নাব্য সঙ্কটে যত্রতত্র ডুবোচরে আটকা পড়ছে ফেরি

পদ্মা পারাপারে বিড়ম্বনার শেষ নেই
দীর্ঘ সাড়ে ৩ ঘণ্টা পর উদ্ধার হলো রো রো ফেরি বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমীন। চ্যানেলে পানি স্বল্পতার কারণে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটের মাগুরখণ্ড চ্যানেলটি পাড়ি দিতে পারছিল না ফেরিটি। শুক্রবার সকালে নৌপরিবহন মন্ত্রীর উদ্বোধন করা রো রো ফেরি বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন মাগুরখণ্ড চ্যানেলে পানি স্বল্পতার কারণে সন্ধ্যা পৌনে ৭টা থেকে নদীতে নোঙর করে ভাসতে থাকে। ফেরিটির এসওসি ইয়াকুব আলী জানান, ১২টি ট্রাক ও ১৫টি হালকা যানবাহন নিয়ে কাওড়াকান্দি ঘাট থেকে মাওয়ার উদ্দেশ্যে ছেড়ে গিয়ে রাতে ফেরিটি মাঝ পদ্মায় নোঙর করে বসে থাকে। এর কাছাকাছি টানা ফেরি রামশ্রীও পদ্মার তলদেশ ঘেঁষে কোনো মতে পার হয়েছে। ছোট ছোট ফেরিগুলো কোনো মতে পার হতে পারলেও রো রোসহ বড় ফেরিগুলো মাগুরখণ্ড চ্যানেল পাড়ি দিতে হিমশিম খাচ্ছে।

সূত্র জানায়, রানিং চ্যানেল মাওয়া-লৌহজং-মাগুরখণ্ড-হাজরা-নাওডুবা-কাওড়াকান্দি চ্যানেলের মাগুরখণ্ড অংশে পানি স্বল্পতার কারণে ফেরিগুলো ঠিকমত চ্যানেল পাড়ি দিতে পারছে না। পানি স্বল্পতার কারণে সাড়ে ৩ ঘণ্টার উপরে রো রো ফেরি রুহুল আমিন মাঝ পদ্মায় নোঙর করে ভেসে থাকে। পরে আইটি-৮-৩৯০ উদ্ধারকারী জাহাজ দিয়ে চ্যানেলটি পার করে রাত সাড়ে ১০টায় মাওয়াঘাটে নিয়ে যাওয়া হয়।

বিআইডব্লিউটিসি একাধিক সূত্রে জানা গেছে, মাওয়া ঘাটের পদ্মার ওই নৌরুটের হাজরা ও মাগুরখণ্ড পয়েন্টের প্রায় দেড় কিলোমিটার অংশে গত ১৫ দিন ধরে নাব্য সঙ্কট চরম আকার ধারণ করেছে। ফলে স্বাভাবিক ফেরি চলাচল মারাত্মক ব্যাহত হয়। প্রতিদিনই মাঝ পদ্মায় ঘণ্টার পর ঘণ্টা নোঙর করে ফেরিগুলো আটকে থাকে। আবার চলাচল শুরু করলে ডুবোচরে ধাক্কা খেয়ে দুলতে দুলতে এগিয়ে যায়। মারাত্মক ঝুঁকি নিয়ে পাড়ি দিচ্ছে লোড করা ফেরিগুলো। বৃহস্পতিবার রাত ১টায় যমুনা ও রানীক্ষেত ফেরি দুটি মাগুরখণ্ড চ্যানেলে আটকে পড়ে। পরদিন সকাল ৭টা পর্যন্ত ফেরি চলাচল বন্ধ থাকে। ফলে মাওয়াঘাটে পারাপারে অপেক্ষমান শত শত যানবাহনকে চরম উত্কণ্ঠায় প্রতিক্ষার প্রহর গুণতে হয়।

আমার দেশ

Leave a Reply