ভুল চিকিৎসায় আবারও প্রসূতির মৃত্যু!

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সীগঞ্জ থেকে: মুন্সীগঞ্জে ভুল চিকিৎসায় মায়া আক্তার (২৮) নামের এক প্রসূতির মর্মান্তিক মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। তবে নবজাতক পুত্র সুস্থ রয়েছে। রবিবার বিকালে শহরের মডার্ণ ক্লিনিকে এই প্রসূতির সিজার হয়। অবস্থার অবনতি ঘটলে প্রসূতিকে রেফার্ড করা হয়। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে রাত পৌনে ১১টায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এর আগে প্রসূতির মুমূষু অবস্থায় উত্তেজিত স্বজনরা এসে মডার্ণ ক্লিনিকে সংশ্লিষ্ট চিকিৎসক মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের গাইনী কনসাল্টেন্টে ডা. নাসরিন আরফ কনককে তৃতীয় তলায় ঘেরাও করে রাখে। পুলিশ এসে তাঁকে উদ্ধার করে বাসায় পৌছে দেয়। তবে এর আগেই ক্লিনিকের লোকজন সটকে পড়ে।

ডা. নাসরিন আরফ কনক ভুল চিকিৎসার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, এখানে প্রসুতির গ্রুপ অনুযায়ী এবি নেগেটিভ রক্ত না পাওয়ার কারণেই তাঁকে রেফার্ড করা হয়। তবে রক্তের সংস্থান না করে কেন সিজার করেছেন এই প্রশ্নের সদুত্তর দিতে পারেননি তিনি।

প্রসুতি মায়া আক্তার টঙ্গীবাড়ি উপজেলার আব্দুল্লাপুর গ্রামের মোখলেছুর রহমানের স্ত্রী। তাঁর বাবার বাড়ি সদর উপজেলার সুখবাসপুর গ্রামে। তৃতীয় সন্তানের প্রসবের সময় এই মর্মান্তিক মৃত্যু ঘটে।

উল্লেখ্য, গত ১৯ ও ২৩ আগস্ট সদর উপজেলার বিক্রমপুর ক্লিনিকে দুই প্রসূতি এবং ২৯ আগস্ট টঙ্গীবাড়ি উপজেলার ইউনাইটেট ক্লিনিকে প্রসূতি ও নবজাতকের ভুল চিকিৎসায় মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। কিন্তু স্বাস্থ্য বিভাগের টনক নড়েনি। কয়েক দফা ফোন করলেও মুন্সীগঞ্জের সিভিল সার্জন বনদীপ লাল দাস ফোন রিসিভ করেননি। মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের আরএমও (আবাসিক ম্যাডিক্যাল অফিসার) ডা.এহসানুল করিম জানিয়েছেন, ক্লিনিকের ম্যানেজম্যান্ট এবং ওটির সমস্যার কারণেই এমন মৃত্যুর ঘটনাগুলো ঘটছে।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ
———————-

মুন্সীগঞ্জে মডার্ণ ক্লিনিকে ভুল চিকিৎসায় প্রসূতির মৃত্যু

জান্নাতুল ফেরদৌসৗ, মুন্সীগঞ্জ : মুন্সীগঞ্জ শহরের সুপার মার্কেট এলাকায় নিউ মডার্ণ ডায়াগনোষ্টিক অ্যান্ড ক্লিনিকে ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় মায়া বেগম (২৮) নামের এক প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে। রোববার দিবাগত রাত সাড়ে ৯ টার দিকে প্রসূতিকে আশংকাজনক অবস্থায় ঢাকায় নেয়ার পথে মারা যায়। ওই রাতেই মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের গাইনী বিভাগের কনসালটেন্ট ডা: নাসরিন আফরিন কনক ও নিউ মডার্ণ ডায়াগনোষ্টিক সেন্টার অ্যান্ড ক্লিনিকের মালিক নজরুল ইসলামকে আসামী করে সদর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। প্রসূতির ভাই সাহাবুদ্দিন শেখ বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

নিহতের পরিবার জানায়, রোববার দুপুরে টঙ্গীবাড়ি উপজেলার আব্দুল্লাহপুর গ্রামের প্রবাসী মোখলেছের স্ত্রী মায়াকে প্রসব বেদনা নিয়ে ওই ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। এর আগে সকালে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হলে মায়া বেগম সেখানে ডাক্তার ও দালাল চক্রের খপ্পড়ে পড়ে। এতে তাকে মডার্ণ ডায়াগনোষ্টিক সেন্টার ও ক্লিনিকে আনা হয়। পরে বিকেল ৪ টার দিকে ওই ক্লিনিকে ডাক্তার নাসরিন আফরিনের হাতে সিজারের মাধ্যমে তিনি ছেলে সন্তান প্রসব করেন। কিন্তু প্রসূতির শারিরিক অবস্থা অবণতি দেখা দেয়। এক পর্যায়ে রাত সাড়ে ৮ টার দিকে আশংকাজনক অবস্থায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করা হয়। মামলার বাদী সাহাবুদ্দিন শেখ অভিযোগ করেন, তার বোনকে সঠিক ভাবে চিকিৎসা দেয়া হয়নি। এছাড়া ডাক্তার-দালাল চক্র তার বোনকে মেরে ফেলতেই ওই প্রাইভেট ক্লিনিকে আনা হয়েছে। রাতে প্রসূতির মৃত্যুর ঘটনায় বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী ওই ক্লিনিক ঘেরাও করে। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

বিডি রিপোর্ট ২৪
———————-

টঙ্গীবাড়ীর আরেক প্রসূতির আবার ভূল চিকিৎসায় মৃত্যু

মুন্সীগঞ্জ টঙ্গীবাড়ী উপজেলার আরেক প্রসূতি মায়ের মৃত্যু ডাক্তারের ভূল চিকিৎসায় ঘটানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভুল চিকিৎসায় মায়া আক্তার (২৮) নামের প্রসূতির মর্মান্তিক মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। প্রসূতি মায়া আক্তার টঙ্গীবাড়ী উপজেলার আব্দুল্লাপুর গ্রামের মোখলেছুর রহমানের স্ত্রী। তৃতীয় সন্তনের প্রসবের সময় এই মর্মান্তিক মৃত্যু ঘটে। তবে নবজাতক পুত্র সুস্থ রয়েছে। জানা যায়, রবিবার বিকালে মুন্সীগঞ্জ শহরের মডার্ণ ক্লিনিকে এই প্রসূতির সিজার হয়। অবস্থার অবনতি ঘটলে প্রসূতিকে রেফার্ড করা হয়। রোগির অতœীয় স্বজন রোগিকে ঢামেক হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এর আগে প্রসূতির মুমূষু অবস্থায় উত্তেজিত স্বজনরা মডার্ণ ক্লিনিকে সংশ্লিষ্ট চিকিৎসক মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের গাইনী কনসাল্টেন্টে ডা. নাসরিন আরফ কনককে তৃতীয় তলায় ঘেরাও করে রাখে। পরে পুলিশ এসে তাঁকে উদ্ধার করে বাসায় পৌছে দেয়। তবে এর আগেই ক্লিনিকের লোকজন সটকে পরে।

ডা. নাসরিন আরফ কনক ভুল চিকিৎসার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, এখানে প্রসুতির গ্রুপ অনুযায়ী এবি নেগেটিভ রক্ত না পাওয়ার কারণেই তাঁকে রেফার্ড করা হয়। তবে রক্তের সংস্থান না করে কেন সিজার করেছেন এই প্রশ্নের সদুত্তর দিতে পারেননি তিনি।

এছারা গত ১৯ ও ২৩ আগস্ট সদর উপজেলার বিক্রমপুর ক্লিনিকে দুই প্রসূতি এবং ২৯ আগস্ট টঙ্গীবাড়ী উপজেলার ইউনাইটেট ক্লিনিকে প্রসূতি ও নবজাতক ডাক্তারের ভুল চিকিৎসার কারনে মৃত্যুর অভিযোগ উঠে। এত মৃত্যুর পর ও কিন্তু স্বাস্থ্য বিভাগের টনক নড়েনি।

০১৮১৯৪৬২০৭৪
জাহাঙ্গীর আলম
টঙ্গীবাড়ী(মুন্সীগঞ্জ)

One Response

Write a Comment»
  1. আব্দুল্লাহপুর গ্রাম না ভাই, এটা ইউনিয়ন (ইতিহাস সমৃদ্ধ পালের বাড়ী এখানে)।

Leave a Reply