বাড়ি যাওয়া থমকে যায় মাওয়ায়

ভোগান্তির আর এক নাম মাওয়া ঘাট। ঈদের সময় দেশের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার অন্যতম ট্রানজিট পয়েন্ট মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুরের লৌহজং উপজেলার মাওয়া ঘাটে প্রতিবছর ঘরমুখো মানুষকে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয়। যানজটে আটকা পড়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসে থেকে তিক্ত অভিজ্ঞতা নিয়ে বাড়ি যেতে হয়। এমনও সময় গেছে, যানজটে আটকা পড়ে মাওয়া ঘাটে ঈদের জামাত পড়তে হয়েছে হাজার হাজার ঘরমুখো যাত্রীকে। প্রতিবছর পর্যাপ্ত আয়োজন থাকা সত্ত্বেও কেন এ ভোগান্তি, কেনই বা এ যানজট?

অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে নানা রকম চিত্র। একটি মাত্র রাস্তা, অপ্রশস্ত ঘাট এলাকা, লোকাল বাসের আধিক্য আর স্বল্প দূরত্বে ফেরিঘাট, লঞ্চঘাট, সিবোট এবং ট্রলার ঘাটের অবস্থানের কারণেই ঘাটে ঘাটে যানজট এবং নদীতে ফেরিজটের সৃষ্টি হওয়ায় যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। তার আগে ঢাকা থেকে মাওয়ায় আসতে ধলেশ্বরী ব্রিজের টোল প্লাজায় অব্যবস্থাপনার কারণে যাত্রীদের দীর্ঘ যানজটে আটকা পড়ে আরেক দফা দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

সরেজমিন অনুসন্ধানে গিয়ে দেখা গেছে, নির্বিঘ্নে যাত্রীদের বাড়ি পেঁৗছাতে মাওয়া ঘাটে প্রতিবারের মতো এবারও নেওয়া হয়েছে অতিরিক্ত কিছু ব্যবস্থা। কর্তৃপক্ষ আশা করছে এ বছর যাত্রীরা মাওয়া দিয়ে নির্বিঘ্নে ও স্বাচ্ছন্দ্যে বাড়ি পেঁৗছতে পারবেন।

বিআইডাবি্লউটিসির মাওয়া অফিসের এজিএম আশিকুজ্জামান কালের কণ্ঠকে জানান, অপ্রশস্ত ঘাট এলাকার জন্য এখানে যানজট লেগে যায়। ঘাটে যানজট লেগে গেলে ফেরি থেকে যানবাহনগুলোকে অফলোড করা দুরূহ ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়। আর ফেরি থেকে গাড়িগুলোকে নামাতে না পারলে পরবর্তী ফেরিটি ঘাটে ভেড়ার অপেক্ষায় নদীতে ভাসতে থাকে। এভাবে একসময় নদীতে ফেরিজট লেগে যায়। তা ছাড়া মাওয়ার তিনটি ফেরিঘাটের মধ্যকার দূরত্ব অতি অল্প। এই ফেরি ঘাটগুলোর মাঝে আবার রয়েছে লঞ্চ টার্মিনাল, সিবোট ও ট্রলার ঘাট। এসব কারণে ফেরিঘাটের ভেতরে মারাত্মক সমস্যা হয়। লোকাল বসের আধিক্যকেও তিনি যানজটের অন্যতম কারণ বলে মনে করেন।

এত কিছুর পরও এবার ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের নির্বিঘ্নে বাড়ি পেঁৗছাতে বিআইডাবি্লউটিসি এবার মাওয়া-কাওরাকান্দি নৌরুটে সর্বোচ্চসংখ্যক ফেরি পারাপারের জন্য প্রস্তুত করেছে। প্রতিবছর ঈদে মাওয়ায় ১২-১৩টি ফেরি থাকলেও এবার নিয়মিত ১৪টি ফেরি রয়েছে। এরই মধ্যে একটি কে টাইপ ফেরি যুক্ত হয়েছে। দুই-এক দিনের মধ্যে আরো একটি রো রো ফেরি মাওয়া ফেরিবহরে যুক্ত হবে। ১৬টি ফেরি দিয়ে প্রতিদিন এ নৌরুটে আড়াই থেকে তিন হাজার যানবাহন পারাপার করে যাত্রীদের স্বচ্ছন্দ্যে পদ্মা পার করে দিতে মাওয়া ফেরি সার্ভিস কর্তৃপক্ষের তেমন বেগ পেতে হবে না বলে আশা প্রকাশ করেছেন আশিকুজ্জামান।

এএসপি সার্কেল (শ্রীনগর) সাইফুল ইসলাম জানান, এবার ঈদে মাওয়া ঘাটকে যানজট মুক্ত রাখতে এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় ১০০ কমিউনিটি পুলিশ ও দেড় শ নিয়মিত পুলিশ সদস্য নিয়োজিত থাকবেন। মাওয়া চৌরাস্তা থেকে একটু উত্তরে পেট্রল পাম্পের কাছে সব গাড়ি রাস্তার পাশে লাইনে দাঁড় করিয়ে রাখা হবে। সেখান থেকে যাত্রীবাহী বাস বা বড় গাড়িগুলোকে মাওয়া বিআইডাবি্লউটিএর পার্কিং ইয়ার্ডে পাঠানো হবে। আর ছোটগাড়ি বা প্রাইভেট কারগুলোকে মাওয়া কালিরখিল মাঠ বা গরুর হাটের মাঠে পাঠানো হবে। ফেরি এলে সেখান থেকে প্রয়োজনীয়সংখ্যক গাড়িকে ফেরিতে পাঠানো হবে। খালি হয়ে যাওয়া পার্কিং ইয়ার্ডে আবার পেট্রলপাম্পের কাছে সিরিয়ালে দাঁড়িয়ে থাকা গাড়িগুলোকে পাঠিয়ে ইয়ার্ড পূরণ করা হবে। কোনো মতেই মাওয়া চৌরাস্তা থেকে ঘাট পর্যন্ত কোনো গাড়িকে রাস্তার পাশে দাঁড়াতে দেওয়া হবে না। এতে ঘাট এলাকা যানজট মুক্ত থাকবে এবং ফেরি থেকে গাড়ি নেমে দ্রুত ঢাকার দিকে যেতে পারবে। ফেরিতে গাড়ি উঠতেও কোনো সমস্যা হবে না। তিনি জানান, মাওয়া ঘাট এলাকার সব লোকাল বাসস্ট্যান্ড মাওয়া চৌরাস্তায় সরিয়ে নেওয়া হবে। যাত্রী নামিয়ে দিয়ে সেখান থেকেই বাসগুলো আবার ঢাকায় চলে যাবে। মাওয়া ঘাট ইজারাদার সিরাজুল ইসলাম (সিরাজ মেম্বার) জানিয়েছেন, ঈদে ঘরমুখো মানুষকে দ্রুততার সঙ্গে পদ্মা নদী পার করে দিতে পর্যাপ্তসংখ্যক ট্রলার ও সিবোট প্রস্তুত রাখা হয়েছে। মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসক আজিজুল আলম জানান, প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করে যাত্রীদের স্বচ্ছন্দে বাড়ি পেঁৗছে দেওয়ার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply