চ্যালেঞ্জের থাকা না-থাকা

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী
চ্যালেঞ্জ থাকেই, থাকছেই; কিন্তু তবু কখনো কখনো মনে হয় সে বুঝি নেই। চ্যালেঞ্জটা ব্যক্তিগত, আবার সমষ্টিগতও। ব্যক্তিগত চ্যালেঞ্জটা টের পাই, চারদিক থেকে আসে, অবিরাম কাজ করে। আসলে চ্যালেঞ্জবিহীন জীবন নেই। সমষ্টিগত চ্যালেঞ্জটাও অনেক সময়ে বেশ প্রত্যক্ষ থাকে, যেমন তখন ছিল যখন আমরা বিদেশীদের অধীনে ছিলাম, সাতচলি্লশের আগে, এবং পরে। সাতচলি্লশের আগে ছিল ব্রিটিশের শাসন। চ্যালেঞ্জটা ছিল তাদেরকে তাড়িয়ে দেবার। সামাজিকভাবে আরেকটি চ্যালেঞ্জও ছিল, সেটা হলো প্রতিষ্ঠিত হিন্দু মধ্যবিত্তের চ্যালেঞ্জ উঠতি মুসলিম মধ্যবিত্তের জন্য। সাতচলি্লশে রাজনৈতিক এবং সামাজিক উভয় চ্যালেঞ্জেরই এক ধরনের মীমাংসা হয়েছিল। প্রত্যক্ষ ব্রিটিশ শাসন আর রইলো না, রাজনৈতিকভাবে আমরা স্বাধীন হয়েছিলাম। সামাজিক চ্যালেঞ্জটারও অবসান হয়েছিল, প্রশাসন, ব্যবসা-বাণিজ্য, বিভিন্ন পেশা_ এসব ক্ষেত্রে পূর্ববঙ্গের হিন্দু মধ্যবিত্ত জায়গা ছেড়ে ছিল মুসলিম মধ্যবিত্তের কাছে। স্বাধীনতা নতুন সুযোগ ও সুবিধা তৈরি করলো। কিন্তু সেগুলোর সবটা যে বাঙালি মধ্যবিত্ত পেলো তা মোটেই নয়। অধিকাংশই, এবং জরুরি যেগুলো সেগুলো হস্তগত হলো অবাঙালিদের। তাই প্রয়োজন হলো দ্বিতীয় স্বাধীনতার। এবারের প্রতিদ্বন্দ্বী হিন্দুরা নয়। প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করলো অবাঙালি আমলা ও ধনীরা। তাদের চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়ে পূর্ববঙ্গবাসী লড়াই করেছে। দেশ স্বাধীন হয়েছে। পুরাতন সুযোগ-সুবিধাগুলো তো ছিলই; পাশাপাশি নতুন সুযোগ-সুবিধাও দেখা দিল। সবগুলোই মোটামুটি দখলে চলে গেল মধ্যবিত্তের একাংশের।

সুযোগ-সুবিধাগুলো অনেকটা পরিত্যক্ত সম্পত্তির মতো। অবাঙালিরা চলে গেছে, তাদের বিষয় সম্পত্তি সুবিধাপ্রাপ্ত বাঙালিদের তৎপর অংশ দ্রুত গতিতে দখল করে নিল। হিন্দুদের পরিত্যক্ত শক্তির নাম দেওয়া হয়েছিল শত্রু সম্পত্তি। তাদের সঙ্গে যুক্ত হলো অবাঙালিদের দখলমুক্ত বিষয় সম্পত্তি। স্বাধীন ও মুক্ত বাংলাদেশে হিন্দু সম্পত্তি যে মুসলমানরা নিয়ে নেয়নি এমনও নয়। নিয়েছে। নতুন সুযোগ-সুবিধাও অনেক এসেছে। সাহায্য ও ঋণ পাওয়া গেছে। তার পরিমাণ সামান্য নয়। বিদেশে পরিশ্রম করে মানুষ টাকা পাঠিয়েছে, রফতানি থেকে আয় হয়েছে। তাছাড়া সমস্ত দেশটাই তো আছে। দেশের প্রকৃতি, নদী-নালা, খাসজমি, শিল্পকারখানা, মাটির ও পানির নিচের গ্যাস-তেল, বন্দর, বিদ্যুৎ ব্যবস্থা, স্বাস্থ্যসেবা, শিক্ষা, আইন-আদালত, বিবিধ বাহিনী_ সুবিধা ও সুযোগ রয়েছে দেশজুড়ে। এগুলো তারাই দখল করে নিল যারা সুবিধাপ্রাপ্ত। সেই সুবিধাটা মেধার নয়, ক্ষমতার। এবং ক্ষমতা টাকার সঙ্গে জড়িত। সেদিন দেখলাম একজন প্রবীণ রাজনীতিক দুঃখ করে বলছেন, রাজনীতি এখন মধ্যবিত্তের হাতে নেই, চলে গেছে বিত্তবানদের হাতে। বলার অপেক্ষা রাখে না যে, এই বিত্ত উত্তরাধিকার সূত্রে প্রাপ্ত নয়, কিংবা প্রাপ্ত হলেও সেটা নগণ্যসংখ্যকই পেয়েছে, বিত্ত এসেছে মূলত অবৈধ পথে। সেই পথে মেধার তেমন একটা ভূমিকা ছিল না, তৎপরতা ছিল দখলদারিত্বের, পেশিশক্তির, যোগাযোগের, এবং অবশ্যই নির্লজ্জ দুর্নীতির। টাকা এনেছে। যার হাতে টাকা এসে গেছে সে ক্রমাগত এবং অতিদ্রুত গতিতে, কখনো কখনো অবিশ্বাস্য বেগে, আরো বেশি টাকার মালিক হয়েছে। লজ্জা তো নয়ই, ভয়ও কাজ করেনি।

কারণ এই নব্য ধনবানেরা কোনো চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়নি। তাদের নিজেদের ভেতর একটা পারস্পরিক ঝগড়া আছে, সেটা ভাগবাটোয়ারা নিয়ে। যেন চর দখলের লড়াই। জনগণের পক্ষ থেকে তাদের এই অসহনীয় দৌরাত্ম্যের, যার দরুন বাংলাদেশ তলিয়ে যাবে বলে আশঙ্কা, তার বিরুদ্ধে দাঁড়াবে এমন কোনো শক্তি আজ দেশে নেই। পাঞ্জাবি হানাদারদের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে জনগণের মুক্তি সংগ্রামের ভেতর দিয়ে যে সুযোগ-সুবিধাগুলো তৈরি হলো সেগুলো জনগণের কাছে গেলো না, লুণ্ঠিত হলো ক্ষমতাবান দুর্বৃত্তদের দ্বারা।

মেধাহীন এই মানুষেরা বিবেকহীনও বটে। তারা ধরে নিয়েছে, এদেশের কোনো ভবিষ্যৎ নেই। তাই নিজেদের সন্তান-সন্ততি এবং দখল করা সম্পত্তি যেভাবে পারে যতটা পারে বিদেশে নির্বিচারে পাচার করে দিচ্ছে। পাকিস্তান আমলে মধ্যবিত্ত যে লড়াইটা করছিল তাতে মেধাবানরা যে বিপুল পরিমাণে যোগ দিয়েছেন তা নয়; অনেকেই সরকারি চাকরিতে ছিলেন, বুদ্ধিজীবী বলে পরিচিতরা রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতা লাভের ব্যাপারে মধ্যবিত্তসুলভ লোভের দ্বারা পরিচালিত হয়েছেন; তবু দেশপ্রেমের তাড়নায় এবং বিবেকের অনুরোধে কেউ কেউ পাকিস্তানি চ্যালেঞ্জের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছেন। প্রত্যাশা ছিল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার পর মেধাবানরা এগিয়ে আসবেন কেবল দেশ গড়ার কাজে নয় সমাজে একটি বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনার প্রয়োজনেও। সুযোগ-সুবিধা তারা বিশেষ শ্রেণীর হস্তগত হতে দেবেন না। দেশের সকল মানুষ যাতে পায় তার জন্য কাজ করবেন। দুঃখের বিষয় সেটা ঘটেনি।

ব্যাপারটা গুরুতর। যে মুক্তির কথা আমরা ভেবেছি তার একেবারে কেন্দ্রেই ছিল এই বিবেচনা যে চ্যালেঞ্জে বিজয়ের ফলে সুযোগ-সুবিধা অনেক বাড়বে এবং সেগুলো সমাজের সব মানুষের কাছে চলে যাবে; শ্রেণী বিভাজনের সীমানাগুলো সব ভেঙে পড়বে। তার জন্য এগিয়ে আসার কথা ছিল মেধাবী এবং হৃদয়বান মানুষদের। কেবল মেধাবীরা এলেই কুলাতো না। শুধুমাত্র হৃদয়বানদেরকে দিয়েও কাজ হতো না। অত্যাবশ্যক ছিল মেধা ও হৃদয়ের মেলবন্ধনের। মেধাবানরা সাধারণত ধাবমান হন নিজেদের উন্নতির সিঁড়িগুলোর দিকে, যদি না তারা শঙ্কিত হন তাদের হৃদয়ানুভূতির দ্বারা; হৃদয় তখন বিবেকের কাজ করে। আমার এককালের ছাত্র ও পরে সহকর্মী অকাল প্রয়াত হুমায়ুন আজাদ ছিল একই সঙ্গে মেধাবান ও হৃদয়বান। সে খুব জোর দিয়ে মেধার কথা বলতো, এবং যে কোনো বিষয়ের বিবেচনার সময় মেধার প্রশ্নটাকে সামনে নিয়ে আসাটাকে প্রয়োজন মনে করতো। কিন্তু হুমায়ুন অত্যন্ত হৃদয়বানও ছিল, নইলে অমনভাবে লিখতো না, এবং সমাজ ও রাষ্ট্র যে নষ্টদের অধিকারে চলে যাচ্ছে সেটা দেখে অতটা পীড়িতবোধ করতো না। হৃদয়বান ছিল বলেই এই মেধাবীকে নষ্টদের হাতে ওই রকমের করুণ ও মর্মান্তিক পরিস্থিতিতে প্রাণ দিতে হলো।


মেধার বিষয়টা নিয়ে ভাববার অবকাশ রয়েছে। পাবলিক পরীক্ষায় দেখছি ছেলেমেয়েরা ভালো ফল করছে, কিন্তু তার ভেতর সমমাত্রায় দিয়ে যে মেধার উন্নতি ঘটছে এ ব্যাপারে নিশ্চিত হবার কোনো কারণ নেই। আর মেধার সঙ্গে হৃদয়ের যোগাযোগটা তো ক্রমশ বিরল হয়ে পড়ছে।

