ভরা বর্ষায় নাব্য সঙ্কটে ফেরি চলচাল বিঘ্নিত

মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুট
মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সীগঞ্জ থেকে : নাব্য সঙ্কটের কারণে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌ রুটে ফেরি চলাচল বিঘিœত হচ্ছে। মাওয়া-মাগুরখন্ড চ্যানেলে ফেরিগুলো পানি কম থাকায় আটকে যাচ্ছে। পলি জমার কারণে ভরা বর্ষায় এই নাব্য সঙ্কট দেখা দিয়েছে প্রকটভাবে। তাই যে কোন সময় এই রুটে ফেরি চলাচল বন্ধ হওয়ার আশঙ্কা করছে বিআইডব্লিউটিসি। দফায় দফায় ডুব চরে ফেরি আটকা পড়ছে। উভয় পাড়ে সৃষ্টি হয়েছে যানজট। বাড়ছে ঈদে ঘরমুখো মানুষের বিড়ম্বনা। মঙ্গলবার ঢাকা থেকে বিআইডব্লিউটিসি’র একটি উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি দল পদ্মার মাগুর খন্ড চ্যানেলটি পরিদর্শন করেছেন। চ্যানেলে রাতে পাহাড়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। বয়াবাতিসহ সর্বোচ্চ সর্তক ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে।

মাওয়াস্থ বিআইডব্লিউটিসির ম্যানেজার সিরাজুল হক জানান, বার বার ফেরি এই চ্যানেলে আটকে যাওয়ায় ধারণ ক্ষমতার কম যান নিয়ে ফেরি চলাচল করছে। তিনি জানান, যে কোন সময় এই রুটে ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে যেতে পারে।

তাই ঈদে ঘরমুখো যাত্রী সাধারণকে নিরাপদে বাড়ি পৌছাত সর্বকালের সর্বোচ্চ সংখ্যক ১৬ টি ফেরি প্রস্তুত রাখা হলেও কাজে আসছে না। চ্যানেলে পানি স্বল্পতার কারণে সরু চ্যানেলের ডুবো চরে দফায় দফায় ফেরি আটকে যাচ্ছে। এছাড়া চ্যানেলটি একমুখী হওয়ায় একটি ফেরি পাড় হওয়া পর্যন্ত বসে থাকতে হচ্ছে। আবার কখনও পানি স্বল্পতার কারণে চ্যানের মধ্যে প্রবেশ করেও পারি দিতে না পেরে ঘন্টার পর ঘন্টা নোঙর করে ফেরিগুলোকে মাঝ পদ্মায় বসে থাকতে হচ্ছে। ফলে ঈদে যাত্রী পারাপারের ব্যাপক আয়োজন থাকা সত্ত্বেও চ্যানেলে পানি স্বল্পতার কারণে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটের যাত্রীদের চরম দুর্ভোগের আশঙ্কা করা হচ্ছে।

মাওয়া বিআইডব্লিউটিসি অফিসের এজিএম আশিকুজ্জাম জানান, বর্তমান রানিং চ্যানেল মাওয়া-লৌহজং-মাগুরখন্ড-নাওডুবা-হাজরা-কাওড়াকান্দি চ্যানেলের মাগুরখন্ড অংশে ভরা বর্ষায় ডুবো চরে চ্যানেলটি একাংশ সুংকুচিত হয়ে পড়ায় বেশ কিছু দিন ধরে এখানে ওয়ানওয়ে (একমুখী) ফেরি চলাচল করছে। পাশাপাশি দু’টি চলতে পারছে না। কিন্তু প্রতিদিন পলি পড়ে চ্যানেলে পানি ক্রমাগত কমে যাওয়ায় চ্যানেলটি দিয়ে রো রো ফেরিসহ মধ্যাকৃতির ফেরিগুলো চলাচল অসম্ভব হয়ে পড়েছে। ২৪ ঘন্টার ব্যবধানে এখানে ৩ টি ফেরি যানবাহন নিয়ে আটকে যায়।

পানি স্বল্পতার কারণে রো রো ফেরিগুলো চ্যানেল পারি দিতে না পারায় চ্যানের মধ্যে নোঙর করে ঘন্টার পর ঘন্টা বসে থাকছে জোয়ারের পানির অপেক্ষায়। বিআইডব্লিউটিএ’র পরিচালক (নৌ সংরক্ষন ও পরিচালন) মোঃ এমদাদুল হক জানান, মাগুর খন্ড চ্যানেলটিতে বর্তমানে ১০-থেকে ১২ ফুট পানি রয়েছে, যা দিয়ে ফেরি চলাচলে কোন প্রকার অসুবিধা হবার কথা নয়। কিন্তু মার্কার ও বয়াবাতিগুলো চুরি হয়ে যাওয়ায় রাতের বেলা ফেরি চালকরা পথ হারিয়ে ডুবো চরে আটকে যাচ্ছে। তাছাড়া চ্যানেলটি প্রশস্ততার দিক দিয়ে কিছুটা কমে গেছে। কিন্তু বর্তমানে পদ্মায় প্রচন্ড স্রোত থাকায় এই মুহুর্তে ড্রেজিং করা সম্ভব নয়। তবে মার্কার ও বয়াবাতির উপর জোরদার ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে, যাতে করে ফেরি চালকরা ভুল পথে না যায়।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply