মাওয়া-কাওড়াকান্দি ফেরি চলাচল যে কোন সময় বন্ধ হয়ে যেতে পারে

ঈদকে সামনে রেখে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে ফেরি চলাচল ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। নাব্যতা সংকট ও ডুবোচরের কারণে ফেরিগুলোর চলাচল বিপজ্জনক হয়ে পড়েছে। এ নৌরুটের একটি চ্যানেলে ইতিমধ্যে দ্বিমুখী ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। জরুরি বার্তা পাঠানোর পরেও চ্যানেলে ড্রেজিং না করার কারণে যে কোন সময় ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে যেতে পারে। ফলে ঈদের আগে ঘরমুখো যাত্রীদের চরম বিড়ম্বনার আশংকা করা হচ্ছে। বিআইডব্লিউটিসি মাওয়া অফিসের ম্যানেজার মেরিন আবদুস সোবহান জানান, মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে বর্তমানে মাওয়া-লৌহজং-মাগুড়খণ্ড-নাওডুবা-হাজরা-চরজানাজাত চ্যানেল দিয়ে ফেরিগুলো চলাচল করছে। উজান থেকে নেমে আসা ঢলের পানির সঙ্গে পলি পড়ে মাগুড়খণ্ড চ্যানেলে ফেরি চলাচল ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। এসব চ্যানেলে পলি জমে ডুবোচরের সৃষ্টি হওয়ায় দুটি ফেরি পাশাপাশি চলাচল করতে পারছে না। ইতিমধ্যেই ওই চ্যানেল দিয়ে পাশাপাশি ফেরি চলাচল বা ডাবলওয়ে ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। ভরা এই বর্ষা মৌসুমে পলির মাত্রা বৃদ্ধি পেয়ে প্রতিদিনই ডুবোচরের আকার বড় হয়ে সরু হয়ে যাচ্ছে চ্যানেলটি। ফলে চ্যানেলটি দিয়ে এখন ওয়ানওয়ে টানা ফেরিও চলাচলে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হচ্ছে। এভাবে পলির মাত্রা অব্যাহত থাকলে ঈদের আগেই এ চ্যানেলে বন্ধ হয়ে যেতে পারে ফেরি চলাচল। বিআইডব্লিউটিসি ও মাওয়া ফেরি সার্ভিস কর্তৃপক্ষ ইতিমধ্যে বিষয়টি অবহিত করে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানালেও এখনও ড্রেজিংয়ের কোন ব্যবস্থা না করায় ঈদে দক্ষিণ বঙ্গের ঘরমুখো যাত্রীদের মহাবিড়ম্বনার আশংকা করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে বিআইডব্লিউটিএ মাওয়া অফিসের উপ-পরিচালক (নৌ সংরক্ষণ ও সঞ্চালন) আঃ সালাম জানান, আল্লার প্রদত্ত জিনিসের প্রতি আমাদের কোন হাত নেই। প্রকৃতির কারণে মাগুরখণ্ড চ্যানেলে ডুবোচরের সৃষ্টি হয়েছে। ঈদের আগে সমস্যা নাও হতে পারে। এখানে ড্রেজিং করা মানে আল্লার সঙ্গে যুদ্ধ করা। কারণ পদ্মায় যে পরিমাণ কারেন্ট বা স্রোত রয়েছে তাতে এখানে ড্রেজিং করা কোন মতেই সম্ভব নয়। ড্রেজিং করলে পাশ থেকে মাটি গড়িয়ে তা সঙ্গে সঙ্গে বন্ধ হয়ে যাবে।

তিনি বলেন, আমরা প্রতিদিনই নদী ও চ্যানেলে ডুবোচরের প্রতি নজর রাখছি। যদি চ্যানেলটি বন্ধ হয়ে যায়, তবে বিকল্প হিসেবে কবুতরখোলা লঞ্চ চ্যানেল দিয়ে ফেরি চলাচলের চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে। গত কয়েকদিন ধরে হাইড্রোগ্রাফি ও মেনুয়েলভাবে পদ্মায় সার্ভে চালানো হচ্ছে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে প্রতিদিনই নদীর অবস্থা সম্পর্কে জানানো হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

তবে কবুতরখোলা চ্যানেল দিয়ে ফেরি চলাচল করলে এখানে যাত্রী ভোগান্তি আগের চেয়ে বাড়বে। বর্তমান রানিং চ্যানেল দিয়ে রাউন্ড ট্রিপে একটি ফেরি পৌঁছতে সময় লাগে ৪ থেকে সাড়ে ৪ ঘণ্টা। আর কবুতর খোলা চ্যানেল দিয়ে ফেরি চলাচল করলে ৫ থেকে সাড়ে ৫ ঘণ্টা সময় লাগবে। তাই যাত্রীদের ভোগান্তি বাড়বে ছাড়া কমবে না। আর সময়মতো যথাযথা ব্যবস্থা গ্রহণ করা না হলে আসন্ন ঈদে এ নৌরুটে ঘরমুখো যাত্রীদের অধিকতর বিড়ম্বনার আশংকা করা হচ্ছে।

যুগান্তর

Leave a Reply