সাংবাদিক লাঞ্ছনা দু’একটি কথা -গোলাম মোর্তোজা

প্রথমে চিন্তা করেছিলাম বিষয়টি নিয়ে আর লিখব না। পরে ভাবলাম কিছু কথা বলা দরকার। দেশের রাজনীতিতে এত ঘটনা ঘটছে, সেখানে টোকিওতে সাংবাদিক রাহমান মনি লাঞ্ছিত হবার বিষয়টি লেখার সময় করে উঠতে পারছিলাম না। ব্যস্ততা ছিল ভারতের প্রধানমন্ত্রীর বাংলাদেশ সফর নিয়ে। ব্যস্ত ছিলাম টেলিভিশনের অনুষ্ঠান নিয়েও। দেশের সড়ক, সড়ক দুর্ঘটনা এখন নিয়মিত আলোচনার বিষয়। ঈদের দিনেও প্রতিবাদ সমাবেশে শহীদ মিনারে গিয়েছি। সবকিছু মিলিয়ে এক অস্বস্তিকর অবস্থার মধ্যে আছি। এর মধ্যে আবার ঘটল আরেকটি দুঃখজনক ঘটনা। প্রতিমন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবীর নানকের সন্তান সায়েম সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন। রাত ১১টার দিকে প্রথম খবর পেলাম। মনটা খুবই খারাপ হয়ে গেল।

জাহাঙ্গীর কবীর নানক বা তার পরিবারের সঙ্গে যে সখ্য ছিল, তা নয়। ঘটনাক্রমে যে বিল্ডিংয়ের পাঁচতলায় নানক পরিবার থাকতেন, সেই বিল্ডিংয়েরই ছয়তলায় আমরা থাকি। আর একটু পরিষ্কার করে বলি গত নির্বাচনের আগে নানক ভাই যখন মোঃপুর এলাকা থেকে প্রার্থী হলেন তখন তিনি এই বিল্ডিংয়ে বাসা ভাড়া নিলেন। তার আগে তিনি এই এলাকায় থাকতেন না। নির্বাচনের আগে স্ত্রীসহ আমাদের বাসায়ও এসেছেন। সাধারণত আমার সঙ্গে নানক ভাইয়ের দেখা হতো লিফটে। মন্ত্রী হবার পর এখন আর এই বাসায় থাকেন না। তবে বাসা এখনও ভাড়া নিয়ে রেখেছেন। নিয়ম করে আসেন। কখনো কখনো লিফটে দেখা হয়ে যায়। সায়েমকে দেখতাম মাঝেমধ্যে। কথা তেমন একটা হয়নি কখনো। সাদা একটা গাড়ি সায়েমকে চালাতে বা পার্কিং করতে দেখতাম। মৃত্যুর খবর শুনেই সেই চেহারা চোখের সামনে ভেসে উঠল। তারেক মাসুদ, মিশুক মুনীরের পর সায়েম…। এই তালিকা বাড়তেই থাকবে কিনা জানি না…।

নানক ভাইয়ের সঙ্গে আমার সর্বশেষ দেখা হয়েছে আরটিভির একটি অনুষ্ঠানে। তার রাজনীতি নিয়ে অনেক আলোচনা সমালোচনা আছে। সেটা থাকতেই পারে। কিন্তু নানক একজন সত্যিকারের রাজনীতিবিদ। ব্যক্তিগত ও রাজনৈতিক জীবনে অসীম সাহসী এবং আন্তরিক। বিডিআর বিদ্রোহের সময় মানুষ তার সাহসের পরিচয় পেয়েছে। সেই নানকও সন্তান হারিয়ে কতটা অসহায় সেই ছবিও আমরা দেখলাম…।

এসব নানা কারণে জাপানের প্রসঙ্গ নিয়ে লিখতে পারছিলাম না, চাইছিলামও না। কিন্তু তারপরও আবার লিখতে হচ্ছে।

২.
রাহমান মনি লাঞ্ছিত হবার আগে বেশ কয়েকটি লেখা সাপ্তাহিক-এ প্রকাশিত হয়েছে। সেই লেখায় ক্ষিপ্ত হয়েই রাহমান মনিকে লাঞ্ছিত করা হয়েছে এটা পরিষ্কারভাবেই বোঝা যায়। লেখা প্রকাশিত হবার পর জাপান থেকে অনেকেই ফোন করেছেন। তাদের মধ্যে একজন জাপান আওয়ামী লীগের সভাপতি কাজী মাহফুজ লাল। কাজী লাল প্রায় ২০ বছর ধরে সভাপতি!

