বেপরোয়া ইমিগ্রেশন কাস্টমস

হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর
নির্দয় আচরণ বন্ধ হচ্ছে না ইমিগ্রেশন ও কাস্টমস কর্মকর্তাদের। তারা রীতিমতো বেপরোয়া। সুনাম ও দক্ষতার সঙ্গে হাড়ভাঙা পরিশ্রম করে যে প্রবাসী শ্রমিকরা বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করে আসছেন তারাই কি-না দেশের বিমানবন্দর ইমিগ্রেশনে নিয়মিত হয়রানির শিকার হচ্ছেন। এমনিতেই বিদেশের শ্রমবাজার ছোট হয়ে আসছে। তবুও বোধোদয় নেই কর্তাদের। বৈধ ভিসা নিয়ে বিদেশগামী তরুণরাও নাজেহাল হচ্ছেন। বখরা না দিলে তাদের আটকে দিচ্ছে ইমিগ্রেশন। সন্দেহে আটকে দেওয়া পাসপোর্টগুলো পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে মালিবাগ পুলিশের বিশেষ শাখায়। বিমানবন্দর কাস্টমসও পিছিয়ে নেই। বিদেশগামী কিংবা বদেশফেরত_দুই পথেই কাস্টমস কর্মকর্তাদের খুশি করতে না পারলে যাত্রী সাধারণকে হতে হচ্ছে নাজেহাল। সারা বছরই ইমিগ্রেশন ও কাস্টমসের একশ্রেণীর কর্মকর্তা যাত্রী সাধারণকে হয়রানি করে আসলেও ঈদকে কেন্দ্র করে এরা বেপরোয়া হয়ে পড়ে। হয়রানির মাত্রা বেড়ে যায় কয়েকগুণ। রমজান মাসজুড়েই ইমিগ্রেশন ও কাস্টমস কর্মকর্তারা পাসপোর্ট ও মালামাল আটকে রেখে মোটা অঙ্কের টাকা আদায় করেছে। ভুক্তভোগী যাত্রীদের অভিযোগ, ইমিগ্রেশন ও কাস্টমস কর্মকর্তাদের মনোভাব দেখে মনে হয়, তাদের টাকা দেওয়ার জন্যই মানুষ বিদেশ যাচ্ছে এবং দেশে ফিরছে। যাত্রীদের কেন্দ্র করে রীতিমতো হরিলুট চালায় ইমিগ্রেশন ও কাস্টমস কর্মকর্তারা। নিউইয়র্ক ফেরত যাত্রী ওয়ালী শামীম অভিযোগ করেছেন, ঈদের দিন বিমানবন্দর কাস্টমস পরিদর্শক মজিবুর রহমান ১৭ হাজার টাকা মূল্যের বাচ্চাদের খেলনার একটি কিবোর্ডের জন্য ৭০ হাজার টাকা ঘুষ দাবি করে বসেন। আর এ কারণে তাকে দীর্ঘ ছয় ঘণ্টা বসে থাকতে হয়েছে বিমানবন্দরে। পরে ১২ হাজার টাকা ট্যাক্স দিয়ে কিবোর্ডটি ছাড়িয়ে নেন ওয়ালী শামীম। অনুসন্ধানে জানা গেছে, যাদের টাকায় দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ঘটছে, সেই প্রবাসী বাংলাদেশিরাই সবচেয়ে বেশি হয়রানির শিকার হচ্ছেন। কোনো কারণ ছাড়াই ইমিগ্রেশন পুলিশের অযাচিত জেরায় নাকাল হতে হচ্ছে তাদের। হয়রানি থেকে নিস্তার পাচ্ছেন না ব্যবসায়ী, ছাত্র, রাজনীতিক এমনকি পর্যটকরাও। ইমিগ্রেশন পুলিশ এসব যাত্রীর পাসপোর্ট আটকে রাখার ভয়ভীতি দেখিয়ে টাকা আদায় করছে। আবার কারও পাসপোর্ট পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে মালিবাগ পুলিশের ‘বিশেষ শাখা’ (এসবি)-এর প্রধান দফতরে। অথচ ইমিগ্রেশন পুলিশের সহায়তায় গলাকাটা পাসপোর্টধারী অবৈধ যাত্রীরা বিনা বাধায় উড়োজাহাজে চেপে বসছেন। ভুক্তভোগীরা বলছেন, কী কারণে পাসপোর্ট আটকিয়ে রাখা হচ্ছে_ এমন প্রশ্ন করা হলে তারা জবাব পান না। উল্টো ইমিগ্রেশন কর্মকর্তাদের হুমকি-ধমকি শুনতে হয়। তাদের অভিযোগ, মালিবাগ এসবি অফিসে মোটা অঙ্কের টাকা না দিলে পাসপোর্ট উঠানো যায় না। মালয়েশিয়ার কারাগারে দীর্ঘদিন আটকে থাকার পর দেশে ফিরেছেন মুন্সীগঞ্জের আফজাল হোসেন। তিনি জানান, ফকিরেরপুলের একটি ট্রাভেল এজেন্সির মাধ্যমে ১৪ জন মালয়েশিয়া যান। গ্রামের জমিজমা বিক্রি ও সুদে টাকা নিয়ে তারা প্রত্যেকে আড়াই লাখ টাকা করে তুলে দেন ট্রাভেল এজেন্টকে। তারা জানতেন না, তাদের গলাকাটা পাসপোর্টে বিদেশে পাঠানো হচ্ছে। তারা পরে জানতে পেরেছেন_ ঢাকার বিমানবন্দরে তাদের উড়োজাহাজে উঠিয়ে দিতে সাহায্য করার জন্য ইমিগ্রেশন পুলিশকে প্রত্যেকের বিপরীতে ১০ হাজার টাকা করে দেওয়া হয়েছিল। সে মতে তাদের ইমিগ্রেশন কর্মকর্তারাই উড়োজাহাজে চড়তে সাহায্য করেন। মালয়েশিয়ায় জাল পাসপোর্টসহ ধরা পড়ার পর তাদের কারাগারে আটকে রাখা হয়।

