ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ-মুন্সীগঞ্জ সড়কের দুরবস্থা, তীব্র যানজট

বড় বড় গর্তে গাড়ির চাকা আটকে যান চলাচল বন্ধ থাকায় তীব্র যানজটের সৃষ্টি এখন ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ-মুন্সিগঞ্জ সড়কের নিত্যদিনের চিত্র। সড়কটি এখন খুবই বেহাল। সড়কের বিভিন্ন স্থানে বড় বড় গর্ত ও খানাখন্দে ভরপুর থাকায় যান চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হচ্ছে। এলাকাবাসীর অভিযোগ, এই সড়কের ফতুল্লা থানার পঞ্চবটি থেকে শাসনগাঁও মসজিদ পর্যন্ত দুই কিলোমিটার সড়কের বিভিন্ন স্থানে ভেঙ্গে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। কয়েকদিনের লাগাতার বর্ষণে বড় বড় গর্তগুলো পানিতে ডুবে যাওয়ায় ভারি যানবাহনের চাকা গর্তে আটকে যাচ্ছে। ফলে প্রায় সময়ে সৃষ্টি হচ্ছে তীব্র যানজট।

ফতুল্লায় বসবাসকারী সাংবাদিক শাহাদাত হোসেন বলেন, ‘প্রতিদিন সকালে আমাকে পঞ্চবটি হয়ে নারায়ণগঞ্জ শহরে আসতে হয়; কিন্তু গত কয়েক মাস ধরে এমন কোনো সকাল নেই যে, যানজট ছিল না। পঞ্চবটি হতে মুক্তারপুর পর্যন্ত কোনো স্থানে গাড়ি বিকল হয়ে পড়েছে কিংবা গাড়ি রাস্তার মধ্যে কাত হয়ে পড়ে গেছে।

ফতুল্লায় বসবাসরত আবদুর রহিম জানান, গত কয়েকদিনের বৃষ্টিতে সড়কের ফতুল্লার পঞ্চবটি হতে মুন্সিগঞ্জের মুক্তারপুর পর্যন্ত বিভিন্ন স্থানে সৃষ্ট গর্তে পানি জমে আস্তে আস্তে গর্তগুলো বড় হচ্ছে। পানি জমে থাকার কারণে গর্তের গভীরতা বোঝা যায় না। ফলে এসব গর্তে পড়ে কিছুক্ষণ পরপর গাড়ি বিকল হয়ে পড়ছে। রিকশা, অটোরিকশা, বেবিট্যাক্সি ও ইজিবাইক এমনকি মালবাহী যানগুলোও প্রায় সময় বড় গর্তে পড়ে উল্টে যাচ্ছে।

ঢাকা-মুন্সিগঞ্জ-নারায়ণগঞ্জ বাস, ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যান মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদের সভাপতি মুক্তার হোসেন বলেন, ‘সড়কটির সংস্কারের জন্য ইতিপূর্বে পরিবহন মালিকেরা হরতালসহ বিভিন্ন আন্দোলনের ঘোষণা দিয়েছিল। তখন কর্তৃপক্ষ লোক দেখানো কিছুটা সংস্কার করলেও তাতে কোনো কাজ হয়নি। ভাঙা রাস্তার কারণে বাসের ক্ষতি হচ্ছে। যানজটে আটকা পড়ে যাত্রীদের সময় নষ্ট হচ্ছে। মালিকেরা আর্থিক লোকসানের সম্মুখীন হচ্ছে।’

নারায়ণগঞ্জ ও মুন্সিগঞ্জ জেলার হাজার হাজার মানুষ চলাচল করে এ সড়ক দিয়ে। তাছাড়া পঞ্চবটি বিসিক শিল্প নগরী ও আশেপাশের ৫ শতাধিক রপ্তানিমুখী পোশাক শিল্প কারখানা রয়েছে। এসব কারখানায় কাজ করে লক্ষাধিক শ্রমিক। রাস্তার অবস্থা ভয়াবহ খারাপ হওয়ায় শ্রমিক কর্মচারীদের পোহাতে হচ্ছে দুর্ভোগ। মোক্তারপুর শিল্পাঞ্চলে কয়েকটি বড় সিমেন্ট কারখানাসহ তিন শতাধিক শিল্প কারখানা রয়েছে। সড়কের বেহাল অবস্থার কারণে এসব শিল্প কারখানা বন্ধের উপক্রম হয়ে পড়েছে।

এ ব্যাপারে গার্মেন্ট মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ নিটওয়্যার ম্যানুফেকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিকেএমইএ) সভাপতি সেলিম ওসমান বলেন, ‘পঞ্চবটি থেকে মুক্তারপুর পর্যন্ত রাস্তার দুপাশে অসংখ্য রপ্তানিমুখী শিল্প-কারখানা থাকায় ছোট থেকে ভারী প্রচুর যানবাহন চলাচল করে। চট্রগ্রাম বন্দর থেকে পণ্য আনা-নেয়া করা হয় এ রাস্তা দিয়ে; কিন্তু ভাঙা রাস্তার কারণে বিদেশি ক্রেতারাও এখন বিসিক শিল্পনগরে সহজে আসতে চান না। তাই সওজের উচিত উন্নত প্রযুক্তিতে দ্রুত এ রাস্তাটি সংস্কার ও তা দু লেনে উন্নীত করা।

ফতুল্লা থানার ওসি আবদুল মতিন জানান, ‘সড়কের গর্তে পড়ে গাড়ি বিকল হয়ে যানজট সৃষ্টি নিত্যদিনের ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। দফায় দফায় এরকম ঘটনা ঘটছে। এভাবে সড়ক চালু রাখা আমাদের পক্ষে কঠিন হয়ে পড়ছে। গর্তে পড়া গাড়িগুলোকে রেকার দিয়ে টেনে তুলে পুনরায় যান চলাচল শুরু করতে হচ্ছে। তাই সড়কে সার্বক্ষণিকভাবে একটি রেকার রাখা হয়েছে।’

ইত্তেফাক

Leave a Reply