তারাই একচেটিয়াভাবে দেশ শাসন করেছে। এই পাকিস্তানি ভাবধারার অনুসারীরা এবারই প্রথম অনুভব করে বাংলাদেশ আবার তাদের হাতছাড়া হয়ে যাচ্ছে। আর এজন্য বিএনপির নেতৃত্বে যুদ্ধাপরাধী জামায়াতে ইসলামীসহ সব প্রতিক্রিয়াশীল সামপ্রদায়িক শক্তি ঐক্যবদ্ধ হয়। দেশি ও বিদেশি প্রতিক্রিয়াশীল শক্তির সম্মিলিত ষড়যন্ত্রের ফলে ২০০১ সালের কারচুপির নির্বাচনে এই অপশক্তি পুনরায় রাষ্ট্রক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হয়। জোর করে আওয়ামী লীগকে পরাজিত করা হয়। ৪১ শতাংশ ভোট পেলেও আওয়ামী লীগকে মাত্র ৬২টি আসন দিয়ে বিরোধী দলে ঠেলে দেয়া হয়।

ক্ষমতার পালাবদলের পর শুরু হয় অভাবিত রাজনৈতিক প্রতিহিংসা। রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস তার বীভৎস রূপ নিয়ে আত্মপ্রকাশ করে। আওয়ামী লীগ নিশ্চিহ্নকরণের ধারাবাহিক অভিযানে ওই সময়ে সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া এমপি ও আহসান উল্লাহ মাস্টার এমপিসহ হাজার হাজার নেতাকর্মী নিহত হন। চলতে থাকে নির্মম এথনিক ক্লিনিজং। ধর্মীয় সংখ্যালঘু অধ্যুষিত গ্রামগুলোর ওপর মধ্যযুগীয় বর্বরতা নিয়ে হামলা চালানো হয়। শত শত নারী, তরুণী-শিশু হয় ধর্ষণ-গণধর্ষণের শিকার। মানবতার বিরুদ্ধে সংঘটিত অপরাধ সকল সীমা ছাড়িয়ে যায়। আইন-শৃঙ্খলা ভেঙে পড়ে। বাংলাদেশ পরিণত হয় মৃত্যু উপত্যকায়। নির্বাসিত হয় গণতন্ত্র। ধ্বংস করা হয় গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানসমূহ। অপ্রতিরোধ্য হয়ে ওঠে রাষ্ট্রীয় সম্পদের লুটপাট। দুর্নীতিতে পাঁচবার বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয় বাংলাদেশ। দলীয়করণ রাষ্ট্রকে দলীয় প্রতিষ্ঠানে পরিণত করে। চলতে থাকে মাৎস্যন্যায়। রাষ্ট্র নিজ হাতে আইন তুলে নেয়। বিচারবহির্ভূত হত্যাকা- নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়। ১৯৭৫-এর মতো আবারো ইনডেমনিটি দিয়ে বিচারের পথ রুদ্ধ করা হয়। বাংলাদেশের কপালে সন্ত্রাসী রাষ্ট্রের কলঙ্ক চিহ্ন এঁকে দেয়া হয়। জাতীয় জীবনে নেমে আসে ঘোর অন্ধকার।

কিন্তু তা সত্ত্বেও শেখ হাসিনার অকুতোভয় সাহসী নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ ঘুরে দাঁড়ায়। বিএনপি-জামায়াত জোটের দুঃশাসনের বিরুদ্ধে গড়ে তোলে শক্ত প্রতিরোধ। একের পর এক হত্যাকা- ঘটিয়ে, ঘরবাড়ি থেকে উৎখাত করে, হাজার হাজার নেতাকর্মীকে চিরদিনের জন্য পঙ্গু করে দিয়ে এবং হামলা-মামলা ও গ্রেপ্তার নির্যাতন করেও আওয়ামী লীগের অগ্রযাত্রা ঠেকানো সম্ভব হয় না। অসামপ্রদায়িক গণতান্ত্রিক শক্তিগুলো শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ হতে শুরু করে। আওয়ামী লীগের সমাবেশে বাড়তে থাকে জনগণের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ। ভয়-সন্ত্রাস থেকে মুক্ত হয়ে মানুষ আবার সংগঠিত হতে শুরু করে।