সৌদি প্রবাসী আবুল কালাম দেশে ছুটি শেষে কর্মস্থলে ফিরবেন বলে বিমানবন্দর যান। ইমিগ্রেশন পুলিশ তাকে নানা অজুহাতে পাসপোর্ট আটকে দেয়। তাকে মালিবাগ এসবি অফিসে যোগাযোগ করতে বলা হয়। আবুল কালাম বেশ কয়েকদিন ধরনা দিয়েও পাসপোর্টের দেখা পাচ্ছিলেন না। ওদিকে তার ছুটিও শেষ। সময়মতো ফিরতে না পারলে, ভিসা নিয়েই সমস্যায় পড়তে হবে তাকে। অগত্যা মোটা অঙ্কের টাকা দিয়ে পাসপোর্ট ছাড়িয়ে নেন তিনি। ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র শফি যাবেন ইন্দোনেশিয়ায়। প্যাকেজ অফারে উড়োজাহাজের টিকিট কিনেছেন। বিমানবন্দর ইমিগ্রেশনে কর্মকর্তারা তার পাসপোর্ট আটকে দিয়ে মালিবাগে যোগাযোগ করতে বলেন। পাসপোর্ট আটকের কারণ তাকে বলা হয়নি। ওই পাসপোর্ট উদ্ধারে শফিককে দিনের পর দিন ঘুরতে হয়েছে। কিছু টাকা দিয়ে যখন পাসপোর্টটি তিনি উঠালেন, ততদিনে তার প্যাকেজ অফারের মেয়াদও শেষ।

শুধু এসব যাত্রীই নন। ব্যবসায়ী, রাজনীতিকদেরও হয়রানি করা হচ্ছে ইমিগ্রেশনে। রাজনীতিকদের বলা হচ্ছে, তার বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে কিনা দেখতে হবে, তদন্ত হবে। নানাভাবে জেরা করা হয় তাদের। ব্যবসায়ীদেরও একই কায়দায় হয়রানি করছেন তারা। বিমানবন্দরে কর্মরত একটি গোয়েন্দা সংস্থা সূত্রে জানা গেছে, ট্রাভেল এজেন্টরা পাচারের জন্য মানুষের জোগান দেয়। আর পাসপোর্ট জোগান দেয় বিমানবন্দরকেন্দ্রিক একটি ছিনতাইকারী চক্র। এরা প্রবাসী যাত্রীদের কাছ থেকে পাসপোর্ট ছিনতাই করে ফকিরেরপুলে নিয়ে যায়। সেখানে ট্রাভেল এজেন্সির অফিসে এসিড দিয়ে ছিনতাই করা পাসপোর্ট থেকে ছবি তুলে ফেলা হয়। এরপর সেখানে যাদের পাচার করা হবে তাদের ছবি সংযুক্ত করা হয়। দেশি-বিদেশি এয়ারলাইন্সগুলো এদের বোর্ডিং কার্ড ইস্যু করে। এরপর ইমিগ্রেশন পুলিশের কতিপয় দুর্নীতিবাজ সদস্য পাচারকৃতদের বিমানবন্দর থেকে উড়োজাহাজে তোলার বন্দোবস্ত করে। মালয়েশিয়া ও মধ্যপ্রাচ্যের দেশের জন্যে যাত্রী পিছু ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা করে রাখা হচ্ছে। প্রায় প্রতিদিনই এই দুই দেশে যাওয়ার একাধিক ফ্লাইট রয়েছে। একই সূত্র জানায়, বিমানবন্দর থানায় ভুয়া পাসপোর্ট-ভিসার অভিযোগে দুই-একদিন পরপর ১০-১৫টি মামলা করছে ইমিগ্রেশন পুলিশ। বাংলাদেশ ইমিগ্রেশন পুলিশের অনুমতি (সিল) নিয়ে ভুয়া পাসপোর্ট-ভিসার অভিযোগে বিদেশের পুলিশ শ্রমিকদের গ্রেফতার করে দেশে ফেরত পাঠায়। এই শ্রমিকরা ঢাকায় বিমানবন্দরে অবতরণ করার পর ইমিগ্রেশন পুলিশই তাদের গ্রেফতার করে থানায় সোপর্দ করে। এ ঘটনায় আরেক দফা হয়রানির শিকার হতে হয় শ্রমিকদের। বায়রা’র একজন কর্মকর্তা জানান, আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর দিয়েই প্রতারক চক্র এসব আদম পাচার করছে। ইতোমধ্যে ঢাকাসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর দিয়ে বিদেশ যাওয়ার সময় কতিপয় যাত্রীর কাছে ভুয়া পাসপোর্ট ও ভিসা পাওয়া গেছে। তাদের বিমানবন্দর থেকে ফেরত পাঠানো হয়। আবার এখানেও তাদের গ্রেফতার করা হয়। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বিভিন্ন দেশের কারাগারে লক্ষাধিক বাংলাদেশি নাগরিক কারাগারে আটক রয়েছেন। তারা ঢাকা বিমানবন্দর হয়ে বিদেশ পাড়ি দিয়েছিলেন। অসাধু ট্রাভেল এজেন্সি ইমিগ্রেশন পুলিশের কতিপয় সদস্যের সহযোগিতায় বিদেশে জেল খাটা শ্রমিকদের বিদেশে পাঠিয়েছিল।

