রবীন্দ্রনাথ, ম্যারাডোনা ও মেসি

ইমদাদুল হক মিলন
লিওনেল মেসিকে আমার কেমন যেন পাশের বাড়ির ছেলেটি মনে হয়। কী রকম একটু আলাভোলা, নিরীহ গোবেচারা টাইপের চেহারা। শরীরের তুলনায় হাত দুটো যেন একটু ছোট। হাঁটাচলা ধীর, মন্থর। কিন্তু পায়ে যখন বল, তখন তিনি পৃথিবীর শ্রেষ্ঠতম ফুটবলার। তাঁর পায়ের কাজ শিল্প হয়ে ওঠে মুহূর্তেই। এই শিল্প ম্যারাডোনার পায়েও ছিল। আমি আর্জেন্টাইন ফুটবলের মহাভক্ত। ভক্ত হয়েছিলাম দুজন মানুষের কারণে। একজন রবীন্দ্রনাথ আরেকজন ম্যারাডোনা। রবীন্দ্র কবিতা এবং দর্শনে আপ্লুত ছিলেন আর্জেন্টিনার ভিক্টোরিয়া ওকাম্পো। বুয়েনস আইরেসে ওকাম্পোর সানি্নধ্যে দুই মাস ছিলেন কবি। এই নিয়ে সুন্দর একটা বই লিখেছিলেন বাংলা ভাষার আরেক বড় কবি শঙ্খ ঘোষ, ‘ওকাম্পোর রবীন্দ্রনাথ’। বইটি পড়ে মনে হয়েছিল, একজন বাঙালি কবির প্রতি কী অনুরাগ সেই আর্জেন্টাইন নারীর! কতটা আবেগে, শ্রদ্ধায় আর ভালোবাসায় রবীন্দ্রনাথকে গ্রহণ করেছিলেন তিনি। তাঁর বাড়ির বাগানে রবীন্দ্রনাথ বসে আছেন চেয়ারে আর পায়ের কাছে ঘাসের ওপর বসে আছেন ওকাম্পো। নিজের সুন্দর মুখের ছবিটি ছেলেমানুষি কায়দায় কালি দিয়ে কিছুটা হিজিবিজি করে দিয়েছেন। এই ছবি দেখে আর ওই বই পড়ে আমি মুগ্ধ। তার পরের মুগ্ধতা ম্যারাডোনা। তারও পরের মুগ্ধতা মেসি।

গত কয়েক বছরে মেসির খেলা দেখে আমি এতটাই তাঁর ভক্ত হয়েছি, অন্য কোনো ফুটবলারের কথা মাথায়ই আসে না। সেই মেসি আসছেন বাংলাদেশে! বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে খেলবেন তিনি, ভেবেই আমি রোমাঞ্চিত। ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক, ডিসকভারি, এনিম্যাল প্ল্যানেট প্রভৃতি চ্যানেলে আর্জেন্টিনা নিয়ে অনেক ডকুমেন্টারি দেখেছি। আর্জেন্টিনার গ্রাম-প্রান্তর, বনভূমি, শস্যের মাঠ, জলাভূমি দেখে কখনো কখনো আমার মনে হয়েছে, এ যেন ছেলেবেলায় দেখা আমার বিক্রমপুর অঞ্চলের মাঠ-প্রান্তর। ঘাস, কচুরিপানা, জলাভূমি হুবহু যেন আমার ছেলেবেলায় দেখা। ওদের জলাভূমিতে কচুরিপানার তলায় থাকে এই গ্রহের সবচেয়ে বড় সাপ অ্যানাকোন্ডা, আমাদের কচুরিপানার তলায় ঢোঁড়া, ব্যবধান এটুকুই। সব মিলিয়ে আর্জেন্টিনা দেশটাও আমার খুব পছন্দের। জীবনে একবার অন্তত চেষ্টা করব দেশটি দেখে আসতে। আচ্ছা, ফুটবল খেলার সূচনা কবে হয়েছে? আজকের ফুটবল যে ইংরেজদের দান, এ কথা সবাই জানে। কিন্তু এ খেলার গোড়ার দিকটা নিয়ে ভাবলে অন্য রকম কিছু তথ্য জানা যায়। যিশুখ্রিস্টের জন্মের ৩০০ বছর আগে গ্রিস দেশে ‘হারপস্টার’ নামে এক ধরনের খেলার প্রচলন ছিল। সেই খেলার মধ্য থেকেই বর্তমান ফুটবলের সূচনা। গ্রিস থেকে হারপস্টার খেলাটি গিয়েছিল রোমে। ব্রিটেনে আক্রমণকারী রোমানদের কাছ থেকে ইংরেজরা পেয়েছিল খেলাটি।

