গ্যাব্রিয়েলা মিস্ত্রাল : রহস্যে ঘেরা এক বিষণ্ন জীবন

পূরবী বসু
গ্যাব্রিয়েলা মিস্ত্রাল (১৮৮৯-১৯৫৭) লাতিন আমেরিকা থেকে সাহিত্যে একমাত্র নোবেল বিজয়ী নারী। জন্মস্থান চিলিতে তিনি অত্যন্ত উচ্চাসনে প্রতিষ্ঠিত। সেখানে তাঁকে সকলে “গড়ঃযবৎ ড়ভ ঃযব ঘধঃরড়হ” বলে জানেন। লাতিন আমেরিকার লেখকদের মধ্যে গ্যাব্রিয়েলাই প্রথম সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার অর্জন করেন। উত্তর চিলিতে পাহাড়ের পাদপ্রান্তে ছোট্ট ক্ষরস্রোতা নদীর ধারে ভিকুনিয়া গ্রামে, অনিন্দ্যসুন্দর প্রাকৃতিক পরিবেশে জন্ম নেন গ্যাব্রিয়েলা। ঝকঝকে নীল আকাশ, এলোমেলো হাওয়া, চারদিকে বিভিন্ন রকম পশুপাখি আর গাছগাছালি দেখতে দেখতে বড় হন তিনি। তার শৈশবের এই মনোরম পরিবেশের স্মৃতি কোনদিন ভুলতে পারেননি গ্যাব্রিয়েলা। প্রকৃতির সঙ্গে বরাবর-ই তাই খুব নৈকট্য বোধ করেছেন তিনি এবং এই প্রাকৃতিক সৌন্দর্য নিয়ে প্রচুর কবিতাও লিখেছেন। পরবর্তী জীবনে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে, বড় বড় সব শহরে কর্মোপলক্ষে তাঁকে থাকতে হলেও তিনি সবসময় চেষ্টা করতেন বসবাসের জায়গাটি যাতে হয় মহানগরের বাইরে নিরিবিলি প্রকৃতির কাছাকাছি কোন গ্রাম বা ছোট্ট শহরে।

গ্যাব্রিয়েলা মিস্ত্রাল তাঁর আসল নাম নয়। তিনি তাঁর প্রিয় দুই লেখকের নাম একত্রিত করে কবিতা লেখার জন্যে তাঁর কলম-নাম হিসেবে এই নাম ব্যবহার করতে শুরু করেন। তাঁর আসল নাম ছিল লুসিলা গদয় আল্কায়া। পরে গ্যাব্রিয়েলা মিস্ত্রাল নামেই তিনি পৃথিবীতে পরিচিতি লাভ করেন। তাঁর বয়স যখন তিন, তাঁর পিতা যিনি কেবল একজন প্রাথমিক স্কুলের শিক্ষক-ই ছিলেন না একজন স্বভাবকবিও ছিলেন, যখনই বাড়িতে থাকতেন গীটার বাজিয়ে রাতে ঘুমপাড়ানী গান গেয়ে শোনাতেন, মুখে মুখে বানিয়ে বানিয়ে ছড়া ও কবিতা আবৃত্তি করে শেখাবার চেষ্টা করতেন গ্যাব্রিয়েলাকে, হঠাৎ এক রাতে তাকে, তাঁর মাকে আর পনেরো বছরের বড় সৎ বোনকে ঘুমন্ত অবস্থায় ফেলে রেখে ঘর ছেড়ে চলে যান নিরুদ্দেশে। গ্যাব্রিয়েলা বাকি জীবনেও আর তাঁর বাবার খোঁজ পাননি। নিজে শিশুকাল হতেই পিতৃস্নেহ থেকে বঞ্চিত হবার কারণেই বুঝি, তার লেখা ও জীবনচর্চার একটি বড় অংশ জুড়ে ছিল শিশুদের মঙ্গল-ভাবনা ও তাদের মৌলিক চাহিদা পূরণের অঙ্গিকার। বৃহত্তর অর্থে, শিশুদের বাঁচার অধিকার নিয়ে তিনি প্রচুর সাহিত্য রচনা করেছেন, সামাজিক কর্মকা-ে অংশগ্রহণ করেছেন। তিনি বলতেন শিশুদের কল্যাণে কিছু করার জন্যে আগামীকাল যথেষ্ট তাড়াতাড়ি নয়, অনেক বিলম্ব হয়ে যায় তাতে, যা করার তা শুরু করতে হবে আজই_ এই মুহূর্তে। এছাড়া, নারী, সংখ্যালঘু ও অবহেলিত গোষ্ঠিসহ সমাজের সকল নির্যাতিত, নিপীড়িত, পিছিয়ে পড়া মানুষের জন্য গ্যাব্রিয়েলার আন্তরিক সমবেদনা ছিল। সামাজিক ন্যায়বিচারের চাইতে বড় ও মহৎ কিছু তিনি ভাবতে পারতেন না।

গ্যাব্রিয়েলার শিশুকাল খুব সুখের ছিল না। কাছাকাছি ভালো স্কুল না থাকায় তাকে একটু দূরের শহরে স্কুলে ভর্তি করানো হয়েছিল। কিন্তু একদিন স্কুল থেকে খাতা-পেন্সিল চুরি করার দায়ে তাকে অভিযুক্ত করা হয়। গ্যাব্রিয়েলা, বরাবর যিনি সামাজিক ন্যায়বিচারের ও অভাবীদের মধ্যে সম্পদ বিতরণের সপক্ষে, এটাকে তেমন অপরাধ হিসেবে কখনো গণ্য করেননি। এছাড়া তিনি যখন প্রাইমারি স্কুল শেষ করে সেকেন্ডারি স্কুলে ভর্তি হতে গেছেন, তাকে সেই স্কুলে ভর্তি করানো যায়নি কেননা স্কুল কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে বলা হয়েছে যে গ্যাব্রিয়েলাকে ভর্তি করালে অনেক ঝামেলা পোহাতে হবে। কারণ, সে নিয়মিত কবিতা লেখে, কবিতার চর্চা করে। তাঁদের মতে, কবিতা লেখা তার প্রকৃত খৃষ্টান হয়ে ওঠার পরিপন্থি। স্কুল কতৃর্পক্ষের ভয়, গ্যাব্রিয়েলা কালে যীশুর ভক্ত না হয়ে প্রকৃতিপ্রেমিক হয়ে উঠবেন। গ্যাব্রিয়েলা তখন তার বড় বোনের কাছে ঘরেই পড়াশোনা শুরু করেন। যখন ষোল বছর বয়স গ্যাব্রিয়েলার, তখন থেকে তিনি প্রথমে স্কুলে শিক্ষকের সহকারী হিসেবে কাজ করেন এবং পরে নিজেই শিক্ষকতা করে তার নিজের এবং মা-বোনের সমস্ত আর্থিক দায়িত্ব পালন করতে শুরু করেন। পরে অনেক কষ্ট করে তিনি শিক্ষকতা করার লাইসেন্স অর্জন করেন। ১৯২১ সালে গাব্রিয়েলা তাঁদের অঞ্চলের সবচেয়ে নামকরা মেয়েদের স্কুল, সান্টিয়াগো হাই স্কুল-এর প্রিন্সিপাল হন। ১৯২২ সালে তিনি মেক্সিকোর শিক্ষামন্ত্রীর আমন্ত্রণে মেক্সিকো যান সেখানে গরিব ছেলেমেয়েদের জন্যে শিক্ষার পলিসি ও পরিকল্পনা তৈরি করার জন্যে। অন্য অনেক কিছুর মধ্যে গ্যাব্রিয়েলা ভ্রাম্যমাণ গ্রন্থাগার প্রবর্তন করেন সেখানে যাতে সবাই সাহিত্যরস আস্বাদনের সুযোগ পায়। এর পর একে একে গ্যাব্রিয়েলা ইউরোপ ও আমেরিকায় বেশ কয়েকটি দেশ ভ্রমণ করেন, সেসব দেশের শিক্ষার কলাকৌশল জানার জন্যে। দেশে ফিরে যতটা সম্ভব ভালো পদ্ধতিগুলো প্রয়োগ করার চেষ্টা করেন। ১৯২৩ সালে চিলি সরকার তাঁকে “জাতীয় শিক্ষক” খেতাবে ভূষিত করেন। এতো কর্মব্যস্ততার মধ্যেও গ্যাব্রিয়েলা কিন্তু নিয়মিত লিখে যাচ্ছিলেন কবিতা। ১৯২২ সালে তাঁর প্রথম কবিতার বই প্রকাশিত হয়, যার বেশিরভাগ কবিতা মৃত্যু ও মৃত্যুজনিত শোক নিয়ে লেখা। এটি তিনি লিখেছিলেন তার কিশোর বয়সের প্রেমিক আত্মহত্যা করার পরপরেই। কিন্তু এর ঠিক তিন বছরের মধ্যেই গ্যাব্রিয়েলা বাচ্চাদের জন্যে একটি কবিতার সঙ্কলন বের করেন যার প্রধান বিষয়বস্তু জন্ম, মাতৃত্ব ও জীবনের জয়গান। তিনি কবিতা ছাড়াও কল্পকাহিনী ও গল্প লিখতে শুরু করেন। তাঁর লেখার মূল বিষয় প্রেম, মৃত্যু, শিশুকাল, মাতৃত্ব, ধর্ম, প্রকৃতির সৌন্দর্য, অন্যায়ের প্রতিবাদ, নির্যাতিতের ও অবহেলিতদের হয়ে কথা বলা, সর্বোপরি ল্যাটিন আমেরিকা ও তার জনগণের প্রতি প্রগাঢ় ভালোবাসা। ধীরে ধীরে গ্যাব্রিয়েলা দেশের একজন বিখ্যাত ও সর্বজন শ্রদ্ধেয় ব্যক্তি হিসেবে স্বীকৃত হন। চিলিয়ান সরকার তাঁকে রাষ্ট্রদূত করে বিভিন্ন দেশের কন্সুলেটে পাঠান। এসব দেশের মধ্যে ব্রাজিল, স্পেন, পর্তুগাল, ফ্রান্স, যুক্তরাষ্ট্র, এবং জাতিসংঘ উল্লেখযোগ্য। এর-ই ভেতর মাঝে মাঝে তিনি ভিজিটিং প্রফেসর হিসেবে আমেরিকার বিখ্যাত কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে, যেমন, বার্নাড কলেজ, ভাসার কলেজ ও কলাম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে এবং পর্টোরিকোতে ইউনিভার্সিটি অব পর্টোরিকোয় পড়িয়ে আসেন। চধহ অসবৎরপধহ টহরড়হ-এ আমন্ত্রিত হয়ে বক্তৃতা দিতে গিয়ে তিনি তাঁর স্বপ্নের একীভূত আমেরিকার কথা বারবার বলেছেন, যেখানে এংলোস্যাক্সনরা ইন্ডিয়ান বা হিস্পানিকদের ওপর তাদের প্রভুত্ব চাপিয়ে দেবে না। যেখানে ভিন্নতা দুর্বলতা বলে নয়, শক্তি হিসেবে গণ্য হবে। তিনি আবারো জোর দিয়েছেন “ফরংংরসরষধৎরঃু রিঃযড়ঁঃ রহভবৎরড়ৎরঃু”-র ওপর। গ্যাব্রিয়েলা যে সম্মিলিত আমেরিকার স্বপ্ন দেখতেন, তা সকল বর্ণ, সকল ধর্ম, সকল দেশীয় উৎসের স্বীকৃতি দিয়ে, মোটকথা প্রাকৃতিক বৈচিত্র্য রক্ষা করে বৃহত্তর স্বার্থে দু’টি মহাদেশের সকল রাষ্ট্রের জন্যে একটি ভৌগোলিক ও অর্থনৈতিক জোট তৈরি করবে। তিনি বলতেন, ও নবষরবাব ঃযধঃ ফরভভবৎবহপব রহ ঃযব পধংব ড়ভ যঁসধহরঃু, ধং বিষষ ধং রহ হধঃঁৎব, রং সবৎবষু ধহড়ঃযবৎ ভড়ৎস ড়ভ বহৎরপযসবহঃ. এই সময় গ্যাব্রিয়েলা আমেরিকা ছাড়াও ইউরোপের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়েও ভাষণ দেন। গ্যাবরিয়েলা লীগ ফর ইন্টেল্লেকচুয়েল কো-অপারেশন অব দ্য লীগ অব নেশনস-এর সঙ্গে যুক্ত হয়ে প্রচুর কাজ করেন। ১৯৪৫ সালে তিনি সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার পান। পৃথিবীর বিভিন্ন জায়গায় ঘুরতে ঘুরতে এবং নানান সম্মেলনে যোগ দেবার ফলে জগৎ-বিখ্যাত বেশ কয়েকজন ব্যক্তির সঙ্গে তার ইতোমধ্যেই বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। এঁদের মধ্যে মেরী ক্যুরি, হেনরি বার্গসন ও ভিক্টোরিয়া ওকাম্পোর নাম উল্লেখযোগ্য। কিন্তু তিনি অতি পরিতাপের সঙ্গে লক্ষ্য করেন, তাঁর নোবেলপ্রাপ্তি এক অর্থে তাঁকে আরো একাকী ও বন্ধুহীন করে দিয়েছে। এই মহা পুরস্কার ঘোষণার পর গ্যাব্রিয়েলার ব্যক্তিগত বন্ধুরা অনেকেই দূরে সরে গেছেন। ১৯৫৬ সালের ১৫ মার্চ তিনি তার বন্ধু ভিক্টোরিয়া ওকাম্পোকে এক চিঠিতে দুঃখ করে লিখেছিলেন, “ধর ঐ নোবেল পুরস্কার পাবার ব্যাপারটি-ই। এ শুধু বিভিন্ন মানুষকে আমার কাছ থেকে দূরে সরিয়েই দেয়নি, তারা কেউ আর আমাকে চিঠিপত্র পর্যন্ত লেখে না আর, এবং সেটা অদ্যাবধি চলছে। এই নোবেল পুরস্কার দুজন কিংবা তিনজন মানুষকে আমার জীবন থেকে চিরদিনের জন্যে উধাও করে দিয়েছে।”

কর্মজীবনে যত সাফল্য-ই আসুক না কেন, গ্যাব্রিয়েলার ব্যক্তিগত জীবন ছিল অনেকগুলো বেদনাদায়ক ঘটনার সমষ্টি। বেশ কয়েকটি অতি প্রিয় নিকটজনের অকস্মাৎ এবং অস্বাভাবিক মৃত্যুতে তিনি ছিলেন ক্ষতবিক্ষত। চিলির জনগণের কাছে গ্যাব্রিয়েলার সামগ্রিক অবস্থান এবং তাঁর প্রতি মানুষের দেবতুল্য ভক্তি-শ্রদ্ধা, তাঁর সাহিত্যে নোবেল বিজয়, জীবনের বিভিন্ন পর্যায়ে তাঁর ঘনিষ্ঠজনদের একের পর এক অসময়ে মৃত্যুবরণ, মধ্য জীবনে ভিক্টোরিয়া ওকাম্পোর সঙ্গে বন্ধুত্ব, বহু দেশ ভ্রমণ, প্রচুর বিখ্যাত ব্যক্তির সঙ্গলাভ ইত্যাদি অনেক ব্যাপারেই বাঙালি জাতি ও রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সঙ্গে চিলির জনগণ ও গ্যাব্রিয়েলা মিস্ত্রালের অনেক সাদৃশ্য রয়েছে।

ছোটবেলায় পিতা-দ্বারা পরিত্যক্ত হবার পর থেকে একে একে কিশোর প্রেমিক, ঘনিষ্ঠ ব্যক্তিগত বন্ধু, মা, অতি প্রিয় প্রতিবেশি বন্ধু-দম্পতি এবং সর্বশেষে পালিত পুত্র হুয়ান মিগুয়েল (ডাক নাম ইয়েন ইয়েন)-এর অসময়োচিত এবং অস্বাভাবিক মৃত্যু গ্যাব্রিয়েলাকে প্রচ- আঘাত করে। জীবনের শুরুতে যখন তার নিজের-ই সহায়-সম্বলহীন অবস্থা, তিনি অসহায়ভাবে দেখেছিলেন তার জীবনের প্রথম প্রেমকে নিঃশেষিত হয়ে যেতে। কর্মজীবনের সাফল্যের চূড়ায় দাঁড়িয়ে ১৯২৯ সালে দূর থেকে তিনি শুনলেন তাঁর মায়ের মৃত্যু সংবাদ। এছাড়া একে একে বন্ধু ম্যানুয়েলের মৃত্যু এবং পাশের বাড়ির অস্ট্রিয়ান-ইহুদী বন্ধু-দম্পতির আত্মহত্যা তার জীবনকে এলোমেলো করে দেয়। কিন্তু সকল যন্ত্রণা, সকল দুঃখ, সমস্ত শোক, সকল মৃত্যুকে অতিক্রম করে গ্যাব্রিয়েলা মিস্ত্রালকে সম্পূর্ণ অবশ এবং বিপর্যস্ত করে ফেলে তার পালিত পুত্র ইয়েন ইয়েনের অস্বাভাবিক মৃত্যু।

গ্যাব্রিয়েলাকে মানসিকভাবে পুরোপুরি ভেঙ্গে চুরমার করে দিয়ে যায় এই মৃত্যু যার থেকে বাকি জীবনেও পরিত্রাণ পান না তিনি। স্বপ্নে বা ভৌতিক অবয়বে ইয়েন ইয়েনকে আবার দেখতে পাবেন এই আশায় তিনি প্রতিরাতে ঘুমুতে যেতেন। বাস্তব ও কল্পনার জগতের ভেতর সীমারেখা ঘুচে গিয়েছিল তাঁর কাছে। তিনি এই দুই জগতের মধ্যে অহরহ ঘুরে বেড়াতেন, একই সঙ্গে দু’জায়গাতেই, কল্পনা ও বাস্তবে, বিচরণ করতেন। আর্সেনিক খেয়ে আঠারো বছরের ইয়েন ইয়েন আত্মহত্যা করেছে, প্রমাণস্বরূপ রেখে গেছে আত্মহত্যার নোট। তা সত্ত্বেও গাব্রিয়েলা এই সত্য কখনো স্বীকার বা বিশ্বাস করতে চাননি। মানতে পারেননি। তাঁর ধারণা ব্রাজিলের ঈর্ষান্বিত কিছু বখাটে ও সন্ত্রাসী তরুণ মিলে তাকে খুন করেছে।

গ্যাব্রিয়েলা মিস্ত্রালের যৌনচেতনা, যৌনপছন্দ বা যৌন-সম্পর্কের ব্যাপারটাও ছিল যথেষ্ট বিতর্কিত ও কুয়াশাচ্ছন্ন। সাহিত্যে, আলোচনায়, এমনকি তাঁকে নিয়ে রচিত চলচ্চিত্রেও গ্যাব্রিয়েলাকে সমকামী বলে চিত্রায়িত করা হয়েছে। কট্টর সমকামীরা তো গ্যাব্রিয়েলাকে সমকামী ছাড়া আর কিছু ভাবেন-ই না। শিক্ষাবিদ, কূটনৈতিক নেতা, অসাধারণ কবি, অত্যন্ত মনোগ্রাহী বক্তা, প্রচ- ব্যক্তিত্বসম্পন্ন চেহারার অধিকারী গ্যাব্রিয়েলা মিস্ত্রাল।