অন্যদিকে আবার এটাও সত্য যে, মেধার পাচার ঘটছে। বলতে গেলে সবকিছুই পাচার হচ্ছে, মেধাও বসে নেই। তবে না মেনে উপায় নেই যে, মেধার পাচার অন্য দ্রব্য ও পণ্য পাচারের তুলনায় অনেক বেশি ক্ষতিকর। প্রথম কথা, মেধা সহজপ্রাপ্য নয়, দ্বিতীয় কথা মেধার প্রয়োগের ভেতর সম্ভাবনা থাকে আমাদের সামাজিক রাজনৈতিক পরিস্থিতির মঙ্গলজনক পরিবর্তনের। তৃতীয়ত মেধাশূন্যতা যে হতাশা ও শূন্যতা তৈরি করে তা কোনো বিকল্পের দ্বারাই পূরণ করা সম্ভব নয়।

মেধার প্রসার দরকার, পাচার নয়। পাকিস্তান আমলে একটা আওয়াজ খুব শোনা যেতো হয় রফতানি করো নয় ধ্বংস হও। তখন বৈদেশিক মুদ্রা উপার্জনের প্রধান উপায় ছিল পাট রফতানি। বিদেশে তার চাহিদা ছিল। কিন্তু পাটের ওই রফতানিতে কৃষকের যে লাভ হয়েছে তা নয়, কৃষক গরিবই রয়ে গেছে। আর পাট বিক্রির টাকায় পাকিস্তানি শাসকেরা যে সব কাজ সম্পন্ন করেছে তার মধ্যে একটি ছিল সমরাস্ত্র ক্রয়। ওই সমরাস্ত্র পূর্ববঙ্গবাসীকে দমিয়ে রাখার এবং পরে পাখির মতো হত্যা করার কাজে ব্যবহৃত হয়েছে।

কিন্তু মেধা যদি ঘরের ভেতর আটকে রাখি তাহলে কি লাভ হবে? পচে না যাক, পঙ্গু ও অচল হয়ে পড়বে, এমনটাই আশঙ্কা। পরস্পরের সঙ্গে শত্রুতা বাধিয়ে মেধাবানরা দেশের এবং নিজেদের ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াবে এমন দুশ্চিন্তাকেও উড়িয়ে দেয়া যায় না। রাজনীতিতে এখন মেধাবানরা তেমন নেই। যে শাসক শ্রেণী এখন রাজনীতি করে তাদের ভেতর শত্রুতা যেমন আছে তেমন বন্ধুত্বও রয়েছে। এই বন্ধুত্ব জনগণের বিরুদ্ধে শত্রুতার কাজে লাগে। শাসক শ্রেণী আজ জনগণের বিরুদ্ধে চ্যালেঞ্জ হিসেবে দাঁড়িয়েছে। জনগণের পক্ষ থেকে সেই চ্যালেঞ্জের মোকাবিলা করার জন্য যে মেধাবী ও বিবেকবান মানুষদের দরকার ছিল তাদেরকে পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে কর্তৃত্ব চলে গেছে দুর্বৃত্তদের হাতে, যে কথা ওপরে উল্লেখ করেছি।

মেধাবানদের জন্য দেশে পর্যাপ্ত পরিমাণে এবং উপযুক্ত ধরনের কাজ নেই। অন্যদিকে রাষ্ট্র, বিদেশী কোম্পানি, পুঁজিবাদী বিশ্ব এবং ব্যবসা-বাণিজ্য তাদেরকে নির্মম হাতে টানছে। মেধাবান ও বিবেকবানেরা কোথায় গেল, ও প্রশ্নের জবাব হচ্ছে রাষ্ট্র ও সমাজ তাদেরকে দৃষ্টিশীল কাজ এবং সমাজ পরিবর্তনের কর্তব্যে মোটেই উৎসাহিত করছে না, উল্টোটাই বরং করে চলেছে। রাষ্ট্র ও সমাজ তখন ভয়ঙ্কররূপে পুঁজিবাদে দীক্ষিত। এই দীক্ষাটা আগেও ছিল। কিন্তু পুঁজিবাদের দোর্দ-প্রতাপ কখনোই আজকের মতো ছিল না, এবং দীক্ষিতরাও এতো বেশি অগ্রপশ্চাৎ বিবেচনাহীন হননি এখন যেমনটা হয়েছেন। আগের কালেও মেধাবানদেরকে রাষ্ট্র তার নিজের বলয়ের ভেতরে টেনে নিতো। যাতে তারা বামপন্থী না হয়ে যায়। এখনও নিচ্ছে। পাকিস্তানের সময়ে আমরা দেখেনি মেধাবান তরুণ বামপন্থীদের ওপর আমেরিকানরা চোখ রাখতো। মেধাবানরাই সাধারণত বাম দিকে ঝুঁকতো। আমেরিকানদের এই বুদ্ধিটা ছিল যে, ওই তরুণদেরকে দমনপীড়ন দিয়ে নিবৃত্ত করা যাবে না। গোঁয়ার গোবিন্দ রাষ্ট্র ওই পথ ধরুক। আমেরিকানরা উপায় ঠিক করেছিল তরুণদেরকে বৃত্তি দিয়ে নিয়ে যাবে তাদের দেশে, সুযোগ দেবে আত্মবিশ্বাসের ও উন্নতির, যাতে করে এই তরুণরা নিজেরা তো দীক্ষিত হবেই। অন্যদের সামনেও দৃষ্টান্ত তুলে ধরবে বিচ্যুত হয়ে উন্নতি করবার। তাদের ওই পন্থায় কাজ হয়েছে। উল্লেখযোগ্য সংখ্যক মেধাবী শিক্ষক ও সম্ভাব্য শিক্ষক সুযোগ পেয়েছেন আমেরিকা যাবার এবং নিজেদের বামপন্থী ঝোঁকটাকে নিজের হাতে দমন করবার। পাকিস্তান সরকারও জানতো যে, বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে মেধাবী তরুণদের লালনপালন ক্ষেত্র। তাই তারা সেখানে বামপন্থী শিক্ষকদের রাখাটা নিরাপদ মনে করতো না। তাদেরকে সিভিল সার্ভিসে চাকরি দিয়ে নিজেদের সরাসরি নিয়ন্ত্রণের মধ্যে রেখে দিতো। পাকিস্তানের এক আমলাতন্ত্রে বাঙালিদের সংখ্যা সীমিতই ছিল, কিন্তু সেই সীমিতদের ভেতর সাবেক বামপন্থী সংশ্লিষ্টদের অনুপাতের হারটা নিতান্ত নগণ্য ছিল না।

বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠার পরে জনগণ যে মুক্ত হয়েছে তা নয়, আসলে মুক্তি পেয়েছে পুঁজিবাদ। তাকে চ্যালেঞ্জ করবার মতো রাজনৈতিক শক্তি দেশে নেই, বুদ্ধিবৃত্তিক শক্তিরও বড় অভাব। কেননা মেধা পুঁজিবাদে দীক্ষিত হয়েছে। রাষ্ট্র যুদ্ধাপরাধের বিচার এখনো করতে পারেনি। কিন্তু পুঁজিবাদবিরোধীদের ওপর নির্বিচার দমনে কোনো প্রকার কার্পণ্য করেনি। রাষ্ট্রের দৃষ্টিতে প্রধান শত্রু তখনকার আলবদর রাজাকার বা এখনকার ইসলামী জঙ্গিরা নয়, এক নম্বর শত্রু হচ্ছে বামপন্থীরা। তাদেরকে যতভাবে পারা যায় নির্মূল করা হয়েছে। আর প্রকারান্তরে জঙ্গিরা পেয়েছে প্রশ্রয়। অন্যদিকে যারা একাত্তরের জনযুদ্ধের ফলে তৈরি সুযোগ-সুবিধাসহ দেশের সমুদয় সম্পদ লুণ্ঠনে এবং পাচারে উন্মাদ হয়ে উঠেছে তারা পরিণত হয়েছে রাষ্ট্রের হর্তাকর্তা বিধাতায়। তারা মেধাবীদের দেখলে বিরক্ত হয়, কেননা তাদের অন্য যা কিছুই থাকুক ভেতরে যে ওই বস্তুর অভাব রয়েছে সেই সত্যটাকে ইচ্ছা করলেও উপেক্ষা করতে পারে না, তাই অস্বস্তিতে পড়ে। মেধাবানরা চোখের সামনে থেকে তো বটেই, দেশ থেকেই যদি বিদায় হয়ে যায় তাহলে খুশি হয়। আর একই সঙ্গে মেধাবান ও হৃদয়বান এমন মানুষেরা তো তাদের দুচোখের বিষ; কেননা এরা হচ্ছেন ক্ষমতাবানদের জন্য জলজ্যান্ত চ্যালেঞ্জ। তাদেরকে নির্মূল করতে পারলে ভালো। না পারলে অবশ্যই জব্দ করা চাই।

মেধার যেখানে মূল্য নেই, মর্যাদা নেই, মেধাবানরা যেখানে উপেক্ষিত ও নিগৃহীত সেখানে মেধার প্রসার ঘটবে, কী করে। মেধা তাই পাচার হয়ে যাচ্ছে। একাত্তরের পরে আশা করা হয়েছিল যে, মেধাবানদের ডাক পড়বে, এবং একই সঙ্গে যারা মেধাবান ও হৃদয়বান তারা রাষ্ট্রীয়, সামাজিক ও পেশাগত জীবনে নেতৃত্ব দেবেন, দিয়ে দেশকে প্রকৃত গণতান্ত্রিক চরিত্রসম্পন্ন রূপে গড়ে তুলবেন। কিন্তু সেটা তো ঘটেনি। মেধাহীন ও হৃদয়হীনরাই কর্তা হয়েছেন।

মুক্তিযুদ্ধে যারা প্রত্যক্ষভাবে অংশ নিয়েছেন তাদের ভেতর অনেকেই মেধাবান ছিলেন। দৃষ্টান্ত দেয়া যেতে পারে। তাজউদ্দীন আহমদ বিরাট দায়িত্ব তুলে নিয়েছিলেন নিজের কাঁধে। সেটা তিনি দক্ষতার সঙ্গে পালন করেছেন। ভেবেছেন স্বাধীন বাংলাকে সাম্রাজ্যবাদের অধীন হতে দেবেন না। উভয় ক্ষেত্রেই তার মেধার পরিচয় স্পষ্ট। আবার যেমন কর্নেল তাহের। তিনি পাকিস্তান থেকে ছুটে এসে যুদ্ধে যোগ দেন, সম্মুখযুদ্ধে আহত হন, তার আত্মাহনন ঘটে। স্বাধীন দেশ সম্পর্কে তার একটা স্বপ্ন ছিল, সেই স্বপ্নের বাস্তবায়নে উদ্যোগী হয়েছেন; কিন্তু পরিণামে তাকে প্রাণ দিতে হয়েছে। সেক্টর কমান্ডার কর্নেল নুরুজ্জামানও সমাজবিপ্লবে বিশ্বাস করতেন। তিনি সংগঠন গড়তে ছেয়েছেন পত্রিকা প্রকাশ করেছেন। লিখেছেন, গবেষণা কেন্দ্র স্থাপন করেছেন কিন্তু সঙ্গী-সাথীদের কাছ থেকে তেমন সাড়া পাননি। কিছুদিন হলো তিনি আমাদেরকে ছেড়ে চলে গেছেন।

মেধা পাচারের একটি কারণ দেশের স্বাধীনতা মানুষকে বাইরে যাবার সুযোগ এনে দিয়েছে। এমন সুযোগ আগে কখনো ছিল না, যা কিছু সুযোগ আসতো পশ্চিম পাকিস্তানিরা দ্রুত গতিতে হস্তগত করে নিতো। তাতে আমরা ক্ষুব্ধ হয়েছি। পুঞ্জীভূত ক্ষোভের বিস্ফোরক ঘটেছে সত্তর-একাত্তরে। যুদ্ধ করে আমরা নতুন নতুন যেসব সুযোগ তৈরি করেছি, তাদের মধ্যে বহিরাগমন একটি। পুঁজিবাদী বিশ্বে চাহিদাও বেড়েছে। আমরা সরবরাহ করছি। দক্ষ-অদক্ষ সব রকমের মানুষ বিদেশে যাচ্ছেন আমাদের চিকিৎসক, শিক্ষক, প্রকৌশলী, বিজ্ঞানী, এঁরা বাইরে গিয়ে দক্ষতার পরিচয় দিচ্ছেন। তারা যদি দেশে থেকে কাজ করবার সুযোগ পেতেন, পশ্চাৎপদতার যে চ্যালেঞ্জটা রয়েছে সেটার মোকাবিলা করতেন তাহলে দেশবাসীর মঙ্গল হতো। কিন্তু দেশে কাজের অভাব। কাজ অবশ্য ফলবান বৃক্ষের ফল নয় যে আপনাআপনি ফলবে। কাজও তৈরি করার ব্যাপার বটে। কিন্তু একা তৈরি করা যায় না। সমবেত উদ্যোগের দরকার হয়। তার বড় অভাব। রাষ্ট্র উদাসীন। সমাজ শক্তিহীন। ব্রেইন ড্রেইন্ড হবে না তো কী ড্রেনে গড়াগড়ি খাবে_ এ প্রশ্নটা ওঠা অসঙ্গত নয়। সেটা ওঠে। একটার বিপরীতে অপরটি দাঁড়িয়ে আছে। অস্তিত্ববাদী সমস্যার মতো, হ্যাঁ বা না, ব্রেইন বিদেশে ড্রেইন হবে, নয়তো দেশের ড্রেনে পড়ে খাবি খাবে। এই দুই ড্রেনের কোনোটিই ভালো নয়, পাচার হওয়াটা খারাপ, নর্দমায় পড়ে নাকাল হওয়াটাও খারাপ।

কর্মের সৃষ্টি দরকার। আর তার জন্য ব্রেইন চাই। ব্রেইন ড্রেইন্ড হয়ে যাওয়ার দরুন সমস্ত দেশ এখন নর্দমায় পরিণত হতে চলেছে। নর্দমাকে নদীতে পরিণত করা একটা মস্ত বড় চ্যালেঞ্জ বৈকি। এই চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি দাঁড়াবার জন্য মেধার প্রয়োজন। একার মেধা নয়, সকলের মেধাকে একত্র করা আবশ্যক। তার সঙ্গে দরকার হবে দেশপ্রেমের এবং গণতান্ত্রিক চেতনার। গণতান্ত্রিক চেতনাও চাই, নইলে উন্নতি হবে কতিপয়ের, এবং কতিপয়ের সে উন্নতি কাঁধে চেপে বসবে বাদবাকি সকলের; এখন যেমনটা বসেছে। মেধাবানরা একত্র হয়ে দাঁড়ালে এ দেশবাসীর ইতিহাস নর্দমাক্ত হবার হাত থেকে রক্ষা পেতো।

জনসংখ্যা বাড়ছে, কিন্তু মেধাবীরা সংখ্যায় বাড়ছে এমন প্রমাণ পাওয়া যায় না। পাকিস্তান আমলে এক সময়ে জনসংখ্যা বৃদ্ধির বিপদ সম্পর্কে বেশ একটা সচেতনতা দেখা দিয়েছিল। আমার বন্ধু আমীর আলীর একটি মন্তব্য মনে পড়ে। তিনি বলেছিলেন, পরিবার পরিকল্পনা যা ঘটবার ঘটেছে বিত্তবানদের মধ্যই; গরিব মানুষদের ঘরে তো সন্তান বৃদ্ধির কোনো বিরাম নেই; বন্যার মতো হু হু করে বেড়েই চলেছে, এমনটা হলে তো দেখা যাবে দেশে একটা অকার্যকর জনগোষ্ঠী তৈরি হচ্ছে। আশঙ্কাটা ছিল এই রকমের যে মানুষ বাড়বে ঠিক; কিন্তু তারা মেধাবান হবে না, মেধার জন্য অর্থনীতির সমর্থন চাই, গরিব মানুষের জন্য তো সেই সমর্থনটি নেই। আমীর আলী নিজেই এখন বিদেশবাসী; অনেকটা ডিগ্রি সংগ্রহ করেছেন, বিস্তর পড়ালেখা করেছেন, লিখেছেনও অল্পবিস্তর কিন্তু সেই যে বিলেতে চলে গেলেন ১৯৬২-তে তারপর আর ফেরত এলেন না। মুক্তিযুদ্ধের সময় বেশ কাজ করেছেন। আশা ছিলো চলে আসবেন। পারলেন না। এমনটাই হয় ইচ্ছে থাকলেও ফেরা হয় না। ফিরলে আমাদের সমষ্টিগত চ্যালেঞ্জটির মুখোমুখি দাঁড়ানোর কাজে অংশ নিতে পারতেন। অন্যদেরকেও অনুপ্রাণিত করতে পারতেন। দেশপ্রেম দেশের দিকে টানে কিন্তু অন্য বাধাগুলো আটকে রাখে।

মেধা জিনিসটা কিছুটা জন্মগত, কিন্তু তার বিকাশ বেশির ভাগই নির্ভর করে অনুশীলনের ওপর। মেধাবানরা পরস্পর পরস্পরকে সাহায্য করেন। সহযোগিতা দেন। তাদের ভেতর প্রতিযোগিতা ও প্রতিদ্বন্দ্বিতা থাকে অবশ্যই। থাকাটা স্বাভাবিক এবং বাঞ্ছনীয়। কে না ওই প্রতিদ্বন্দ্বিতা অবৈরী স্বভাবের, এ ধ্বংস করে না, শানিত করে। মেধাবানরা দেশে এলে মেধাবিকাশে সহায়তা পাওয়া যেতো।


চ্যালেঞ্জটা তো রয়েই গেছে। মস্ত বড় চ্যালেঞ্জ। সেটা হলো দেশের মানুষকে মুক্ত করা। যার জন্য প্রয়োজন সমাজবিপ্লবের। এর জন্য যে শক্তি আবশ্যক সেটা নানাদিক থেকে আসে। নানা স্রোতে প্রবাহিত হয়। কিন্তু মিলে যায় এক মোহনায়, সেটা হলো সমাজে বৈপ্লবিক পরিবর্তন ঘটানো। সেটা আমরা করতে পারিনি।

সাতচলি্লশে যখন দেশভাগ হলো, তখন পূর্ব বঙ্গবাসী টের পেলো যে, তারা খুব বড় একটা চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছে। আর সেটা এসেছে দেশের নবীন শাসকদের কাছ থেকেই। অর্থনৈতিক দুর্দশা দেখা দিয়েছিল। ছিল সাংস্কৃতিক চ্যালেঞ্জও।

বাঙালিকে তার বাঙালিত্ব ভুলিয়ে দেবার চেষ্টা হয়েছে। সেই সাংস্কৃতিক চ্যালেঞ্জের কালটাতে মেধাবান অনেককে দেখা গেছে রাষ্ট্রীয় উদ্যাগের সঙ্গে হাত মেলাতে। কারণ ছিল প্রলোভন। স্বাধীনতা এদের জন্য সুযোগ তৈরি করেছিল শাসকদের সঙ্গে সহযোগিতার মধ্য দিয়ে নিজ নিজ আখের গুছিয়ে নেবার। কিন্তু অন্যরাও ছিলেন যারা বাঙালিত্বের পক্ষে দাঁড়িয়েছেন। এদের মধ্যে রাজনীতিকরা ছিলেন, ছিলেন লেখক-শিল্পী-বুদ্ধিজীবীরা।

পাকিস্তানে ধর্মের নামে ব্যবসা চলবে এ সত্যটা সৈয়দ ওয়ালিউল্লাহ দেখতে পেয়েছিলেন। পাকিস্তানের জন্মের সঙ্গে সঙ্গেই তার লালসালু, উপন্যাসে সেই আকাঙ্ক্ষার ছবি অাঁকা হয়েছিল। শিল্পকলার ক্ষেত্রে জয়নুল আবেদিন এবং তার সহকর্মীরা ছিলেন। ছিলেন লেখক, কবি ও সাংবাদিক; তারা পাকিস্তানিদের চ্যালেঞ্জের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছেন, নিজস্ব সৃষ্টি নিয়ে। শিল্পীদের মধ্যে দুজন ছিলেন মোহাম্মদ কিবরিয়া ও আমিনুল ইসলাম, শিল্পচর্চাকে যারা আন্তর্জাতিকতায় স্থান সমৃদ্ধ করেছিলেন কিছুদিন হলো তারা উভয়েই চলে গেছেন, কিন্তু চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত রেখে গেছেন আমাদের জন্য।

পাকিস্তানিরা বলতো বাংলা সাহিত্যের সবটাই হিন্দুতে সৃষ্টি। হিন্দু বুদ্ধিজীবী মহল থেকেও ওই রকমের দাবি করা হয়েছিল। আবদুল করিম সাহিত্য বিশারদ পুঁথি সাহিত্যের বিরাট সংগ্রহের মধ্য দিয়ে প্রমাণ করলেন যে, মুসলমানরাও সাহিত্য সৃষ্টি করেছে, তাদের নিজেদের মতো করে। তার ভ্রাতুষ্পুত্র আহমদ শরীফ পিতৃত্বের সংগৃহীত পা-ুলিপির সম্পাদনা করে মধ্যযুগে বাংলা সাহিত্যে মুসলিম চর্চার অধ্যায়টিকে আলোকিত করে তুলেছিলেন। তিনি আজ নেই, কিন্তু তার কাজ এবং শ্রম ও অনুশীলনের দৃষ্টান্ত রয়ে গেছে।

চ্যালেঞ্জ ছিল পাঠ্যপুস্তক প্রণয়নের এবং বিভিন্ন ভাষা থেকে বইপত্র অনুবাদের। দুটো চ্যালেঞ্জই গ্রহণ করা হয়েছিল। অনুবাদের ক্ষেত্রে বিশেষভাবে ব্রতী ছিলেন সরদার ফজলুল করিম ও কবীর চৌধুরী; তারা উভয়েই এখনো আমাদের মধ্যে আছেন। আরেকজনের কথা উল্লেখ করতে হয়, যিনি সদ্যপ্রয়াত হয়েছেন। ইনি খালেদ চৌধুরী। কিছু অনুবাদ করেছেন, আরো অনেক করতে পারতেন, যদি সমর্থন ও সহযোগিতা পেতেন। সৃষ্টির কাজে আনুকূল্য জিনিসটা খুবই প্রয়োজনীয়। আমরা কাজী নজরুল ইসলামের কথা স্মরণ করতে পারি। তিনি যখন অত্যন্ত বেগবান, দুকূল প্লাবিত করে চলেছেন, তখন তার পেছনে সমর্থন ছিল তখনকার দিনে গড়ে ওঠা বাম আন্দোলনের। পরে আন্দোলন তার বিকাশকে অব্যাহত রাখতে পারেনি। অন্যদের সাম্প্রদায়িকতা এবং নিজেদের দিগভ্রান্তির কারণে বাম আন্দোলন কিছুটা স্তিমিত হয়ে এসেছিল। বিরূপ প্রতিক্রিয়াটা নানা ক্ষেত্রে গিয়ে পড়েছে, দেখা গেছে নজরুলের ক্ষেত্রেও। তিনি যে মাঝপথে হঠাৎ স্তব্ধ হয়ে গেলেন তার একটা কারণ অবশ্যই যে আন্দোলন একদা তাকে সমর্থন দিয়েছিল তা স্তিমিত হয়ে যাওয়া।

খালেদ চৌধুরী খাঁটি বাঙালি ছিলেন। পাকিস্তানিদের সাংস্কৃতিক আগ্রাসনের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছিলেন, কিন্তু অনেকটা একাকী। আর কোনো সংগঠন ছিল না। আত্মপ্রতিষ্ঠার মোহ তাকে পরিচালিত করেনি। শুদ্ধ বাংলার ব্যাপারে উচ্চারণ বাকভঙ্গি, শব্দচরণ সবক্ষেত্রেই তিনি দৃষ্টান্ত ছিলেন। বই পড়তেন সর্বদাই। জ্ঞানান্বেষণে বিরাম ছিল না। এই কিছুদিন হলো তিনি চলে গেলেন প্রায় নীরবে। তার সম্বন্ধে খবরের কাগজে লেখা হয়নি। একটি অন্তত আন্তরিকতাপূর্ণ স্মরণসভা অনুষ্ঠিত হয়েছিল। সেটির খবরও পত্রিকায় আসেনি। খালেদ চৌধুরীর মতো মানুষ আর আসবেন না।

যখন আমরা পাবো না আকেরজন অধ্যাপক আবদুর রাজ্জাককে। তিনিও নিভৃতে থাকতেন, পড়তেন, কেবল জ্ঞানী ছিলেন না, ছিলেন প্রজ্ঞাবান। নিজে তেমন একটা লেখেননি, কিন্তু সব সময়েই অন্যদেরকে অনুপ্রাণিত করতেন লিখতে ও গবেষণা করতে।

সেকালে এ ধরনের মানুষ মফস্বল শহরেও পাওয়া যেত। যেমন ছিলেন আরজ আলী মাতুব্বর। একাকী কাজ করেছেন, বড় কাজ নয় হয়তো, কিন্তু সাহসী কাজ। প্রচলিত ধ্যানধারণাকে তিনি প্রশ্ন করেছেন, এবং প্রশ্নের মধ্য দিয়ে তাদের অন্তঃসারশূন্যতাকে উন্মোচিত করে দিয়েছেন।


এখন পুঁজিবাদের দুঃসহ নিষ্পেষণ চলছে। মানুষ ব্যস্ত ও বিচ্ছিন্ন। কিন্তু পুঁজিবাদের এই চ্যালঞ্জটাকে যদি পরাভূত না করা যায় তাহলে তো মুক্তি নেই। পুঁজিবাদ প্রকৃতিকে বিপর্যস্ত করছে, পাচার করছে সম্পদ এবং আমাদেরকে এমন সব মানুষের অধীনে ন্যস্ত করছে যাদের না আছে মেধা, না আছে হৃদয়। সেই সঙ্গে পুঁজিবাদ আমাদেরকে নিরুৎসাহিত করছে মাতৃভাষার চর্চায়। দেশের শাসক শ্রেণী এই দেশের বর্তমান ও ভবিষ্যতের জন্য মস্ত এক চ্যালেঞ্জ। শাসকদের ভেতর ক্ষমতা ও সম্পদের ভাগাভাগি নিয়ে বিস্তর ঝগড়াফ্যাসাদ রয়েছে, কিন্তু সেটা আত্মীয়দের ভেতর কলহমান, জনগণের সঙ্গে স্বার্থের বৈরিতার ক্ষেত্রে তারা একবারেই হরিহর আত্মা। যেমন দেখা যায় যে, আমাদের গ্যাস-তেল-খনিজ-সম্পদ-বন্দর-বিদ্যুৎ এগুলোকে বিদেশীদের হাতে তুলে দেবার ব্যাপারে তাদের দুপক্ষের কোনো পক্ষেরই অনীহা নেই, বরঞ্চ প্রতিযোগিতামূলক আগ্রহ রয়েছে। সম্প্রতি ওইসব সম্পদ রক্ষার দাবিতে গঠিত জাতীয় কমিটি মাত্র ছয় ঘণ্টার যে একটি হরতাল ডেকেছিল তাতেই উৎকণ্ঠিত হয়ে সরকার হরতালের পিকেটারদের ওপর প্রহার ও গ্রেফতারের কোনোটাই বাদ রাখেনি। সরকারের দিক থেকে এটা মোটেই অস্বাভাবিক কর্ম নয়। এটা করা তাদের কর্তব্য বটে। কিন্তু প্রধান বিরোধী দল যারা সরকারবিরোধী যে কোনো হরতালকেই আগ বাড়িয়ে সমর্থন দিয়ে থাকে, তারা দেখা গেলো এই হরতালকে সমর্থন করেনি। আর সমর্থন না করার অর্থ যে বিরোধিতা করা সেটা বুঝতে তো কোনো অসুবিধা নেই। এক্ষেত্রে বিদেশী প্রভুদেরকে সন্তুষ্ট রাখার যে বেড়ালটা থলের ভেতর আত্মগোপন করেছিল সেটি বেশ জোরেই ডাক ছেড়েছে।

