মাওয়ায় লঞ্চ পারাপার সার্ভিসের দিকে ঝুঁকছে যাত্রীরা

ঢাকা থেকে দক্ষিণাঞ্চলে যাতায়াতে মাওয়া-জাজিরা ঘাটে সরাসরি ফেরি পারাপারের বাস সার্ভিসের চেয়ে লঞ্চ পারাপার জনপ্রিয় হয়ে ওঠছে। ফেরিতে নদী পার হতে একটি বাসের সময় লাগে চার থেকে সাত ঘণ্টা। এ যাতনা অবসান ঘটিয়ে কয়েকটি বাস সার্ভিস লঞ্চ পারাপারের মাধ্যমে জনপ্রিয় হয়ে ওঠেছে। যাত্রীরা এখন ফেরি পারাপারে যেতে আগ্রহী নন। অধিকাংশ যাত্রীর পছন্দ লঞ্চ পারাপার বাস সার্ভিস।

সায়েদাবাস বাস টার্মিনাল থেকে খুলনা, বাগেরহাট, পিরোজপুর, মোংলাগামী কিছু বাস সার্ভিস যাত্রীদের সুবিধার জন্য এ সেবার ব্যবস্থা করেছেন। ফেরির তুলনায় লঞ্চে করে পদ্মা নদী পার হতে সময় লাগে মাত্র পৌনে এক ঘণ্টা। সায়েদাবাদ থেকে বাস ছেড়ে মাওয়া ঘাট পর্যন্ত আসে। এখান থেকে বাসের যাত্রীরা স্পেশাল লঞ্চের মাধ্যমে পদ্মা নদী পার হন। এরপর ওপারে আরেকটি বাস প্রস্ত্তত থাকে যাত্রীদের তাদের গন্তব্যে পৌঁছে দেয়ার জন্য।

এ ব্যবস্থাপনায় একযাত্রীর খুলনায় যেতে সময় লাগে মাত্র চার ঘণ্টা। সায়েদাবাদ থেকে মাওয়া ঘাট পর্যন্ত যেতে সময় লাগে সর্বোচ্চ এক ঘন্টা, লঞ্চে পদ্মানদী পার হতে ৪৫ মিনিট এবং জাজিরা ঘাট থেকে খুলনায় যেতে সময় লাগে দু’ঘণ্টা। এ পথে ঢাকা থেকে খুলনার দুরত্ব ১৮০ কিলোমিটার।

ঈদের আগে সারাদেশের সড়ক ব্যবস্থার বেহাল দশা থকলেও ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের আবস্থা ভালো। অনেকটা ঝামেলাহীনভাবে নির্বিগ্নে যাত্রীরা সহজে যার যার গন্তব্যে পৌঁছাতে পারছেন। এবার আরা, দোলা, টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেস ছাড়াও কিছু কিছু বাস মালিকরা ঈদ উপলক্ষে লঞ্চ পারাপার সেবা দিচ্ছে। তবে আরা, দোলা পরিবহণ সারা বছরই এ সেবা প্রদান করে।

মাওয়া ঘাটে ঈদের আগে বিশাল যানজট লেগে থাকে। ফেরিতে লোড এবং আনলোডে পর্যাপ্ত সময় নষ্ট হয়ে থাকে। তাছাড়া দু’পারে ফেরিতে ওঠার লাইনটিও দু-এক কিলোমিটারের কম নয়। এ রকম পরিস্থিতিতে কত যাত্রীকে যে মাওয়া ঘাটে, পদ্মা নদীর মাঝে ঈদ করতে হয়েছে সে অভিজ্ঞতা একেবারে কম নয়। কিন্তু এখন আর যাত্রীদের এ তিক্ত অভিজ্ঞতায় পড়তে হচ্ছে না।

আরো একটু আরামে যাতায়াতের জন্য, ঘাটে স্পিড বোটের ব্যবস্থা রয়েছে। মাত্র বিশ মিনিটের মধ্যে আপনি পদ্মা নদী পার হতে পারবেন এ ব্যবস্থায়। তবে এ জন্য আপনাকে গুণতে হবে দেড়শ টাকা। স্পিড বোটে পার হতে আগ্রহী যাত্রীরা ঢাকার গুলিস্তান থেকে ইলিশ, গাংচিল বাসে চেপে মাওয়াঘাটে নামতে হবে। ওপারে খুলনা, বাগেরহাট যেতে রয়েছে বাস, মাইক্রোবাসের ব্যবস্থা।

তবে যাত্রীদের অতিরিক্ত লাগেজ থাকলে অবশ্যই সরাসরি ফেরি পারাপারের বাসে চেপে আসতে হবে। অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহণ অধিদফতর লোড-আনলোড সময় কমাতে রো রো ফেরি মাখদুম উদ্বোধন করেছে। এ ফেরিতে বাস প্লেস করতে অন্যান্য ফেরি তুলনায় সময় খুবই কম লাগে। দু’ পাশেই রয়েছে যানবাহন ওঠানামার ব্যবস্থা।

বার্তা২৪ ডটনেট

Leave a Reply