পৃথিবী-জুড়ে তাঁর পরিচিতি। চেনাজানা মানুষ তাঁর সর্বত্র ছড়িয়ে। বন্ধুত্ব রয়েছে গ্যাব্রিয়েলার বিশাল ক্ষমতাধর ও খ্যাতিমান সব ব্যক্তিদের সঙ্গে। তা সত্ত্বেও গ্যাব্রিয়েলা আজীবন অবিবাহিত-ই ছিলেন। তবে জীবনের বিভিন্ন পর্যায়ে তিনি দীর্ঘ সময়ের জন্যে কোন না কোন পেশাজীবী নারীর সঙ্গে এক-ই গৃহে একত্রে বসবাস করেছেন, যদিও তিনি নিজে বা তাঁর কথিত প্রেমিকারা কেঊ কখনো প্রকাশ্যে তাদের সমকামিতার কথা স্বীকার করেন নি। চিলির জনসাধারণ, যারা তাঁকে প্রায় দেবীর স্থলে অধিষ্ঠিত করেছেন, যাদের কাছ গ্যাব্রিয়েলা মাতৃপ্রতিমার মতো, তারাও তাঁর সমকামিতার কথা বিশ্বাস করেন না। তবে জীবনের শুরুতে যে তিনি সমকামী ছিলেন না, তার বড় প্রমাণ, যখন তিনি সবে কিশোরী, তাঁর সঙ্গে খুব গভীর প্রণয় গড়ে উঠেছিল রোমিও উরিতো নামে এক কিশোর রেলওয়ে কর্মচারীর। কিন্তু অফিসের আর্থিক লেনদেনের ব্যাপারে কোন অনিয়ম ধরা পড়ার কারণে রোমিও যখন আত্মহত্যা করে, তার মৃতদেহের সঙ্গে গ্যাব্রিয়েলার একখানা পোস্টকার্ড ছাড়া আর কিছু পাওয়া যায়নি। অসময়ে প্রেমিকের এরকম অস্বাভাবিক এবং আকস্মিক মৃত্যু, বিশেষ করে মারা যাবার সময় পৃথিবীর অন্য কোন কিছু সঙ্গে না নিয়ে কেবল গ্যাব্রিয়েলার লেখা একখানি চিঠি বহন করা, গ্যাব্রিয়েলার মনে গভীর দাগ কাটে। তিনি তাঁর প্রথম পুরস্কার বিজয়ী কবিতা “মৃত্যুর সনেট” রচনা করেন রোমিও মারা যাবার পর পর-ই, তার নিজস্ব শোকের অভিজ্ঞতা নিয়ে। বাকি জীবনে অন্য আর কোন পুরুষের সঙ্গে (স্বল্পকালের জন্যে ম্যানুয়েলের সঙ্গে ছাড়া) গ্যাব্রিয়েলার দীর্ঘ বা স্থায়ী রোমান্টিক সম্পর্ক গড়ে উঠেছে বলে শোনা যায়নি। তখনকার দিনে গ্যাব্রিয়েলার মতো উচ্চশিক্ষিত, রুচিশীল, সফল রাষ্ট্রদূত, শিক্ষাক্ষেত্রে বিশ্ব-পরিচিত পরামর্শক ও স্বনামধন্য কবির পক্ষে আকর্ষণীয় পুরুষের সঙ্গলাভ কোন ব্যাপার-ই ছিল না। বরং চিলির প্রেসিডেন্ট থেকে শুরু করে অনেক রাষ্ট্রনায়ক, কূটনৈতিক নেতা, কবি, সাহিত্যিক, শিল্পী, শিক্ষাবিদ তার সুহৃদ ও অনুরাগী ছিলেন। কিন্তু অধিকাংশ ক্ষেত্রেই গ্যাব্রিয়েলার জন্যে এদের কাউকে কাউকে দূরে সরিয়ে রাখাই ছিল মস্ত বড় চ্যালেঞ্জ; কাছে টানা নয়। তাঁর জীবন নিয়ে ইয়ুরি লাবার্কা একটি ছায়াছবি নির্মাণ করেন যার নাম খধ চধংধলবৎড়. সেখানে দেখানো হয়েছে মিস্ত্রালের সেক্রেটারি, বন্ধু ও গৃহসঙ্গি আমেরিকান নারী ডরিস ডানার সঙ্গে গ্যাব্রিয়েলার রোমান্টিক ও যৌন সম্পর্ক ছিল। ডরিস নিজেও সাহিত্যামোদী ছিলেন, লিখতেন, সাহিত্য পাঠ করতেন। কিন্তু তিনিও সারাজীবনে বিয়ে করেননি, এবং মিস্ত্রালের মৃত্যু অবধি তাঁর সঙ্গেই থেকেছেন। মিস্ত্রাল সম্পর্কে মন্তব্য করতে গিয়ে যদিও প্রায় সকলেই ডরিস ডানাকে গ্যাব্রিয়েলা মিস্ত্রালের প্রেমিকা ও গৃহসঙ্গী বলে দাবি করেন, মিস্ত্রালের ওপর বহুদিন ধরে নিবিড় গবেষণা করেছেন যে এলিজাবেথ হোরান, তাঁর গবেষণালব্ধ সারাংশ এই ধারণা দেয় যে, এই দুই নারীর ভেতর রোমান্টিক বা যৌন সম্পর্ক ছিল না। মাতৃবৎসল মিস্ত্রাল খুব সম্ভবত ডরিস ডানাকে কন্যার মতো ভালোবাসতেন। এর মধ্যে কোন্টা সত্য, কোন্টা কাল্পনিক আজো কেউ জানে না। তবে ঘঘউই (ঘড়ঃধনষব ঘধসবং উধঃধ ইধংব) একটি নির্ভরযোগ্য ড়হষরহব ফধঃধনধংব সংস্থা যারা পৃথিবীর ৩৬,০০০-এরও বেশি বিখ্যাত মানুষের জীবনের মৌলিক তথ্য একত্রিত করেছে)-র মতে গ্যাব্রিয়েলা মিস্ত্রাল উভকামী ছিলেন। ওই সময়ে আরেক বিখ্যাত লাতিন আমেরিকান সাহিত্যিক, সাংবাদিক, সম্পাদক ও বিদগ্ধ নারী, অসাধারণ সুন্দরী আর্জেন্টিনার ভিক্টোরিয়া ওকাম্পো, যাঁর সঙ্গে মহাত্মা গান্ধী এবং জওহরলাল নেহরু ছাড়াও রবীন্দ্রনাথের-ও সখ্য ছিল, গ্যাব্রিয়েলার বিশেষ বন্ধু ছিলেন। ১৯২৪ সালে দক্ষিণ আমেরিকা ভ্রমণকালে আর্জেন্টিনায় এসে অসুস্থ হয়ে পড়লে রবীন্দ্রনাথ দীর্ঘ দু’মাসের জন্যে ভিক্টোরিয়ার আতিথিয়তা গ্রহণ করেছিলেন। ভিক্টোরিয়া নামটিকে বাংলা তর্জমা করে রবীন্দ্রনাথ তাঁকে বিজয়া বলে ডাকতেন। ‘পূরবী’ কাব্য রচনা করেছিলেন তিনি ভিক্টোরিয়াকে নিয়েই, এবং এই কবিতাগ্রন্থ তিনি তার বিজয়াকেই উৎসর্গ করেছিলেন। ভিক্টোরিয়া ওকাম্পোর সঙ্গে গ্যাব্রিয়েলা মিস্ত্রালেরও দীর্ঘদিনের বন্ধুত্বের সম্পর্ক ছিল, প্রধানত চিঠিপত্রের মাধ্যমে, তবে তাঁদের দেখাও হয়েছে কয়েকবার। এইসব গুচ্ছ গুচ্ছ চিঠি থেকে, সম্বোধন দেখে, বক্তব্য পড়ে, বিশেষ করে ভিক্টোরিয়ার কাছ থেকে চিঠির উত্তর না পেলে মিস্ত্রালের অনুরাগ, অভিমান ও আকুলতার প্রকাশ দেখে বোঝা যায় গ্যাব্রিয়েলার হৃদয়ে ভিক্টোরিয়ার জন্যে একটি বিশেষ স্থান ছিল। তবে বহু বিখ্যাত পুরুষের হৃদয়-কাড়া স্বামী-ত্যাগী স্বাধীনচেতা ভিক্টোরিয়ার তরফ থেকে তাদের সম্পর্কে পারস্পরিক সখ্য ছাড়াও ছিল সাহিত্য-রাজনীতি এবং লাতিন আমারিকার ভবিষ্যতসহ বিভিন্ন বিষয়ে মতামতের আদানপ্রদান এবং বুদ্ধিবৃত্তিভিত্তিক আলোচনার সুযোগ। মিস্ত্রালের জীবনের শেষ তিরিশ বছর, ১৯২৬ থেকে ১৯৫৬ পর্যন্ত, তাদের এই পত্র যোগাযোগ অব্যাহত ছিল। এই সময়ের ভেতর লেখা গ্যাব্রিয়েলার ৮৪টি ও ভিক্টরিয়ার ৩৬টি চিঠি উদ্ধার করা হয়েছে (ঞযরং অসবৎরপধ ড়ভ ঙঁৎং; ঊফরঃবফ নু ঊ. ঐড়ৎধহ ধহফ উ. গবুবৎ; ২০০৩) যা পরে অনূদিত হয়েছে ইংরেজিসহ বিভিন্ন ভাষায়। কাকতালীয়ভাবে, গ্যাব্রিয়েলা ও ভিক্টোরিয়া, এই দুই নারী? জন্মদিন-ও ছিল একই দিনে, ৭-ই এপ্রিল। গ্যাব্রিয়েলা ছিলেন এক বছরের বড়, ভিক্টোরিয়ার থেকে। অন্তত একবার (১৯৩৭ সালে) তারা দুজনে একসঙ্গে তাদের জন্মদিন পালন করেন ভিক্টোরিয়াদের আর্জেন্টিনার পৈতৃক নিবাস ওকাম্পো ভিলাতে। অন্যান্য বছর তারা দূর থেকে পরস্পরকে শুভেচ্ছা জানান, ফুল বিনিময় করেন জন্মদিনে। সেবার একই বাড়িতে থাকা সত্ত্বেও গ্যাব্রিয়েলা ভিক্টোরিয়াকে কয়েকটি চিঠি লেখেন, যার ভেতর ফুটে ওঠে ভিক্টোরিয়ার প্রতি তার গভীর মমত্ব-ভালোবাসা। নিচে সেই সময়ে গ্যাব্রিয়েলার লেখা দু’টো ছোট্ট চিঠির অনুবাদ করে দেওয়া হলো। যদিও তারিখ দেওয়া নেই, এলিজাবেথ হোরান ও ডরিস মাইয়ারের মতে চিঠিগুলো লেখা হয়েছিল ১৯৩৭ সালের এপ্রিলের প্রথম দিকে যখন তারা দুজন একত্রে একই বাড়িতে তাদের জন্মদিন পালন করেছিলেন বুয়েনস সেরাস, আর্জেন্টিনাতে।
***

