মেয়র খোকার বিরুদ্ধে একশ’ কোটি টাকার দুর্নীতির মামলা হচ্ছে

বিএম জাহাঙ্গীর
ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের (ডিসিসি) মেয়র সাদেক হোসেন খোকার বিরুদ্ধে সরকার ১০০ কোটি টাকার উপরে দুর্নীতির মামলা করতে যাচ্ছে। বেসরকারি সংস্থার অর্থায়নে পিপিপি (পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপ) ভিত্তিতে গুলশানে সিটি ট্রেড সেন্টার নির্মাণে বাজার মূল্যের চেয়ে কম শেয়ারে চুক্তি করায় এ মামলা করা হচ্ছে। গুরুতর এ অনিয়মের বিষয়ে মামলা করার জন্য স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে শিগগিরই দুর্নীতি দমন কমিশনকে চিঠি দেয়া হবে। ইতিমধ্যে এ বিষয়ে মন্ত্রণালয়ের তথ্যানুসন্ধানসহ সার্বিক প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের হিসাব অনুযায়ী কম শেয়ারে চুক্তি করায় ডিসিসি’র কমপক্ষে দেড়শ’ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। অভিযোগের বিষয়ে ঢাকা সিটি মেয়র সাদেক হোসেন খোকা যুগান্তরকে বলেন, প্রচলিত নিয়ম-কানুন মেনে স্বচ্ছতার ভিত্তিতে এ চুক্তি করা হয়েছে। এখানে মন্ত্রণালয়েরও সম্মতি রয়েছে। বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ে এ নিয়ে অনেক তদন্তও হয়েছে। কিন্তু কেউ কোন অনিয়ম বের করতে পারেনি। তিনি বলেন, এটা তাকে নিছক রাজনৈতিকভাবে হয়রানি করা ছাড়া আর কিছু নয়। এ প্রসঙ্গে স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব আবু আলম শহিদ খান যুগান্তরকে বলেন, বিষয়টি নিয়ে তিনি এ মুহূর্তে কোন মন্তব্য করতে চান না। তবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় সরকার বিভাগের একজন পদস্থ কর্মকর্তা বলেন, একটি চক্র মোটা অংকের অলিখিত কমিশন নিয়ে কম শেয়ারে মার্কেট নির্মাণের এ চুক্তি সম্পন্ন করেছে। যে কারণে প্রথম সর্বোচ্চ দরদাতা মার্কেটটি নির্মাণ থেকে সরে আসার পর পুনঃদরপত্র আহ্বান না করে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দরদাতাকে দেয়া হয়েছে। ছয় বছর আগের বাজার দরের হিসাবে এখন চুক্তি করা হয়েছে। চুক্তির ক্ষেত্রে বিদ্যমান বাজার মূল্য বিবেচনা করতে মন্ত্রণালয় শর্ত বেঁধে দিলেও তা মানা হয়নি।

চুক্তি হল যেভাবে : ডিসিসির জায়গায় বেসরকারি সংস্থার অর্থায়নে আধুনিক মার্কেট নির্মাণের জন্য ঢাকা সিটি কর্পোরেশন ২০০৩ সালে দরপত্র আহ্বান করে। তিনটি প্রতিষ্ঠান দরপত্রে অংশ নেয়। দরপত্র মূল্যায়ন কমিটি বসুন্ধরা সিটি ডেভেলপমেন্ট লিমিটেডকে গ্রহণযোগ্য সর্বোচ্চ দরদাতা মনোনীত করে। ওই বছর ১৬ জুন প্রতিষ্ঠানটিকে এ বিষয়ে সম্মতিপত্র দেয়া হয়। কিন্তু সংশ্লিষ্ট জায়গায় থাকা দোকানদাররা এ মার্কেট নির্মাণের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়। তাদের বিক্ষোভের মুখে বসুন্ধরা গ্র“প দুই বছর চেষ্টা চালিয়েও কাজ শুরু করতে পারেনি। একপর্যায়ে বসুন্ধরা গ্র“প ২০০৫ সালের মার্চ মাসে কাজ না করার সিদ্ধান্তের কথা ডিসিসিকে জানিয়ে দেয়। এরপর ডিসিসি পুনঃদরপত্র আহ্বান না করে আগের দরপত্রের দ্বিতীয় অবস্থানকারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স আমিন অ্যাসোসিয়েটস ওভারসিজ কোম্পানি লিমিটেডকে ২৭% শেয়ার দিয়ে কাজ করতে অনুরোধ জানিয়ে চিঠি দেয়। তারা এ প্রস্তাব গ্রহণ করে ২৪ মার্চ সম্মতিপত্র পাঠিয়ে দেয়। ওই বছর ৮ নভেম্বর ডিসিসি পিপিপি (পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপ) বিধিমালা জারি করে। বিধিমালা অনুযায়ী টিইসি (কারিগরি মূল্যায়ন কমিটি) দরপত্র পর্যালোচনা করে গুলশান সিটি ট্রেড সেন্টার নির্মাণে বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান আমিন অ্যাসোসিয়েটের শেয়ার ৭৩% এবং ডিসিসির শেয়ার ২৩% নির্ধারণের সুপারিশ করে। অর্থাৎ মার্কেট নির্মাণ শেষ হওয়ার পর মোট দোকানের ২৩% পাবে ডিসিসি এবং ৭৩% পাবে আমিন অ্যাসোসিয়েটস। ২০০৬ সালের জুন মাসে টিইসি’র এ সুপারিশ সিটি মেয়র অনুমোদন করে মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়ে দেন। তৎকালীন বিএনপি সরকারের শেষদিকে স্থানীয় সরকার বিভাগ ডিসিসি’র এ প্রস্তাবে চূড়ান্ত অনুমোদন প্রদান করে। এরপর ২৫ সেপ্টেম্বর এ বিষয়ে ডিসিসি ও আমিন অ্যাসোসিয়েটসের মধ্যে চুক্তি সম্পাদিত হয়। চুক্তি অনুযায়ী নির্মাতা প্রতিষ্ঠান মার্কেট নির্মাণের জায়গায় বিদ্যমান ব্যবসায়ীদের জন্য অস্থায়ী শেড নির্মাণ করে দেয়। কিন্তু বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় ২০০৭ সালের ৮ ফেব্র“য়ারি রাজউকের ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে তা ভেঙে ফেলা হয়। এ কারণে তারা মার্কেট নির্মাণের সব প্রস্তুতি নিয়ে মাঠে নামলেও শেষ পর্যন্ত কাজ শুরু করতে পারেনি। পরবর্তীতে ডিসিসির শেয়ার বৃদ্ধি করে পুনঃচুক্তি করতে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে বৈঠক বসে। বর্তমান সরকারের সময়ে এসে ২০০৯ সালের ৪ এপ্রিল মূল্যায়ন কমিটির এক সভায় ডিসিসির শেয়ার ২৭% থেকে ৩৭% উন্নীত করা হয়। সে আলোকে নতুন করে চুক্তির খসড়া প্রস্তুত করা হয়। ডিসিসি প্রস্তাব অনুমোদন করার পর তা চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য স্থানীয় সরকার বিভাগে পাঠিয়ে দেয়। স্থানীয় সরকার বিভাগ শর্তসাপেক্ষে গত বছর ১০ মে প্রস্তাব অনুমোদন করে। এরপর ডিসিসি চুক্তি করতে ৫ মাস বিলম্ব করায় নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হাইকোর্টে রিট করে। হাইকোর্ট গত ১০ অক্টোবর এক আদেশে ২০ দিনের মধ্যে চুক্তি করার আদেশ দিলে ১৫ নভেম্বর ডিসিসি নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি সম্পন্ন করে।

অনিয়ম চিহ্নিত : স্থানীয় সরকার বিভাগ মার্কেট নির্মাণে চুক্তির ক্ষেত্রে প্রধানত চারটি অনিয়ম চিহ্নিত করেছে। প্রথমত, পুনঃদরপত্র আহ্বান না করে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দরদাতাকে নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হিসেবে মনোনীত করা। মন্ত্রণালয় মনে করে, প্রথম দরপত্র আহ্বানের দুই বছর পর আবার দরপত্র আহ্বান করা হলে স্বাভাবিকভাবে বেশি শেয়ারের প্রস্তাব পাওয়া যেত। দ্বিতীয়ত, বাজার মূল্য ও বাস্তবতার বিবেচনায় যেখানে কমপক্ষে ৫০% শেয়ারে এ মার্কেট নির্মাণ করা সম্ভব ছিল সেখানে ৩৭% শেয়ারে দেয়া হয়েছে। ফলে দোকান ও অফিস ফ্লোরের বণ্টন থেকে ডিসিসি ১৩% কম সুবিধা পাবে। তৃতীয়ত, বাজার মূল্যের চেয়ে চুক্তিতে জমির দামও অনেক কম ধরা হয়েছে। যে কারণে ডিসিসি পারফরমেন্স গ্যারান্টির টাকা অনেক কম পেয়েছে। গুলশানে সংশ্লিষ্ট এলাকায় প্রতি কাঠা জমির মূল্য সর্বনিু ২ থেকে ৩ কোটি টাকা পর্যন্ত হলেও চুক্তিতে জমির মূল্য ধরা হয়েছে ১ কোটি ৩০ লাখ টাকা। চতুর্থত, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় বিদ্যমান বাস্তবতা ও বাজার মূল্যের আলোকে এবং সিটি কর্পোরেশনের সব স্বার্থ অক্ষুণœ রেখে চুক্তি করার শর্ত আরোপ করলেও ডিসিসি তা অনুসরণ করেনি।

আর্থিক ক্ষতি : স্থানীয় সরকার বিভাগের হিসাবে ডিসিসি ৭ বছর আগের বাজার মূল্য বিবেচনায় নিয়ে চুক্তি করায় সরকার তথা ডিসিসি’র কমপক্ষে দেড়শ’ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। বর্তমানে যেখানে ৬০% (সরকার)-৪০% (বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান) পাওয়ার কথা, সেখানে শেয়ার ধরা হয়েছে ৩৭%-৬৩%। উপরন্তু যদি ডিসিসি’র শেয়ার ৫০% ধরা হয় সেক্ষেত্রে ১৩% লোকসান হয়েছে। এর ফলে যেখানে মোট দোকান পাওয়ার কথা ১ হাজার ১২টি সেখানে ডিসিসি এখন দোকান পাবে ৭৮৬টি। এ হিসাবে ২২৬টি দোকান কম পাবে। প্রতিটি দোকানের পজেশন বিক্রি মূল্য বর্তমান বাজার অনুযায়ী ৩০ লাখ টাকা করে ধরলে ক্ষতির পরিমাণ ৬৭ কোটি ৮০ লাখ টাকা। কিন্তু বাস্তবে মার্কেটের নির্মাণ শেষ হবে ৩-৪ বছর পর। সেসময় এসব দোকানের বিক্রি মূল্য ৪০ লাখ টাকা ছাড়িয়ে যাবে। সম্ভাব্য এ হিসাব ধরলে শুধু দোকান খাতেই লোকসানের পরিমাণ ৯০ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে। এছাড়া আটতলা মার্কেটের উপরে পাঁচতলার পৃথক তিনটি টাওয়ার থাকবে। যেখানে অফিস ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান ভাড়া দেয়া হবে। এখানেও ১৩% কম শেয়ার হিসাব করলে কমপক্ষে আরও ৫০ কোটি টাকার ক্ষতি হবে।

ডিসিসির বক্তব্য : ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (অতিরিক্ত সচিব) আবুল কালাম আজাদ যুগান্তরকে বলেন, চুক্তি সম্পাদনের ক্ষেত্রে কোন অনিয়ম করা হয়নি। হাইকোর্টের রায় পাওয়ার পর এ বিষয়ে ডিসিসি’র আইন বিভাগের মতামত নিয়ে চুক্তি করা হয়েছে। আইন বিভাগের মতামতে আপিল করার কথা বলা হয়নি। বরং বলা হয়েছে, কোন ধরনের সময় ক্ষেপণ ছাড়াই দ্রুত রায় বাস্তবায়ন করতে হবে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ২০০৫ সালে কেন পুনঃদরপত্র আহ্বান করা হয়নি তা তার পক্ষে বলা সম্ভব নয়। ওই সময় তিনি এখানে কর্মরত ছিলেন না।

নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের বক্তব্য : আমিন অ্যাসোসিয়েটসের এমডি কবীর আহমেদ ভূঁইয়া বলেন, ডিসিসিকে যে শেয়ার দেয়া হয়েছে তা বাস্তবতার চেয়ে অনেক বেশি। তিনি বলেন, মার্কেটস্থলে বহু দোকানদারের পুনর্বাসনের দায়িত্বসহ নানা ঝামেলা তাকে ফেস করতে হচ্ছে। এ ঝামেলার দায়িত্ব ডিসিসি নিলে তিনি ৫০% শেয়ারে কাজ করতে রাজি আছেন। এক প্রশ্নের জবাবে কবির আহমেদ বলেন, চুক্তি হয়েছে ২০০৫ সালে। তাই ২০১০ সালের হিসাবে কথা বললে হবে না। তিনি বলেন, চুক্তি হলেও এখনও তাকে সরেজমিন জায়গা হস্তান্তর করা হয়নি। যে কারণে তিনি আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।

নির্মাণ ব্যয় : গুলশান-১ এ ঢাকা সিটি কর্পোরেশন মার্কেটের পাশে স্থাপিত হবে গুলশান সিটি ট্রেড সেন্টার। এখানে বর্তমানে ডিসিসির একটি পাকা মার্কেটসহ কাঁচাবাজার ও কিছু খোলা জায়গা রয়েছে। ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের দেয়া ৭ বিঘা জমির ওপর ১৪ তলার বিশাল মার্কেট নির্মাণ করবে মেসার্স আমিন অ্যাসোসিয়েটস ওভারসিজ কোম্পানি লিমিটেড। মার্কেটটি নির্মাণে ব্যয় হবে ৬০০ কোটি টাকার ওপরে। আটতলা পর্যন্ত একটি কমন মার্কেট নির্মিত হবে। এর উপরে পাঁচতলার তিনটি দর্শনীয় পাঁচতলা টাওয়ার থাকবে। এটি নির্মিত হবে ১৪ লাখ ৬৬ হাজার ১৫৫ স্কয়ার ফিট জায়গাজুড়ে। মোট দোকান হবে ২ হাজার ২৪টি। এর মধ্যে ৩৭% শেয়ার অনুযায়ী ডিসিসি পাবে ৭৮৬টি এবং অবশিষ্ট ৬৩% শেয়ারের বিপরীতে নির্মাতা প্রতিষ্ঠান পাবে ১ হাজার ৩৩৮টি দোকান। নির্মাতা প্রতিষ্ঠান এককালীন দোকান বিক্রি করে তাদের বিনিয়োগসহ লভ্যাংশ তুলে নিয়ে যাবে। তবে সব দোকানের ভাড়া আজীবন নিতে পারবে ডিসিসি। নকশা অনুমোদনের পর নির্মাণকাজ শুরু করার ৩৬ মাসের মধ্যে কাজ শেষ করতে হবে। নির্মাতা প্রতিষ্ঠান চুক্তির শর্ত অনুযায়ী পিজি বা পারফরমেন্স গ্যারান্টি হিসেবে ২০১০ সালের ২৯ নভেম্বর ডিসিসি’র অনুকূলে ২৬ কোটি ৪০ লাখ টাকা প্রদান করেছে।

যুগান্তর

Leave a Reply