মানব পাচারের সঙ্গে জড়িত রয়েছেন এমন একজন ব্যবসায়ী জানান, প্রতি পাসপোর্টের জন্য তাকে ইমিগ্রেশন পুলিশকে ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা করে দিতে হয়। অনেক সময় এই টাকার অঙ্ক না মিললে তারা আটকে দেয় পাসপোর্ট। তখন ওই টাকা দিয়েই পাসপোর্ট ছুটিয়ে আনতে হয় মালিবাগের এসবি অফিস থেকে। সূত্র জানায়, গত মাসে হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে কাতার এয়ারলাইন্সের দুটি বিমানের ২৯ যাত্রীকে আটক করে সার্ভিলেন্স টিমের সদস্যরা। তারা মালদ্বীপ যাচ্ছিলেন অবৈধভাবে। প্রবাসী মন্ত্রণালয়ের ভুয়া ছাড়পত্র দেখিয়ে তাদের বিমানে তুলে দেওয়ার পাঁয়তারায় ছিল আদম পাচারকারী চক্র। আর এ কাজ হচ্ছিল ওই বিদেশি এয়ারলাইন্স, ইমিগ্রেশন ও প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের একশ্রেণীর অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীর যোগসাজশে। গোয়েন্দা কর্মকর্তারা জানান, ঘটনায় জড়িতরা হলেন ইমিগ্রেশন পুলিশের চার উপ-পরিদর্শক, কাতার এয়ারলাইন্সের ম্যানেজারসহ দুই আইএনএস কর্মকর্তা ও প্রবাসী কল্যাণ ডেস্কের একজন ওয়েলফেয়ার কর্মকর্তা। জড়িতদের বিরুদ্ধে সরকারের উচ্চমহলে লিখিত অভিযোগ পাঠিয়েছেন তারা। অপর একটি আদম পাচারের অভিযোগে ইমিগ্রেশন পুলিশের এক ওসিসহ কয়েক কর্মকর্তাকে বিমানবন্দর থেকে বদলি করা হয়। এদিকে প্রবাসী শ্রমিকদের যারা ছুটি নিয়ে ঈদ করতে দেশে এসেছেন, কারণে-অকারণে তাদের কাছ থেকে কাস্টমস কর্মকর্তারা আদায় করে নিয়েছেন মোটা অঙ্কের টাকা। সৌদি আরব থেকে দেশে ফেরার সময় কাস্টমস কর্মকর্তারা মুন্সীগঞ্জের এক যাত্রীর কাছ থেকে ২০ হাজার টাকা আদায় করে নেয়। ওই যাত্রী তার পরিবারের ব্যবহারের জন্য কাপড় ও কসমেটিকস এনেছিলেন। কিন্তু কাস্টমস কর্মকর্তারা টাকা না দিলে মালামাল রেখে দেওয়ার হুমকি দেন। ওই যাত্রী পরে টাকা দিয়ে মালামাল নিয়ে বিমানবন্দর ত্যাগ করেন। এ ছাড়া ব্যবসায়ীদের মধ্যে যারা চায়না, মালয়েশিয়া, দুবাই, ভারত থেকে দেশে ফিরেছেন, তাদের কাছ থেকে এক প্রকার জোর করেই অতিরিক্ত টাকা আদায়ের ঘটনা পুরো রমজান মাস জুড়েই ঘটেছে।

বাংলাদেশ প্রতিদিন – মির্জা মেহেদী তমাল

Leave a Reply