টঙ্গিবাড়ীতে বন্যার স্থায়ী রুপ

শামীম বেপারী: মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ী উপজেলার বন্যা পরিস্থিতি স্থায়ী রুপ লাভ করেছে। গত কয়েক দিনের বর্ষন ও বন্যায় সাধারন নিন্ম আয়ের মানুষ বিপাকে পরেছে। বিশেষ করে নদী ভাঙ্গন কবলিত কয়েক শত পরিবার মানবেতর জীবন যাপন করছে । এছাড়া উপজেলার বিভিন্ন রাস্তাঘাট পানিতে তলিয়ে গেছে, মাছের ঘের ভেষে গেছে আনেক রাস্তা যান চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে।

সরোজমিনে দেখা গেছে,উপজেলার চাঠাতি পাড়া গ্রামের একমাত্র যাতায়তের রাস্তাটি পনিতে তলিয়ে গেছে। কাইচমালধা হতে কামাড়খাড়া পর্যন্ত রাস্তা আউটশাহী ইউনিয়নের ভোরন্ডা গ্রামের রাস্তায় একহাটু পানি । পাচঁগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের মাঠ ও চাঠাতিপাড়া শেখ কাবেল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠ পানিতে তলিয়ে গেছে। পাঁচগাঁও, হাসাইল ,দিঘিরপাড় ও কামারখাড়া ইউনিয়নের অসহায় কয়েকশত পরিবার মানবেতর জীবন যাপন করছে। নদীতে ভিটে বাড়ী হারানোর পর নদীর পাড়ে বালি জমে উঠা উচুঁ জমিতে ঘর তুলে বসবাস করে আসছিলো তারা । গত কয়েক বছর বন্যা না হওয়ায় পরিবার পরিজন নিয়ে এ সমস্ত পরিবারগুলো বসতি নিয়ে ভালোই ছিলো। কিন্তু এ বছরের আকস্মিক ও স্থায়ী বন্যায় বিপাকে পরেছে তারা। উপজেলার গারুর গাও গ্রামের শিউলী বেগম এর উঠানে দীর্ঘ ১ মাস যাবৎ হাটুপানি । সে জানয়, দুটি ছোট ছেলে লইয়া অসহায় ভাবে আছি। দেহেন ঘরের দরজায় কাঠ মাইরা রাখছি যাতে বাচ্চারা পানিতে পরতে না পারে।


বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ বাড়ীঘরের দৃশ্য। ছবিটি টঙ্গিবাড়ী উপজেলার গারুর গাঁও গ্রাম হতে তুলা। ছবি যাযাদি।

রাতে ঘুমাইনা বাচ্চাগো পাহাড়া দেই, ওরা কেবল পানিতে যাইতে চায় পানিতে পইরা গেলে মরোন ছাড়া কোন উপায় থাকবো না। মোতালেব সেখ জানান, ৩ বছর আগে নদীতে বাড়ি ভাইঙ্গা যাওনের পর এহানে ঘর তুইল্লা বালই আছিলাম । কিন্তু দির্ঘদিন যাবৎ পানি যেভাবে খালী বাড়তাছে মনে হয় আর থাকোন যাইবো না। হাসাইল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নুরুজাম্মান দেওয়ান জানান, উপজেলার সবচেয়ে বড় এই ইউনিয়নটি গত কয়েক বছরের ভাঙ্গনে ৯৫ ভাগ নদীতে বিলীন হয়ে গেছে । বিত্তবানরা ঢাকসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে পাড়ি জমালেও নিন্ম আয়ের মানুষগুলো নদীর ও পাড়ে জেগে উঠা নতুন চর সহ আশে পাশের পরিত্যক্ত নিচু জমিতে ও রাস্তার পাড়ে ঘর তুলে বসবাস করছে। কিন্তু দির্ঘসস্থায়ী বন্যায় মানুষগুলো চরম অসহায় অবসস্থায় আছে। ক্ষতিগ্রস্থরা জানান, তাদের অনেকের টিউবঅয়েল পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় প্রায় ১ কিলোমিটার দুর হতে পানি এনে খেতে হচ্ছে। অনেকে বাধ্য হয়ে নদীর পানি পান করছে। স্যানিটেশন পায়খানাগুলো তলিয়ে যাওয়ায় তারা বাধ্য হয়ে যেখানে সেখানে মলত্যাগ করছে। ফলে এ সমস্ত লোকগুলো স্বাস্থ্যগত ঝুকির মধ্যে রয়েছে।

টঙ্গিবাড়ী,মুন্সীগঞ্জ মোবা: ০১৮১৮৪০৫০৮৯

Leave a Reply