দেশ পরিচালনায় সরকার ব্যর্থ, মধ্যবর্তী নির্বাচনের দাবি যৌক্তিক

মাহি বি চৌধুরী
একান্ত আলোচনায় মাহি বি চৌধুরী বলেন, বাংলাদেশের আজকের এই পরিস্থিতিতে আমরা মোটেই অবাক নই। কারণ এই সরকারের ক্ষমতা গ্রহণের মাস তিনেকের মধ্যে আমরা বলেছিলাম, মর্নিং শোজ দ্যা ডে অর্থাৎ সকালের আলো দেখেই বোঝা যায় বাকী দিনটা কেমন যাবে। সংঘাত এবং প্রতিহিংসার রাজনীতির দিকে যে দেশ আবার এগিয়ে যাবে বা নিপতিত হবে তা কিন্তু আমরা সরকার ক্ষমতায় আসার কিছুদিনের মধ্যে বুঝতে পেরেছিলাম। কারণ সরকারের বিভিন্ন কর্মকাণ্ড সেরকমই ইঙ্গিত দিচ্ছিল। আর বর্তমানে ঠিক সেদিকেই এগিয়ে যাচ্ছে দেশ। প্রতিহিংসার রাজনীতি থেকে বেরিয়ে আসার প্রতিজ্ঞা বা কমিটমেন্ট বাংলাদেশের প্রধান দু’টি রাজনৈতিক দলের কাছ থেকে এদেশের মানুষ এখন পর্যন্ত দেখতে পাচ্ছে না। আর এ বিষয়টি অত্যন্ত স্পষ্ট।

আমরা মনে করি যে, তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া এ দেশে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হওয়ার মতো যে পরিস্থিতি দরকার-সে পরিস্থিতি এখনও সৃষ্টি হয়নি। আর তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে ছাড়া জাতীয় নির্বাচন তখনই হতে পারে যখন রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে পারস্পরিক আস্থা ও বিশ্বাস বাড়বে। পরস্পরের মধ্যে প্রতিহিংসা থাকবে না বা সংঘাত থাকবে না তখনই কেবলমাত্র তত্ত্বাবধায়ক সরকার পদ্ধতি বাতিল করে জাতীয় নির্বাচনের চিন্তা করতে পারবো।

আর পঞ্চদশ সংশোধনীর বিষয়ে আমি বলবো, এটি সোনার পাথর বাটির মতো। তো সোনার পাথর বাটি কিন্তু বাস্তবে সম্ভব নয়। বাটি হয়তো হবে সোনার না হয় পাথরের। কারণ সংবিধানে একদিকে বলা হচ্ছে, ধর্মনিরপেক্ষতার কথা অন্যদিকে আবার রাষ্ট্রধর্ম ইসলামের কথা । আর এ ধরনের মিশ্রণ দিয়ে জনগণকে কনফিউজড করা হচ্ছে। তাছাড়া ইসলামের ব্যাপারে এখানে আন্তরিকতা আসলে ক’জনের আছে তা নিয়ে আমার যথেষ্ট সন্দেহ ও সংশয় রয়েছে। শুধুমাত্র রাজনৈতিক ফায়দা হাসিল করার জন্য রাজনৈতিক দলগুলো ইসলাম নিয়ে বিভিন্ন ধরনের বক্তব্য রাখছে।