প্রিয় ভিক্টোরিয়া,
কাল রাতে তোমার ওই ভয়ানক কাশির জন্যে, আমার ভয় হয়, আমার ধূমপানই দায়ী ছিল। তোমার ওই অবসাদের জন্যেও। আমি খুব বিনীতভাবে তোমাকে অনুরোধ করছি আমার কথামতো চল। নিরাময়ের জন্যে এর চেয়ে ভালো আর কিছু হতে পারে না।

বিছানা ছেড়ে উঠো না এখন। নিজের ঘরের ভেতরে থেকেই বিশ্রাম কর। এ জন্যে যদি আমাদের পরস্পরের সঙ্গে আজ আর দেখা না হয়, তা-ও ঠিক আছে। ফ্লু কিন্তু অনেক হিংসুটের চাইতেও বেশি ঈর্ষাকাতর।
তুনি যাতে বিশ্রাম করতে পার, আমি তোমার সঙ্গে দেখা করতে যাচ্ছি না।
তোমার গ্যাব্রিয়েলা

***
প্রিয় ভিক্টোরিয়া,
আমি ঘুমিয়েছি। একসঙ্গে অনেকক্ষণ ধরে গভীর ঘুমে অচৈতন্য হয়ে নয়। তবে ঘুমিয়েছি। যখন জেগে উঠলাম, আমার খেয়াল ছিল না আমি কোথায় আছি, যতক্ষণ না ভিক্টোরিয়ার মুখখানা ভেসে উঠলো আমার মনে। তারপর পীচ আর ডুমুর চলে এলো…

আমি কৃতজ্ঞ যে তুমি আমাকে একটু একটু ভালোবাসো। সম্ভবত ঘুম ছাড়া শুধু এই জিনিসটির-ই দরকার আমার।
তুমি যদি কালকের মতোই থেকে থাক, তাহলে তুমি কালকের মতো ভালো নেই (ওভ ুড়ঁ ধৎব ঃযব ংধসব ধং ুবংঃবৎফধু, ঃযবহ ুড়ঁ’ৎব হড়ঃ ধং বিষষ ধং ুবংঃবৎফধু)। ঘুম থেকে উঠে আজ তোমার অনেক ভালো থাকার কথা।

গতকাল হয়তো তোমাকে আমি ক্লান্ত করে দিয়েছি। তুমি আমাকে আর এতো কথা বলতে দিও না, বিশেষ করে স্পেইন সম্পর্কে।

আমি এখন তোমার গাছ-গাছালি দেখতে বেরুবো। সেই সঙ্গে কিছু চিঠিপত্র লিখবো।
নেরুদা* চিলি থেকে যে সব কাগজপত্র নিয়ে আসবে আমি তা পড়ার জন্যে অপেক্ষা করছি।
ঈশ্বর তোমায় ভালো রাখুন।

গ্যাব্র
*চিলির আরেক বিখ্যাত নোবেল বিজয়ী কবি, পাবলো নেরুদা, তখন ফ্রান্স থেকে চিলিতে ফিরে গিয়ে গ্যাব্রিয়েলার বন্ধু পপুলার ফ্রন্টের প্রতিনিধি পেদ্রো আগুরে সার্ডারের প্রেসিডেন্ট প্রার্থিতার জন্যে ভোটের প্রচারকার্যে ব্যস্ত ছিলেন। নেরুদা মিস্ত্রালের পূর্ব-পরিচিত। নেরুদা যখন সবে হাইস্কুলে পড়েন, তখন-ই তার কবিতা পড়ে মিস্ত্রাল তাঁকে লিখতে অনুপ্রেরণা দিয়েছিলেন। এছাড়া, গাব্রিয়েলা যখন স্পেইনে কনসুলার ছিলেন, তখন পাবলো নেরুদা সেই এক-ই কূটনৈতিক মিশনে চাকরি নিয়ে মাদ্রিদে গিয়েছিলেন।
*******

ভিক্টোরিয়া ওকাম্পোকে গ্যাব্রিয়েলা মিস্ত্রাল যে কতখানি বিশ্বাস করতেন, কতখানি আপন মনে করতেন এবং তার ওপর গ্যাব্রিয়েলার কত বেশি আস্থা ও নির্ভরতা ছিল, তার প্রমাণ ১৯৩৮ সালের ১৮ এপ্রিল তিনি ওকাম্পোকে একটি চিঠিতে লিখেছিলেন, ইয়েন ইয়েন এর বয়স চৌদ্দ (রোজগার করার জন্যে যথেষ্ট বড়) হবার আগেই যদি গাব্রিয়েলার মৃত্যু হয়, আর পামা গিলেন এবং মার্গোট আর্কের (গ্যাব্রিয়েলার দুই নারী-বন্ধু যারা ইয়েন ইয়েনের খুব কাছাকাছি ছিলেন মাদ্রিদ, যখন ইয়েন ইয়েন বেশ ছোট ছিল) যদি ততদিনে বিয়ে হয়ে যায়, ভিক্টোরিয়া যেন ইয়েন ইয়েনের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। শেষ বাক্যে গ্যাব্রিয়েলা ওকাম্পোকে লেখেন, “ঞধশব যরস পষড়ংব ঃড় ুড়ঁ, ড়ৎ ধষসড়ংঃ, ভড়ৎ সব. ও হবধৎষু ষড়ংব সু সরহফ যিবহ ও ঃযরহশ ধনড়ঁঃ রঃ.”

পালিত পুত্র ইয়েন ইয়েন সম্পর্কে মিস্ত্রালের বক্তব্য এরকম। এক দিন রাতে হঠাৎ সম্পূর্ণ অপরিচিত এক ব্যক্তি ছোট্ট এক শিশুর হাত ধরে উপস্থিত হয় তার বাসায়। নিজের পরিচয় দেয় সে গ্যাব্রিয়েলার সৎভাই (শিশুকালে তাঁর সেই গৃহত্যাগী পিতার পুত্র) হিসেবে। এই সাক্ষাতের আগে এই সৎ ভাইয়ের অস্তিত্ব সম্পর্কেও কিছু জানতেন না গ্যাব্রিয়েলা। তার সৎভাই তার শিশু পুত্র ইয়েন ইয়েনকে জোর করে গ্যাব্রিয়ালার হাতে সঁপে দিয়ে দ্রুত রাতের অাঁধারে মিশে যায়। যাবার আগে শুধু বলে যায়, তার স্ত্রী মারা যাওয়ায় ইয়েন ইয়েনকে বড় করা তার পক্ষে আর সম্ভব হচ্ছিল না। গ্যাব্রিয়েলার ভাষ্য অনুযায়ী তার কথিত সৎ ভাইয়ের (যে ভাইয়ের অস্তিত্ব সম্পর্কে আজো কেউ কিছু জানে না বা বলতে পারে না) পুত্র ইয়েন ইয়েন-কে চার বছর বয়স থেকেই তিনি তার নিজের পালিত পুত্র হিসেবে গ্রহণ করেছেন। ইয়েন ইয়েনকে অত্যন্ত বেশি স্নেহ করতেন মিস্ত্রাল। মিস্ত্রালের ওপর বিস্তৃত গবেষণা করে এলিহজাবেথ হোরানের মনে সন্দেহ জেগেছে মিস্ত্রাল কথিত ইয়েন ইয়েনের পিতৃত্বের সত্যতা সম্পর্কে। ইয়েন ইয়েন আসলেই কে ছিল এবং গাব্রিয়েলা মিস্ত্রালের সঙ্গে তার প্রকৃত সম্পর্ক কী ছিল এখনো অজানা রয়েছে। ডরিস ডানা মারা যাবার আগে তাঁর দীর্ঘ নীরবতা ভঙ্গ করে এক সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, মিস্ত্রাল তাঁকে জানিয়েছিলেন ইয়েন ইয়েন প্রকৃতপক্ষে তার ভাগ্নে নয়, নিজের-ই সন্তান। ডরিসকে তিনি নাকি বলেছিলেন, আসলে ইয়েন ইয়েন গ্যাব্রিয়েলার এবং তার ঘনিষ্ঠ বন্ধু ম্যানুয়েল মেগালেন্স মোউরের জৈবিক পুত্র। অত্যন্ত সুপুরুষ, চিলির তরুণ কবি ম্যানুয়েল মেগালেশ মৌরের সঙ্গে গ্যাব্রিয়েলার বহুদিনের সখ্য ছিল। পরিচয় হয় তাদের চিলিতে এক কবিতা প্রতিযোগিতার অনুষ্ঠানে যেখানে ম্যানুয়েল ছিলেন একজন বিচারক এবং গ্যাব্রিয়েলা যেখানে কবিতা প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেছিলেন। সেই প্রতিযোগিতায় গ্যাব্রিয়েলার কবিতাই প্রথম স্থান অধিকার করেছিল। ১৯২২-২৪ সালে তাঁরা উভয়েই যখন ইউরোপে, তাদের মধ্যে আদানপ্রদান করা চিঠিপত্র থেকে বোঝা যায় একটি পর্যায়ে তারা পরস্পরের প্রতি যথেষ্ট আকর্ষণও বোধ করতেন। তবে শারীরিক আকর্ষণ ম্যানুয়েলের তরফ থেকে যতটা তীব্র ছিল, অন্তত প্রাথমিকভাবে গ্যাব্রিয়েলার জন্যে সেটা তেমন তীব্র ছিল না। তবু একটি চিঠিতে তিনি ম্যানুয়েলকে লিখেছিলেন তার পছন্দ মতই তিনি তাঁকে ভালোবাসতে চান। গ্যাব্রিয়েলা লিখেছিলেন ুও ংযধষষ ষড়াব ধং ুড়ঁ ধিহঃ সব ঃড় ষড়াব. ইঁঃ ফড়হ’ঃ পযবধঃ ড়হ সব, গধহঁবষ, ফড়হ’ঃ মরাব সব ড়হব যধহফ ধং ুড়ঁ ংধাব ঃযব ড়ঃযবৎ ঃড় ৎবঃধরহ যিড় শহড়ংি যিধঃ ৎঁহধধিু. ও ধস হড়ঃ ঢ়ষধুরহম ধঃ ‘ষড়ারহম ঢ়ড়বঃং’; ঃযরং রং হড়ঃ ধহ বহঃবৎঃধরহসবহঃ ভড়ৎ সব, ষরশব ধহ বসনৎড়রফবৎু ড়ৎ ধ াবৎংব, ঃযরং রং ভরষষরহম সু ষরভব, ভরষষরহম রঃ ঃড় ঃযব নৎরস, ড়াবৎভষড়রিহম রহভরহরঃবষুচ্. কিন্তু ১৯২৪ সালে খুব অল্প বয়সে অকস্মাৎ ম্যানুয়েল মারা যান। আর গ্যাব্রিয়েলার কথা অনুযায়ী ইয়েন ইয়েনের জন্ম হয় ১৯২৫ সালে, বার্সোলনাতে।

১৯৪৬ সালে কালিফোনিয়ার সান্টা বারবারা শহরে গ্যাব্রিয়েলা মিস্ত্রাল একটি বাড়ি কিনেছিলেন তাঁর নোবেল পুরস্কারের অর্থ দিয়ে। এই বাড়িতে ১৯৪৬ থেকে ১৯৫০ সাল পর্যন্ত তিনি বাস করেছেন। বহুদিন পর, ১৯৬৫ সালে, চিলির অধ্যাপক ও গবেষক ম্যাগডা আর্ক (গধমফধ অৎপব) যিনি ইউনিভার্সিটি অব কালিফোর্নিয়াতে এসেছিলেন গ্যাব্রিয়েলা মিস্ত্রালের ওপর গবেষণা করতে, একদিন সান্টা বারবারার মিস্ত্রালের সেই প্রাক্তন বাড়িতে এসে উপস্থিত হন। সেখানে গিয়ে তিনি আবিষ্কার করেন, বাড়ির গ্যারাজের ভেতর বিশাল বিশাল ৯ টি ট্রাঙ্ক বোঝাই করা রয়েছে মিস্ত্রালের বহু জরুরী কাগজপত্র এবং ব্যবহৃত জিনিসপত্র, আর প্রতিটি ট্রাঙ্কের ওপর গ্যাব্রিয়েলার দুই নামের-ই আদ্যাক্ষর (“এ. গ.” ) পরিস্কার করে লেখা রয়েছে। সেই সঙ্গে প্রত্যেকটি ট্রাঙ্কের গায়ে লেখা, “ঞড় নব ংযরঢ়ঢ়বফ ঃড় ঈযরষব.” ঐ বাড়িতে তখন যারা ভাড়া থাকতেন, তাদের অনুমতি নিয়ে প্রফেসর ম্যাগডা আর্ক তিন মাস ধরে প্রতিদিন সেখানে গিয়ে কাগজপত্রগুলো নিয়ে বসতেন। সব পরীক্ষা করে, সেগুলো ভালোভাবে পড়তে শুরু করেন তিনি। তারপর বিষয়বস্তু অনুসারে ভাগ ভাগ করে ক্যাটালগ তৈরি করেন যার ভেতর প্রতিটি জিনিসের উল্লেখ রয়েছে। শেষ পর্যন্ত ১৫০টি ফাইলের মধ্যে ৯৫টি নিজের কাছে রেখে বাদ বাকিগুলো তিনি গ্যাব্রিয়েলার উত্তরাধিকারী ডরিস ডানার কাছে হস্তান্তর করেন। ডরিস ডানা সঙ্গে সঙ্গে গ্যাব্রিয়েলার অন্যান্য ব্যক্তিগত জিনিসের সঙ্গে এগুলোকেও যথাযোগ্যভাবে তাঁর তালিকা অনুসারে বাক্সবন্দি করে রাখেন। ম্যাগডা যেসব কাগজপত্র নিজের কাছে রেখেছিলেন, তার থেকে কিছু নিয়ে গ্যাব্রিয়েলার কবিতা সম্পর্কে এক দীর্ঘ গ্রন্থ রচনা করার ইচ্ছা প্রকাশ করেন। ১৯৮৯ সালে মিস্ত্রালের ওপর স্পেনিশে একখানা গ্রন্থ বেরিয়েছেও তাঁর, কিন্তু বইটি বর্তমানে আর বাজারে পাতয়া যাচ্ছে না। ১৯৯০ সালে ম্যগডার মৃত্যুর কয়েক বছর আগে তিনি তার কাছে রাখা বাকি কাগজপত্রের কিছুটা ন্যাশনাল লাইব্রেরিতে দান করে দেন, আর কিছু চিলিয়ান ব্যাঙ্কের কাছে বিক্রি করেন। এই চিলিয়ান ব্যাঙ্ক আবার ন্যাশনাল লাইব্রেরির ভল্টেই সেইসব কাগজপত্র ও দলিল রেখে দেয়। তবে গ্যাব্রিয়েলার ব্যক্তিগত কাগজপত্র ও ব্যবহৃত জিনিসগুলোর সন্ধান পাওয়া সত্ত্বেও, প্রফেসর ম্যাগডা সেগুলো সাথে সাথে এবং অক্ষত অবস্থায় পুরোটাই ডরিশ ডানার কাছে হস্তান্তর না করে কিছু নিজে রেখে, কিছু নানা জায়গার ভাগ করে দিয়ে দেবার জন্যে অত্যন্ত অসন্তুষ্ট হয়েছিলেন ডরিস ডানা। তখন থেকেই তিনি সাংবাদিক ও গবেষকদের আর বিশ্বাস করেন না, যতটা সম্ভব এদের এড়িয়ে চলার চেষ্টা করেন।

মিস্ত্রালের মৃত্যুর ঠিক অর্ধ শতাব্দি পরে সমপ্রতি (২০০৭ সালে) তার প্রচুর অপ্রকাশিত পা-ুলিপি, ছবি, চিঠিসহ অনেক ব্যক্তিগত ব্যবহৃত জিনিসপত্র-ভর্তি ১০৫টি বাক্স আবিষ্কৃত হয়েছে। এগুলো একসময় খুব যত্ন সহকারে রক্ষিত ছিল মিস্ত্রালের বন্ধু ও সেক্রেটারি ডরিস ডানার কাছে, তাঁর বাড়িতে। এর ভেতর অবশ্য-ই সান্টা বারবারা, কালিফোর্নিয়ার বাড়ি থেকে অধ্যাপক ম্যাগডার আবিষ্কৃত ৯টি ট্রাঙ্কের বেশ কিছু কাগজপত্র-ও রয়েছে। পরে, সামপ্রতিক কালে ডরিস ডানার মৃত্যুর পর তার উত্তরাধিকারী ভাগ্নী ডরিস আটকিনস্? সেই ১০৫টি বাক্স চিলির দূতাবাসে দান করে দেন। আশা করা যায় এই বাক্সের ভেতরে রক্ষিত কাগজপত্র ও দলিল নিয়ে বিস্তৃত ও নিরপেক্ষ গবেষণা একদিন গ্যাব্রিয়েলা মিস্ত্রালের রহস্যে ঘেরা ব্যক্তিগত জীবন ও তার পূর্ণ সাহিত্য কর্মের ওপর আলোকপাত করবে। তবে ইতোমধ্যেই কিছু কিছু তথ্য বেরিয়ে পড়েছে। ১০৫ বাক্স ভরা মিস্ত্রালের রেখে যাওয়া কাগজপত্রের একটি ফাইলে গ্যাব্রিয়েলা মিস্ত্রাল নিজে লিখে রেখে গেছেন ইয়েন ইয়েন তার পালিত পুত্র-ই, অনেকের ধারণা বা সন্দেহের পরিপন্থি, সে তাঁর গর্ভের সন্তান নয়। তার তথ্যানুযায়ী ইয়েন ইয়েনের জন্ম ১৯২৫ সালে বার্সিলোনা, স্পেইনে। মিস্ত্রাল জানিয়েছেন, তাঁরা দুই কর্মজীবী নারী, তিনি নিজে এবং মেক্সিকোর শিক্ষাবিদ ও কূটনৈতিক নেত্রী পামা গিলেন (চধষসধ এঁরষষবহ), মিলে শিশুকালেই ইয়েন ইয়েনের অভিভাবকত্বের দায়িত্ব গ্রহণ করেছিলেন। সেই সময় বার্সিলোনাতে এই দুই নারী একত্রে এক বাড়িতে বসবাস করতেন। যখন তাদের ডিপ্লোমেটিক কাজে একজনকে বাইরে বা বিদেশে যেতে হতো, তখন অন্যজন ইয়েন ইয়েনকে দেখশোনা করতেন। তারপর একসময় রাষ্ট্রদূত হয়ে পামা গিলেনকে অন্য দেশে চলে যেতে হয়, কিন্তু ইয়েন ইয়েন গ্যাব্রিয়েলার সঙ্গেই থেকে যায় মাদ্রিদে। স্পেইনে থাকাকালীন ঐ সময়েই স্পেনিশ সাহিত্যের অন্যতম বিশারদ, লেখক, সমালোচক এবং সাহিত্যের অধ্যাপক পোর্টোরিকোর মার্গোট আরচে (সধৎমড়ঃ অৎপব)-এর সঙ্গে আলাপ ও নিবিড় বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে মিস্ত্রালের। মিস্ত্রালের এই নারী বন্ধুটিও ইয়েন ইয়েনকে খুব স্নেহ করতেন। মার্গোট স্পেইনে গিয়েছিলেন ডক্টোরেট করতে। প্রাথমিক পর্যায়ে মিস্ত্রাল ছিলেন তার কাছে মেন্টরের মতো। পরে তাঁদের বন্ধুত্ব ও ঘনিষ্ঠতা হয়। মার্গোটের মধ্যস্থতাতেই মিস্ত্রাল পোর্তোরিকো বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াবার আমন্ত্রণ পান। মার্গোট গ্যাব্রিয়েলার কবিতার ওপর একখানি গ্রন্থ-ও রচনা করেন।

স্বভাবে অত্যন্ত খোলামেলা কথাবার্তা বলতে অভ্যস্ত গাব্রিয়েলা এই সময় কোন এক সামাজিক অনুষ্ঠানে স্পেইন সরকারের সম্বন্ধে দু’একটা নেতিবাচক মন্তব্য বা কটাক্ষ করলে তা সেই সরকারের কানে চলে যায়। প্রবল মনোক্ষুণ্ন হয়ে স্পেইন সরকার তখন চিলি সরকারকে অনুরোধ করে তাদের মাধ্যমে মিস্ত্রালকে স্পেইন থেকে সরিয়ে দেয়। ১৯৪৩ সালে গ্যাব্রিয়েলা মিস্ত্রাল যখন ব্রাজিলে গিয়ে সেখানে চিলির কনসুলেট গড়ে তোলার কাজে ব্যস্ত, তখন একদিন অতি আকস্মিকভাবে ইয়েন ইয়েন আর্সেনিক খেয়ে আত্মহত্যা করে। তার বয়স তখনো আঠারো পূর্ণ হয়নি। গ্যাব্রিয়েলার জীবনে এর চেয়ে মর্মান্তিক ঘটনা, এর চেয়ে বড় শোক, বড় আঘাত আর কিছু ছিল না। বাকি জীবনে এই ধাক্কা সামলে উঠতে পারেননি গ্যাব্রিয়েলা। তাঁর শরীর অথবা মন কোনটি-ই আর আগের মতো সুস্থ, সতেজ হয়ে ওঠেনি। ইয়েন ইয়েনের মৃত্যুর খবর পেয়েই পামা গিলেন ছুটে এসেছিলেন বন্ধু গ্যাব্রিয়েলার কাছে এবং পুরো দু’বছর তিনি ছিলেন তাঁর সঙ্গে। আজকের পৃথিবীতে দুজন নারীর পক্ষে কোন শিশুর মাতা ও পিতা উভয়ের ভূমিকা পালন করার কথা শুনলে কেউ হয়তো আমূল চমকে ওঠে না। কিন্তু চলি্লশের দশকে গ্যাব্রিয়েলা মিস্ত্রাল ও তার মেয়ে-বন্ধু পামা গিলেন ইয়েন ইয়েনকে নিয়ে মাদ্রিদে যেটা করেছেন, তা খুব সহ্জ ছিল না এবং সেই জন্যেই হয়তো তাদের যথেষ্ট আাড়াল-আবডালের-ও প্রয়োজন হয়েছিল। ইয়েন ইয়েন মারা যাবার তিন বছর পরে ১৯৪৬ সালে, পামা গিলেন বিয়ে করেন লুইস নিকোলাস দলোয়ারকে।

ইয়েন ইয়েনের এই হৃদয়বিদারক মৃত্যুর পর থেকেই গ্যাব্রিয়েলার শরীর ও মন দ্রুত খারাপ হতে শুরু করে। এই মৃত্যুর মাত্র কয়েকদিন আগেই, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে হিটলারের তৎপরতায় চারদিকে ইহুদীদের দুরবস্থা দেখে হতাশ হয়ে গাব্রিয়েলার অতি প্রিয় বন্ধু ও প্রতিবেশী ইহুদী দম্পতি (অস্ট্রিয়ান লেখক স্টেফান জুইগ ও তার স্ত্রী) একই সঙ্গে আত্মহত্যা করেন ব্রাজিলে, তাদের নিজস্ব বাসভবনে। এই সব ঘটনায় মিস্ত্রাল মানসিকভাবে একেবারে ভেঙ্গে পড়েন। জীবনের শেষের কয়েকটি বছর তিনি নিউ ইয়র্ক শহরের উপকণ্ঠে লং আইল্যান্ডের রোজলীন নামক ছোট্ট এক জায়গায় ঘন সবুজে ঘেরা মনোরম প্রাকৃতিক পরিবেশে সময় কাটান বন্ধু ও সেক্রেটারি ডরিস ডানার সঙ্গে, ডরিসেরই বাড়িতে। কিন্তু শেষের দিকে তিনি সুস্থ ছিলেন না। প্যাঙি্ক্রয়াসের ক্যান্সার একটু একটু করে ছড়িয়ে পড়ছিল তার সারা শরীরে। তাছাড়া, নিউ ইয়র্কের কন্?কনে শীতও তাঁকে খুব কষ্ট দিচ্ছিল। কেননা, প্রকৃতিপ্রেমিক গ্যাব্রিয়েলা এই প্রবল শীতে বাইরে গিয়ে বসে থাকতে পারতেন না, যা করতে তিনি খুব ভালোবাসতেন। ক্যান্সারের সঙ্গে যুদ্ধ করে করে অবশেষে ১৯৫৭ সালের জানুয়ারি মাসের ১০ তারিখে গ্যাব্রিয়েলা মৃত্যুবরন করেন। জীবনের শেষ বছরে পুরো শীতটার কষ্ট তাঁকে ভোগ করতে হয়নি। আগের বছর মার্চ মাসের শীতে অধৈর্য হয়ে ভিক্টোরিয়া ওকাম্পোকে তিনি লিখেছিলেন, “শীতকাল আমার সবচেয়ে বড় শত্রু। যখন গাছে গাছে আবার পাতা আসবে, আমি মনের সুখে নাচবো।” তাঁর মৃত্যুর নয়দিন পরে তাঁকে চিলিতে নিয়ে গিয়ে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাধিস্থ করা হয়। আরো পরে গাব্রিয়েলা মিস্ত্রালের জীবন এবং কর্মের নামে উৎসর্গকৃত এক মিউজিয়াম তৈরি করা হয় গ্যাব্রিয়েলার জন্মস্থান ভিকুনিয়া, চিলিতে। এই মিউজিয়ামে তাঁর বিস্তর ছবি, লেখা, চিঠি ও ব্যক্তিগত ব্যবহারের জিনিসপত্র রয়েছে, যার ভেতর উল্লেখযোগ্য একটি আসবাব হলো তাঁর বহু ব্যবহৃত লেখার ডেস্কখানি। গ্যাব্রিয়েলা মিস্ত্রালের কথামতো তাঁর সমাধিস্তম্ভে লেখা রয়েছে, “ডযধঃ রং ংড়ঁষ রং ঃড় ঃযব নড়ফু, ংড় রং ঃযব ধৎঃরংঃ ঃড় যরং ঢ়বড়ঢ়ষব.”

সংবাদ

Leave a Reply