আর এই অবস্থা দেখেই বিএনপি-জামায়াত জোট প্রমাদ গুণতে শুরু করে। হিসাব-নিকাশ করে তারা বুঝতে পারে ১৯৭৫ সালের মতো একটা বড় হত্যাকা- সংঘটিত করতে পারলে আবার ২১ বা তিরিশ বছরের জন্য তাদের শাসন নিষ্কণ্টক হতে পারে। যারা বাংলাদেশ রাষ্ট্রের অস্তিত্বকে এখনো মেনে নিতে পারেনি, যারা সামপ্রদায়িক আদর্শকে রাষ্ট্র পরিচালনার মূলনীতি হিসেবে মনে করে, যারা বাংলাদেশে জঙ্গিবাদের উত্থানকে মদদ দিয়েছে, সর্বোপরি বাংলাদেশকে একটি ব্যর্থ রাষ্ট্র হিসেবে প্রমাণ করে বাংলাদেশের স্বতন্ত্র অস্তিত্ব ও স্বাধীনতাকে অর্থহীন করে তুলতে চায় তারাই চরম আঘাত হানার ভয়াবহ সিদ্ধান্ত নেয়। ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসবিরোধী সমাবেশে বৃষ্টির মতো গ্রেনেড নিক্ষেপ করে জননেত্রী শেখ হাসিনাসহ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বকে একবারে নিশ্চিহ্ন করার মরিয়া চেষ্টা করে।

কিন্তু অলৌকিকভাবে তিনি প্রাণে বেঁচে যান। মহিলা নেত্রী বেগম আইভি রহমানসহ ২৪ জন নিহত হন। উপস্থিত কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের ও সহযোগী সংগঠনের প্রথম সারির নেতাদের প্রায় সবাই আহত হন। জাতীয় জীবনে সৃষ্টি হয় আরেকটি আগস্ট ট্র্যাজেডি।

বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সর্বোচ্চ মহলের সবচেয়ে শক্তিধর অংশ যে এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত এতে বিন্দুমাত্র সন্দেহ নেই। সরকার বা রাষ্ট্রের মদদ ছাড়া এবং দেশ বা বিদেশের কোনো না কোনো ক্যান্টনমেন্টের উৎস ছাড়া এত বিপুল সংখ্যক আরজিএস গ্রেনেড অসামরিক জনসমাবেশে নিক্ষিপ্ত হতে পারে না। এটা কোনো সাধারণ সন্ত্রাসীর কাজ হতে পারে না। অথচ এতবড় মানবিক ট্র্যাজেডির পর পরই বিএনপি-জামায়াত নেতৃত্ব গ্রেনেড হামলার জন্য আওয়ামী লীগকেই দায়ী করে প্রচারণার ধূম্রজাল সৃষ্টি করেছিল। ‘অফেন্স ইজ দি বেস্ট ডিফেন্স’_ এই নীতি অনুসরণ করে জোট সরকার নিজেদের ব্যর্থতা, অপরাধ ও সংশ্লিষ্টতাকে আড়াল করতে উঠেপড়ে লেগে যায়।

খালেদা-নিজামী সরকার খুব ভালো করেই জানতো কারা এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত। তাই তাদের আমলে একজন অপরাধীকেও চিহ্নিত করা সম্ভব হয়নি। বরং জজ মিয়া নাটক সাজিয়ে দেশবাসীকে বিভ্রান্ত করার অপচেষ্টা করা হয়েছিল। এখন তো দিবালোকের মতোই স্পষ্ট হয়ে উঠেছে খালেদা সরকারের প্রত্যক্ষ মদতে এবং হাওয়া ভবনের পরিকল্পনা বাস্তবায়নের লক্ষ্যেই তৎকালীন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বাবর ও উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টুর তত্ত্বাবধানে জঙ্গিবাদী সন্ত্রাসী মুফতি হান্নান ও মওলানা তাজুলকে ব্যবহার করে_ শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে এই গ্রেনেড হামলা চালানো হয়েছিল।

নূহ-উল-আলম লেনিন: রাজনীতিক ও লেখক

যায় যায় দিন

Leave a Reply