পাশাপাশি এই সংশোধনীতে ৭(ক) অনুচ্ছেদে যেটি বলা হচ্ছে , সেটি সরাসরি গণতন্ত্রের আদর্শ পরিপন্থী। সেখানে বলা হয়েছে, সংবিধানের মূলনীতির কোনো কিছুই আর কোন দিন পরিবর্তন করা যাবে না। অর্থাৎ দেশের ষোল কোটি মানুষ একত্রিত হয়েও কোন পরিবর্তন আনতে চাইলেও এখানে কোন পরিবর্তন আনা যাবে না , বর্তমান ক্ষমতাসীন শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন মহাজোট যেটি নির্ধারণ করেছে সংবিধানে; আজীবনের জন্য সেটাই আমাদের কাছে শিরোধার্য হবে। আর এ ধরনের একটি স্বৈরতান্ত্রিক চিন্তা-চেতনা পৃথিবীর অন্য কোন সংবিধানে দেখি নি শুধুমাত্র পাকিস্তানের সংবিধান ছাড়া। তো বর্তমান মহাজোট সরকার এতবেশী পাকিস্তান বিরোধী বক্তব্য দেয়ার পরও কেন পাকিস্তানের সংবিধানের সাথে সামঞ্জস্য রেখে এরকম একটি জিনিষ করলেন তা ঠিক আমার বোধগম্য নয়। আর এই পরিস্থিতিতে সংঘাত অনিবার্য। তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া প্রধান বিরোধী দল বিএনপি বলেছে তারা নির্বাচনে যাবে না, আমরাও বলেছি যে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া নির্বাচনে যাবো না। কারণ সেই নির্বাচনের বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন থাকবে । আর প্রধান বিরোধীদলসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দল নির্বাচনে অংশ না নিলে – পরিসংখ্যন অনুযায়ী দেশের প্রায় ৫০ থেকে ৬০ ভাগ মানুষ সে নির্বাচনকে গ্রহণ করবে না। আর সেক্ষেত্রে দেশে সংঘাত হবে অনিবার্য এবং দেশ আবারও একটি রক্তপাতের দিকে এগিয়ে যেতে পারে বলে আমরা সন্দেহ করছি। আর সেজন্য সংঘাত এবং প্রতিহিংসাকে বাদ দিয়ে আলোচনার মাধ্যমে শান্তিপূর্ণ সমাধানের উদ্যোগ গ্রহণ করার ব্যাপারে বিকল্প ধারার পক্ষ থেকে বলা হয়েছে।

জোট গঠনের জন্য দুটো উদ্দেশ্য থাকে একটি হচ্ছে শুধুমাত্র ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য জোট । সেখানে আদর্শ বা কর্মসূচীর কোন বালাই থাকে না । আর অন্যটি হচ্ছে একটি রাজনৈতিক আদর্শ ও স্বপ্নকে সামনে নিয়ে কিছু রাজনৈতিক দলের একত্রিত হওয়া। আর সে অবস্থায় বিকল্প ধারা বারবার বলছে – যে বিকল্প ধারা কোন নির্দিষ্ট দলের বিরুদ্ধে রাজনীতি করে না । আমরা কিন্তু বারবার একটা কথা বলছি আর সেটা হচ্ছে বিরুদ্ধবাদী রাজনীতি চর্চা এ দেশে থামাতে হবে। দেশের ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের রাজনীতি প্রধান বিরোধী দল বিএনপির বিরুদ্ধে আর বিরোধী দল বিএনপির রাজনীতি আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে। আর সে অবস্থায় বিকল্প ধারা বলছে – আমরা কারও বিরুদ্ধে রাজনীতি করব না। এক্ষেত্রে আমরা মনে করি বাংলাদেশের সাধারণ মানুষ বিশেষ করে তরুণ প্রজন্মের প্রত্যাশা পূরণের জন্য বা জনগণের প্রত্যাশিত পরিবর্তন নিশ্চিত করার জন্য যে ধরনের রাজনীতি বা রাজনৈতিক সংস্কৃতি গড়ে তোলা প্রয়োজন- যে ধরনের রাজনৈতিক কর্মসূচী এবং দেশ পরিচালনার জন্য যে ধরনের মেনুফেস্টু বা ইশতেহার প্রয়োজন, সে সমস্ত বিষয়ে যদি আমাদের ঐক্যমত হয় তাহলে আমরা যে কোন দলের সাথে ঐক্যমত্যে যেতে প্রস্তুত আছি। শুধুমাত্র আগামী নির্বাচনে কে জিতবে বা কে জিতবে না, কার সাথে জোট করলে ক্ষমতায় যাওয়া যাবে আর কার সাথে গেলে ক্ষমতায় যাওয়া যাবে না – এই হিসেব কষে বিকল্প ধারা কারো সাথে নির্বাচনী জোটগঠনে প্রস্তুত নয়। আমরা শুধুমাত্র জনগণের প্রত্যাশিত পরিবর্তন নিশ্চিত করতে অবশ্যই যে কোন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে জোট বাধতে প্রস্তুত রয়েছি।

সরকার দেশ পরিচালনায় চূড়ান্ত ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। এ বিষয়ে আমার কোন সন্দেহ নেই। আর একটি সরকার যদি দেশ পরিচালনায় চূড়ান্ত ব্যর্থতার পরিচয় দেয় সেক্ষেত্রে মধ্যবর্তী নির্বাচনের দাবী কিন্তু যৌক্তিক। আর সে দিক থেকে আমিও মনে করি যেহেতু সরকার ব্যর্থ ফলে মধ্যবর্তী নির্বাচনের ক্ষেত্রে বিরোধী দল বিএনপির দাবী অবশ্যই যৌক্তিক। কিন্তু আমাদের প্রেক্ষাপটে এ বিষয়টিকে এখনও যৌক্তিক বলে মনে করতে পারছি না কেন না – বুঝলাম এ সরকার ব্যর্থ। কিন্তু এ সরকারকে পরিবর্তন করে বিএনপি ক্ষমতায় আসলে তারা সার্থক হবে এমন কোন নিশ্চয়তা কিন্তু আমি এখন পর্যন্ত পাচ্ছি না। সুতরাং বর্তমান সরকার ব্যর্থ হলেও এর বিকল্প কি হবে এবং সেই বিকল্প যে সফলভাবে বাংলাদেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবে এবং সে বিষয়ে তারা যতক্ষণ পর্যন্ত জনগণের আস্থা অর্জন করতে না পারবে ততক্ষণ পর্যন্ত কিন্তু এই মধ্যবর্তী নির্বাচনের দাবী যৌক্তিক হবে না।

ভারত বাংলাদেশের প্রধান প্রতিবেশী রাষ্ট্র। বাংলাদেশের চারদিকে ভারত পরিবেষ্টিত। একদিকে বঙ্গোপসাগর আর এক দিকে ছোট্ট একটি কোণায় রয়েছে বার্মা। অতএব ট্রানজিট বা প্রতিবেশী রাষ্ট্রের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক চুক্তির ব্যাপারে যেসব বিষয় আসে সে সব ব্যাপারে সম্পূর্ণভাবে অবহেলা করা যৌক্তিক হবে বলে আমার মনে হয় না। বিশেষ করে বিশ্বায়নের রাজনীতিতে। আর সেক্ষেত্রে ট্রানজিট বা এ ধরনের দ্বিপক্ষীয় চুক্তিগুলো ভারতের সাথেই করতে হবে। কারণ ভারত আমাদের প্রধান প্রতিবেশী রাষ্ট্র। অতএব ভারত বলে বিশেষ কোন কথা নেই; ভারত বলেই তাদের সাথে এ ধরনের চুক্তি করা যাবে না, অন্য যেকোন দেশের সাথে করা যাবে -এ ধরনের চিন্তাও ঠিক নয়। কিন্তু এক্ষেত্রে আমার বক্তব্য হচ্ছে ট্রানজিট অথবা যে কোন ধরনের চুক্তি- যে কোন দেশের সাথে করা যাবে -যদি তাতে আমার দেশের স্বার্থ রক্ষা হয় বা লাভ হয় । আর ভারতের সাথে যে চুক্তিগুলো হচ্ছে সেসব চুক্তিগুলোকে এখনও সম্পূর্ণভাবে জনগণের সামনে প্রকাশ করা হয়নি। এখানে আমাদের লাভ ক্ষতির হিসাব নিয়ে নানা ধরনের বিতর্ক রয়েছে। আর এসব বিষয়ে আমাদের দেশের সুশীল সমাজ, বিশেষজ্ঞ, রাজনীতিবিদ ও বিশিষ্টজনদের নিয়ে আলাপ আলোচনার মাধ্যমে দেশ যদি লাভবান হয় তাহলে ভারতের সাথে চুক্তি করতে আমরা রাজী আছি। অন্যদিকে দেশের স্বার্থ যদি রক্ষা না হয়, দেশ যদি এসব চুক্তির ফলে কোনোভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয় তাহলে ভারত কেন পৃথিবীর যে কোন দেশের সাথে আমরা যে কোন ধরনের চুক্তিতে রাজী নই।