আসল শত্রুটা হচ্ছে পুঁজিবাদ। সেই হচ্ছে সকল নষ্টের গোড়া। আমাদের রাষ্ট্র, তার শাসক, সমাজ সবকিছুই পুঁজিবাদী আদর্শে ও পদ্ধতিতে পরিচালিত, পুঁজির জন্য এবং সামাজিক বিপ্লবের প্রয়োজনে পুঁজিবাদের বিরুদ্ধে দাঁড়াতে হবে। দাঁড়াবেন তারা যারা মেধাবান ও হৃদয়বান, দাঁড়াবেন জনগণের সঙ্গে মিলিত হয়ে ঐক্যবদ্ধরূপে। আন্দোলনটা হবে যেমন রাজনৈতিক তেমনি সাংস্কৃতিক। পুঁজিবাদবিরোধী রাজনৈতিক আন্দোলনের জন্য শাসক শ্রেণীর সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করে তাদের বিরুদ্ধেই দাঁড়াতে হবে। অতীতে ছাত্ররা রাষ্ট্রীয় অন্যায়ের বিরুদ্ধে দাঁড়াতো, কিন্তু এখন আর তেমনভাবে দাঁড়ায় না। তার কারণ ছাত্র আন্দোলন এখন শাসক শ্রেণীর নিয়ন্ত্রণে চলে গেছে। শাসকদের একাংশ অপরাংশের বিরুদ্ধে ছাত্রদেরকে কাজে লাগায়। ব্রিটিশ ও পাকিস্তান আমলে ছাত্রদের আন্দোলন ছিল রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে, এখন তা হবার উপায় নেই। কিন্তু ছাত্ররা পারে পুঁজিবাদের বিরুদ্ধে দাঁড়াতে। তারা দাঁড়াবেও যদি হৃদয়বান মেধাবী মানুষেরা তাদরেকে সচেতন করেন।

ছাত্রদের ভেতর থেকেই ভবিষ্যতের নেতারা বের হয়ে আসবে। এটাই স্বাভাবিক নিয়ম। কিন্তু এখন তা ঘটছে না। তার কারণ পুঁজিবাদবিরোধী ছাত্র আন্দোলন প্রবল নয়; আর অন্য যে আন্দোলন, যাকে ছাত্র রাজনীতি বলে অভিহিত করা হয় সেটি তো বড় দুই দলের অঙ্গ সংগঠন মাত্র, মস্তিষ্ক বিঘি্নত হয়ে রয়েছে দলীয় রাজনীতির যারা নেতা তাদের হাতে, এবং ওই নেতারা তো অসংশোধনীয়রূপেই পুঁজিবাদী। নতুন নেতৃত্ব তৈরির অপর পথটি হচ্ছে শিল্পপ্রতিষ্ঠানে নিয়মিত ছাত্র সংসদীয় নির্বাচন। প্রতিবছর যদি নির্বাচন হয় তাহলে শিক্ষার্থীরা অংশ নেবে, রাজনীতি সচেতন হয়ে উঠবে এবং মেধাবান ছেলেমেয়েরাই নির্বাচিত হয়ে আসবে, ভবিষ্যতে যারা সমাজ ও রাষ্ট্রের বিভিন্ন ক্ষেত্রে নেতৃত্ব দিতে পারবে। নির্বাচন হলে আরো একটি লাভ হবে। সেটি হলো শিক্ষাঙ্গনে সুষ্ঠু সাংস্কৃতিক জীবনের বিকাশ ঘটবে। মেধার লালনপালনের জন্য সংস্কৃতিচর্চা একেবারেই অপরিহার্য। কিন্তু ছাত্র সংসদীয় নির্বাচন তো হয় না। বিশেষভাবে হওয়া প্রয়োজন বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে। সেখানেই দেখা যায় বছরের পর বছর কেটে যাচ্ছে, কিন্তু নির্বাচন নেই। ফলে প্রবাহ থাকে না। নতুন নেতৃত্ব সৃষ্টির পথে অনেকটাই অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে।

মোট কথাটা এই যে, চ্যালেঞ্জ আর খুব বড় রকমের চ্যালেঞ্জ, কিন্তু সেটা আমরা গ্রহণ করছি না। অতীতে মনে হয় গ্রহণ করেছিলাম, কিন্তু আসলে করিনি। অতীতেও রাজনৈতিক আন্দোলন ছিল জাতীয়তাবাদী, জাতীয়তাবাদী আন্দোলন উপনিবেশবাদবিরোধী ছিল, কিন্তু তার নেতৃত্ব ছিল পুঁজিবাদে আস্থাশীল। পুঁজিবাদ আজ যে এতটা মুক্ত তার কারণ পুঁজিবাদে বিশ্বাসী নেতৃত্ব। এই নেতৃত্বও একটা চ্যালেঞ্জ বটে, দেশের ভবিষ্যতের জন্য।

ডেসটিনি

Leave a Reply