লঞ্চ বাসে ঈদফেরত মানুষের পকেট কাটা হচ্ছে

নাড়ির টানে যে ভোগান্তি ও কষ্ট স্বীকার করে ঈদ উদযাপন করতে গ্রামে গিয়েছিলেন, রাজধানীতে ফিরতেও একই দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন দক্ষিণাঞ্চলের হাজার হাজার মানুষ। কাওড়াকান্দি-মাওয়া-ঢাকা রুটে লঞ্চ, সিবোট বা বাসে পকেট কাটা হচ্ছে ঈদফেরত এসব মানুষের। মাদারীপুরের শিবচরের কাওড়াকান্দি ঘাটে লঞ্চযাত্রীদের কাছ থেকে ২/৩ গুণ বেশি ভাড়া আদায় করা হচ্ছে। প্রতিবাদ করলে যাত্রীদের শারীরিক হেনস্তা করতেও পিছপা হচ্ছেন না লঞ্চমালিক ও কর্মচারীরা। সিবোটে ১২০ টাকার স্থলে ২০০/২৫০ টাকা আদায় করা হচ্ছে। মুন্সীগঞ্জের মাওয়া থেকে ঢাকায় আসতে বাস ভাড়া ৬০ টাকার স্থলে নেওয়া হচ্ছে ৮০ থেকে ১৫০ টাকা। এ ছাড়া উভয় ঘাটেই লম্বা যানজটে নাকাল যাত্রীরা।

কাওড়াকান্দি ঘাট ঘুরে ও যাত্রীদের অভিযোগে জানা গেছে, কাওড়াকান্দি-মাওয়া রুটে সরকার নির্ধারিত জনপ্রতি লঞ্চভাড়া ২৫ টাকা এবং টার্মিনাল ফি ৩ টাকা। সেখানে টার্মিনাল ফি আদায় করা হচ্ছে ১০ টাকা। প্রতিবাদ করলে যাত্রীদের সঙ্গে চরম দুর্ব্যবহার করা হচ্ছে। সবচেয়ে ভয়াবহ অবস্থা লঞ্চে। ২৫ টাকার স্থলে যাত্রীদের কাছ থেকে আদায় করা হচ্ছে ৫০-১০০ টাকা। কারণ বলা হচ্ছে, ‘প্রশাসন, পুলিশ ও সাংবাদিকদের ম্যানেজ’ করার কথা।

রোববার রাতে ঢাকায় ফিরছিলেন দৈনিক সমকাল পত্রিকার প্রতিবেদক আবু সালেহ্ রনি। তিনি জানান, কাওড়াকান্দি ঘাটে হাওলাদার এন্টারপ্রাইজ নামের একটি লঞ্চে ভাড়া কাটতে গিয়ে ১০০ টাকার নোট দেওয়া হলে তাকে আর বাকি টাকা ফেরত দেওয়া হয়নি। তিনি প্রতিবাদ করায় তাকে শুনিয়ে দেওয়া হয়েছে, আমরা পুলিশ ও সাংবাদিক ম্যানেজ করেই ভাড়া আদায় করছি। তিনি সাংবাদিক পরিচয় দেওয়া সত্ত্বেও তার সঙ্গে ভালো আচরণ করা হয়নি। আরেক যাত্রী শিমুল জানান, তিনি ৫০ টাকার নোট দিলে তাকেও বাকি টাকা ফেরত দেওয়া হয়নি।

এ ব্যাপারে লঞ্চ মালিক সমিতির সভাপতি আতাহার বেপারীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি দাবি করেন, ২৫ টাকার বেশি একটি পয়সাও নেওয়া হচ্ছে না।
শিবচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিপুল চন্দ্র বিশ্বাসের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, কাওড়াকান্দি ঘাটে অতিরিক্ত লঞ্চ ভাড়া নেওয়ার বিষয়ে কেউ অভিযোগ করেনি। ঘাটে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের বিরুদ্ধে আমরা একাধিক ব্যবস্থা নিয়েছি। তিনি বলেন, অভিযোগের বিষয়টি আমি এখনই খতিয়ে দেখছি।
এদিকে মাওয়া থেকে ঢাকার বাস ভাড়া ৬০ টাকার স্থলে আদায় করা হচ্ছে ৮০ থেকে ১৫০ টাকা। এত বেশি ভাড়ার কারণে একটু কমে আসতে অনেকে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাসের ছাদে চড়ে বসছে। ছাদেও জনপ্রতি আদায় করা হচ্ছে ১শ’ টাকা। কাওড়াকান্দি-মাওয়া নৌরুটে সিবোট (স্পিডবোট) ভাড়া ১২০ টাকার স্থলে নেওয়া হচ্ছে ২শ’ থেকে ২৫০ টাকা।

অভিযোগ সম্পর্কে লৌহজংয়ের ওসি সুব্রত সাহা বলেন, ‘অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের ঘটনা আমার জানা নেই।’ তবে মাওয়া নৌ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই তায়েফুজ্জামান বাসের ছাদে চড়া এবং বাসে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের কথা স্বীকার করে বলেন, আমরা বাধা দিয়েও কিছু করতে পারছি না।
এ ছাড়া মাওয়া ঘাট থেকে ২ কিলোমিটার পর্যন্ত যানজট ছড়িয়ে পড়ে। যানজটের কারণে অনেককে দীর্ঘ পথ হেঁটে মাওয়া চৌরাস্তায় গিয়ে লোকাল বাসে উঠে রাজধানীতে যেতে হচ্ছে।

বিআইডবি্লউটিসি মাওয়া অফিসের ম্যানেজার সিরাজুল হক জানান, ফেরি পারাপারে কোনো রকম অসুবিধা হচ্ছে না। কিন্তু মাওয়া ঘাটে লোকাল বাসের আধিক্যের কারণে যানজট লেগে যাচ্ছে। এ ব্যাপারে লৌহজং থানার ওসি সুব্রত সাহা জানান, যানজট নিরসনে পুলিশ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তবে ছুটি শেষে কর্মস্থলে ফেরা মানুষের চাপ বাড়ায় এই জট লেগেছে।

দৌলতদিয়া ঘাটে ৬ কিলোমিটার যানজট
এদিকে গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি জানান, সোমবার দুপুরের পর ঈদফেরত রাজধানীমুখী মানুষ ও যানবাহনের চাপে দৌলতদিয়া ফেরিঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে দু-তিন সারি হয়ে মহাসড়কের ৬ কিলোমিটার দূরের গোয়ালন্দ বাজার পর্যন্ত যানজট লেগে যায়। দীর্ঘ যানজটে আটকে পড়া যানবাহনের শিশু-মহিলাসহ অগণিত যাত্রীরা পড়েন চরম দুর্ভোগে। গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি আবুল বাসার জানান, লঞ্চের যাত্রীরা দীর্ঘ পথ হেঁটে ও রিকশা-ভ্যানে ঘাটে পেঁৗছেছে। পুলিশ আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি ধরে রাখার চেষ্টা করছে। বিআইডবি্লউটিসি দৌলতদিয়া কার্যালয়ের সহকারী মহাব্যবস্থাপক বাণিজ্য জিল্লুর রহমান বলেন, মানুষ ঈদের ছুটি শেষে কর্মস্থলে ফিরতে একযোগে ঘাটে আসায় এই যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। তারা চেষ্টা করছেন দ্রুত যানবাহনগুলো পার করে দিতে।

সমকাল

Leave a Reply