গজারিয়ায় সংঘর্ষে নিহত ১

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার চেঙ্গার চরে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে সংঘর্ষে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাত থেকে শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত থেমে থেমে সংঘর্ষ চলে বলে পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়। সংঘর্ষে আহত হয়েছে অন্তত ৪০ জন। ভাংচুর হয়েছে কয়েকটি ঘর।

নিহতের নাম রায়হান মিয়া (৫২)।

স্থানীয়রা জানায়, ঈদের দিন বুধবার বিকালে রায়হানের সঙ্গে একই এলাকার শাহিন, শরিফ, রুবেলের তর্কাকর্কি হয়। এর জের ধরে বৃহস্পতিবার রাতে রায়হানের বাড়িতে হামলা হয়।

গুরুতর আহত রায়হানকে হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। এরপর দুই পক্ষে সংঘর্ষ চলে বলে পুলিশ জানায়।

মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপার শফিকুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, গোষ্ঠীগত দ্বন্দ্ব থেকে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ বাঁধে। পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

সংঘর্ষে জড়িত থাকার অভিযোগে পাঁচ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

বিডি নিউজ 24
——————————-

মুন্সীগঞ্জে সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ৪০ গ্রেফতার ৫

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সীগঞ্জ থেকে : গজারিয়া উপজেলা টেঙ্গারচর গ্রামে আধিপত্ত বিস্তারকে কেন্দ্র করে দু’পরাজিত চেয়ারম্যান পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে রায়হান সরকার (৫২) নামের এক ব্যক্তি নিহত ও অপর ৪০ জন আহত হয়েছে। এই সময় বেশ কয়েকটি বাড়িঘর ভাংচুর হয়। এই ঘটনায় পুলিশ ৫ জনকে আটক করেছে। বৃহস্পতিবার রাত থেকে শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত থেমে থেমে সংঘর্ষ চলে। আহতদের ঢাকাসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নিহত রায়হান সরকার টেঙ্গারচর গ্রামের মহরহুম চাঁন মিয়া সরকারের পুত্র।

গজারিয়া থানার ওসি এসব তথ্য নিশ্চিত করে জানান, এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। টেঙ্গারচর ইউপির পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থী ইসহাক মিয়া (সাবেক চেয়ারম্যান) ও আলমগীর হোসেন পক্ষের লোকজনের মধ্যে এই সংঘর্ষ বাধে। ঈদের দিন বিকালে নিহত রায়হানের বাড়ির উপর দিয়ে প্রতিপক্ষের আলমগীর হোসেন গ্রুপের শাহিন, শরিফ, রুবেল গং পথ চলায় রায়হান তাতে বাধা দেওয়ায় প্রতিপক্ষ ক্ষিপ্ত হয়। তারা বৃহস্পতিবার রাতে রায়হানের বাড়িতে হামলা চালায়। এতে রায়হান গুরুতর জখম অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করে। নিহত রায়হান চেয়ারম্যান প্রার্থী ইসহাক মিয়ার মামা।
এরপরই বেধে যায় তুমুল সংঘর্ষ। তা থেমে থেমে চলতে থাকে। ঘটনাস্থলে দাঙ্গা পুলিশ ও র‌্যাব মোতায়েন করা হয়েছে।

ঘটনাস্থল থেকে আটকৃতরা হচ্ছে – নুরুল হক, মজিবুর রহমান, আল আমিন, আমিন উদ্দিন ও মো. নজরুল। গুরুতর আহতদের মধ্যে রয়েছে – শিউলী শামীমা, মামুন সরকার, শান্তা, মাবিয়া খাতুন, আবু তালেব,তাজেনুর, লিমন, আরিফ আলী আকবর, মহিবুল্লাহ ও বিলকিস।

পুলিশ সুপার মো. শফিকুল ইসলাম জানান, গোষ্ঠীগত দ্বন্দ্বের কারণে এলাকার প্রভাব বিস্তার নিয়ে এই সংঘর্ষ বাঁধে।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply