১৫ টাকার টোল ৩ টাকা!

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সীগঞ্জ থেকে : বৃহষ্পতিবার নৌ পরিবহণ মন্ত্রনালয়ের এক আদেশে মাওয়া ঘাটের টোল ১৫ টাক থেকে কমিয়ে মাত্র ৩ টাকা আদায় করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি লঞ্চের ভাড়া ৫ টাকা কমিয়ে ২৫ টাকা হতে ২০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। নতুন লঞ্চ ভাড়া ও টোলের এই আদেশ বৃহস্পতিবারই কার্যকর হয়েছে। জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার এবং জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বিকালে ঘাটে গিয়ে এই নতুন রেট কার্য করেছেন। ঈদে ঘরমুখো মানুষের জন্য এটি খুবই খুশির খবর। যেখানে ঈদের আগে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হয় এই ঘাটে। সেখানে উল্টো কমে যাওয়া বিস্ময়কর ঘটনা। তবে জেলা পরিষদের ঘাট ইজারাদারসহ সংশ্লিষ্টদের মধ্যে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। ইজারাদার মো. সিরাজুল আসলাম বলেছেন, ১৫ টাকা রেটে ৪ কোটি ৮০ লাখ টাকায় এই ঘাট ইজারা নেই এখন অনেক ক্ষতি হয়ে যাবে।

এব্যাপারে জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোফাজ্জেল হোসেন বলেছেন, ১৫ টাকা ঠিকই আছে, ঘাটের টোল নিবে ৩টাকা এবং পারাপারে খেয়া নৌকায় নিবে ১২ টাকা। এতদিন ঘাটেই ১৫ টাকা আদায় করা হত।

ঈদ মৌসুমে দক্ষিণাঞ্চলগামী লাখ লাখ যাত্রী পারাপার করতে সুব্যবস্থা, মালামাল বহনে নিরাপত্তা, আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখাতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েনসহ অতিরিক্ত ৬টি বিকল্প ঘাট তৈরী করা হয়েছে। যাত্রীদের সুবিদার্থে মাইকে পুলিশ বিভিন্ন নির্দেশনা দিচ্ছে।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ
———————-

মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে আরেক দফা টোলের হার কমেছে

মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে আরেক দফা কমিয়ে দেয়া হল যাত্রী পারাপারে টোলের হার। এক ধাক্কায় ১৫ থেকে কমিয়ে ৩ টাকা করা হয়েছে। এতে ইজারাদারের লোকসান গুনতে হবে বছরে প্রায় ৪ কোটি টাকা। এ অবস্থায় ইজারাদারের পথে বসার উপক্রম হয়েছে। পাশাপাশি লঞ্চের ভাড়া ২৫ থেকে ৫ টাকা কমিয়ে ২০ টাকা করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার নতুন ভাড়া ও টোলের এই নির্ধারিত আদেশপত্রটি মাওয়া ঘাট ইজারাদারের কাছে পৌঁছেছে বলে জানা যায়। নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় ঈদবাজারের আগে এমন একটি আদেশপত্র জারি করায় মাওয়া ঘাটে ইজারাদারসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের মধ্যে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। মাওয়া ঘাটে ইজারাদার মোঃ সিরাজুল ইসলাম যুগান্তরকে জানান, ঈদ মৌসুমে দক্ষিণাঞ্চলগামী হাজার হাজার যাত্রী পারাপার করতে সুব্যবস্থা মালামাল বহনে নিরাপত্তা, আইনশৃংখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখা, অতিরিক্ত আইনশৃংখলা বাহিনী মোতায়েন, অতিরিক্ত ৬টি বিকল্প ঘাট তৈরিসহ বাড়তি নিরাপত্তা দিতে গিয়ে কর্তৃপক্ষকে হিমশিম খেতে হয় তার উপর মড়ার ওপর খাঁড়ার ঘা, অথচ ইজারার সময় ২০১১-১২ অর্থবছরের জন্য চ্ুিক্ত হয়েছিল ৪ কোটি ৮০ লাখ টাকা, সর্ব দরদাতা হিসেবে মোঃ সিরাজুল ইসলাম মাওয়াঘাট ইজারা নেন তখন চুক্তি নামায় উল্লেখ ছিল প্রত্যেক ব্যক্তি (মাওয়াপাড় অংশে যাত্রী সাধারণ পারপার ক্ষেত্রে জনপ্রতি টোল রেইট ১৫.০০ টাকা করে। মাত্র ২ মাসের মাথায় এই আদেশ পরিবর্তন করে ৩ টাকায় পারাপার করতে নতুন আদেশ দেয়া হয়েছে নৌমন্ত্রণালয় থেকে এই নিয়ে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। নির্ধারিত টোল কমিয়ে দেয়ায় শ্রমিকদের বেতন-ভাতা নিয়েও বিপাকে রয়েছে ইজারাদার। এছাড়াও এই নতুন আদেশ বহাল হলে প্রতিদিন ইজারাদরকে ১ লাখ টাকা লোকসান গুনতে হবে।

যুগান্তর

Leave a Reply