তিনি ফোন করে তার সম্পর্কে যা লেখা হয়েছে তা মিথ্যা বলে ক্ষোভ প্রকাশ করলেন। তাকে বললাম যদি মিথ্যা হয়ে থাকে সুনির্দিষ্ট করে আপনি প্রতিবাদ পাঠান। প্রতিবাদ আমরা গুরুত্ব দিয়ে প্রকাশ করব। তিনি বললেন, যিনি মিথ্যা লিখেছেন তার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নিতে হবে। বললাম, মিথ্যা লিখে থাকলে অবশ্যই ব্যবস্থা নিব। আপনাদেরও ব্যবস্থা নিতে হবে। তিনি বললেন, ‘আমরা ফোন করে রাহমান মনির কাছে দুঃখ প্রকাশ করেছি। আমরা আজ আবার বসব দেখি কি করা যায়…।’

আরো অনেক কথা হয়েছে। সে কথায় পরে আসছি। এর মধ্যে ঢাকায় কথা হলো জনাব ফিরোজ আলমের সঙ্গে। তিনি জাপানে থাকেন। ব্যবসায়ী। আওয়ামী লীগের শুভানুধ্যায়ী। তার সঙ্গে কথা হচ্ছিল আরটিভি কার্যালয়ে। তিনি অনুরোধ করলেন জাপান বিষয়ে যে সব লেখা সাপ্তাহিক-এর ওয়েবসাইটে আছে সেগুলো আপাতত সরিয়ে ফেলেন। আমি জাপানে গিয়ে সবার সঙ্গে বসে বিষয়টি সমাধান করব।

তার সঙ্গে আলোচনার প্রেক্ষিতে দুটি লেখা রেখে বাকি চারটি লেখা ওয়েবসাইট থেকে সরিয়ে দেয়ার ব্যবস্থা করলাম।

জাপানের বাংলাদেশি কমিউনিটি খুব বড় নয়। সংখ্যার বিচারে বেশি না হলেও জাপান প্রবাসীদের ভেতরে চমৎকার হৃদ্যতাপূর্ণ সম্পর্ক বিরাজমান। জাপানের আওয়ামী লীগ-বিএনপি নেতৃবৃন্দকে সব সময়ই এক টেবিলে পাওয়া যায়। তাদের মধ্যে রাজনৈতিক সামাজিক সম্পর্কও ভালো। এ রকম একটি জায়গায় অনাকাক্সিক্ষত কোনো ঘটনা দীর্ঘ হতে না দেয়াই মঙ্গলজনক। এমন ভাবনাই মাথায় কাজ করছিল। তাছাড়া আমি অনেকবার জাপানে গেছি। ব্যবসায়ী, সাধারণ প্রবাসী, রাজনীতিবিদ সবাই পরিচিত, ঘনিষ্ঠ। কয়েকজন সন্ত্রাসীর (যারা রাহমান মনিকে লাঞ্ছিত করেছে) কারণে সামগ্রিক পরিবেশ নষ্ট হোক এটা কোনোভাবেই প্রত্যাশিত নয়।

লাঞ্ছনাকারীদের বিরুদ্ধে জাপান আওয়ামী লীগ ব্যবস্থা নেবে, আমরা কাজী লাল-এর প্রতিবাদ প্রকাশ করব। মিথ্যা যদি লেখা হয়ে থাকে তার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেব এভাবেই সমস্যার সমাধান হবে।

৩.
বেশ কয়েকদিন কাটল। ফিরোজ আলম জাপানে গেলেন। কাজী লালের কোনো প্রতিবাদ পেলাম না। এর মধ্যে একজন জাপান থেকে ফোন করে জানালেন, কোনো একটি ওয়েবসাইটে সাপ্তাহিক-এর লেখার প্রতিবাদে কাজী লাল লিখেছেন। আরো দু’একজন লিখেছেন। লিখতেই পারেন। লেখার প্রতিবাদ লেখা দিয়ে হবে এটাই তো স্বাভাবিক। লেখাকে সাধুবাদ জানাই, অভিনন্দন জানাই।

মাস্তানি করার চেয়ে লেখা উত্তম!

যিনি ফোন করেছিলেন তাকে এই কথাগুলো বললাম। উত্তরে তিনি বললেন, তারা আপনাকে ব্যক্তিগতভাবে বিষোদ্গার করেছেন। আমি বললাম, আমাকে বিষোদ্গার করার মতো কোনো ব্যক্তিগত তথ্য যদি তাদের কাছে থাকে, তা যদি লেখে এতে আমি অখুশি নই।

পরে জানলাম এই বিষোদ্গারে কোনো তথ্য নেই। আছে কুরুচিপূর্ণ ভাষা ও ইঙ্গিত। কাজী লাল নিজের কুরুচিপূর্ণ মনের পরিচয় প্রকাশ করতে গিয়ে ব্যবহার করেছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নাম। কাজী লাল এবং তার কয়েকজন সন্ত্রাসী অনুসারীর মনে আমাকে নিয়ে কিছু প্রশ্ন তৈরি হয়েছে। যেমন আমি কতবার জাপানে গিয়েছি, কাদের দাওয়াতে, কাদের অর্থে ইত্যাদি।

আমি তো শুধু জাপানে অনেকবার যাইনি। আরো অনেক দেশে অনেকবার গিয়েছি। আমাকে কারা দাওয়াত দিয়েছেন, প্লেনের টিকেট দিয়েছেন, অতিথি করে নিয়ে গেছেন এটা জাপানের বাঙালি কমিউনিটির প্রায় সবাই জানেন। কাজী লাল বা তার অনুসারীরা জানেন না এটাই বিস্ময়কর। তারপরও এটা যদি আমার কাছ থেকে কেউ জানতে চান, জেনে নিতে পারেন। বলতে আমার কোনো অসুবিধা বা আপত্তি নেই। আগামী নভেম্বর মাসে আমার আবার জাপানে যাবার কথা। সময় করতে পারলে দু’তিন দিনের জন্যে হলেও অবশ্যই আসছি। কারণ নভেম্বর মাস পুরোটাই আমি প্রায় দেশের বাইরে থাকব। নভেম্বরের শুরুতে যাব ভারতে। সেখান থেকে ফিরে এসে যাবার কথা আমেরিকায়। যাবার প্রোগ্রাম ঠিক হয়ে আছে দক্ষিণ আফ্রিকার ক্লাইমেট চেঞ্জ সামিটেও। এখন আমি জাপানে বা এসব দেশে কেন যাই বা যাচ্ছি সেটা যদি কাজী লাল বা তার অনুসারীদের জানার ইচ্ছে হয়, তবে আমার কাছ থেকে জানতে পারেন। জানাতে আমার আপত্তি নেই।

৪.
রাহমান মনি লেখায় বেশ কিছু অভিযোগ করেছেন কাজী লালের বিরুদ্ধে।

জাপান প্রবাসী বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের সংগঠন বিসিসিআইজে’র নির্বাচন হোক এটা চান না কাজী লাল। তিনি দূতাবাসে ফোন করে রাষ্ট্রদূতের অনুপস্থিতে বিসিসিআইজে’র নির্বাচন করা ঠিক হবে না, নির্বাচন স্থগিত করার কথা বলেছেন। রাহমান মনি সে কথা লিখেছেন। কাজী লাল কী অস্বীকার করবেন, তিনি দূতাবাসে ফোন করে একথা বলেননি? অস্বীকার করতে পারলে তিনি নিশ্চয়ই প্রতিবাদ পাঠাতেন।

একটি হত্যা মামলায় কাজী লালের সম্পৃক্ততার কথা লিখেছেন রাহমান মনি। বিষয়টি নিয়ে কাজী লাল টেলিফোনে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। আমিও মনে করি হত্যা মামলার মতো কোনো বিষয়ে সুনির্দিষ্ট তথ্য ছাড়া লেখা ঠিক নয়। তাই কাজী লালকে বলেছিলাম আপনি প্রতিবাদ পাঠান। আমরা প্রতিবাদ তো ছাপাবই। সঙ্গে আমরা দুঃখ প্রকাশও করব।