আমাদের দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী যিনি হন, তিনি এমন একটা রঙিন চশমা পরে থাকেন যে তার চোখে সব সময় দেশের আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভালো বলে মনে হয়। এর আগে সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর সাহেব বলেছিলেন- আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক ছিল। বর্তমানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন- তিনিও বলছেন, আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি অতীতের যে কোন সময়ের চেয়ে ভালো এবং স্বাভাবিক।

আমি বলবো, দেশের সার্বিক আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি অত্যন্ত নাজুক। দেখুন- সন্ত্রাসকে যদি কেউ প্রশ্রয় দেয়, সন্ত্রাসকে যদি কেউ লালন করে তাহলে কিন্তু দেশের আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভালো হতে পারে না। তবে এজন্য শুধুমাত্র সরকারী দল বা সরকারকে আমি দায়ী করতে রাজী নই, আমার মনে হয় আমাদের রাজনৈতিক সংস্কৃতিটাই এরকম। প্রধান দু’টি রাজনৈতিক দল বিগত প্রায় ২০ বা ২১ বছর ধরে বাংলাদেশকে পরিচালনা করছে । আর এ দু’টি রাজনৈতিক সংগঠন কিন্তু পুরোপুরি পেশী শক্তি নির্ভর রাজনৈতিক দল বা সংগঠন। তারা কিন্তু মেধাভিত্তিক রাজনীতি করে না। পেশী শক্তি প্রদর্শনের রাজনীতি করে। এসব রাজনৈতিক দলের প্রধান কাজ হচ্ছে রাজপথ দখল করা, পল্টন ময়দানে লক্ষ লক্ষ লোক জমায়েত করা। তাদের প্রধান কাজ বা লক্ষ্য হচ্ছে পেশী শক্তির বলে ক্ষমতায় যাওয়া অথবা ক্ষমতাকে আকড়ে ধরে রাখা । আর এটা যদি রাজনৈতিক সংগঠনগুলোর রাজনৈতিক সংস্কৃতি হয় – তাহলে তারা যখন দেশ পরিচালনার দায়িত্বে থাকে তখন রাজনীতিতে মেধার চেয়ে পেশীর প্রভাব বেশী থাকবে। আর সে কারণেই দেশের আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখার ক্ষেত্রে বারবার সরকারগুলো ব্যর্থ হচ্ছে।

দেশের রাষ্ট্রপতি প্রেসিডেন্ট জিল্লুর রহমান সাহেব তিনি অত্যন্ত সম্মানিত একজন ব্যক্তি। তিনি নিজেও সন্ত্রাসের একজন ভিকটিম। তার স্ত্রী আই ভি রহমান আমাদের একজন শ্রদ্ধাভাজন নেত্রী – তাকে হত্যা করা হয়েছে। আর তার সে হত্যার বিচার দল মত নির্বিশেষে আমরা সবাই চাই। যেভাবে আসমা কিবরিয়া বিচার চাচ্ছেন – সাবেক অর্থমন্ত্রী কিবরিয়া সাহেবের হত্যাকাণ্ডের জন্য। এভাবে সবাই কিন্তু এ ধরনের সন্ত্রাসী হত্যাকাণ্ডের বিচার চায়। অথচ মহামান্য প্রেসিডেন্ট নিজেও একজন ভিকটিম হয়ে শুধুমাত্র দলীয় বিবেচনায় ফাঁসির আসামীর দণ্ড মওকুফ করে দিলেন। মহামান্য রাষ্ট্রপতির কাছ থেকে যদি এই ধরনের আচরণ আসে সে অবস্থায় সাধারণ মানুষ ৬ জন ছাত্রকে পিটিয়ে হত্যা করবে এটাই তো স্বাভাবিক। কারণ রাষ্ট্র যদি সন্ত্রাসকে প্রশ্রয় দেয় -তাহলে সে রাষ্ট্রে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভালো হতে পারে না। আর বাংলাদেশের আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি সে দিকেই যাচ্ছে এবং ভবিষ্যতে এ পরিস্থিতির আরো অবনতি ঘটবে বলে আমি মনে করি।

ন্যাশনাল নিউজ

Leave a Reply