কেরানীগঞ্জে খুন হলেন গার্মেন্টস মালিক

শ্রমিকদের বেতন-বোনাস নিয়ে পার্টনারের সঙ্গে ঝগড়ার জের
ঈদে বেতন বোনাস দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে শ্রমিকের কাঁচির আঘাতে গার্মেন্টস কারখানার মালিককে খুন করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল ঢাকার কেরানীগঞ্জে। কারখানার ভিতরে মালিক নূরুজ্জামানকে (৫০) আহত করার পর আশপাশের লোকজন অভিযুক্ত শ্রমিকদের শাস্তির দাবিতে প্রায় আড়াই ঘন্টা পুলিশকে অবরুদ্ধ রাখে। আহত নূরুজ্জামানকে উদ্ধার করে মিটফোর্ড হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান। এদিকে, হত্যার পর এলাকাবাসী আরিফ হোসেন, সজিব মিয়া, শরিফ হোসেনকে কারখানার ভিতর আটকে রাখে। জনতা আটককৃতদের গণপিটুনি দিয়ে শাস্তি দেয়ার দাবি করে মিছিল করে। পুলিশ খবর পেয়ে কালিগঞ্জ অলিনগর ৫নং গলিতে গিয়ে হত্যাকারীদের উদ্ধারের জন্য প্রায় ৩ ঘন্টা চেষ্টা চালায়। পুলিশ শত শত লোকজনকে সরিয়ে নিতে হিমশিম খায়। র্যাব-১০, দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা ও কেরানীগঞ্জ মডেল থানা পুলিশ যৌথভাবে বিক্ষোভকারীদের শান্ত করে। প্রায় ৩ ঘন্টা পরে হত্যাকারীদের কারখানা থেকে পুলিশের হেলমেট পরিয়ে থানায় নেয়া হয়। পরে এলাকাবাসী এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত সোহেল মিয়া এবং ফরহাদ হোসেন নামে দুই শ্রমিককে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। ঘটনার খবর পেয়ে ঢাকা জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেখ রফিকুল ইসলাম ও র্যাব-১০-এর কোম্পানি কমান্ডার লেঃ কমান্ডার জিয়াউল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

নূরুজ্জামানের ভাই শাহীনুর জানান, অলিনগরের ৫ নম্বর গলিতে নূরুজ্জামানের গার্মেন্টস কারখানা। এখানে জিন্স প্যান্ট তৈরি হয়। সম্প্রতি তিনি রাজধানীর একটি মার্কেটে দোকান কিনেছেন। এই কারখানায় আরিফ হোসেনের পার্টনারশিপ রয়েছে। চলতি ঈদে নূরুজ্জামান কারখানার শ্রমিকদের বেতন ও বোনাস দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন। এ নিয়ে আরিফ হোসেনের সঙ্গে তার কথা কাটাকাটি হয়। বিষয়টি আরিফ হোসেন নূরুজ্জামানের স্ত্রীকে জানিয়ে দেন। গতকাল সকাল সাড়ে ১১টার দিকে আরিফ হোসেনের সঙ্গে নূরুজ্জামান তর্কে জড়িয়ে পড়েন। নূরুজ্জামান কারখানার বিষয় তার স্ত্রীকে কেন জানানো হলো-এ নিয়ে কৈফিয়ত চান। এক পর্যায়ে নুরুজ্জামান আরিফ হোসেনকে একটি কাঁচি নিয়ে আঘাত করেন। তখন আরিফ হোসেন ও তার দুই ভাই সজিব মিয়া ও শরিফ হোসেন একত্র হয়ে কাপড় কাটা কাঁচি দিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করে। নুরুজ্জামানের চিত্কারে এলাকার লোকজন তার কারখানায় যায়। হত্যাকারীরা পালিয়ে যাওয়ার সময় তাদের এলাকার লোকজন আটক করে কারখানার ভিতর আটক করে রাখে। এসময় শত শত ব্যবসায়ী ও শ্রমিক মিলিতভাবে দফায় দফায় বিক্ষোভ মিছিল করতে থাকে।

দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার ওসি আবুল বাশার বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থলে যাওয়ার পর এলাকাবাসী আটক তিনজনকে পুলিশের উপস্থিতিতে গণপিটুনি দেয়ার ঘোষণা দেয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ ডেকে আনা হয়। পুলিশ আসামিদের উদ্ধার করে নিতে চাইলে পুলিশের ওপর জনতা চড়াও হয়। পরে স্থানীয় রাজনৈতিক নেতাদের সঙ্গে আলাপ আলোচনার পর আসামিদের ৩ ঘন্টা পর গ্রেফতার করে থানায় নেয়া হয়। নিহত নূরুজ্জামানের বাড়ি মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর থানার পাঠাবো গ্রামে।

জামিউল আহসান সিপু ও কাজীআবুল বাশার – ইত্তেফাক

Leave a Reply