মাওয়া-কাওড়াকান্দিতে ডুবোচরে আটকা ৩টি ফেরি

প্রমত্বা পদ্মায় নৌ-চ্যানেলে ডুবোচরের কারণে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে ফেরি চলাচল বিপদ সংকুল হয়ে উঠেছে। মাত্র ১০ ঘণ্টার ব্যবধানে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে নৌ-চ্যানেলের মাগুরখ- পয়েন্টে পর পর ৩টি ফেরি ডুবোচরে আটকা পড়েছে। ডুবোচরে একের পর এক ফেরি আটকে পড়ার ঘটনায় টানা ১২ ঘণ্টা মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে ফেরি চলাচল বিঘি্নত হয়েছে। ডুবোচরে পর পর ৩টি ফেরি আটকে পড়ার ঘটনায় গত সোমবার দিবাগত মধ্য রাত ১টা থেকে গতকাল মঙ্গলবার দুপুর ১টা পর্যন্ত দক্ষিণবঙ্গের ঈদ ঘরমুখো যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে। এতে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে মাওয়া ও কাওড়াকান্দির উভয় ফেরিঘাটের প্রান্তে ১২ ঘণ্টাব্যাপী এক টানা তীব্র যানজট দেখা গেছে। এ সময় উভয় ঘাটে দীর্ঘ সময় ধরে স্থায়ীভাবে দুশতাধিক ফেরি যানজটে আটকে থাকার ভয়াবহ দৃশ্য পরিলক্ষিত হয়।

এদিকে, ডুবোচরে একের পর এক ফেরি আটকে পড়ার ঘটনায় গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে বিআইডবিস্নউটিএর উচ্চ পর্যায়ের একটি টিম নৌ-রুট পরিদর্শনে এসেছে। বিআইডবিস্নউটিএর পরিচালক (নৌপথ) এমদাদুল ইসলামের নেতৃত্ব উচ্চ পর্যায়ের ওই টিম নিজস্ব জাহাজে চড়ে চ্যানেলের মাগুরখ- ও হাজরা পয়েন্টে ডুবোচর পর্যবেক্ষণ করেন। মঙ্গলবার দুপুর দেড়-টার দিকে মাগুরখ- পয়েন্টে মাত্র সাড়ে ৬ ফুট পানির গভীরতা পেয়েছে উচ্চ পর্যায়ের ওই টিমের সদস্যরা। তাদের মতে, ফেরি চলাচলে সাড়ে ৭ থেকে ৯ ফুট গভীরতা প্রয়োজন। এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন_ বিআইডবিস্নউটিএর অপারেশন কর্মকর্তা জিললুর রহমান, প্রকৌশলী (ড্রেজিং) আব্দুল মতিন, উপ-পরিচালক আব্দুস সালাম প্রমুখ।

বিআইডবিস্নউটিএর এজিএম এস এম আশিকুজ্জামান জানান, গতকাল মঙ্গলবার সকালে রো-রো ফেরি ভাষা শহীদ বরকত ১৬টি মালবাহী ট্রাক ও যাত্রীবাহী ১১টি ছোট গাড়ি বোঝাই করে মাওয়ার উদ্দেশে কাওড়াকান্দি ফেরিঘাট ছেড়ে আসে। সকাল ৮টার দিকে চ্যানেলের মাগুরখ- পয়েন্টে আসলে ডুবোচরে আটকা পড়ে। এতে ফেরি পিছু টান হয়ে নাওডোবা পয়েন্টে গিয়ে ফেরি অবস্থান নেয়। ডুবোচরের কারণে

চ্যানেল সরু হয়ে পড়ায় ও পদ্মায় পানি গভীরতা কম থাকায় কারণে কোনোভাবেই ফেরিটি গন্তব্যের দিকে এগুতে পারছিল না। পরে আইটি ফেরির সাহায্যে ডুবোচরের ওপর দিয়ে রো-রো ফেরি ভাষা শহীদ বরকতে টেনে আনা হয়। এতে সাড়ে ৩ ঘণ্টা পর বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রো-রো ফেরি ভাষা শহীদ বরকত ডুবোচর পেরুতে সক্ষম হয়। তবে ফেরি মাওয়া ফেরিঘাটে পেঁৗছতে ঘড়ির কাঁটায় দুপুর ১টা বেজে যায়। এতে রওনা দেয়ার ৬ ঘণ্টা পর যাত্রীসুদ্ধ যানবাহনগুলো গন্তেব্য পেঁৗছায়।

অপরদিকে, মেরিন অফিসার আব্দুস সোবহান জানান, এর আগে সকাল সোয়া ৬টার দিকে মাওয়াগামী ফেরি রামশ্রী ১০টি যাত্রীবাহী বাস ও ২টি ট্রাক বোঝাই করে কাওড়াকান্দি ঘাট ছেড়ে আসলে মাগুরখ- পয়েন্টে ডুবোচরে আটকা পড়ে। পরে মাত্র পৌনে ১ ঘণ্টার মধ্যে ফেরিটি ডুবোচর থেকে উদ্ধার পায়। এদিকে, গত সোমবার দিবাগত মধ্য রাত ১টার দিকে কাওড়াকান্দি ঘাট থেকে ফেরি কাকলী ৫টি যাত্রীবাহী বাস ও ২টি ছোট গাড়ি নিয়ে মাওয়ার উদ্দেশে রওনা দিলে মাগুরখ- পয়েন্টে ডুবোচরে আটকা পড়ে। রাতভর মাঝ পদ্মায় ডুবোচরে আটকে থাকার পর গতকাল মঙ্গলবার সকাল সোয়া ৬টার দিকে আইটি-৯৪-এর সাহায্যে ফেরি কাকলী ডুবোচর থেকে উদ্ধার পায়। একের পর এক ডুবোচরে ফেরি আটকে পড়ায় দীর্ঘ ১২ ঘণ্টা যাবৎ মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌ-রুটে ফেরি চলাচল মারাত্মকভাবে বিঘি্নত হয়। মাওয়া ও কাওড়াকান্দি ফেরি ঘাটের উভয় প্রান্তে বিঘ্ন ফেরি পারাপারে যানজটের সৃষ্টি হয়। স্থায়ীভাবে দুশতাধিক যানবাহন মহাসড়কে স্থিমিত অবস্থায় আটকে থাকে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুর ১টার দিকে ডুবোচরে আটকে পড়া রো-রো ফেরি ভাষা শহীদ বরকত মাওয়া ফেরঘাটে গন্তব্যে পেঁৗছানোর পর নৌরুটে ফেরি চলাচল স্বাভাবিক হয়ে উঠে। এতে যানজট লাগব হতে থাকে।

ডেসটিনি

Leave a Reply