কাজী লালের সঙ্গে কথা বলার পরের দিন সাপ্তাহিক অফিসে আসলেন একজন জাপান প্রবাসী। তার সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে কথা বলছিলাম। প্রতিবাদ পাঠানোর বিষয় আসতেই তিনি বললেন, কাজী লাল প্রতিবাদ পাঠাবেন না। প্রতিবাদ পাঠানোর মতো অবস্থায় তিনি নেই। কারণ জাপানে একটি ‘হত্যাকাণ্ড’ ঘটেছিল সেটা তো মিথ্যা নয়। জাপান আওয়ামী লীগাররাই একজন আওয়ামী লীগারকে হত্যা করেছিল। কাজী লাল সেই দলের সভাপতি। সুতরাং হত্যাকাণ্ডের দায়ভার কী কাজী লালের ওপর পড়ে না?

তারপরও আমি আশাবাদী ছিলাম, প্রতিবাদ তিনি পাঠাবেন। কিন্তু প্রতিবাদ পাঠাননি। জাপান প্রবাসীর কথাই সত্যি হলো। আমি বলছি না যে কাজী লাল সেই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন। তবে তিনি কী ব্যাখ্যা দেবেন, কেন, কীভাবে, কারা এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছিল?

৫.
কাজী লাল আমাকে টেলিফোনে বলেছিলেন, আপনার চরিত্র নিয়েও আমরা মিথ্যা কথা লিখতে পারি। লিখতে পারি আপনি জাপানে এসে কী কী করেন… ইত্যাদি। বলেছিলাম লিখতে পারেন, লিখলে আপনাকে ঠেকাবে কে!

পরবর্তীতে জানা গেল কাজী লাল সেটাই করছেন! কাজী লাল আমার কাছে দাবি করলেন ‘জাপান আওয়ামী লীগে আমি এত বছর আছি কারণ আমার বিকল্প এখানে তৈরি হয়নি।’ স্বীকার করি কাজী লালের দাবি যথার্থ। কারণ এমন নিচু মানসিকতার মানুষ জাপান আওয়ামী লীগে আর একজনও আমি দেখিনি!!

৬.
রাহমান মনিকে লাঞ্ছিত করেছে এমন পাঁচ জনকে আমরা সন্ত্রাসী ক্যাডার হিসেবে অভিহিত করেছি। প্রশ্ন এসেছে রবির নাম নিয়ে। বলা হচ্ছে তিনি প্রবীণ রাজনীতিবিদ! তিনি রাহমান মনিকে লাঞ্ছনা করেননি। আরও খোঁজ নেয়ার চেষ্টা করে যা জানলাম তা এমন রনি ও মিলন সরাসরি রাহমান মনিকে লাঞ্ছিত করেছে। নির্দেশ দিয়েছে মাছুম ও ভুট্টো। পাশে দাঁড়িয়ে ছিলেন রবি।

কতটা প্রবীণ, দায়িত্বশীল রাজনীতিবিদের পরিচয় রবি দিয়েছেন? তিনি রনি, মিলনকে ঠেকানোর চেষ্টা করেননি। মাছুম, ভুট্টোকেও কিছু বলেননি। এর থেকে কী প্রমাণ হয়? তিনি কী ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত নন? যদি মনে করা হয় রবি এই ঘটনার অন্যতম ইন্ধনদাতা, সেটা কী ভুল হবে?

৭.
যতবার জাপানে গিয়েছি প্রতিবার জাপান আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে দেখা হয়েছে, কথা হয়েছে। সবসময়ই জাপান আওয়ামী লীগের প্রতিনিধিত্ব করতে দেখেছি সাধারণ সম্পাদক ছালেহ মো. আরিফকে। তিনি যে কোনো কথা বলেন অত্যন্ত বলিষ্ঠভাবে। সাপ্তাহিক-এর বিরুদ্ধে কোনো কথা থাকলেও তিনি বলেছেন প্রকাশ্যে সবার সামনে জোরালোভাবে। আমরা তার জবাবও দিয়েছি। অত্যন্ত সজ্জন, যোগ্য দক্ষ মানুষ আরিফ। বিশ্বাস করি তিনি উপস্থিত থাকলে সাংবাদিক লাঞ্ছনার মতো ঘটনা ঘটত না।

গতবারের আগে জাপানে কাজী লালের সঙ্গে আমার কখনো দেখা হয়নি। গতবার দেখা হয়েছে, কথা হয়েছে। এক টেবিলে বসে বিয়ার পান করেছি আমরা। কিন্তু তিনি এমন মানসিকতার রাজনীতিবিদ সেটা বুঝতে পারিনি। যাই হোক দেরিতে হলেও বুঝলাম।

৮.
দু’তিন দিন আগে জাপান থেকে ফিরোজ আলম ফোন করে জানালেন, বিষয়টি নিয়ে আর নাড়াচাড়া না করাই ভালো। কারণ তারা আপনাকে নিয়েও সত্য মিথ্যা অনেক কিছু লিখছে। এখন কিছু করতে গেলে লেখালেখি বেড়ে যেতে পারে। বললাম ‘সত্য মিথ্যা’ নয়, যা লেখা হয়েছে তার পুরোটাই মিথ্যা। ‘সত্য মিথ্যা’ মিলিয়ে লেখার মতো কোনো তথ্য তাদের কাছে নেই। তবে তারা যে কোনো কিছুই লিখতে পারে এটা আমি বিশ্বাস করি। কাজী লাল সেই যোগ্যতার পরিচয় ইতোমধ্যে দিয়েছেন। সামনে আরো দেবেন এতে আমার কোনো সন্দেহ নেই।

পেশা সাংবাদিকতা। সত্য কথা লিখতে হয়, লিখি। ক্ষমতার বিএনপি আমাদের বিষোদ্গার করেছে। বলেছে আমরা আওয়ামীপন্থী। অতীতের ক্ষমতার আওয়ামী লীগ বিষোদ্গার করে বলেছে আমরা বিএনপিপন্থী। বিরোধী দলের আওয়ামী লীগ আমাদের নিজেদের লোক বলে মনে করত। ক্ষমতার আওয়ামী লীগ মনে করছে আমরা তাদের বিরোধি। বিরোধী দল বিএনপি মনে করছে এখন আমরা তাদের পক্ষে। ক্ষমতায় যারা থাকে তারা বেশি অপকর্ম করে। সেটা লিখলে বিরোধি হয়ে যেতে হয়। বিরোধী দলের তো অপকর্ম করার সুযোগ কম। তাই তাদের নিয়ে তেমন কিছু লেখার থাকে না।

ক্ষমতা আর ক্ষমতা ছাড়া রাজনীতিকদের এই আচরণে আমরা অভ্যস্থ। তবে ক্ষমতাসীনদের সন্ত্রাসী কর্মকা- এতদিন দেশের ভেতরেই সীমাবদ্ধ ছিল। জয়নাল হাজারী জাতীয় সংসদেও সাংবাদিক বিষোদ্গার করেছিলেন। আর এখন কাজী লালরা টোকিওতে এই কাজ করছেন।

এই ভয়ে আমরা কী চুপচাপ হয়ে যাব? তাছাড়া আর উপায়ই বা কী? রাহমান মনি আবেদনের প্রেক্ষিতে জাপান পুলিশ কী করবে আমরা জানি না। আমরা তো লাঞ্ছনার পরিবর্তে লাঞ্ছনা করতে পারব না। আমরা অসৎ, অপকর্মকারী, সন্ত্রাসীদের প্রকৃত পরিচয় তুলে ধরতে পারব। ভয় আছে। রাহমান মনি আবার লাঞ্ছিত হতে পারে। আমাকে নিয়ে আরও অনেক কুৎসিত অসত্য কথা লেখা হতে পারে। তবে বিষয়টি নিয়ে আমি চিন্তিত বা ভাবিত নই। আমার পেশা, জীবনযাপনে গোপন কিছু নেই। সবই প্রকাশ্য। আমার সম্পর্কে দেশের মানুষের, প্রবাসীদের, জাপান প্রবাসীদের মোটামুটি পরিষ্কার একটা ধারণা আছে। তারা নিজেরা এসব বিষাদ্গারের সত্য মিথ্যা মূল্যায়ন করে সিদ্ধান্ত নিতে ভুল করবেন না সে বিশ্বাস আমার আছে। অপরাধীরা তাদের অপরাধ ঢাকার জন্যে নানা রকমের অপকর্ম করে থাকেন।

কাজী লালও সেই চেষ্টাই করছেন! দুঃখের বিষয় এটাই যে, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নাম ব্যবহার করে করছেন!!

সাপ্তাহিক

Leave a Reply