অবশ্য এর মধ্যে হারপস্টারের এতটা রূপান্তর ঘটেছে যে প্রাচীন গ্রিসের খেলার সঙ্গে এর যোগাযোগ কষ্টকল্পনা ছাড়া আর কিছুই নয়। পণ্ডিতরা কেউ কেউ মনে করেন, ফুটবল খেলা আরো পুরনো। প্রাগৈতিহাসিক যুগের সংস্কারের মধ্যে এ খেলার প্রথম জন্ম। বল হচ্ছে সূর্যের প্রতিরূপ। সূর্য সব প্রাণের জনক। আদিম সমাজে বিশ্বাস ছিল যে জমিতে সূর্যের মতো আকারবিশিষ্ট কোনো মন্ত্রপূত বস্তু পুঁতে রাখলে জমি উর্বর হবে। জমি উর্বর করার জন্য আদিম সমাজে পশু বলি দেওয়ার পর বিচ্ছিন্ন মুণ্ডুটা কে নেবে তাই নিয়ে শুরু হতো কাড়াকাড়ি। কারণ মৃত পশুর মুণ্ডু মাটিতে পুঁতলে জবি উর্বর হবে। এই কাড়াকাড়ির ধারণা থেকেই নাকি ফুটবল খেলার সূচনা। ফুটবল খেলার নিয়মকানুন নিয়ে বহু বই লেখা হয়েছে। কিন্তু ফুটবলের সামাজিক মূল্য নিয়ে মরিস মারপলেস লিখেছেন অন্য ধারার একটি বই, ‘এ হিস্ট্রি অব ফুটবল’ [সূত্র : ‘দূরের বই’ চিত্তরঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায়]। মেসিকে নিয়ে লিখতে গিয়ে কত কথা বলে ফেললাম। বাংলাদেশে প্রতিদিন হাজারো দুঃখ কষ্ট বেদনা আর দুর্ঘটনার মধ্যে আমাদের জীবন কাটে। আনন্দের সংবাদ আমাদের জীবনে কম। আনন্দদায়ক বড় ঘটনা, বড় তারকার আগমন আমাদের জীবনে কালেভদ্রে ঘটে। যখন ঘটে তখন যাবতীয় দুঃখ বেদনা ভুলে আমরা সবাই সেই আনন্দে শরিক হই। দেশ মেতে ওঠে সেই তারকাকে নিয়ে। এই মুহূর্তে মেসিকে নিয়ে অন্য রকম এক আনন্দে মেতে উঠেছে বাংলাদেশের মানুষ। বর্তমান বিশ্বের শ্রেষ্ঠতম ফুটবলার আসছেন আমাদের দেশে, বাংলাদেশের মাটিতে তাঁর পা পড়বে, খুব কাছ থেকে আমরা কেউ কেউ তাঁকে দেখব, এ এক বিশাল ঘটনা। রবীন্দ্রনাথকে যেমন করে একদিন বরণ করে নিয়েছিলেন আর্জেন্টিনার ভিক্টোরিয়া ওকাম্পো, আমরা বাংলাদেশের মানুষ তেমন করেই বরণ করে নিতে চাই লিওনেল মেসিকে।

তোমাকে অভিবাদন, মেসি।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply