‘দুর্নীতিগ্রস্ত প্রতিষ্ঠানকে পদ্মা সেতুর কাজে নয়’

পদ্মা সেতুর সম্ভাব্য তদারককারীদের তালিকায় থাকা কানাডীয় একটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ ওঠার প্রেক্ষাপটে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, দুর্নীতিগ্রস্ত কোনো প্রতিষ্ঠানকে এ কাজ দেওয়া হবে না। যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের সেতু বিভাগের সচিব মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, “দুর্নীতিগ্রস্ত হিসেবে প্রমাণিত কোনো প্রতিষ্ঠানকে বাংলাদেশ সরকার কাজ দেবে না।”

পদ্মা সেতু প্রকল্পে বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়নকে কেন্দ্র করে এসএনসি-লাভালিন গ্র”প নামের এক প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের সম্ভাব্য ‘দুর্নীতি’ তদন্ত করছে কানাডা।

পদ্মা সেতু নির্মাণে ১২০ কোটি ডলার ঋণদাতা বিশ্বব্যাংক শুক্রবার বলেছে, তদন্তের অংশ হিসেবে রয়াল কানাডিয়ান মাউন্টেড পুলিশ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়েছে।

সচিব বলেন, কানাডীয় পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করছে। তদন্তে দোষ প্রমাণ হলে তারা (বিশ্বব্যাংক ও কানাডা) ব্যবস্থা নেবে।

তবে দুর্নীতি তদন্তের এ বিষয়ে বিশ্বব্যাংকের পক্ষ থেকে সরকারকে কিছু এখনো জানানো হয়নি বলে জানান তিনি।

পদ্মা সেতু প্রকল্পের তদারকি প্রতিষ্ঠান নির্বাচনে তৈরি হওয়া সংক্ষিপ্ত তালিকায় এসএনসি-নাভালিন রয়েছে। এটিসহ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের নাম বিশ্বব্যাংককে পাঠানো হয়েছে। এদের মধ্যে থেকে একটি প্রতিষ্ঠানকে নির্বাচিত করবে বিশ্বব্যাংক।

বিশ্বব্যাংকের এক মুখপাত্র রয়টার্সকে বলেন, পদ্মা সেতু প্রকল্পের দরপত্র প্রক্রিয়ায় দুর্নীতির অভিযোগে বিশ্বব্যাংকের কাছ থেকে তথ্য পেয়ে তদন্ত শুরু করেছে কানাডীয় কর্তৃপক্ষ।

তিনি জানান, বিশ্ব ব্যাংক এ প্রকল্পে অর্থায়ন অনুমোদন করলেও চলমান তদন্তের কারণে অর্থ ছাড় করছে না বিশ্ব ব্যাংক।

২৯০ কোটি ডলার ব্যয়ে নির্মিতব্য পদ্মা সেতুর জন্য ৪০ বছর মেয়াদে একশ ২০ কোটি ডলার ঋণ দিতে বাংলাদেশের সঙ্গে গত এপ্রিলে চুক্তি হয় বিশ্বব্যাংকের।

দেশের দীর্ঘতম এ সেতু নির্মাণে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) ৬১ কোটি ৫০ লাখ ডলার, জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সি (জাইকা) ৪০ কোটি ডলার এবং ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংক (আইডিবি) ১৪ কোটি ডলার দিচ্ছে। বাকি ২৫ কোটি ৭০ লাখ ডলার দেবে বাংলাদেশ সরকার।

এ সেতুর দৈর্ঘ্য হবে প্রায় ১০ কিলোমিটার। দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে দেশের মধ্যাঞ্চলের যোগাযোগ স্থাপনকারী এ সেতুর কাজ ২০১৪ সালের মধ্যে শেষ হওয়ার কথা।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর

Leave a Reply